বুড়ো ভাম


কেউ বলে বুড়ো ভাম, কেউ বলে পাজী। কেউ বলে এইবার, বেটা মরলেই বাঁচি। গানটা আমার জন্যই লেখা হয়েছিল কিনা জানি না। তবে বয়সটা নয় নয় করে আমার ৬৫ বছর অতিক্রান্ত। তবুও আমার শখ গেলো না। আমি আসলে একটি বুড়ো ভাম। এই বয়সেও রক্ত টগবগ করে ছুটতে আরম্ভ করে যদি কোন যৌবনবতী মেয়ে আমার চোখে পড়ে। স্বভাবতই আমার অফিসের সেক্রেটারী মল্লিকাও আমার চোখ এড়ালো না। বেশ সুন্দর দেখতে মেয়েটাকে। ছিপছিপে গড়ন। গায়ের রং ফর্সা। বুকদুটো বেশ পেল্লাই আর ভারী। আমি আদর করে নাম দিয়েছি সুইটি। সুইটিই এখন আমার দিবারাতের স্বপ্ন। এই বয়সেও নতুন করে শখ জেগেছে। ভাবছি সুইটিকে একবার প্রস্তাবটা দিয়েই দেখব কিনা। দেখি না শেষ পর্যন্ত কি হয়?
ভেবেছিলাম বার্থডে পার্টিতেই ওকে প্রস্তাবটা দেব। খুব ভাল নাচতে পারে সুইটি। বার্থডে পার্টিটাতে একাই নেচে গেয়ে মাতিয়ে রাখছিল। আমার বুকে বুক ঠেকিয়েও নাচছিল সুইটি। ওর কোমর জড়িয়ে অনুভব করছিলাম, ওর দুই স্তনবৃন্ত কঠিন হয়ে উঠছে। তালে তালে আমার বুকে আঘাত করছে, সঙ্গে সঙ্গে আমার হৃদয়ও ক্ষতবিক্ষত হচ্ছে। সত্যি সুইটি যেন পুরুষ মানুষের শরীরের প্রতিটি কোষে কোষে দামামা বাজিয়ে দিতে পারে। এ আমার শুধু সেক্রেটারী হয়েই থাকতে পারে না। অন্তত বাকীটা জীবনের জন্য আমার দেওয়া প্রস্তাবটা যদি মেনে নেয় সুইটি। তাহলে? একেবারে সোনায় সোহাগা। আমাকে সত্যি তখন আর পায় কে?
ও একটা কাঁধকাটা ডিপ্ গলার অদ্ভূত ডিজাইনের পোষাক পড়েছিল। সুইটির উর্ধাঙ্গের পোষাক যেন একেবারে মারকাটারি। দুই স্তন রকেটের মতন তীক্ষ্ণ হয়ে বারেবারেই বুকে বিঁধছে। আমার মনে হল, আহা, কতকাল যেন এমন মধুর বুকের আঘাত আমি পাইনি। সত্যি সুইটি তুমি আমার রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছ। এবার শুধু আমার দেওয়া প্রস্তাবটাকে যদি তুমি মেনে নাও, তাহলে অন্তত আমার থেকে বেশি সুখী পৃথিবীতে আর বোধহয় কেউ হবে না। তাহলে সুইটি, তুমি কি সত্যি সত্যিই?
সেদিন সুইটি আনন্দের চোটে তিন পেগ স্কচও খেয়ে ফেলেছে। কোনদিন যে ড্রিংক করে না। আজ আমার জন্মদিনের পার্টি বলেই খেয়েছে। ওকে যখন ফেরার সময় গাড়ীতে তুলে দিলাম তখন পার্টি প্রায় ভাঙা হার্ট। হঠাৎই গেটের সামনে কায়দা করে আমাকে একটা চুমু খেয়ে বসল সুইটি। এমন ভাবে চুমুটা খেলে যাতে ড্রাইভার দেখতে না পায়। আমি ভাবলাম, বাহ্, এই তো সেরা সময়। এবারে সুইটিকে প্রস্তাবটা দিলে মন্দ হয় না।
পার্টিতে আমার সঙ্গে টানা আধঘন্টা নেচেছে সুইটি। ৬৫ বছরের বুড়ো হয়ে একটা ২৪ বছরের যুবতীর সঙ্গে পাল্লা দিতে পারবো না, এটাই স্বাভাবিক। মাঝে মাঝে একটু দম নিয়ে ওর সাথে পাল্লা দিচ্ছিলাম। মিসেস সেন, আমার পার্টনারের স্ত্রী দূর থেকে আমাকে দেখছিলেন। আমি তখন মাঝে মধ্যেই মিউজিকের তালে তালে সুইটির গলা জড়িয়ে ধরছি, কখনও বা কোমর। মিসেস সেন কাছে এসে বললেন, বাহ্ অনেকদিন পরে আপনাকে বেশ অল্পবয়সী ছোকরার মতন লাগছে। এত প্রাণবন্ত, উচ্ছ্বল। টনিকটা পেলেন কোথাথেকে? সাথে যে রয়েছে, সেই কি? না কি অন্যকেউ?
আমি আর সুইটি অবশ্য কোন রিয়াক্ট করিনি। শুধু মিসেস সেনের কথা শুনে মুচকি হেসেছিলাম দুজনে। নয় নয় করে বয়সটাও যেমন ৬৫ পার হয়ে গেল। তেমন সুচরিতার সাথে আমার ডিভোর্সও ২৫ বছর অতিক্রান্ত। ডিভোর্স সেলিব্রেশনেরও সিলভার জুবিলি করা যেতে পারে। শেষ বয়সে আবার একটু নতুন উদ্যম ফিরে পাচ্ছি এবং সেটা অবশ্যই সুইটির জন্যই। কথাটা মিসেস সেন ভুল কিছু বলেননি।
সুচরিতার সঙ্গে আমার বিয়ে হয় ৩৫ বছর বয়সে। চারবছর ঘর করার পরেই মিউচাল ডিভোর্স নিতে বাধ্য হই। আসলে ও আমার গাড়ীর পুরোন ড্রাইভার শিবুকে নিয়ে এমন জড়াজড়ি করে শুয়েছিল, আমার ডিভোর্স নেওয়া ছাড়া সত্যি কোন উপায় ছিল না। তাও প্রায় ২৫-২৬ বছর হয়ে গেল বৈকি।
এরপরে বাকীটা জীবন একাকীত্মে ভুগিনি। চুটিয়ে নারীসঙ্গ করেছি। কয়েকশো ফ্ল্যাটিং। কোন জাতবিচার নেই। বয়স নেই। বুড়ি থেকে ছুঁড়ি। আত্মীয়-অনাত্মীয়। সুযোগ পেলে কোন মেয়েকেই ছাড়ব না। এই ছিল আমার নীতি।
সুচরিতা প্রমান করে দিয়েছে প্রেম টেম এসব অর্থহীন। শরীরই সব। সেক্সের কাছে সবই তুচ্ছ। লাভ- প্রেমের মাথায় ঝাড়ু। মনের কোণে প্রেম নিয়ে যে দূর্বলতাটা ছিল, কোথায় যেন উবে গেল ডিভোর্স হওয়ার পর। এক ফোটাও তার চিহ্ন রইল না। আমি যেন শরীরেরই পূজারী হয়ে গেলাম। বুড়ো ভাম। নারীর শরীর দেখলেই তার মধ্যে কামভাব এখনও জাগ্রত হয়।
আজ থেকে বছর তিনেক আগে মল্লিকা অর্থাৎ সুইটিকে সেক্রেটরী হিসেবে আমি অ্যাপোয়েন্টমেন্টটা দিই। ইন্টারভিউটা আমিই নিয়েছিলাম। সুইটির চেহারাটা তখনই পছন্দ হওয়াতে ওকে সিলেক্ট করেছিলাম। ইন্টারভিউতে কিছু অনাবশ্যক প্রশ্ন ছিল। সুইটি অবশ্য একবারের জন্যও বিচলিত বোধ করেনি।
-তুমি প্রেমে বিশ্বাস করো?
-করি।
-কারুর সঙ্গে প্রেম করো?
-না।
-কেন?
-তেমন কাউকে ভাললাগেনি এখনও পর্যন্ত।
-সেক্স সন্মন্ধে তোমার কি মতামত?
-ফাইন।
-তুমি কি ভার্জিন?
-মোটেই নয়।
-যে কোন পুরুষের সঙ্গে শুতে রাজী আছো?
-যদি দরকার পড়ে এবং যদি তাকে আমার ভাল লাগে।
এই তো পথে এসো মাই বেবী। ওকে বললাম, চাকরিটা তোমার যেমন দরকার, আমারো সিনসিয়ার একজন কাজের মেয়ে দরকার। এখন যা মাইনে দেবো, পরে নিশ্চই আরো বাড়াবো। তবে সবই নির্ভর করবে, তোমার ওবিডিয়েন্স আর বিহেভিয়রের ওপর। আর ইউ রেডী টু ডু দ্য জব?
সামনে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট লেটারটা টাইপ করা রয়েছে। সুইটি ওরফে মল্লিকা তখন চাকরিটা নেবে কি নেবেনা তাই বোধহয় ভাবছে। আমাকে স্মার্টলি একটা প্রশ্ন করে বসলো, -আপনার কি মেয়েমানুষের প্রতি কোন দূর্বলতা আছে?
-তা একটু আছে বৈকি।
-আপনি কি আমাকেও?
-তোমাকে মানে?
-মানে আমাকেও সেভাবে দেখার চেষ্টা করছেন?
ওর কথা শুনে বুড়ো ভাম, আমি হাসতে লাগলাম। ওকে বললাম, বসের জন্য কাজ ছাড়াও অতিরিক্ত যদি কিছু করে দেখাতে পারো, সেটা তো অলওয়েজ অ্যাকসেপ্টেবল। তুমি কতটা ফ্রী। তার ওপর সবকিছু নির্ভর করছে। তবে শুরুতেই আমি তো তোমাকে জোর করতে পারি না। আই থিঙ্ক ইউ আন্ডারস্ট্যান্ড ওয়েল।
সেদিন আমার মনে একটা জায়গা করে নিয়েছিল সুইটি। তার এক সপ্তাহ পরেই আমার মনে এবার আগুন ধরিয়ে দিল সুইটি। ওকে বলেছিলাম, সুইটি তোমাকে সবসময় এত অ্যাট্রাকটিভ লাগে, আমার বয়সটা যদি কম হত, তোমাকে হয়তো বলেই বসতাম, এই সুন্দর দেহটা একবার পোষাক ছাড়াই দেখতে চাই। তুমি নিশ্চই জীবন্ত এক প্রতিমা। অবশ্যই তোমার এতে সন্মতি চাই।
অফিসের ঘরের দরজা বন্ধ। সামান্য দ্বিধা না করে ওপরের টপ্ আর ব্রা খুলে ফেলেছিল সুইটি। হাসি হাসি ওর মুখ। সু-উচ্চ স্তন, সুগোল। আমার সিংহ মার্কা হাতের থাবায় পারফেক্ট ফিট করবে। ছোট ছোট লাল চেরির মতন দুই বোঁটা। যেন পান্নার টুকরো তীক্ষ্ণ তার ফলা। নরম বোঁটা নয়, যা উত্তেজিত করে শক্ত করতে হয়। আপনা থেকেই শক্ত। বরং চুষে নরম করা যায় কিনা দেখতে হবে।
সুইটিকে বলেছিলাম, বেশি বিরক্ত করব না। শুধু ছোটখাটো একটু উপদ্রব করব। তোমার আপত্তি নেই তো?
আমাকে চমকে দিয়ে সুইটি বলেছিল, করলে ভাল লাগবে। উপদ্রবটা একটু বেশি হয়ে গেলেও আপত্তির কিছু নেই।
সেই মূহূর্তে মল্লিকার চাকরিটা একেবারে পাকা। আমার বয়স তখন ৬১ আর ওর প্রায় ২১ ছুঁইছুঁই। মানে ও যুবতী থাকতে থাকতেই আমি মরে যাব। ব্যাপারটা বেশ ইন্টারেস্টিং।
বার্থডে পার্টির পরেরদিনই ওকে ডেকে কথাটা বললাম, সুইটি তোমার সঙ্গে আমার একটা দরকারী কথা আছে।
ও জানে আমার দরকারী কথা মানেই কিছু সেক্সী ইয়ার্কি আর আবদার। আমাকে হাসিমুখে বলল, -বলুন।
দুম করে ওকে বলে বসলাম, সুইটি, তোমাকে আমি বিয়ে করতে চাই।
চমকে উঠল সুইটি। মুখে হাসি উধাও।
জিজ্ঞেস করলাম, কি হল?
ও চুপ করে রইল। সুইটির দৃষ্টি তখন মেঝের কার্পেটের দিকে।
বললাম, কেন সুইটি? এতদিন তোমার সাথে কত খুনসুটি করলাম। আমাকে দেখেও পছন্দ হল না তোমার?
সুইটি বলল, সে কথা নয়।
ওকে বললাম, পরিষ্কার করে বলো, তোমাকে আমার পছন্দ না অপছন্দ?
সুইটি মুখ তুলে বলল, আমার দু একটা প্রশ্ন আছে।
-বলো।

আজ থেকে চারবছর আগে আমি সুইটিকে চাকরিটা দিয়েছিলাম। ইন্টারভিউ আমি নিয়েছিলাম। এখন সুইটি আমার ইন্টারভিউ নিচ্ছে। কারণ এটা বিয়ের চাকরি। সেই চাকরি দেবার মালিক, থুড়ি মালকিন, মল্লিকা চ্যাটার্জ্জী। আমাকে এই ইন্টারভিউতে পাস করতেই হবে।
সুইটির প্রশ্নবান শুরু হল এবার।
কাল আপনার বার্থডে পার্টিতে আপনি যা বয়স ঘোষনা করলেন, সেটা কি সত্যি?
-হ্যাঁ। এখন ৬৫ বছর। আর আজকে হল ৬৫ বছর ১ দিন।
-আপনার শরীর –স্বাস্থ্য ফিগার তো এখনও বেশ ভাল। নিশ্চই জিমে যান, শরীর চর্চা করেন। বয়সটা কি সত্যি বেশি? না বাড়িয়ে বলেন।
ওকে বললাম, না সত্যি। এখন ৬৫ বছর ১ দিন বয়স।
-তার মানে আপনি আমার থেকে একচল্লিশ বছরের বড়।
-হ্যাঁ। তা ঠিক।
-এবার পরিষ্কার করে বলুন তো। এতদিন বিয়ে করেন নি কেন?
-করেছিলাম সুইটি। করেছিলাম। কিন্তু সে বিয়ে আমার টেকে নি। তারপরে-
-আচ্ছা, আচ্ছা বুঝেছি আর বলতে হবে না। এবারে বলুন তো? আপনার শারীরিক কোন প্রবলেম, লিঙ্গোত্থানে কোন সমস্যা আছে কিনা? কারণ আপনার সাথে সেভাবে শুধুমাত্র ওই খুনসুটি ছাড়া ইন্টারকোর্স তো কোনদিন হয়নি। তাই বলছিলাম।
খেয়াল হল, সত্যি তাই। তিনবছর মেয়েটার সাথে অনেক খুনসুটিই করেছি, কিন্তু ওটা যেটা বলেছিল ভাললাগে বা করলে ভাল লাগবে, সেই ফুল স্কেল যৌন সংগম তো এতদিন করা হয়নি। অথচ ও যে কুমারী নয়, সেটা প্রথম দিনই সুইটি জানিয়ে দিয়েছিল। আমার নিজেরই অবাক লাগছে ওর সাথে একবারের জন্যও ইন্টারকোর্স করা হয়নি। তাই বোধহয় ওর মধ্যে প্রশ্ন জাগছে। আমার মধ্যে অন্যান্য যত শক্তিই থাক, আমার পুরুষাঙ্গের পূর্ণ দৈর্ঘ আর দৃঢ়তা নিয়ে আমি সঙ্গমে সমর্থ কিনা সে প্রশ্ন মনে আসাই স্বাভাবিক। তাছাড়া বয়সটাও যে নয় নয় করে ৬৫ বছর পার হয়ে গেল। তবে আমার ঠাকুর্দার বাবা, উনসত্তর বছর বয়সে তার সর্বকনিষ্ঠ সন্তানের পিতা হতে পেরেছিলেন। সে যুগে খাঁটি ঘি, খাঁটি খাবার ছিল। আমাদের যুগে ভেজাল খাবার খেয়ে, কার্বাইডে পাকানো ফল, হিমঘরের তরকারি, জল মেশানো দুধ আর বয়লার্স চিকেন খেয়ে রক্তের জোর সেকালের পুরুষের মতো হবে কি করে?
সত্যি এখন আমার লিঙ্গত্থান হয় না। এটা বছর তিনেক হল আবিষ্কার করেছি। সেদিন ওই কলগার্লটার সাথে যৌনসঙ্গম করতে ব্যর্থ হলাম। মেয়েটা ছটফট করছিল।– ওয়াটস্ দ্যা রং, ম্যান।
-ইয়েশ। বাট আই অ্যাম ট্রাইয়িং।
-তোমার ককটাতো নড়াচড়া করছে না।
ও কিছুটা চেষ্টা করেছিল। কিন্তু আমার সুদীর্ঘ পুরুষাঙ্গ। যা আমার সারাজীবনের গর্ব। সে আর মাথা তুলে দাঁড়াতে পারলো না। সাড়ে পাঞ্চ ইঞ্চির একখন্ড মাংস। যা উত্থিত হলে প্রায় সাত ইঞ্চি মতন হয়। সে নতমস্তকে স্থির হয়ে রইলো। দুই অন্ডকোষে ঘষাঘষি করেও অ্যাংলো ইন্ডিয়ান কলগার্ল তাতে সাড়া জাগাতে পারলো না। রাগের মাথায় বলে উঠল, -ব্লাডি, ডিজগাস্টিং।
কিছু টাকা দিয়ে ওকে সেদিন বিদায় করে দিয়েছিলাম। এতদিনের পৌরুষের দর্প এবার শেষ। মনটা খারাপ হয়ে গেল। তারপরে ভাবলাম, ভায়েগ্রা তো এসে গেছে বাজারে। ট্যাবলেট, স্প্রেও বাজারে রয়েছে। সুতরাং অত চিন্তা কিসের। পরমূহূর্তেই ঘৃণা এলো। ওষুধ খেয়েই লিঙ্গত্থান ঘটাতে হবে? না না, এটা মেনে নেওয়া যায় না। ছিঃ।
এরপরেই তিনবছর ধরে সুইটিকে শুধু সীমিত আদর। এর বেশি আর কিছু হয় নি।
প্রশ্নটা শুনে সুইটিকে ঘুরিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম, তুমি কি সন্তানের মা হতে চাও?
সুইটি বলল, তার কোন মানে নেই। কিন্তু ইন্টারকোর্স ছাড়া বিবাহিত জীবন তো সুখের হয় না। চরম আনন্দ, সেক্সের ক্লাইমেক্স না হলে বিবাহিত জীবন তো ম্যাড়মেড়ে। তাই বলছিলাম।
আমি বললাম, তারজন্য চিন্তা নেই। তোমাকে এ নিয়ে ভাবতে হবে না।
এরপরেই আমাদের বিয়ে হয়ে গেল। ছোট্ট একটা পার্টি দিলাম। ৬৫ বছরের এক বুড়ো, ২৪ বছরের মেয়েকে বিয়ে করা নিয়ে এ দেশে ঢাল ঢোল পেটানো যায় না। এটা বিলেত নয়। আমরাও কেউ এলিজাবেথ টেলর নই।
সুইটিকে নিয়ে এরপরে বিছানায় উঠলাম। ও কিছুটা বিভ্রান্ত, চিন্তাগ্রস্থ। বুড়ো শেষ পর্যন্ত খেল দেখাতে পারবে কি?
অপারেশন শুরু করলাম। প্রথমে আমি সুটের কোট, টাই আর শার্ট খুলে ফেললাম। ঘরেতে মৃদু আলো আর সফ্ট মিউজিক বাজছে। দু পেগ স্কচ খেলাম। তারপর হাফ পেগ বিনা জলে। ওকে দিলাম জল মেশানো এক পেগ।
সুন্দর একটা সাদা গাউন পরেছে সুইটি। আয়নার সামনে এনে ওকে চুমু দিলাম। এক- দুই-তিন-চার-পাঁচ। ধীরে ধীরে। এরপরে ছয়-সাত-আট-নয়-দশ। মধ্যম চাপ ও গতি। এগারো-বারো-তেরো-চোদ্দ-পনেরো। বেশ জোরে ও জিভটাকে প্রায় গিলে ফেললাম। ওর দমবন্ধ হবার আগে মুখ সরিয়ে চুমু দিলাম চোখের পাতায়। দুজনেই বিরাট আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আছি। গুন গুন করে গান ধরলাম। মাই সুইটি অ্যান্ড ইওর সুইট লিপস্।
গাউনের দড়ি খোলার সাথে সাথেই ওর কাঁধটুকু উন্মুক্ত করলাম। এইবার আমার ঠোঁট নিজের মুখে টেনে নিল সুইটি। একটানে আমার গেঞ্জীটা ছিঁড়ে ফেলল। লোমশ বুকে মুখ ঘষতে ঘষতে আমার ডান স্তনবৃন্ত কামড়ে দিল। পুরুষেরও স্পর্ষকাতর হয় স্তনবৃন্ত।
সাড়ে পাঞ্চ ইঞ্চি দীর্ঘ, জাঙ্গিয়ার আড়ালে লুকানো সাপ একটু নড়ে উঠল যেন। তা নিয়ে ভাবিত হলাম না আমি।
সুইটির গাউন এখন মেঝেতে। ওর গায়ে ছোট্ট ব্রা, আর ছোট ত্রিকোণ প্যান্টি। আয়নার দিকে মুখ ঘুরিয়ে ওর সারা বুক পেট তলপেট নাভি ম্যাসাজ করছি। ব্রা খুলছি না। দশমিনিট ওকে ব্রা পরিহিত অবস্থায় বুকে পেটে পিঠে আদর করলাম। আঙুলের যাদু, হাতের করতলের কসরৎ, সাড়া গায়ে মুঠো মুঠো পাউডারে স্নান করিয়ে দিলাম ওকে। এবারে বুঝছি প্রচন্ড উত্তপ্ত সুইটি। দু-আঙুলে ব্রা-এর ওপর দিয়ে ওর স্তনবৃন্তকে আরও তীক্ষ্ণ করলাম। শয্যায় বসে কাছে টেনে দাঁত দিয়ে নতুন ব্রা এর শুধু দুই নিপলের কাপড়টুকু কেটে দিলাম। তীক্ষ্ণ চেরি ফল বেরিয়ে এলো।
এবার শোষণ। অগান্ত্যের সমুদ্র শোষণের মতো। আশ্চর্য, ওর স্তনবৃন্ত যেন ফেটে পড়ছে। ব্রা-এর ঢাকনার আড়ালে দুই স্তন ব্রা-এর স্ট্র্যাপ যেন ছিঁড়ে ফেলবে। তবু ব্রা খুলছি না আমি। ওর প্যান্টিও পরা রয়েছে। এবার বিছানায় ওকে শুইয়ে দিয়ে দুই বগলে কাতুকুতু দিতে শুরু করলাম। এপাশ –ওপাশ ডাঙ্গায় তোলা মাছের মতো কাতরাতে লাগলো সুইটি।
ওর ঠোঁট ফাঁক করে অনামিকা ঢুকিয়ে দিলাম। পাগলের মতন আঙুলটা চুষতে লাগল ও। আমি ওর বগলের রেশমি লোম আঙুলে জড়িয়ে টানতে লাগলাম। উঠে বসে আমার বগলের লোমে মুখ ডুবিয়ে দিয়ে ঘ্রামের ঘ্রাণ নিতে থাকলো ও। বলল, এখানে সেন্ট দিও না। এই গন্ধটা আমি চাই।
চল্লিশ-ইঞ্চি চওড়া বুকের ওপর মাথা রেখে মুঠো করে আমার বুকের লোম টানছে সুইটি। আমি ওর সিঁথিতে আঙুল দিয়ে চিরে সিঁদুরের মতো রক্তের দাগ আঁকছি। দুই ভূরুর মাঝখানে মধ্যাঙ্গুলি দিয়ে টিপে ধরলাম। প্রথমে ধীরে, তারপর চাপ বাড়ালাম। খুব কম লোকই জানে কপালের মাঝখানে নারীর ‘সেক্স’ স্পট থাকে। বিখ্যাত বই ওয়াইল্ড সেক্স ফর নিউ লাভারে পড়েছি। যদিও আমি নিউ লাভার নই। ফ্রীজ থেকে এবার এক টুকরো বরফ এনে সুইটির উরুর মাঝে, নিতম্বে, শিরদাঁড়ায়, হাতে আলতো করে ছোঁয়ালাম। ওর গায়ে কাঁটা দিল।
সেনসুয়াল ম্যাসাজের বিদ্যা কাজে লাগালাম। আমার বেল্ট খুলে ফেলল সুইটি। উঠে বসল। আমি সুইটির নাভির মধ্যে একটা আঙুল ঢুকিয়ে দিলাম। আরেকটা আঙুল দুই নিতম্বের মাঝখানে।
লাফিয়ে উঠে ও নিজের ছোট জাঙ্গিয়া নিজেই নিচে নামিয়ে দিল। এক হাতে ব্রা টেনে খুলে ফেলল। ওকে এবার চিৎ করে শুইয়ে দুই বুকের মাঝখানে মুখ স্থাপন করলাম। ও দুই হাতে দুই স্তন দুপাশ থেকে ধরে মাংসপিন্ডটাকে সস্নেহে আমার মুখের তলায় চেপে ধরলো। মুখ ঘষতে ঘষতে এবার ওর দুই স্তনে আঁচর, আদর আর মোচড়। চুমু খেয়ে বললাম, আমার সুইটি, এবার তোমার জলধারা কেমন আমি পান করি তুমি দেখ।
আমার মধ্যমা পাঁচ ইঞ্চি দীর্ঘ। সেই আঙ্গুলে রবারের কাঁটা দেওয়া আংটি। আঙুলের মাথায় একটা, গোড়ায় একটা। পুরো মধ্যম চালান হয়ে গেল। শিশুর মতন তাকে বুকে নিয়ে আদর করছে সুইটি। আমার বুকের ওপর চেপে পিছন ফিরে বসেছে। আমি শান্তভাবে সুইটির পিঠে আমাদের নাম লিখছি আঙুল দিয়ে, ইংরেজীতে, বাংলায়, ফিসফিস করে বলছি, মাই ডারলিং। ডোন্ট লাভ মি সো মাচ।
ওর দুই নিতম্ব এখন আমার মুখের ওপরে। কুস্তিগীরের মতো আমায় চেপে ধরেছে। দুহাতে গ্রিপ করে টেনে নিয়ে জিভ ঢোকালাম আমি। তারপর এক ঝটকায় ওকে দাঁড় করালাম।এবার সম্পূর্ণ উলঙ্গ দুজনে।
আমি ওর জাঙ্গিয়া টানতে শুরু করলাম। ওই টেনে খুলে দিল। একটা ওড়না জাতীয় জিনিষ দিয়ে ওর দু হাত পিছমোড়া করে বাঁধলাম আমি। তারপর কোলে নিয়ে বিছানায় গড়িয়ে দিলাম। ওর বুকে হাল্কা করে চেপে বসলাম। ঘুরে বসলাম। এবার ঠোঁট দিয়ে ঝড় তুললাম আমি। দুই স্তনবৃন্ত নখ দিয়ে কেটে দিতে চাইলাম। চুল দাঁত দিয়ে কামড়ে একটা একটা করে উপড়াতে লাগলাম। আর্তনাদ করে উঠল সুইটি। এ যেন যন্ত্রনার্ত আনন্দের এক আর্তনাদ।
আমাকে বলছে, বুড়ো ভাম। এবার আমরা ৬৯ এর পোজ দিই? কেমন?
বহু মেয়ে এই পোজটার জন্য পাগল। তারা ৬৯ পেলে আর সঙ্গম চাইত না। কামসূত্র বাৎসায়ন কতরকমের মুখমেহনের কথা লিখেছেন।
মনে হচ্ছিল, তখন আমার বয়স চল্লিশ। একটা পাঞ্জাবী গার্লফ্রেন্ডকে অনেকদিন আগে কুড়ি মিনিট ধরে সহবাসের পর সে বলেছিল, ইয়ে আচ্ছা নেহী লাগতা।
-কিউ?
-বহুত বোরিং। কোই মস্তি নেহী।
তার মস্তি আনার জন্য যৌন সঙ্গম ছেড়ে নতুন করে ওরাল সেক্স শুরু করতে হয়েছিল। তখন আমি ছিলাম ক্ষমতাবান। কামসূত্রের বিভাগ অনুযায়ী আমি তখন অশ্ব ক্যাটাগরির পুরুষ। মুখমেহনে তৃপ্ত, যৌনসঙ্গমে বোরিং পাঞ্জাবী ললনার কাছে আমি তখন ‘ইম্পোটেন্ট’ থাকলেও ক্ষতি ছিল না। কারণ পুরুষের যৌন-অস্ত্র শুধু লিঙ্গের মধ্যেই আবদ্ধ নয়। জানতাম আমি।
চব্বিশ বছরের সুইটিকে বিয়ে করতে তাই ভয় পাইনি। রাতে সুইটি তিনবার ক্লাইম্যাক্সে পৌঁছে গেল। আমি দুবার। একবার সুইটির মধ্যে, আরেকবার ওর হাতের মুঠোয়।
হাতের পাতায় আমার ৬৫ বছরের ‘পৌরুষ’ নিয়ে অবাক হয়ে দেখছিল সুইটি। আমাকে বলল, আচ্ছা এর মধ্যে কি স্পার্ম আছে, যা বড় হয়ে পেটের মধ্যে থেকে বাচ্চা হয়ে বেরোয়। কি আশ্চর্য।
শাওয়ারের নিচে আমাকে সাবান মাখাতে মাখাতে গান গাইছিলো-ক্যায়া করু রাম মুঝে বুঢ্ঢা মিল গয়া।
ওকে বলেছিলাম, বেশি চিন্তা নেই। বড়জোড় আর তিন চার বছর। তারপর আমি মারা যাব। তখন তোমার বয়স হবে ২৮-২৯। পারলে কোন নওজোয়ানকে দেখে আবার বিয়ে করে নিও। আর আমার যা আছে সবই তো তোমার।
সুইটি বলেছিল, না।
-কেন?
-সেই নওজোয়ান যদি এই বুঢঢার মতন আরাম না দিতে পারে।
আমি দেখছি শাওয়ারের তলায় দাঁড়িয়ে সুইটি তখনও হেসে চলেছে। আর বলছে, বুড়ো ভাম বলেছি বলে রেগে যেও না। তুমি কিন্তু সত্যি বুড়ো ভাম হলেও আমার মন তুমি খুব সহজেই জয় করে নিয়েছ। কে বলে তুমি যে বুড়ো ভাম।

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s