রক্ষীতা


আজ সকাল থেকেই পৌলমীর ব্যাস্ততার শেষ নেই। শ্বশুর শাশুড়ী বাড়ীতে নেই, হঠাৎই যেতে হয়েছে মামা শ্বশুর গুরুতর অসুস্থ হওয়ায় খবর পেয়ে। ওদিকে আজ শ্বশুরের বাল্যবন্ধু অতীন আঙ্কল ছুটি কাটাতে ওদের বাড়ীতে আসছেন প্রায় বছর দশেক পর, নিজের বলতে তেমন কেউ নেই তাই এতদিন পর বন্ধুর আসার ইচ্ছে শুনে শ্বশুর জোর করেছিলেন এখানেই এসে থাকার জন্য। অশেষের অফিসে এত কাজের চাপ যে আঙ্কলকে এয়ারপোর্টে রিসিভ করতে যেতেও পারবে না। অগত্যা, পৌলমী একা হাতে সব কিছু সামলে যখন এয়ারপোর্টে পৌছল তখন ঘড়ির কাঁটা প্রায় তিনটের ঘরে। আঙ্কলের পাঠানো ছবি দেখা ছিল তাই চিনে নিতে অসুবিধা হবার কথা নয় তবুও উদ্গ্রীব হয়ে তাকিয়ে ছিল বেরিয়ে আসতে থাকা মানুষজনের দিকে, একেবারে পেছনের দিকে তাকিয়ে এক পলক দেখেই নিজের অজান্তেই বুকে দোলা লেগে গেল। প্রায় ছ ফুটের সুঠাম মেদহীন শরীর, চুলে কিছুটা ইচ্ছাকৃত অবহেলার ছাপ করে তুলেছে আরো আর্কষনীয়। বয়সের ছাপ নেই শরিরের কোথাও। একেবারে লেডি কিলার ধরনের চেহারা, দেখলেই যে কোনো মেয়ের শরীরে জোয়ার আসতে বাধ্য। ফেরার পথে প্রথম আলাপের জড়তা কাটতে সময় লাগেনি একটুও, কিছুক্ষনের মধ্যেই বোঝা গেল শুধু চেহারাই আকর্ষনীয় নয়, সহজেই আপন করে নেবার কি অপার ক্ষমতা আছে মানুষটার ভেতরে।

বিকেল থেকে সন্ধে আঙ্কলের সাথে কথায় কথায় কেটে গেছে। গল্পগুজবের মাঝে নিজের অজান্তেই আঙ্কলের দিকে তাকিয়ে এক অদ্ভুত শিহরনে বারে বারে কেঁপে উঠেছে বিয়ের আগের একান্ত কিছু গোপন ইচ্ছের কথা মনে পড়ে যাওয়ায়। তবু ভালো, অশেষ আজ বেশী দেরী করেনি, ও ফিরে আসার পর সবাই মিলে জমিয়ে আড্ডা দিয়ে খেয়ে উঠে শুতে যেতে রাত প্রায় বারোটা। ওদের বিয়ের সবেমাত্র এগারো মাস চলছে। ভালোবাসার সাথে সাথে স্বাভাবিক যৌনতা উপভোগ করার এই তো সবে শুরু। দুজনেই যেন একে অপরের জন্য পরিপুরক। কোনোদিন হয়তো একজনের খুব একটা ইচ্ছে নেই… অন্যজন কাছে এসে একটু খুনসুটি, একটু ছোঁয়ার ভেতর দিয়ে অন্যজনের ইছেটাকে জাগিয়ে তুলে মেতে ওঠে শরীরের খেলায়। মাঝ রাত হয়ে গেলেও ঘুম আসছে না, আজ যেন পৌলমীর ইচ্ছেটা বড্ড বেশী দেখে অশেষ আর না করেনি, নিজেকে সঁপে দিয়েছে ওর হাতে।

দেখতে দেখতে দিন চারেক কেটে গেছে। সারা দিন এক সাথে থাকতে থাকতে এই কদিনে দুটো অসমবয়সী মানুষ একেবারে বন্ধুর মতো আরো কাছাকাছি চলে এসেছে। হাসিখুশী মানুষটার বুকের ভেতরে কোথাও যেন একটা দুঃখ লুকিয়ে আছে সেটা বুঝতে অসুবিধা হয়নি পৌলমীর। একটু একটু করে জেনে গেছে সেই দুঃখের কিছুটা। শুধু বন্ধুসুলভ সহানুভুতি নয়, নিজের বুকের ভেতরে লুকিয়ে রাখা গোপন ইচ্ছেটার কথা মনে পড়ে যাওয়ায় আস্তে আস্তে নিজের ভেতরে যে কিছু মানসিক পরিবর্তন আসছে সেটা বুঝে গিয়ে যেন আরো বেশী করে অতীনকে সঙ্গ দেবার ইচ্ছেটা বেড়েছে। সেই অদম্য ইচ্ছেটা আরো পরিনতি পেয়েছে যখন ও বুঝেছে বাবার বয়সী মানুষটার দুচোখে যেন আছে কিছু পাওয়ার আকাঙ্খা।

আজ কি যে হয়েছে কিছুতেই বুঝতে পারছে না পৌলমী, অনেক সময়ের শৃঙ্গারের পর ওদের সঙ্গম শুরু হয়ে যাওয়ার পরেও আজ বারে বারে অশেষের জায়গায় অতীন আঙ্কল চলে আসছে! নিজের অজান্তেই চরম মুহুর্তে কোমর দুলিয়ে রাগমোচন করতে গিয়ে অস্ফুট স্বরে প্রায় বলেই ফেলেছিল…উঃ মাগো..আ-র পা-র-ছি না…আঙ্কল। কোনো রকমে নিজেকে সামলে নিয়ে অনুভব করল অশেষ দুহাতে ওর ভরাট স্তনদুটো মুচড়ে ধরে বজ্রকঠিন লিঙ্গ যোনীর শেষ সীমানায় পৌঁছে দিয়ে ঝলকে ঝলকে বীর্যস্খলন করছে। অশেষ ক্লান্ত শরীরে ঘুমিয়ে পড়ার পরও ওর চোখে ঘুম নেই। সারা শরীর যেন আবার জেগে উঠেছে…চাইছে এক বলিষ্ঠ পুরুষের আলিঙ্গন। নিজেকে শান্ত করতে না পেরে উঠে গিয়ে ঠান্ডা জলের ধারায় ভিজিয়ে নিতে নিতে নিজের অজান্তেই হাত চলে গেছে দুপায়ের মাঝে…

অশেষ অফিসের জরুরী কাজে সাত দিনের জন্য গেছে আমেদাবাদ। দুটো নাগাদ আঙ্কলের কিছু কেনাকাটা থাকায় দুজনে বেরিয়েছে। নিউ মার্কেটে গিয়ে আঙ্কল নিজের জন্য কিছুই না নিয়ে জোর করে ওর জন্য একগাদা জামাকাপড় কিনল। ও বারে বারে না বলতে গেলে আঙ্কল বলেছে প্লিজ পৌ, তুমি হয়তো জানো না…তোমার ভেতরে আমি অন্য কারুর ছায়া দেখে নিজের ভুলে যাওয়া অতীতটাকে ফিরে পেয়েছি। তুমি কি চাওনা আমি খুশী হই? ওই কথা শোনার পর ও আর না করতে পারেনি, আঙ্কল যা চেয়েছে তাতেই সায় দিয়েছে। নিজের অজান্তেই যেন বুকের ভেতরে একটা খুশীর দোলা লেগেছে এই ভেবে যে শুধু ও নয়, আঙ্কলও ওকে অন্য চোখে দেখতে চাইছে সেটা প্রমান হয়ে গেছে।

কেনাকাটা হয়ে গেলে বাইরে বেরিয়ে কি মনে করে অতীন ওকে বলল… পৌ…চলোনা বাবুঘাট থেকে ঘুরে আসি। মে মাসের শেষ সপ্তাহ। আকাশে কালবৈশাখীর আভাস। নির্জন একটা জায়গা দেখে দুজনে পাশাপাশি বসেছে। অতীনকে চুপচাপ নদীর দিকে তাকিয়ে থাকতে দেখে পৌলমী জিজ্ঞেস করল…কি ভাবছো আঙ্কল? অতীন মুখ ফিরিয়ে কয়েক মুহুর্তের জন্য ওর দিকে তাকিয়ে থাকার পর চোখ ফিরিয়ে নিয়ে যেন নিজের মনেই বলল… জানো তো পৌ…অনেক সুখের স্মৃতি জড়িয়ে আছে এই জায়গাটার সাথে…
আঙ্কলের কথাটা শুনে কদিন ধরে দেখা মানুষটাকে যেন আজ নতুন করে চেনার প্রয়োজন অনুভব করল পৌলমী। কিছুটা শুনলেও পুরোটা জানার ইচ্ছে নিয়ে ও আলতো ভাবে অতীনের হাতটা চেপে ধরে বলল…আঙ্কল, প্লিজ বলো না…
– কি?
– কিসের স্মৃতি জড়িয়ে আছে এই জায়গাটার সাথে…
– কি হবে শুনে?
– বলো না…আমার জানতে ইচ্ছে করছে…
অতীন কিছুটা সময় চুপ করে থেকে নিজের মনেই যেন বলল…তারও নাম ছিল পৌলমী…খুব ভালোবাসতো আমাকে…
– তুমিও তো ভালোবাসতে তাকে…তাই না?
প্রশ্নটা শুনে অতীন ছোট্ট একটা নিঃশ্বাস ফেলে বলল… বাসতাম…হয়তো নিজের থেকেও বেশী…তোমার মতোই তাকেও পৌ নামে ডাকতাম…
– একটা কথা জিজ্ঞেস করবো?
– কি?
– কিছু মনে করবে না বলো…
– নাঃ… বলো…
– আমাকেও তুমি পৌ নামে কেন ডাকো?
– শুনলে তোমার ভালো লাগবে না হয়তো…
– বলো না…প্লিজ…
– তোমার ভেতরে যেন আমি আমার সেই পৌকে দেখতে পাই…ফিরে পেতে ইচ্ছে করে তাকে…
আঙ্কলের কথাটা শুনে ওর বুকের ভেতরে আবার সেই শিহরন জেগে উঠলেও ইচ্ছে করেই প্রসঙ্গ ঘোরাবার জন্য জিজ্ঞেস করল…তোমরা বিয়ে করলে না কেন?
– আমি তখন সদ্য পাশ করা বেকার আর ওর বাড়ী থেকে চাপ ছিল…অনেক চেস্টা করেছিল মা বাবাকে বলার কিন্তু পারেনি…
– আর কোনো যোগাযোগ হয়নি?
– নাঃ…আমিও চাইনি তার সংসারে আগুন ধরাতে…
পোলমী আঙ্কলের হাতে ছোট্ট করে চাপ দিয়ে বলল…কিছু মনে কোরো না প্লিজ…আমি হয়তো না বুঝে তোমার দুঃখটাকে জাগিয়ে দিয়েছি…
– তুমি নয় পৌ…আমি নিজেই তোমাকে দেখার পর থেকে খুঁচিয়ে তুলেছি সেইসব দিনের স্মৃতি…

মাঝরাত অনেক আগেই পেরিয়ে গেছে। পৌলমীর চোখে ঘুম নেই। এই কিছুক্ষন আগেও ব্যাস্ত ছিল অশেষের সাথে ফোনে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই ওদের এই খেলাটা শুরু হয়েছে। অশেষ বাইরে থাকলে রাতে ওদের ফোনসেক্স বা সেক্সচ্যাট হয়…কখোনো সেটা লাইভও হয়। দুজনেই খুব এনজয় করে দুরে থেকেও এইভাবে একে অপরকে কাছে পাওয়াটা। সেই দিনগুলো আরো উত্তেজক হয়ে ওঠে যেদিন ওরা নিজেদের গোপন ইচ্ছেটাকে সামনে নিয়ে আসে। পৌ অশেষকে ভেবে নেয় তার সেই কলেজ জীবনের এক বয়স্ক অবিবাহিত প্রফেশার, বিয়ের আগে যার সাথে যৌনতায় লিপ্ত হয়েছে ভেবে ও বিছানায় উপুড় হয়ে শুয়ে নিজ়েকে শান্ত করতে চাইতো। ওদিকে অশেষ ওকে ভেবে নিত তার এক মামাতো দিদি যার কথা ভাবলেই ওর নাকি হস্তমৈথুন করা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকতো না। অশেষ ফোনটা কেটে দেবার পর একা হয়ে যেতেই বিকেলের কথা মনে পড়ে গেল… আর কোনো কথা হয়নি দুজনের। বসে থাকতে থাকতে আকাশ পুরো কালো হয়ে এসেছিল। চারদিক থমথমে, ঝড় আসি আসি করছে দেখে পৌলমী ওঠার কথা বললে অতীন নিজের মনেই যেন বলল…সেদিনও এইভাবে আকাশ কালো করে ঝড় এসেছিল…তারপর তুমুল বৃষ্টি…দুজনে মিলে ভিজেছিলাম…তারপর…
বলতে গিয়েও আঙ্কলকে থেমে যেতে দেখে পৌ আর কোনো কথা বলেনি…ভেবেছিল, থাক না…নিজের স্মৃতিতে ডুবে থেকে যদি কিছুটা হলেও সুখ পায়। সামান্য বিরতির পর… পৌ… প্লিজ আমার একটা কথা রাখবে? কথাটা শুনে মুখ ফিরিয়ে চোখে চোখ পড়ে যেতেই পৌলমীর বুকের ভেতরটা গুমরে উঠেছিল… যৌবনের শেষ প্রান্ত পেরিয়ে যাওয়া এক দুঃখী মানুষের চোখে কিছু যেন পাওয়ার ব্যাকুল আশা দেখে চোখের পলক না ফেলে তাকিয়ে ছিল …পুরুষের চোখের দৃষ্টিতে কি আছে একটা মেয়ে হয়ে বোঝার অভিজ্ঞতা ওর আছে… নীরব সেই আকাঙ্খা ওকে টলিয়ে দিয়ে যেন বলেছিল…না করিস না পৌ, কি ক্ষতি আছে একটা দুঃখী মানুষ যদি তোর থেকে কিছু পেয়ে কিছুটা হলেও সুখ পায়…তাছাড়া, শুধু তো ও চাইছে না, তুইও তো মনে মনে ওকে কামনা করে বসে আছিস…

মাতাল ঝোড়ো হাওয়ার সাথে ঝমঝম বৃষ্টি, চারদিক ঝাপসা…পৌলমীর পিঠে হাত রেখে অতীন আস্তে আস্তে এগিয়ে যাচ্ছিল। দুজনে একেবারে কাছাকাছি, অতীনের বুকের পাশে ওর শরীরের নিবিড় স্পর্শ। ভিজে সপসপে লাইট পিঙ্ক কালারের ব্লাউজ ও ভয়েলের শাড়ীর আঁচল ঢেকে রাখতে পারেনি ওর সুডৌল স্তন। ডিপ কালারের অন্তর্বাস ছাড়া যেন আর কিছু ছিল না ওর উর্ধাঙ্গে। ফর্সা ধবধবে স্তনের স্ফিত অংশ যেন হাতছানি দিয়ে বলতে চাইছিল…এসো না, আমাকে ছোঁও। কাকুর হাতে মাথা ঠেকিয়ে রেখে হাঁটতে হাঁটতে এক জায়গায় গিয়ে ওকে থমকে যেতে হয়েছিল। ওকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে তাকিয়ে ছিল চোখে চোখ রেখে কেউ একজন। তারপর আস্তে আস্তে ওর মুখটা নেমে এসেছিল। ভেজা ঠোঁট দুটো চুষে দিতে দিতে ওর একটা হাত উঠে এসেছিল বুকে নাকি ও নিজেই আঙ্কলের হাতটা ধরে নিয়ে এসে চেপে ধরেছিল বুঝতে পারেনি। আরো কাছে এসে গিয়েছিল বৃষ্টি ভেজা দুটো শরীর, বলিষ্ঠ পুরুষের বাহু বন্ধনের ভেতরে থেকে পিষ্ট হতে হতে অনুভব করেছিল ওর পৌরুষত্বের কঠিন স্পর্শ…

দুটো দিন দুটো রাত কেটে গেছে। অতীনের সেদিনের পর থেকে একেবারেই অন্যরুপ। কিছু যে একটা ঘটে গিয়েছিল যেন জানেই না। ওকে নির্লিপ্ত দেখে পৌ-ও আর নিজের থেকে ইচ্ছে থাকলেও এড়িয়ে গেছে কিন্তু একা থাকলেই বারে বারে কথাগুলো মনে পড়ে যায়, কিছুতেই যেন নিজেকে ভোলাতে পারে না। আজ রাতে ইচ্ছে করেই অতীনকে ভুলতে চেয়ে অনেক সময় ধরে ফোনে অশেষের সাথে কাটিয়ে বেশ ক্লান্ত হয়ে পড়েছিল। যদিও শেষ রক্ষা করতে পারেনি, অশেষ যখন ওদিক থেকে ফিসফিস করে বলেছিল… সোনা, পা দুটো তুলে দাওনা আমার কোমরে…তখন ও মনে মনে অতীনের বুকের তলায় শুয়ে পা দুটো কাঁচি করে ধরে বলেছিল ঠিক আছে? একটু জোরে জোরে করো না গো…খুব ইচ্ছে করছে আজ। সবকিছুর শেষে ক্লান্তিতে একটু তন্দ্রাও এসে গিয়েছিল কিন্তু তারপরেই যে কি হয়ে গেল নিজেই বোঝেনি। ক্লান্তি, ঘুম সব যেন উধাও, আবার মনের ভেতরে সেই সন্ধের উঁকিঝুঁকি শুরু হয়ে গেছে। কথাগুলো ভাবতে ভাবতে আজ আর নিজেকে আটকাতে পারেনি…নিশি পাওয়া অবস্থায় উঠে গেছে ও অতীনের ঘরে। নীলাভ আলোয় চোখের উপরে হাত রেখে টানটান হয়ে শুয়ে থাকা দীর্ঘদেহী মানুষটার দিকে অপলক চোখে তাকিয়ে থাকতে গিয়ে সম্বিত ফিরে এসেছে… না…এটা ঠিক নয়। আমি একজনের স্ত্রী…আমরা দুজন দুজনকে ভালোবাসি। আমি পারিনা তার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতে…কেউ হয়তো জানবে না আজ রাতে যদি আমি ওকে দি আরো কিছু সুখ… কিন্তু আমার নিজের বিবেক?
কিছু বলবে পৌ? ফিরে আসতে গিয়ে পা আটকে গেছে আঙ্কলের প্রশ্নটা শুনে। কয়েক মুহুর্তের দোটানা হেরে গেছে নিজেকে বলিষ্ট পরপুরুষের অঙ্কশায়ীনী হয়ে তাকে শরীরের সুখ দেবার ইচ্ছের কাছে। আলোটা নিভিয়ে ফিরে এসে পাশে বসেছে। এসির মৃদু আওয়াজ নাকি ওর নিজের ইচ্ছেটাই রাতের নিস্তব্ধতাকে করে তুলেছে যৌন আবেদনময়ী জানা ছিল না কিন্তু ওর গা ঘেঁষে বসে থেকে যেন সারা শরীরে এক অদ্ভুত শিহরন খেলে যাচ্ছিল। চুলে হাত বুলিয়ে দিতে দিতে আস্তে করে জিজ্ঞেস করেছে…ঘুম আসছে না? নাঃ…উত্তরটা যেন এলো দিগদিগন্তের ওপার থেকে।
– কার কথা ভাবছো?
– জানোই তো…
– কোন পৌ…আমি নাকি সে?
ছোট্ট একটা নিশ্বাস ফেলে অতীন বলেছে কি হবে জেনে তোমার?
– জানতে ইচ্ছে করছে…
– থাক না পৌ…
অতীন বলতে চাইছে না দেখে ও আর জোর করেনি…কিছুক্ষন কেটে গেছে, কেউ কোনো কথা বলেনি। একজন শুয়ে আছে আগের মতোই সোজা হয়ে, পৌ কাত হয়ে গা ঘেঁষে শুয়ে থেকে আলতো ভাবে একটা হাত ওর বুকের উপরে রেখে মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে দিতে বলল…কি ভাবছো?
– তুমি তো কই বললে না…
– কি?
– কেন এসেছো…
– কি জানি…ইচ্ছে করলো…
– কাজটা ঠিক হয়নি…তাই না?
– কি?
– সেদিন বিকেলে…
কিছুক্ষন চুপ করে থেকে পৌ আস্তে করে বলল…আমি কিছু মনে করিনি…
– কেন?
– তুমি তো জোর করনি…
– তাহলেও…
– থাক না আঙ্কল…

আবার কিছুটা নিস্তব্ধতা, কি ভাবে এগোবে ভাবতে গিয়ে বারে বারে একটা অস্বস্তির কাঁটা বুকে বিধছিল…কিভাবে ও নিজের বুকের ভেতরের ইচ্ছেটা ব্যাক্ত করবে? যদি আঙ্কল খারাপ ভাবে? যদি ফিরিয়ে দেয়? না আর হ্যাঁ এর দোটানায় দোদুল্যমান অবস্থায় জোর করেই নিজের অজান্তে হঠাৎই বলে ফেলেছে…কেন এসেছি শুনবে?
আঙ্কল ওর হাতটা বুকে জড়িয়ে ধরে রেখে আস্তে করে বলল…সেটাই তো জানতে চাইছি…
– আজ তোমার কাছে থাকতে ইচ্ছে করছে…
কথাটা শুনেও অতীন চুপ করে আছে দেখে পৌ অস্ফুট স্বরে জিজ্ঞেস করল…কিছু বললে না যে?
– তোমার ভয় করছে না?
– কেন?
– আমি যদি তোমাকে আমার সেই পৌ ভেবে আরো কাছে পেতে চাই?
ছোট্ট একটা নিঃশ্বাস ফেলে ও উত্তর দিল…আমি কিছু মনে করবো না…
– তুমি আমার মেয়ের বয়সী পৌ…আমার হয়তো তোমাকে দেখে অন্য কিছু মনে হয়েছে কিন্তু তার মানে এই নয়…
অতীনের কথাটা শুনে ও মনের সমস্ত জোর এক করে যেন বলল…জানি না কেন তোমাকে আমার খুব নিজের মনে হচ্ছে…ভালোবাসতে ইচ্ছে করছে…
অতীন বেশ কিছুক্ষন চুপ করে থেকে যেন নিজের মনেই বলল….এটা ঠিক নয় পৌ….
অতীনের কথাগুলো শুনে ওর হাত থমকে গেছে। আবার কয়েক মুহুর্তের নীরবতার পর ও আস্তে করে বলেছে… নিজের ইচ্ছেটাকে দমিয়ে রাখাটাই তো পাপ…আমি যদি জেনেবুঝে কিছু দিতে চাই তো তুমি কেন নিতে পারবে না?
– তুমি একা নও পৌ…
– জানি…অনেক ভেবেই আমি এসেছি…

আবার কিছুক্ষন চুপচাপ…পৌলমী আগের মতোই ওর মাথায় হাত বোলাতে বোলাতে বলল…আমি তো শুধু একা নই আঙ্কল…তুমিও তো চেয়েছো আমাকে…
– বুঝতে পারছি না…
– কি?
– আজকেই কি প্রথম আর শেষ নাকি এখানেই শুরু…
– ধরো যদি পরেরটাই হয়…
– সম্পর্কটা ঠিক কি?
– বোঝার কি খুব দরকার আছে?
– আছে পৌ… শুধু শরীরের কথা ভাবলে আমি অনেক মেয়েকেই পেতে পারতাম…
– জানি…
– তাহলে?
– আমি তো শুধু শরীরের কথা ভাবিনি…
– বুঝলাম না…তুমি কি…
– নাঃ…আমার সবকিছু বজায় রেখেও তো তোমাকে কিছু দিতে পারি ভালোবেসে…
– সেটাই তো বুঝতে পারছি না…কিভাবে সম্ভব…
– আমি কি ভালোবেসে তোমার মিসট্রেস হতে পারি না?
কথাটা শুনে অতীন আর কিছু বলতে পারেনি কিছুক্ষন…ওকে চুপ করে থাকতে দেখে পৌ জিজ্ঞেস করেছে…আমি কি তোমার যোগ্য নই?
– প্রশ্ন সেটা নয় পৌ…যে কোনো পুরুষের বুকে জ্বালা ধরানোর মতো অনেক কিছুই আছে তোমার শরীরে…
– তাহলে?
– আমার এই বয়সে কি পাবে তুমি আমার কাছ থেকে নিজেকে এইভাবে বিলিয়ে দিতে চেয়ে?
– এখোনো জানি না…কিন্তু…
– কি?
– আমার মনে হয়না তুমি ফুরিয়ে গেছো…
– কি জানি…তবুও…
– কি?
– তুমি ভালো করে ভেবে দেখো…
– যা কিছু ভাবার ভেবেই আমি এসেছি…
– আমি ঠিক মেনে নিতে পারছি না…
– চেস্টা করো…পারবে…আর যদি না পারো…দুজনেই না হয় ভুলে যাবো আজ রাতে কি হয়েছে…
অতীন ছোট্ট করে একটা নিঃশ্বাস ফেলে বলেছে…পরে আমাকে দোষ দেবে না তো?
– উঁ হুঁ…
– তোমার একবারও মনে হচ্ছে না যে তুমি অশেষকে ঠকাচ্ছো?
– না…
– কিভাবে?
– একসাথে কি দুজনকে ভালোবাসা যায় না?
– কি জানি…
– আমার তো মনে হয় যায়…আমার কিন্তু একবারের জন্য মনে হচ্ছে না আমি আর অশেষকে ভালোবাসতে পারবো না…ও তো আমার আছেই…সাথে তুমিও থাকবে…কারুর স্ত্রী হলেই কি অন্য কাউকে ভালোবাসা যায় না?
– কোনোদিন যদি ও জানতে পারে?
– ও জানে আমার একটা ফ্যান্টাসি আছে…
– বুঝলাম না…
– পরে বোঝালে হবে না?

অতীন আর কিছু বলতে পারে নি। চুপ করে শুয়ে থেকে অনুভব করার চেস্টা করছিল ওর চাঁপাকলির মতো আঙ্গুলের ছুঁয়ে ছুঁয়ে যাওয়া…আস্তে আস্তে শরীরে জোয়ার আসতে চাইছে দেখে নিজেকে আটকানোর চেস্টা করেনি। পৌয়ের কথাগুলো ভাবতে ভাবতে ওকে কাছে টেনে নিতে চাইলে মৃদু আপত্তি জানিয়ে বলেছে…উঁ হুঁ…এখন নয়…

আর কিছু না বলে অতীন নিজেকে সম্পুর্ন ভাবে ছেড়ে দিয়েছে ওর হাতে। ওর হাত একটু একটু করে নেমে গেছে নীচের দিকে। আস্তে আস্তে পাজামার বাঁধন আলগা হয়ে গেলে ওর আঙ্গুল ছুঁয়েছে উত্থিত শিশ্ন। পৌ ওর বুকের উপরে মাথা রেখে একমনে আদর করে যাচ্ছে এমনভাবে যেন পৃথিবীতে আর কিছু আছে সেটা ও জানে না, চেনে না…এক সময় ও উঠে গেছে বুকের উপর থেকে যখন অতীনের সারা শরীর আকাঙ্খায় ভরে উঠতে চাইছে। এক অজানা শিহরনে কেঁপে উঠেছে যখন বুঝেছে কারুর জিভ ছুঁয়েছে ওর পৌরুষত্বকে। এক একটা মুহুর্ত কেটে যাচ্ছে, পৌ এক মনে আদর করে যাচ্ছে…ওর নরম ঠোঁটের ছোঁয়াতে পুরুষাঙ্গ হয়ে উঠেছে লৌহ কঠিন… আর যেন সহ্য করতে পারছে না ও সেই অসহ্য সুখ, সারা শরীরে ঝাঁকুনি দিয়ে উঠতে চাইলে ওর কাঁধ চেপে ধরে কোনোরকমে ওকে মুখ সরিয়ে নিতে বলেছে। পৌ আস্তে করে ওর হাতে চাপ দিয়ে বুঝিয়েছে… দাও তুমি আমার মুখ তোমার উষ্ণ বীর্য দিয়ে ভরিয়ে…আমি যে তোমার রক্ষীতা…তোমাকে সুখ দেওয়াটাই তো আমার একমাত্র কাম্য…তাই না…

বীর্যস্খলনের ক্লান্তি কিছুটা সময়ের জন্য গ্রাস করলেও নারী শরীরের উষ্ণ সান্নিদ্ধ একটু একটু করে ফিরিয়ে এনেছে ওকে। পৌ ওকে বুকে চেপে ধরে মাথায় বিলি কাটতে কাটতে বলেছে কিভাবে ও একটু একটু করে আকৃষ্ট হয়ে নিষিদ্ধ শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তে চেয়েছে আর তাই শুনে একটু আগের সেই জড়তা আর নেই অতীনের। নিজের থেকেই চেয়েছে এই নিষিদ্ধ সম্পর্ককে আরো উত্তেজক করে তুলতে। কানে কানে বলেছে ওর ইচ্ছের কথা…

নিজের শোয়ার ঘরের মৃদু আলোতে এক পরপুরুষ আকাঙ্খা ভরা চোখে তাকিয়ে আছে…দুচোখ ভরে দেখছে কিভাবে তার শজ্জাসঙ্গীনী একটু একটু করে নিজেকে নগ্ন করে মেলে ধরছে। নিঃশব্দ আকাঙ্খা ছড়িয়ে গেছে দুজনের শরীরের আনাচে কানাচে। বাবার বয়সী প্রেমিক পুরুষের লৌহকঠিন পুরুষাঙ্গ নিজের হাতে ধরে সিক্ত যোনী মুখে ঘষে যেতে যেতে একটু একটু করে চাপ দিয়েছে। এক সময় ওর সিক্ত যোনী সম্পুর্ন ভাবে গ্রাস করেছে কঠিন পুরুষাঙ্গ। অতীনের দুহাতের তালুতে হাতের ভর রেখে আস্তে আস্তে কোমর সঞ্চালন করে গেছে… চায়নি এই সুখের অনুভুতি আর মুহুর্তগুলো ফুরিয়ে যাক খুব তাড়াতাড়ি। নিজে রমনের সুখ নিতে নিতে দিতে চেয়েছে রমনসঙ্গীকেও চরম সুখ। একবার নয়, দু দু বার রাগমোচনের পর ও আর পারছিল না দেখে অতীন ওকে বুকে চেপে ধরে আস্তে আস্তে পিঠে হাত বুলিয়ে আদর করে গেছে…ফিসফিস করে বলেছে…পৌ, আমি ভাবতেই পারছি না…তুমি আমার ভেতরের লুকিয়ে থাকা ইচ্ছেটাকে এইভাবে বের করে নিয়ে আসতে পারবে…

নিজের ফুলশয্যার বিছানায় বাবার বয়সী প্রেমিকের সাথে পরকীয়া করার কথা ভাবতে গিয়ে ক্লান্তি কেটে গেছে ওর, কানের লতিতে আলতো করে কামড়ে দিতে দিতে বলেছে…আমার উপরে আসবে না? ওর কামনাঘন গলায় বলা কথাগুলো শুনে অতীন নিজেকে আর আটকে রাখতে পারেনি। আজ যেন সিংহের বিক্রম ওর শরীরে…মেয়ের বয়সী প্রেমিকার উত্তপ্ত সিক্ত যোনী কুন্ডে লিঙ্গ যেন ফুঁসে উঠতে চাইছে এখোনো এত সময় পরেও, সেটা কতটা কিছুক্ষন আগে বীর্যপাত করে ফেলার জন্য আর কতটা আজ অজাচিত ভাবে এক যৌন আবেদনময়ী নগ্ন নারী শরীরকে এইভাবে অনুভব করতে পারার সৌভাগ্য তা জানা নেই। জানার দরকারও আর নেই… সম্পর্কটা যখন তৈরী হয়েই গেছে তো তাকে উপভোগ করো ভেবে নরম সেই নারী শরীরকে দলে পিষে ভোগ করতে গিয়ে ওকে জড়িয়ে ধরে থেকেই এক ঝটকায় নিচে ফেলে নিজে উপরে উঠে এসেছে। ছিন্নভিন্ন করতে চেয়েছে ওর উত্তপ্ত সিক্ত যোনীকুন্ড। চরম যৌন সুখে আপ্লুত হতে হতে পৌ ওকে বেঁধে নিয়েছে দুহাতের নিবিড় আলিঙ্গনে। কখোনো বা দুপায়ের বেড়ীতে হঠাৎ করে ওকে বেঁধে ফেলে বুঝিয়েছে…রাত এখোনো অনেক বাকি…নিজেকে এত সহজে ফুরিয়ে না ফেলে ভোগ করো আমাকে…যাকে বোঝানো হল সেও বুঝলো সেই কথা…কেটে গেছে আরো কিছু সুখের মুহুর্ত…মন প্রান ভরে একে অপরকে অনুভব করেছে ওরা। একটু একটু করে এগিয়ে এসেছে উত্তপ্ত যোনী গর্ভে বীর্যপাতের শুভক্ষন। অতীন চায়নি ওকে বিপদে ফেলতে, নিজেকে ছিন্ন করে নিতে চাইলে পৌ আটকে দিয়ে বুঝিয়েছে…ওর যে বড় ভালো লাগে উষ্ণ বীর্যের ধারায় নিজেকে প্লাবিত করতে…

আরো তিনটে দিন কেটে গেছে। প্রতিটি দিন প্রতিটি রাত যেন এক নতুন বার্তা বয়ে নিয়ে আসে, নতুন ভাবে দুজন দুজনের শরীর মনকে আবিস্কার করার আনন্দে মেতে থাকে ওরা। আগামীকাল সকালে অশেষ ফিরছে। আজই ওদের শেষ রাত। আঙ্কলের কেনা সেক্সি নাইট গাউনটা পরে ড্রেসিং টেবিলের সামনে বসে চুল আঁচড়াতে গিয়ে পেছন থেকে একজোড়া তৃষিত চোখে নিজেকে রমিত হওয়ার কথা ভাবতে গিয়ে শিউরে উঠেছে। বুঝতে পারেনি হাত আটকে গেছে আজ দুপুরের কথা মনে পড়ে গিয়ে। কোলে বসিয়ে আদর করতে করতে এক সময় টপটা খুলে দিয়ে মুগ্ধ চোখে তাকিয়ে ছিল সেমি ট্রান্সপারেন্ট লেসের অন্তর্বাস ঢাকা উদ্ধত স্তনের দিকে। আঙ্গুল দিয়ে আলতো ভাবে চাপ দিয়ে বুলিয়ে যেতে যেতে স্তনবৃন্তে নখ দিয়ে কুরে দিতে গেলে আর থাকতে না পেরে হিসিয়ে উঠে ওর মুখটা ধরে টেনে আনার সাথে সাথে একটানে ব্রা খুলে ফেলে দিয়ে ওর মুখে স্তনবৃন্ত গুজে দিয়ে ফিসফিস করে বলেছিল…আঙ্কল, কামড়ে দাও…

অতীন ফিরে এসেছে দেশে ওর পৌয়ের টানে…ওদের গোপন অভিসার শুধু শারীরীক মিলনের জন্য নয়… অনেক কথা হয় দুজনের…অতীনের ভয় ছিল এই নিষিদ্ধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে পৌ ওর সুখের সংসারে না আগুন ধরিয়ে ফেলে। ওর সেই ভয় অমুলক প্রমান হয়ে গেছে। অশেষের সাথে ওর সম্পর্ক আরো গভীর হয়েছে…যৌনতায় এসেছে আরো বৈচিত্র। আগেও অনেক সুখ ছিল বিছানায়, এখন যেন সেটা পরিনত হয়েছে উদ্দাম এক পাগলামিতে… নিজের গোপন আকাঙ্খার পরিনতির কথা ভেবে ব্যাকুল হয়ে ওঠে অশেষকে একান্তভাবে কাছে পেতে। সঙ্গমে লিপ্ত হয়ে গিয়ে ভাবে এই সুখের যেন শেষ না হয়…
তারপর এক সময় পৌলমী সন্তানসম্ভবা হওয়ায় আগের মতো ওরা মিলিত হতে পারে না। ওর ওই অবস্থায় যে বেরনো সম্ভব নয় আর তার থেকেও বড় কথা এত উত্তেজনা ওর শরীর নিতে পারবে না সেটা বুঝেই দেখা করাটা কমিয়ে দিলেও পৌ মাঝে মাঝেই বলে… কতদিন তোমাকে কাছে পাইনি…কিছু না হয় না হবে…যাই না একবার তোমার কাছে…

আবার দেখা হয়েছে ওদের সেই আগের মতোই অতীনের ফ্ল্যাটে…একবার মিলনের পর পৌলমী বুকের কাছে ঘন হয়ে এসে কানে কানে ফিসফিস করে বলেছে…এই, তুমি কিন্তু আমাকে কথা দিয়েছিলে….আমার মেয়ের বাবা হবে তুমি। কথাটা শুনে আবার মিলনের আকাঙ্খায় শরীর মন যেন বাঁধন ছেঁড়া হয়ে যেতে চেয়েছিল কিন্তু পৌ দুষ্টুমি করে বলেছে…উঁ হু…এখন নয়…আগে স্নান …তারপর…

অতীন চোখ বুজে থেকে ভাবছিল স্নান ঘরে এক নগ্ন যুবতীর নিজেকে স্নিগ্ধ করে তোলার না দেখা অপরুপ দৃশ্য। মুখে একটা অদ্ভুত হাসি খেলে গেল যখন নিজের অজান্তেই ভাবছিল…আচ্ছা ওকি ওর ওখানটা এখন ভালো করে ধুয়ে নিচ্ছে? ও তো কখোনোই চায়না আমি যখন মুখ দেবো তখন ওখানে যেন থাকে শুধু জুঁই ফুলের গন্ধ ছাড়া আর কিছু …যা হয়ে উঠবে আরো মন মাতাল করা যখন একটু একটু করে ও কামনায় আপ্লুত হওয়ার সাথে সাথে যোনীরস চুঁইয়ে চুঁইয়ে বেরিয়ে আসবে…

এক এক পা করে এগিয়ে আসছে এক নগ্ন রুপসী কন্যা, সদ্যস্নাত শরীরের মসৃন ত্বক যেন উজ্জ্বলতায় ভরে উঠেছে। উদ্ধত স্তন হাঁটার ছন্দে আন্দোলিত হয়ে উঠে যেন বলতে চাইছে অনেক কথা। চোখের পলক না ফেলে ওকে তাকিয়ে থাকতে দেখে স্থির হয়ে গেছে সেই নগ্ন রুপসী। একঢাল রেশম কোমল চুল, পান পাতার মতো মিষ্টি মুখ…টানা টানা চোখ, নরম ঠোঁট…সুডৌল স্তন…মেদহীন সরু কোমর, আরো নীচে…নরম যৌন কেশে ঢাকা উন্নত যোনীবেদী যেন আরো যৌনতায় ভরা…ওইটুকু প্রায় না থাকার মতো যোনীকেশ যেন বাড়িয়ে তুলেছে ওর নারীত্বের অপরুপ শোভা… নিজেকে আর দুরে সরিয়ে না রেখে কাছে গিয়ে দাঁড়ালে মুখ তুলে তাকিয়েছে…দুহাতের বাঁধনে নিজেকে সঁপে দিয়ে অপেক্ষা করেছে…এই মুহুর্তে রক্ষীতা নয়…নগ্ন সলাজ প্রেমিকার বেশে নিজেকে সমর্পন করতে চেয়েছে…কোলে করে তুলে নিয়ে এসে শুইয়ে দিয়ে দুপায়ের মাঝে মুখ গুঁজে দিয়েছে… ভগাঙ্কুরে একের পর এক লেহনে নিজেকে স্থির রাখতে পারেনি। অস্ফুট শিৎকারের সাথে ওর মাথা চেপে ধরেছে সিক্ত স্ফিত যোনীবেদিতে…

আবার শুরু হয়েছে শৃঙ্গার..মুখ ঘাড় গলা স্তন নাভি কোথাও বাকি নেই কামার্ত পুরুষের ছোঁয়া পেতে। প্রেমিকের সন্তানের মা হতে চেয়ে বুকে চেপে ধরে পিষে ফেলতে চেয়ে বলেছে…আঙ্কল…আমাকে নাও…

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s