লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু – 1


আমার নাম সিদ্ধার্থ। আমি এক অতি সাধারণ মানুষ। একটা সরকারী দপ্তরে সামান্য কেরানীর কাজ করি। তবে রোজগার সামান্য হলেও, আমি অসম্ভব উচ্চাভিলাষী। প্রতিদিন রাতে স্বপ্ন দেখি আমার একদিন বিশাল বড় একটা বাড়ি হবে, বিরাট একটা গাড়ি হবে, সমাজে বেশ একটা নামডাক হবে। আচমকা এক রবিবারের সকালে স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করার একটা সুযোগ এসে গেল। খবরের কাগজ খুলে দেখলাম সেখানে টিভি সিরিয়াল তৈরি করে এক বিখ্যাত প্রোডাক্সন কোম্পানি বিজ্ঞাপন দিয়েছে যে তারা একটা নতুন সিরিয়াল বানাতে চলেছে আর সেটিকে বেশি করে বাস্তববাদী করার উপলক্ষ্যে তারা নায়িকা হিসাবে সাধারণ ঘরের এক সুন্দরী গৃহবধূ চেয়েছে। কি মনে হওয়াতে আমি বিজ্ঞাপনে দেওয়া মোবাইল নম্বরে কল করে বসলাম। ওপাশ থেকে কেউ ভাঙ্গা গলায় উত্তর দিল।

“হ্যালো! আমার নাম সিদ্ধার্থ। আমি কি বিষ্ণু প্রোডাক্সনের জগদীশবাবুর সাথে কথা বলতে পারি?” দ্বিধাগ্রস্ত কণ্ঠে প্রশ্ন করলাম।

“হ্যাঁ, আমিই জগদীশ বলছি। কি ব্যাপার বলুন?”

“আমি কাগজে আপনাদের বিজ্ঞাপনটা দেখলাম। যদি দয়া করে একটু বিশদভাবে বলেন, তাহলে খুব ভালো হয়।”

“দেখুন সিদ্ধার্থবাবু, আপনি নিশ্চয়ই জানেন যে আমরা পারিবারিক সিরিয়াল বানাই। আমাদের পরিচালক মশাই এবারে একটা অভিনব চিন্তা করেছেন যে চেনাপরিচিত গতেবাঁধা একই অভিনেত্রীদের দিয়ে বারবার অভিনয় না করিয়ে নতুন সিরিয়ালটায় একেবারে বাস্তব জীবনের গৃহবধূদের সুযোগ দেবেন।”

“হ্যাঁ, কাগজে সেই কথাই পড়েছি। আমি কি শুটিঙের সময়কাল আর পারিশ্রমিকের ব্যাপারটা জানতে পারি?” পারিশ্রমিকের কথাটা জিজ্ঞাসা করার সময় আমার গলাটা শুকিয়ে এলো।

“ওহ! আমরা শুধু দিনেই শুট করবো। রাতে শুটিং করতে হলে অতিরিক্ত লাইটিং লাগে। যার ফলে বাজেট অনেক বেড়ে যায়। আর সিরিয়ালের পারিশ্রমিকটা সিনেমার মত নয়। ফিল্ম নির্মাতাদের মত আমাদের অত দেদার টাকা নেই।”

“তাও কত হবে স্যার?” আমি কৌতূহল চাপতে পারলাম না।

“যদি নায়িকা বা তেমন কোনো মুখ্য চরিত্র হয় তবে দিনে পাঁচ হাজার টাকা দিতে পারি। কিন্তু তার বেশি নয়।”

দিনে পাঁচ হাজার টাকার কথা শুনে এক সেকেন্ডের জন্য আমার বুকের ধুকপুকানি যেন থেমে গেল। আমার মাসিক বেতন মোটে আঠারো হাজার টাকা। “স্যার, আসলে কি জানেন। আমি ভাবছিলাম যদি আমার বউ আপনাদের টেলি-সিরিয়ালে একটা সুযোগ পায়।”

“বয়স কত আপনার বউয়ের?”

“এই ধরুন আঠাশ-উনত্রিশ।”

“দেখতে কেমন?”

“ভালো। সুন্দরীই বলা যায়।”

“গায়ের রঙ?”

“ফর্সা।”

“উচ্চতা?”

“সাড়ে পাঁচ ফুটের একটু বেশি।”

“বাঃ! চমৎকার! আপনি এক কাজ করুন। আগামীকাল এগারোটা নাগাদ বউকে নিয়ে হোটেল ব্লুফক্সে চলে আসুন। একটা অডিশন দিতে হবে।” জগদীশবাবু ফোন ছাড়ার আগে আমার মোবাইল নম্বরটা নিয়ে নিলেন।

জগদীশবাবুর সাথে ফোনে কথা বলার পর স্ত্রীকে অভিনয়ে নামানোর সঙ্কল্পটা আমার মনে আরো গভীরভাবে ঘেঁথে বসলো। জগদীশবাবুকে বউয়ের সম্পর্কে যা কিছু বলেছি, সবই খাঁটি সত্যি। নমিতা প্রকৃতপক্ষেই ফর্সা ও সুন্দরী। তার বয়সটাও তিরিশের নিচে। তবে তার শরীরটা একটু ভারী। অবশ্য রসিক লোকের চোখে ডবকা দেহের যৌন আবেদন অনেক বেশি। তার রূপের চর্চা পাড়ার চায়ের দোকানে বসে বখাটে-বাচাল-চ্যাংড়া ছেলেপুলেরা প্রতিদিনই প্রায় করে থাকে। নিঃসংশয় বলতে পারি আমার স্ত্রী অডিশনে অনাসায়ে নির্বাচিত হয়ে যাবে। কিন্তু প্রধান সমস্যা হলো নমিতাকে অডিশনটা দিতে রাজী করানো। সে এক অতি সাধারণ পরিবারে নিত্যান্ত মামুলী মুল্যবোধে অত্যন্ত গতানুগতিকভাবে মানুষ হয়েছে। ধরা যায় একটা টেলি-সিরিয়ালে অভিনয় করাটা তার মধ্যবিত্ত মানসিকতায় একরকম নিষিদ্ধ বলেই মনে হবে। তাই বউয়ের সামনে প্রস্তাবটা অনেক বুদ্ধি খরচ করে উপস্থাপন করতে হবে।

প্রাতরাশের করতে করতে আমি কথাটা তুললাম। “নমিতা, আজ কাগজে একটা বিজ্ঞাপন দেখলাম। টিভি সিরিয়ালের জন্য নায়িকা চেয়েছে।”

“তুমি কি অভিনয় করতে চাইছো?”

“না, না! আমি নায়ক নয়, নায়িকার কথা বলছি। আমি ভাবছিলাম যদি তুমি চেষ্টা করো।”

“আমি!” আমার প্রস্তাব শুনে নমিতা প্রায় আর্তনাদ করে উঠলো।

“কেন নয়? মনে হয় এটা একটা ফ্যামিলি ড্রামা। কারণ ওনারা শুধুমাত্র বাড়ির বউদের চেয়েছেন, যাদের কোনো অভিনয়ের অভিজ্ঞতা নেই। পয়সাকড়িও ভালো দিচ্ছে। তুমি চেষ্টা করেই দেখো না। আর কলেজে পড়ার সময় তো তুমি একটা-দুটো নাটকও করেছো। তোমার তো সহজেই সুযোগ পাওয়া উচিত।” আমি বউকে আশ্বাস দেওয়ার চেষ্টা করলাম।

“তুমি কেন আমার সাথে ঠাট্টা করছো? আমি কি করে সিরিয়ালে অভিনয় করতে পারি?”

“আরে! কেন পারো না? আমার কোনো সন্দেহই নেই যে তুমি স্বাচ্ছ্যন্দে অভিনয় করতে পারবে। তোমার কত গুণ, কত প্রতিভা। তোমার চোখ দুটো সবসময় কথা বলে। তোমার সুন্দর মুখে মনের যে কোনো আবেগ অতি সহজেই প্রকাশ পায়।” আমাকে খানিকটা অবাক করে দিয়ে নমিতা কিছুটা তৃপ্ত দেখাল। মিষ্টি কথায় চিড়েও ভেজে। নিজের তারিফ শুনে সে লাজুক চোখে আমার দিকে তাকিয়ে হাসল। বুঝলাম আমার স্তুতিবাক্যে কাজ দিচ্ছে। বউয়ের কাছে সিরিয়ালে কাজ করাটা আর তেমন আজগুবি শোনাচ্ছে না।

“আমাদের আগামীকাল নয়টায় অডিশনে যেতে হবে। আর আমি হরফ করে বলতে পারি যে তুমি একবার অংশগ্রহণ করলে একটা ভালো পাঠ পেয়েই যাবে। এই ব্যাপারে আমি একশো শতাংশ নিশ্চিত। এমন অপরূপ সুন্দরীকে কে পাঠ দেবে না বলো?” আমার কথা শুনে নমিতার সুন্দর মুখটা আরো খানিকটা লাল হয়ে গেল।

রাতে আর স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করলাম না। ভালো ঘুম হলে সকালে উঠে নমিতাকে অনেক তাজা দেখাবে আর তার আবেদনও বাড়বে। সকালে এগারোটা বাজার কিছু আগেই বউকে নিয়ে হোটেল ব্লুফক্সে গিয়ে হাজির হলাম। হোটেলের লাউঞ্জে অপেক্ষা করতে লাগলাম। ঠিক সাড়ে এগারোটার সময় আমার মোবাইলটা বেজে উঠলো। জগদীশবাবু ফোন করেছেন। আমাদের তিন তলায় রুম নম্বর ৩৩৩-এ চলে আসতে বললেন। আমার মনের গভীরে কিছুটা উদ্বেগ, কিছুটা উত্তেজনা চেপে রেখে বউকে নিয়ে ৩৩৩ নম্বর রুমে গিয়ে ঢুকলাম। ঘরের মধ্যে তিনটে বড় বড় সোফা রাখা রয়েছে আর ঠিক মাঝখানের সোফাটায় তিনজন লোক পাশাপাশি বসে আছেন। একজন তাগরাই চেহারার মধ্য তিরিশের লোক সোফা ছেড়ে উঠে এসে আমাদেরকে অভ্যর্থনা জানালেন।

“আমার নাম জগদীশ। আমি সিরিয়ালের কার্যকরী নির্মাতা।” জগদীশবাবু আমাদের সাথে করমর্দন করলেন। মনে হল নমিতার হাতটা যেন প্রয়োজনের থেকে একটু বেশিক্ষণই ধরে রইলেন। তারপর তিনি আমাদের সাথে সোফাতে বসে থাকা বাকি দুজনের আলাপ করিয়ে দিলেন। একজনের বয়স ষাট ছুঁই ছুঁই। তিনি সিরিয়ালের পরিচালক। আর একজন ক্যামেরাম্যান। তিনি সদ্য চল্লিশের কোঠায় পা দিয়েছেন। ওনারা তিনজনই আমার বউকে পা থেকে মাথা পর্যন্ত আগ্রহী চোখে মনোযোগ সহকারে দেখতে লাগলেন।

“আপনি অভিনয়ে নামতে চান?” পরিচালক মশাই আমার স্ত্রীকে প্রশ্ন করলেন।

“হ্যাঁ স্যার।” নমিতা অস্ফুটে উত্তর দিল। তার কাঁপা গলা শুনেই বুঝলাম যে সে চরম উৎকণ্ঠায় ভুগছে।

ওনারাও সেটা বুঝতে পারলেন। জগদীশবাবু বললেন, “আপনি একদম টেনশন করবেন না। পুরো রিল্যাক্স থাকুন। নিন, একটা ড্রিঙ্ক নিন।”

নমিতা আলতো করে ঘাড় নেড়ে মদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করল। তখন তাকে পেপসি দেওয়া হলো। সে ছোট্ট ছোট্ট চুমুক দিয়ে পেপসি খেতে লাগলো। সে যথেষ্ট স্বাচ্ছন্দ্য হয়ে উঠলে জগদীশবাবু বললেন, “আপনাকে একটা অডিশন দিতে হবে। আমাদের পরিচালক মশাই আপনাকে একটা পরিস্থিতির কথা ব্যাখ্যা করে দেবেন। সেটা আপনাকে অভিনয় করে দেখাতে হবে।”

আমার স্ত্রী গিয়ে ঘরের মধ্যিখানে দাঁড়াল। সে একটা লাল রঙের সিল্কের শাড়ি পরে এসেছে। লাল শাড়িতে তাকে খুবই সুন্দর দেখাচ্ছে। পরিচালক মশাই বললেন, “তুমি একবার আমাদের দিকে হেঁটে এসে দেখাও।”

নমিতা হেঁটে দেখাল। হাঁটার সময় শাড়িটা সরে গিয়ে তার চর্বিযুক্ত থলথলে পেটটা বেরিয়ে পরল আর লোলুপ দৃষ্টিতে সবাই সেই মুখরোচক দৃশ্য গিলতে লাগলো। আমার বউ হেঁটে এসে সোফার সামনে দাঁড়াল।

পরিচালক মশাই আবার নির্দেশ দিলেন, “এবার আমাদের দিকে পিছন ফিরে দরজা পর্যন্ত হেঁটে যাও।”

নমিতা ঘুরে দরজার দিকে এগিয়ে গেল। তার ফর্সা মসৃণ পিঠটা শাড়ি-ব্লাউসের তলায় খানিকটা অনাবৃত হয়ে রয়েছে। তার প্রকাণ্ড পাছাটা শাড়ির উপর দিয়ে ঠিকড়ে বেরিয়ে আছে আর মাংসল দাবনা দুটো হাঁটার তালে তালে নাচ্ছে। পরিচালক মশাইকে দেখে মনে হলো যে আমার বউয়ের সেক্সি হাঁটা তাকে বেশ প্রভাবিত করেছে। তিনি ক্যামেরাম্যানের দিকে চেয়ে বললেন, “পশ্চাদ্বর্তী কোণ থেকে ওকে দুর্দান্ত লাগবে।”

বেশ বুঝতে পারলাম যে পরোক্ষভাবে আমার বউয়ের কামোদ্দীপক পাছাটার কথা বলা হচ্ছে। একই ঘরে বসে তিনজন অপরিচিত পুরুষকে স্ত্রীয়ের পাছার দিকে বিশ্রী নজরে তাকিয়ে থাকতে দেখে আমার একটু অস্বস্তি করতে লাগলো। কিন্তু তবু চুপচাপ বসে সবকিছুর উপর লক্ষ্য রেখে চললাম।

পরিচালক মশাই বললেন, “আচ্ছা, এবার তুমি চলে আসো। আমি তোমাকে দৃশ্যটা বুঝিয়ে দিচ্ছি। তুমি পরিবারের বড় বোন। তোমার ছোট ভাই পরীক্ষায় পাশ করে বাড়ি ফিরেছে। সে এসে সুখবরটা তোমাকে দিল। এটাই দৃশ্য। তুমি দৃশ্যটা অভিনয় করে দেখাতে পারবে?”

দৃশ্যটা নমিতার পছন্দ হলো। তার একটা ছোট ভাই আছে, যাকে সে খুবই ভালোবাসে। জানি যে এমন দৃশ্য অভিনয় করে দেখাতে আমার বউয়ের কোনো সমস্যা হবে না।

পরিচালক মশাই বললেন, “গতকাল ছোট ভাইয়ের চরিত্রে একটা ছেলেকে বেছে নেওয়া হয়েছে। তুমি তার সাথে অভিনয় করে আমাদের দেখাতে পারো। জগদীশ, ছেলেটা পাশের ঘরে রয়েছে। তুমি ওকে আমাদের ঘরে ডাকো।”

জগদীশবাবু ইন্টারকমে কথা বললেন আর মিনিট দুয়েক বাদে একটা উনিশ-কুড়ি বছরের ছেলে এসে ঘরে ঢুকলো। “ওর নাম কাশিফ। ও কলেজে পড়ছে। ও আপনার মতই অনভিজ্ঞ। প্রথমবার অভিনয় করছে।”
কাশিফকে একবার দেখলেই আন্দাজ করে নেওয়া যায় যে ও কলেজের ছাত্র। কচি মুখ, ছিপছিপে লম্বা চেহারা। ও আমার স্ত্রীয়ের দিকে চেয়ে লাজুক হাসলো। নাটক আরম্ভ হলো। কাশিফ আনন্দের সাথে চিল্লিয়ে চিল্লিয়ে জানাতে লাগলো যে ও পরীক্ষায় পাশ করে গেছে। খবর শুনে নমিতার সুন্দর মুখে হাসি ছড়িয়ে পরল। দুজনেই একটু নার্ভাস হয়ে আছে। তাই একে-অপরকে আলিঙ্গন করার সময় দুজনের মাঝে পরিষ্কার ব্যবধান রয়ে গেল। পরিচালক মশাইয়ের মুখ দেখেই বোঝা গেল যে এমন অপেশাদারদের মত অভিনয় তাকে একেবারেই সন্তুষ্ট করতে পারেনি। তিনি গলা উঁচিয়ে বলে উঠলেন, “এটা কি হচ্ছে? একে কি অভিনয় বলে? তোমরা এমনভাবে একে-অপরকে জড়িয়ে রয়েছো, যেন মনে হচ্ছে একজন পুলিশ আর একজন সন্ত্রাসবাদী। তোমারা যে ভাই-বোন, সেই আবেগটা কোথায়? নাও, এবার একে-অপরকে একটু টাইট করে জাপটে ধরো।”

কিন্তু এবারেও কাশিফ নমিতাকে ঠিকঠাকভাবে জড়িয়ে ধরতে পারলো না। আমার বউয়ের দেহের মধ্যেও একটা জড়তা রয়ে গেল। সেটাই স্বাভাবিক। এর আগে স্বামী ছাড়া অন্য কোনো পরপুরুষ তার শরীরকে স্পর্শ করেনি। কিন্তু এমন ছেলেমানুষি অভিনয় দেখে পরিচালক মশাইয়ের মাথা গরম হয়ে গেল। তিনি রাগী গলায় বললেন, “কাশিফ, তুই নমিতাকে ছেড়ে এখানে এসে দাঁড়া। আমি তোকে দেখাচ্ছি কেমন করে করতে হবে।”

উনি দৃশ্যটা অভিনয় করে দেখালেন। সংলাপ বলার পরে আমার বউকে একেবারে আষ্টেপিষ্টে জড়িয়ে ধরলেন। যদিও নমিতা ওনার থেকে দূরে সরে যেতে গেল, কিন্তু উনি দুই বাহুর মধ্যে তাকে জাপটে ধরে ওনার কাছে টেনে নিলেন। আমার বউয়ের বড় বড় দুধ দুটো ওনার বুকে ঠেকে গেল। কাশিফ সবকিছু ভালো করে লক্ষ্য করল আর যখন ওর পালা এলো তখন নমিতাকে শক্ত করে চেপে জড়িয়ে ধরল। লক্ষ্য করলাম আমার স্ত্রী পরিচালক মশাইয়ের থেকে কাশিফের সাথে অনেক বেশি স্বাচ্ছ্যন্দে জড়াজড়ি করতে পারছে আর সেই কারণে আলিঙ্গনটাকেও অনেক বেশি অন্তরঙ্গ দেখাচ্ছে। তার বিশাল দুধ দুটো ওর টি-সার্টের সাথে একদম পিষে গেছে আর তার থলথলে পেটটা ওর জিন্সে ধাক্কা মারছে।

“এভাবেই জড়াজড়ি করে থাকো।” পরিচালক মশাই গলা চড়িয়ে বলে উঠলেন। তারপর ক্যামেরাম্যানকে নির্দেশ দিলেন, “মৃণ্ময়, চলো ঝটফট কিছু ট্রায়াল ফোটো তুলে ফেলো।”

পরিচালক মশাইয়ের হুকুম পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্যামেরাম্যান মৃণ্ময়বাবু তার জুম ফোকাসওয়ালা বিরাট বড় ক্যামেরাটা বের করে দুই আনাড়ি অভিনেতা-অভিনেত্রীর দিকে এগিয়ে গেলেন। পরিচালক মশাইও তাদের উপর খুব কাছ থেকে লক্ষ্য রাখতে লাগলেন। মৃণ্ময়বাবুর ক্যামেরাটা চার-পাঁচবার ফ্ল্যাশ হলো। পরিচালক মশাই কাশিফের দিকে তাকালেন। ও দুই হাতে আমার বউয়ের কোমর জড়িয়ে রয়েছে। সেটা দেখে পরিচালক মশাই খিঁচিয়ে উঠলেন, “এটা কি হচ্ছে? তুই তো পাক্কা প্রেমিকের মত ওকে জড়িয়ে ধরেছিস। আমি তোকে বলেছি যে একটা ভাইয়ের আবেগ প্রকাশ করতে।”

বলতে বলতে উনি নিজেই কাশিফের হাত দুটো নমিতার কোমর থেকে সরিয়ে তার প্রকাণ্ড পাছাটার উপর রেখে দিলেন। তারপর ওর হাত দুটোর উপর ওনার দুটো হাত রেখে আলতো করে বার তিনেক নমিতার পাছার মাংসল দাবনা দুটো টিপে দিলেন। কাসিফ চট করে সংকেতটা ধরে ফেলল আর উনি হাত সরানোর পরেও হালকা করে আমার বউয়ের পাছা টিপে চলল। পাছায় হাত পরতেই নমিতার অস্বস্তি করতে শুরু করল। সে আমার দিকে তাকাল। আমি তাকে ইশারায় স্থির থাকতে বলল। ততক্ষণে মৃণ্ময়বাবুর ক্যামেরা তার পাছার নরম দাবনার উপর কাশিফের হাত ডলার ছবি পটাপট তুলে চলেছে। দশ-পনেরোটা ছবি তোলা হলে পর পরিচালক মশাই চিৎকার করে ‘কাট’ বললেন আর সাথে সাথে কাশিফ নমিতাকে ছেড়ে দিল। সে জেল থেকে ছাড়া পাওয়া কয়েদীর মত ছিটকে আমার কাছে ফিরে এলো।

এদিকে চায়ের সময় হয়ে গেল। লক্ষ্য করলাম চা খেতে খেতে আমার স্ত্রী বারবার আড়চোখে কাশিফকে দেখছে আর যখনই কাশিফের নজর তার উপর পরছে নমিতার গালটা বারবার লাল হয়ে যাচ্ছে। ব্যাপারটা আমার কাছে খানিকটা অদ্ভুত ঠেকলো। সবার চা খাওয়া হয়ে যেতেই পরিচালক মশাই বলে উঠলেন, “সবাই পজিশনে ফিরে যাও।”

আমার বউ আর কাশিফ আবার ঘরের মাঝখানে গিয়ে দাঁড়াল। কিন্তু দুজনের কেউই নির্দেশকের কথার অর্থ সম্পূর্ণরূপে ধরতে পারেনি। তাই দুজনেই হাঁদার মত দাঁড়িয়ে রইলো। ব্যাপারটা লক্ষ্য করে পরিচালক মশাই আবার দাঁত খিঁচিয়ে উঠলেন, “শুটিঙের সময় প্রধান শর্তই হলো একটা দৃশ্য মাঝপথে কাট হয়ে গেলে, সেটা যখন আবার চালু হবে, তখন কাট বলার আগে সবাই ঠিক যেমনটি ছিল, শুটিং আবার চালু হওয়ার পর সবাইকে ঠিক তেমনটি হয়ে যেতে হয়।”
পরিচালক মশাইয়ের বকুনি খেয়ে কাশিফ আর নমিতা তক্ষুনি একে-অপরকে আবার আগের মত জড়িয়ে ধরল। আবার কাশিফ আমার বউয়ের প্রকাণ্ড পাছার মাংসল দাবনা দুটো হাতড়াতে লাগলো। কিন্তু এবার আর নমিতা কিছু মনে করল না।

এদিকে পরিচালক মশাই নির্দেশ দিলেন, “নমিতা, এবার তোমার অভিনয় প্রতিভার আসল পরীক্ষা শুরু হতে চলেছে। এটা একটা আবেগঘন দৃশ্য। তোমাকে গর্বিত গলায় কাশিফকে বলতে হবে – ভাই, আমি জানতাম তুই পাশ করে যাবি। আর তারপর ওর সারা মুখে, যেমন ধরো গালে, কপালে, থুতনিতে চুমু খেতে হবে। তোমার মুখে যেন আনন্দ, ভালোবাসা, গর্ব, সবকিছু প্রকাশ পায়। ঠিক আছে?”

আমার স্ত্রী দৃশ্যটা অভিনয় করে দেখানোর চেষ্টা করল। কাশিফের গালে-কপালে চুমু খেতে গিয়ে সে কোনমতে আলতো করে তার নরম তুলতুলে ঠোঁটটা একবার স্পর্শ করেই ছেড়ে দিল। সেই দেখে পরিচালক মশাই আবার ঝাঁজিয়ে উঠলেন, “এটা কি করছো তুমি নমিতা? ঠোকরাচ্ছ কেন? ভালো করে আবেগের সাথে চুমু খাও।”

উত্তেজনার বসে উনি নিজেই কিভাবে আবেগ নিয়ে চুমু খেতে হয় দেখাতে গেলেন। শক্ত হাতে উনি আমার বউকে ওনার কাছে টেনে নিয়ে তার গালে চুমু দিলেন। ওনার মোটা ঠোঁট দুটি পাক্কা দশ সেকেন্ড ধরে তার নরম গালে চেপে রইলেন। উনি আমার বউকে ছাড়ার পর দেখালাম তার গালটা ওনার লালায় ভিজে গেছে। কিন্তু সেদিকে না তাকিয়ে উনি নমিতাকে আদেশ দিলেন, “ঠিক এইভাবে কাশিফকে চুমু খাও।”

পরিচালক মশাই একজন ষাট ছুঁই ছুঁই বয়স্ক মানুষ আর সবকিছুই সম্পূর্ণ পেশাদারী পদ্ধতিতে করেছেন, তাই তার গালে চুমু খেতে আমার স্ত্রী ওনাকে বাধা দিল না। পরিচালক মশাই তাকে ছেড়ে দেওয়ার পর তাকে যেভাবে বলা হলো, ঠিক তেমনভাবে সে কাশিফকে আবেগভরে চুমু খেলো। দেখলাম আমার বউ তার পাতলা ঠোঁট দুটোকে কাশিফের রুক্ষ গালে চেপে ধরল আর ওর গালে খাওয়া তার প্রতিটা চুমু মৃণ্ময়বাবুর ক্যামেরায় ধরা পরল।

পরিচালক মশাই এবার কাশিফকে হুকুম দিলেন, “আকাটের মত দাঁড়িয়ে না থেকে তুইও তোর দিদিকে চুমু খা।”

কাশিফকে বলার সাথে সাথে ও হুকুম তামিল করল। ওর কোনো নির্দেশনের দরকার হলো না। আমার বউয়ের সারা মুখটা ও চুমুতে চুমতে ভরিয়ে দিল। প্রতিটা চুমুই ও বেশ দৃঢ়তার সাথে খেলো। এদিকে কাশিফ তাকে জোরে জোরে চুমু খাওয়া শুরু করতেই নমিতা দাঁড়িয়ে পরেছে। সেটা দেখে পরিচালক মশাই উত্তেজিতভাবে নির্দেশ দিলেন, “ও কি! তুমি আবার চুপচাপ দাঁড়িয়ে আছো কেন? তুমিও কাশিফকে চুমু খেতে থাকো আর ও একইসময়ে তোমাকে চুমু খাবে। মনে রেখো, এটা একটা আবেগময় দৃশ্য আর তোমারা দুজনেই খুব আবেগপ্রবণ।”

অতএব পরিচালক মশাইয়ের নির্দেশনায় আমার স্ত্রী আর কাশিফ একে-অপরকে পর্যায়ক্রমে চুমু খেয়ে চলল। এক সময় দুজনেই একে-অপরের কপালে চুমু খেতে গেল আর সময়ের তালমিলে গণ্ডগোল হওয়ায় তাদের ঠোঁটে ঠোঁট লেগে গেল। এই অঘটনটাকেও মৃণ্ময়বাবু ক্যামেরায় তুলে নিলেন। এমন কিছু যে ঘটতে পারে সেটা কাশিফ প্রত্যাশা করেনি। কিন্তু একবার নমিতার ফুলের পাপড়ির মত নরম তুলতুলে ঠোঁটের স্বাদ পেতে ও আর নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলো না। এক হাতে নমিতার মাথাটা শক্ত করে চেপে ধরে ওর ঠোঁট দিয়ে আমার বউয়ের নরম ঠোঁটে একটা চমৎকার লম্বা চুমু খেয়ে ফেলল। আমি দেখলাম ঠোঁটে চুমু খেয়ে কাশিফ তাকে ছাড়ার নিমেষের মধ্যে নমিতা হাত দিয়ে তার ঠোঁট থেকে ওর লালা মুছে ফেলল। এই অপ্রত্যাশিত দুর্ঘটনায় পরিচালক মশাই অবশ্য খুশিই হলেন। তিনি কাশিফের পিঠ চাপড়ে দিলেন আর বললেন, “খুব ভালো হয়েছে। দৃশ্যের আবেগটাকে তুই বেশ ভালোই ফুটিয়ে তুলতে পেরেছিস।”

উনি আমার স্ত্রীয়েরও প্রশংসা করলেন, “তোমার অভিনয়ও দারুণ খুলেছে।”

মধ্যাহ্নভোজের বিরতি ঘোষণা হলো। খাওয়াদাওয়ার পর আবার অডিশন চালু হবে। নমিতা আমার কাছে এসে একটু একান্তে কথা বলতে চাইলো। আমি তাকে নিয়ে একতলায় হোটেলের লাউঞ্জে গিয়ে আবার বসলাম।

“আমি কিন্তু এইসবে খুব একটা স্বাচ্ছ্যন্দবোধ করছি না। চলো আমরা বাড়ি ফিরে যাই।”

“কেন কি হয়েছে?”

“না, আমি যথেষ্ট পেশাদার নই যে চুমু বা জড়িয়ে ধরাকে শুধুমাত্র অভিনয় হিসাবে নেবো। আমার এই সবকিছু খুব অস্বাভাবিক লাগছে। চলো আমরা চলে যাই।”

আমারও এসব খানিকটা বাড়াবাড়ি ঠেকেছে। যদিও ওনারা বলছেন যে এটা একটা পারিবারিক সিরিয়াল, কিন্তু ইতিমধ্যেই একটা কলেজ পড়ুয়া অগ্নিসাক্ষী রেখে আমার বিয়ে করা বউয়ের পাছার দাবনা হাতড়েছে আর তার ঠোঁটে চুমু খেয়েছে। “ঠিক আছে, চলো আমরা ওনাদের জানিয়ে দিয়ে চলে যাই। না বলে চলে গেলে, ব্যাপারটা খুব খারাপ দেখায়।”

যখন আমি জগদীশবাবুর সাথে দেখা করতে তিনতলায় গেলাম, তখন ওনার খাওয়া হয়ে গেছে। আমাকে আসতে দেখে উনি অমায়িকভাবে হাসলেন। আমাকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে উনিই আগে বললেন, “সিদ্ধার্থবাবু, আপনার স্ত্রী সত্যিই অসাধারণ প্রতিভাশালী। আমরা এমন একজন অভিনেত্রীকেই খুঁজছিলাম। ওনার অভিনয় আমাদের পরিচালক মশাইকে খুবই প্রভাবিত করেছে। উনি জানিয়েছেন যে আপনার বউকে নিয়ে একটা মেগাসিরিয়াল তৈরি করবেন। ওহ! ভুলে গেছি। এই ধরুন দশ হাজার টাকা। আপনার বউয়ের অডিশন ভাতা।”

কথাটা বলে উনি আমার হাতে একটা একশো টাকার নোটের বান্ডিল গুঁজে দিলেন। ওনাকে কিছু বলার বদলে আমি নীরবে নোটগুলো গুনে নিলাম। জগদীশবাবু হাসতে হাসতে জানালেন, “আপনারা একটার বাজার আগে প্লিস আবার অডিশনের জন্য চলে আসবেন। পরিচালক মশাই আবার সময়ের ব্যাপারে খুব খুঁতখুঁতে।”

আমি ঘাড় নেড়ে সায় দিয়ে, নোটের বান্ডিলটা পকেটে ঢুকিয়ে, আবার বউয়ের কাছে ফিরে গেলাম। “নমিতা, এনারা খুব স্বজন মানুষ আর ভীষণ পেশাদার। দেখো, তুমি কি কখনো তোমার ভাইকে চুমু খেতে পারো না। এভাবেই পুরো ব্যাপারটা দেখার চেষ্টা করো। আর পরিচালক তো একজন বুড়ো মানুষ, তোমার বাবার বয়েসী। উনি যদি তোমাকে কিছু শেখাতে চান, তাতে দোষটা কোথায়?”
বেশ কিছুক্ষণ ধরে, অনেক ধৈর্য নিয়ে, প্রচুর যুক্তির দ্বারা আমি স্ত্রীকে বুঝিয়েসুজিয়ে আবার অডিশন দিতে রাজী করালাম। তাড়াতাড়ি খাওয়াদাওয়া সেড়ে বউকে নিয়ে আবার তিনতলায় উঠে রুম নম্বর ৩৩৩-এ ফিরে গেলাম। গিয়ে দেখলাম এরইমধ্যে ঘরের ভোল একেবারে পাল্টে গেছে। চার কোণায় লাইটিঙের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুরো ঘরটা আলোয় আলোকিত। প্রায় একটা টিভির পরিবেশকে সৃষ্টি করার চেষ্টা করা হয়েছে। ঘরের এক কোণে মৃণ্ময়বাবু সিনেমার শুটিঙের ক্যামেরা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন আর ঘরের আলো ঠিকঠাক করছেন।

“যাক, নমিতা তুমি ঠিক সময়ে এসে গেছো।” পরিচালক মশাইকে সন্তুষ্ট শোনালো। জগদীশবাবু আমাকে জানালেন যে আমার স্ত্রী ছবি তোলার পরীক্ষায় সফলভাবে উত্তীর্ণ হয়েছে। এবার তারা সিরিয়ালের কয়েকটা রিল শুট করতে চলেছে, যাতে করে দেখে নেওয়া যায় পর্দায় নমিতাকে প্রকৃতপক্ষে কেমন লাগে। তাই এবারে বাস্তব শুটিংকেই অনুকরণ করা হবে। এমন তীব্র আলোর তলায় দাঁড়ানোর অভ্যাস আমার বউয়ের নেই। মিনিটের মধ্যে তার মুখ থেকে ঘাম ঝরতে শুরু করল। সেটা লক্ষ্য করে জগদীশবাবু টাচআপ বয়কে ডাকলেন আর একটা পনেরো-ষোলো বছরের ছোকরা মেকআপ সেট হাতে ঘরে প্রবেশ করল।

ঘরে ঢুকেই ছোকরা আমার স্ত্রীয়ের মুখটা তোয়ালে দিয়ে ভালো করে মুছে দিল। তারপর একটা স্পঞ্জ দিয়ে তার মুখে খানিকটা পাউডার লাগিয়ে দিল। পাউডার মাখানো হয়ে গেলে টাচআপের জন্য ও ওর হাত দুটো নমিতার মুখে ঘষতে লাগলো। কিন্তু শুধুমাত্র তার মুখ ঘষেই থামল না। একইভাবে খালি হাতে ও আমার বউয়ের ঘাড়, পেট, কোমর আর পিঠের খোলা অংশ, যা তার ব্লাউসের কাপড়ের তলায় ঢাকা পরেনি, সমস্ত ভালো করে ঘষে দিল। ছোকরা খালি হাতে তার চর্বিওয়ালা থলথলে পেট ঘষার সময় আমার স্ত্রী একবার অস্ফুটে গুঙিয়ে উঠলো, কিন্তু সে নিজেকে সামলে রাখলো। তারপর ও ঘরের এক কোণায় গিয়ে দাঁড়াল আর অপেক্ষা করতে লাগলো। পরিষ্কার লক্ষ্য করলাম ছোকরার প্যান্টের চেনের কাছে একটা ছোট তাঁবু ফুলে উঠেছে। আমার বউয়ের শরীর হাতড়ে যে একটা পনেরো-ষোলো বছরের বাচ্চা ছেলের ধোন খাড়া হয়ে যেতে পারে, সেটা আমি কোনদিন কল্পনাও করতে পারিনি। কিন্তু এখন, এই মুহূর্তে, অবশ্য সেটাই ঘটছে।

সমস্ত লাইটিং ঠিকঠাক হয়ে গেলে পরিচালক মশাই আমার স্ত্রী আর কাশিফকে ডেকে সকালবেলার দৃশ্যটা আবার অভিনয় করে দেখাতে বললেন। কাশিফ “দিদি, আমি পাশ করে গেছি” সংলাপটা বলে আমার বউকে আবার আষ্টেপিষ্টে জাপটে ধরল। এবারে ওর হাত দুটো আপনা থেকেই নমিতার পাছায় চলে গিয়ে দাবনা দুটোকে টিপতে লাগলো আর আমার বউও দেখলাম ওকে কোনরকম বাধা না দিয়ে ওর গায়ে নিজের গা ঠেকাতে লাগলো। মৃণ্ময়বাবুর ভিডিও ক্যামেরাতে সবকিছু তুলে রাখছেন। পরক্ষণেই চুমুর পালা চলে এলো এবং আমার স্ত্রী আর কাশিফ একে-অপরকে গালে-কপালে চুমু খেতে শুরু করল। কাশিফকে দেখা গেল নমিতার ঠোঁটে ঠোঁট লাগাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। যখনই নমিতা ওর কপালে চুমু খেতে যাচ্ছে, তখনই ও ইচ্ছাকৃত ওর ঠোঁটটাকে এগিয়ে দিচ্ছে। আর যখন ওদের ঠোঁটে ঠোঁট ঠেকল, তখন ও ওর ঠোঁটটা আমার স্ত্রীয়ের ঠোঁটে চেপে ধরে থাকলো।

সকালে আমার বউয়ের ঠোঁটে চুরি করে চুমু খাওয়ার ফলে পরিচালক মশাই কাশিফকে উৎসাহ দিতে ওর পিঠ চাপড়ে দিয়েছিলেন। হয়ত তার ফলে ছোকরা একটু বেশি উত্তেজিত আর দুঃসাহসী হয়ে উঠেছে। ও আমার বউয়ের মুখটা কাছে টেনে নিয়ে ছয়-সাতবার লম্বা চুমু খেলো। কিন্তু এর মধ্যেও সর্বক্ষণ ওর হাত দুটো আমার বউয়ের পাছা টিপে চলল। ছয়-সাতবার চুমু খাওয়ার পর আমার স্ত্রী আর কাশিফ কাটের জন্য অপেক্ষা করতে লাগলো, কিন্তু পরিচালক মশাই কিছুই বললেন না। কাশিফ আবার নমিতার ঠোঁটে চুমু খেলো আর এবারে চুমু খাওয়ার সময় তার পাতলা নিচের ঠোঁটটা ওর মুখের মধ্যে নিয়ে চুষতে লাগলো, এমনকি হালকা করে একটু কামড়েও দিল। আমার বউ সরে আসতে গেল। কিন্তু কাশিফ তার পাছাটা সজোরে চেপে ধরে আছে। তাই সে আর পালাতে পারলো না। পূর্ণ এক মিনিট ধরে তার ঠোঁট চোষার পর পরিচালক মশাইয়ের ‘কাট’ চিৎকার শুনে কাশিফ আমার বউকে রেহাই দিল।
এবার আমার কাছে ব্যাপারটা সত্যিই খুব বাড়াবাড়ি ঠেকল। দেখলাম রাগে আমার বউয়ের মুখও লাল হয়ে গেছে। আমার ইচ্ছে হল যে বউয়ের হাত ধরে সোজা ঘর ছেড়ে বেরিয়ে যাই। কিন্তু পকেটে কড়কড়ে দশ হাজার টাকার বান্ডিল আমাকে শান্ত হয়ে থাকতে বাধ্য করল। আমার স্ত্রী আমার দিকে করুণ দৃষ্টিতে তাকাল। আমি তাকে চোখের ইশারায় শান্ত থাকতে অনুরোধ করলাম। আমার ব্যবহারে হতাশ হয়ে আমার বউ চুপ করে ওখানে দাঁড়িয়ে রইলো। ভালো অভিনয় করার জন্য পরিচালক মশাই আবার কাশিফের পিঠ চাপড়ে দিলেন আর আমার স্ত্রীয়ের অভিনয়ের তারিফ করতে তাকে একবার জড়িয়ে ধরলেন। “নমিতা, দৃশ্যটা এককথায় দুর্দান্ত হয়েছে। আমি বলছি দেখো এই টেলি-সিরিয়ালটা করে তুমি সমগ্র রাজ্য জয় করে ফেলবে।”

যদিও চুমুর দৃশ্যটা আমার বউকে স্পষ্টতই অস্বস্তিতে ফেলেছে, কিন্তু অভিজ্ঞ পরিচালকের মুখে নিজের প্রশংসা শুনে তার মনটা আনন্দে ভরে গেল। তার গাল লাল হয়ে এলো। স্ত্রীকে লজ্জা পেতে দেখে পরিচালক মশাই হেসে তার গাল টিপে দিলেন। গালে একটা আলতো করে চিমটি কেটে বললেন, “আমার কথা মিলিয়ে নিয়ো, তুমি একদিন শাসন করবে।”

পরিচালক মশাই টাচআপের ছোকরাটাকে চোখের ইশারায় ডাকলেন। ও এসে আবার আমার বউয়ের মুখে-ঘাড়ে-গলায় হাত ঘষতে আরম্ভ করে দিল। এবারে আমার স্ত্রী নিখুঁত পেশাদার অভিনেত্রীর মত ঘুরে গিয়ে ওকে তার পিঠ দেখাল। তার পিঠে টাচআপ করার পর ছোকরা খালি হাতে যখন আমার বউয়ের থলথলে পেটে আর রসাল কোমর ঘষতে লাগলো। ঠিক তখনই পরিচালক মশাই আবার চেঁচাতে শুরু করলেন, “জগদীশ, এ কোন আনাড়িকে টাচআপ করতে রেখেছ? এ পুরো কাজটা শেষ করছে না। টাচআপের পরেও কিভাবে এখানে ঘাম জমে থাকে?”

চেঁচাতে চেঁচাতে পরিচালক মশাই আমার স্ত্রীয়ের শাড়ির আঁচল ধরে টানলেন আর আঁচলটা খুলে তার হাতে চলে এলো। সাথে সাথে আমার স্ত্রীয়ের সরস পেট-কোমর সম্পূর্ণ উদলা হয়ে পরল। আমার বউ নাভির অনেক নিচে সায়া পরে। তাই এক অতিশয় ফর্সা সুস্বাদু মাংসের স্তূপ একঘর লোভাতুর চোখের সামনে প্রকাশ পেয়ে গেল। দেখলাম আমার স্ত্রীয়ের গভীর নাভিটা ঘামে ভিজে রয়েছে আর পরিচালক মশাই নিজেই রুমাল বের করে সেই ঘাম মুছে দিলেন। নাভি মোছার পর উনি খালি হাতে আমার বউয়ের থলথলে পেট আর রসাল কোমরটাও ভালো করে মুছতে লাগলেন। নমিতার বড় বড় নিঃশ্বাস পরতে লাগলো, কিন্তু উনি বেশ সময় নিয়ে অনেকক্ষণ ধরে তার পেট-কোমর মুছলেন। মোছার সময় ভালো করে দেখার জন্য উনি হাত দিয়ে তার শাড়িটা অনেকখানি সরিয়ে দিলেন, যার ফলে আমার স্ত্রী বস্তুত আঁচলহীন হয়ে পরল আর তার বিশাল দুধ দুটো তার ব্লাউসের ভিতর থেকে উঁচিয়ে রইলো।

এখানে বলতেই হয় যে আমার বউয়ের দুধ দুটো এতই বিশাল যে সে দুটোকে কোনো ব্লাউস বা ব্রা দিয়ে সম্পূর্ণরূপে ঢেকে রাখা প্রায় অসম্ভব। সেটা সে শুধুমাত্র করতে পারে একটা বড় শাড়ির সাহায্যে। এখন বুকের উপর আঁচল না থাকায় তাকে একদম সেক্সবোমা দেখাচ্ছে। টাচআপের ছোকরাটা, কাশিফ, মৃণ্ময়বাবু, এমনকি অমন পেশাদার জগদীশবাবু পর্যন্ত আমার স্ত্রীয়ের বুকের দিকে হাঁ করে তাকিয়ে রইলেন। পরিচালক মশাইয়ের কিন্তু কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই। তিনি মনোযোগ সহকারে আমার বউয়ের পেট আর কোমর মুছে চলেছেন। ওনার মোছা হয়ে গেলে, টাচআপের ছোকরাটা, যেন কতকটা ঘোরের মধ্যে এগিয়ে গিয়েই নির্দেশক মশাইয়ের যেমনভাবে দেখিয়ে দিয়েছেন, ঠিক তেমনভাবে নমিতার পেট আর কোমরটা আবার মুছে দিল। এদিকে আমার স্ত্রীয়েরও ঘোর লেগে গেছে। ঠিক এক মিনিট বাদে তার খেয়াল হল যে সবার সামনে সে ঠিক কেমন অবস্থায় রয়েছে আর নিমেষের মধ্যে সে শাড়ির আঁচলটা ঠিক করে নিল।

এদিকে পরিচালক মশাই আর ক্যামেরাম্যান মৃণ্ময়বাবু কোনো একটা ব্যাপারে রীতিমত তর্কাতর্কি জুড়ে দিয়েছেন। কিছুক্ষণ বাদে পরিচালক মশাই জানালেন যে মৃণ্ময়বাবু ক্যামেরার কোণে গণ্ডগোল পাকিয়ে ফেলেছেন আর তাই দৃশ্যটা আরেকবার শুট করতে হবে। আমার স্ত্রী আর কাশিফ আবার গিয়ে ঘরের মাঝখানে দাঁড়াল। আমি লক্ষ্য করলাম সিনটা রিটেক হওয়ায় কাশিফ মনে মনে খুব খুশি হয়েছে আর মিচকি মিচকি হাসছে। এবারে ও আমার বউকে আরো প্রগাঢ়ভাবে জড়িয়ে ধরল। ওর আর তর সইছে না। নমিতাকে তার সংলাপ বলতে না দিয়েই ও সোজা তার ঠোঁটে চুমু খেলো। চুমু খাওয়ার সময় আমার বউয়ের মুখটাকে আরো কাছে টেনে নিয়ে তার জিভটা পাগলের মত চুষতে লাগলো। এমন ঝাঁজালো আক্রমণের আমার বউ তৈরি ছিল না। সে কেবলমাত্র তার ঠোঁটটাকে কাশিফের চোষার জন্য বাড়িয়ে দিতে পারলো। এদিকে কাশিফ নমিতার ঠোঁটটাও কামড়ে দিল। আমি বউ অস্ফুটে একবার “আঃ” বলে উঠলো। যখন ভয় হল কাশিফ না এবার তার ঠোঁটটাই চিবিয়ে খেয়ে ফেলে, ঠিক তখনই পরিচালক মশাই “কাট” বলে চিল্লিয়ে উঠলেন।

আমার স্ত্রীকে দেখে মনে হল যেন সে জোর বাঁচা বেঁচে গেছে। কাশিফের জবরদস্ত আক্রমণের হাত থেকে তার পাতলা ঠোঁট দুটোকে বাঁচানোর জন্য সে কৃতজ্ঞ চোখে পরিচালক মশাইয়ের দিকে তাকাল। পরিচালক মশাইও বুঝতে পারলেন যে কাশিফের এমন বর্বর আচরণে নমিতা উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছে। তাকে আশ্বস্ত করতে উনি ওনার একটা হাত তার কাঁধে রাখলেন। আমি বাজি ধরে বলতে পারি ওনার আঙ্গুলগুলো আমার বউয়ের দুধের সাথে ঘষটে গেল। কিন্তু কাশিফের অভদ্র উত্তেজিত আক্রমণের পরে এমন নম্র ব্যবহারে তার কাছে গা জুড়ানোর সামিল। আমার বউ ওনার দিকে তাকিয়ে হাসল।

পরিচালক মশাই কাশিফকে খুব করে বকে দিলেন, “এটা তুই কি করছিলিস? ঠোঁট কামড়ানোর মানে কি? আমি যা যা বলবো, ঠিক তাই তাই করবি। বুঝেছিস? মনে রাখিস আমারা ভাই-বোনের দৃশ্য শুট করছি।”

আমার স্ত্রীকে দেখে মনে হল পরিচালক মশাইয়ের সমর্থন পেয়ে সে আন্তরিকভাবে সন্তুষ্ট হয়েছে। আমিও মনে মনে আমার ভাগ্যকে ধন্যবাদ জানালাম, যে যাক এতক্ষণে কারুর তো আক্কাল ঠিক আছে। পরিচালক মশাই আমার বউকে শান্ত থাকতে বলে সরে পরলেন। মৃণ্ময়বাবুও নমিতাকে বললেন যে তাকে ক্যামেরায় খুবই সুন্দর দেখিয়েছে। ক্যামেরাম্যানের প্রশংসা শুনে আমার স্ত্রীয়ের মুখটা আবার রাঙা হয়ে উঠলো। নমিতার পাছায় আলতো করে একটা চাপড় মেরে উনিও সরে পরলেন। সবাই ধীরে ধীরে আমার স্ত্রীয়ের সাথে সাহসী হয়ে উঠছে। জগদীশবাবু পর্যন্ত এগিয়ে গিয়ে আমার বউকে বলে এলেন যে তার অভিনয় খুবই ভালো হচ্ছে আর ফিরে আসার আগে তার গালে একটা ছোট্ট চুমু খেলেন। নমিতাকে দেখলাম সমস্তকিছুই সে খুব স্পোর্টিংলি নিল। যখন টাচআপের ছোকরাটা এসে তার শাড়ির আঁচল সরিয়ে তার কোমর-পেট-নাভি থেকে ঘাম মুছে দিতে লাগলো, তখন সে একফোঁটা বিব্রতবোধ করল না।

পিছন থেকে মৃণ্ময়বাবু ছোকরাকে হুকুম দিলেন, “এই ব্যাটা, ওনার ক্লিভেজটাও মুছে দে। ক্যামেরাতে ওটা বেশি জ্বলজ্বল করছে।”

ছোকরা হাঁটু গেঁড়ে বসেছিল। ক্লিভেজটা স্পষ্ট করে দেখাতে আমার বউ ওর মুখের সামনে দিব্যি ঝুঁকে পরল আর ছোকরাটা ভালো করে মুছে দিল। ওর প্যান্টের দিকে চোখ যেতেই আমার মনে হল যে এবার না ওর ধোনটা প্যান্ট ফাটিয়ে বেরিয়ে পরে। এদিকে কাশিফ এগিয়ে গিয়ে তার উগ্র ব্যবহারের জন্য আমার বউয়ের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করল, “দুঃখিত দিদি, আমি তখন বড় বেশি আবেগপ্রবণ হয়ে পরেছিলাম।”

আমার বউ ওর কৈফিয়তে সন্তুষ্ট হল আর ওকে সঙ্গে সঙ্গে ক্ষমা করে দিল। ওর দিকে তাকিয়ে হাসল। কাশিফও আমার স্ত্রীয়ের ঠোঁটে ছোট্ট করে একটা চুমু খেয়ে সরে পরল। আমার স্ত্রী একটু অবাক হয়ে গেলেও কোনো প্রতিক্রিয়া জানালো না। সবার দুঃসাহস দেখে আমিও অবাক হয়ে গেলাম। এরা আজকেই আমার বউয়ের সাথে প্রথম আলাপ করেছে আর এরইমধ্যে তার সাথে এত ঘনিষ্ঠ আচরণ করার সাহস দেখাচ্ছে। আমি এটা ভেবে নিজেকে শান্ত রাখার চেষ্টা করলাম যে হয়ত এরা সব অভিনেত্রীদের সাথেই এমন ঘনিষ্ঠভাবে মেশে আর তাই এদের কাছ থেকে এমন অন্তরঙ্গ ব্যবহার পাওয়াটা খুবই স্বাভাবিক।

পরিচালক মশাই এবার দ্বিতীয় দৃশ্যে চলে গেলেন। উনি আমার বউকে বোঝাতে লাগলেন যে কাশিফের প্রতি তার অনুভূতি কেবলমাত্র একটা দিদির মত নয়, মায়ের মতও বটে আর তাকে এমনভাবে দৃশ্যটা অভিনয় করতে হবে যে সেই অনুভূতির আঁচ যেন দর্শকেরাও পায়। তাই উনি কাশিফকে আমার বউয়ের বুকে ওর মাথা রাখতে নির্দেশ দিলেন আর আমার বউকে বললেন ওর মাথাটা তার বুকের উপর এমনভাবে চেপে ধরতে, যাতে দেখে মনে হয় যেন আমার বউ কাশিফকে দুধ খাওয়াচ্ছে। প্রত্যেক নারীর মতই আমার স্ত্রীকেও দৃশ্যের এই স্নেহপূর্ণ মাতৃবৎ দিকটা ভীষণ টানল এবং সে প্রবল উৎসাহে কাশিফকে তার বুকে জড়িয়ে ধরল। কাশিফের ঠোঁট দুটো যে শাড়ির উপর দিয়ে তার দুধের সাথে ঘষা খাচ্ছে সেটা সে গ্রাহ্যই করল না।

হঠাৎ করে ক্যামেরাম্যান মৃণ্ময়বাবু “কাট” বলে উঠলেন। উনি আমার স্ত্রীয়ের কাছে গিয়ে তার শাড়ির আঁচলটা একধার করে এমনভাবে সরিয়ে দিলেন যাতে করে কাশিফের মুখটা আমার স্ত্রীয়ের আঁচলহীন ব্লাউসের উপর গিয়ে ঠেকল। কাশিফ ওর মুখটা নমিতার ব্লাউসের উপর চেপে ধরল আর সেও একেবারে জননীসুলভভাবে ওকে আষ্টেপিষ্টে জাপটে ধরে ওর মুখটা তার বুকে চেপে ধরল। কাশিফ আমার বউয়ের বিশাল দুধে মুখ ঘষতে পেরে অনুপ্রাণিত হয়ে পরল। ও সোজা হয়ে দাঁড়িয়ে আমার বউকে সজোরে জড়িয়ে ধরল। ওর হাত দুটো আবার নমিতার প্রকাণ্ড পাছায় নেমে গেল আর ও তাকে নিজের দিকে টেনে নিল। সকালবেলায় তার বিপুল পাছাটাকে বারবার চটকানো হয়েছে। তাই হয়ত আমার বউ কিছু মনে করল না, এমনকি একবারও সরে যাওয়ার চেষ্টা করল না। পরিবর্তে সে কাশিফের দিকে সোজাসুজি তাকিয়ে তার সংলাপ বলল, “ভাই, আমি শুধু তোমার দিদি নই। আমি তোমার মায়ের মত।”

তারপর পরিচালক মশাইয়ের নির্দেশ মত আমার বউ কাশিফের কপালে চুমু খেলো। আমার বউ চুমু খাওয়া শুরু করতেই, কাশিফও ওর পুরনো বদঅভ্যাসে ফিরে গেল আর আমার বউয়ের ঠোঁটে চুমু খেতে আরম্ভ করল। যদিও এটি স্ক্রিপ্টে নেই আর পরিচালক মশাই এমনকিছু করতেও বলেননি, কাশিফ তার ঠোঁট কামড়াচ্ছে না বলে আমার স্ত্রী সেভাবে কোনো প্রতিরোধ করল না। আমার স্ত্রীয়ের কাছ থেকে কোনো বাধা না পেয়ে কাশিফের সাহস অনেকটাই বেড়ে গেল আর ও ওর জিভটাকে সোজা আমার স্ত্রীয়ের মুখের ভিতর চালান করে দিল। আমার বউ এবার তার মুখটাকে সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করল, কিন্তু কাশিফ তাকে গায়ের জোরে চেপে ধরে আমার বউয়ের ঠোঁট দুটো ওর জিভ দিয়ে চাটতে লাগলো।

এখানে বলে রাখা ভালো যে বরাবরই ফ্রেঞ্চ কিসের উপর আমার বউয়ের একটা স্বাভাবিক দুর্বলতা আছে আর সেটা তাকে মেজাজে নিয়ে আসে। যখন কাশিফ বারবার তার মুখের মধ্যে ওর জিভটা ঢুকিয়ে দিল, তখন আমার বউ আর থাকতে না পেরে আত্মসমর্পণ করল। সেও তার জিভটাকে বাড়িয়ে দিল আর কাশিফও অমনি আহ্লাদে তার জিভটাকে ওর মুখের ভিতরে শুষে নিল। ও ওর জিভটাকে বাড়িয়ে দিয়ে আমার স্ত্রীয়ের দিকে তাকাল। খুবই আকর্ষক ভঙ্গিতে ওর জিভটাকে আমার স্ত্রীয়ের ঠোঁটের কাছে ঘোরাতে লাগলো। এক সেকেন্ডের জন্য আমার স্ত্রী একটু দ্বিধা করল, তারপর তার প্রবৃত্তি তাকে বাগে নিয়ে ফেলল আর সে তার জিভ বাড়িয়ে কাশিফের জিভের সাথে ঠেকিয়ে দিল। চার-পাঁচ সেকেন্ড কাশিফের জিভে জিভ ঘষে সে তার মুখটা খুলে ওর জিভটাকে শুষে নিল। পরম সুখে কাশিফ আমার বউকে জড়িয়ে ধরল আর তার পিঠের খোলা অংশে হাত বোলাতে শুরু করল। আমার বউও উষ্ণ আবেগের জগতে নিজেকে হারিয়ে ফেলল আর ওর জিভটাকে চুষে চলল। চরম উষ্ণতার সাথে তিন মিনিট ধরে চুমু খাওয়া আর জিভ চোষার পরে আমার স্ত্রীয়ের কাণ্ডজ্ঞান ফিরে এলো আর সে নিমেষের মধ্যে কাশিফের মুখ থেকে তার মুখটা সরিয়ে নিল। পরিচালক মশাইও ঠিক তার সাথে সাথেই “কাট” বলে চেঁচিয়ে উঠলেন।

‘কাট’ শোনার পর আমার স্ত্রী আমাদের সবার দিকে তাকাতেই লজ্জা পেল। সে শুধু মাথা নিচু করে মেঝের দিকে চেয়ে রইলো। আবেগের বশে একঘর লোকের সামনে, যাদের মধ্যে তার স্বামীও রয়েছে, একটা অল্পবয়েসী ছেলের জিভ চুষে ফেলে, সে এখন সত্যিই ভীষণ অস্বচ্ছন্দবোধ করছে। তাকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য পরিচালক মশাই আমার বউয়ের পিঠটা হালকা করে চাপড়ে দিয়ে তাকে একটা বিরতি নিতে বললেন। সে এসে খুবই দ্বিধাগ্রস্তভাবে আমার পাশে বসলো। আমার দিকে চোখ মেলে তাকাতে পারলো না।

এই ঘটনায় আমিও পুরোদস্তুর কেঁপে গেছি। আমি স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি যে আমার বউ আমারই সামনে একটা কলেজ পড়ুয়াকে জিভ দিয়ে চুমু খাবে। অন্তত প্রথমদিকে ব্যাপারটা ঠিকই লেগেছে। ভাই-বোনের জাপটাজাপটি, এসব। কিন্তু এখন সমস্তকিছু একেবারে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। কোন ভাই তার দিদিকে এমনভাবে চুমু খায় বা কোন দিদিই বা ভাইয়ের জিভ চোষে। আর কোন চ্যানেলই বা এমন একটা পারিবারিক সিরিয়ালকে টেলিকাস্ট করবে। সমগ্র প্রোজেক্টটা সম্পর্কে আমার মনে একটা সন্দেহ দেখা দিল। যতক্ষণ আমার বউ ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করতে দ্বিধাবোধ করবে, ততক্ষণ আমি চুপচাপ বসে সবকিছুই দেখতে পারবো। কিন্তু একটু আগে যেটা ঘটলো। আমার স্ত্রী তো দস্তুরমত কাশিফের জিভের উপর ঝাঁপিয়ে পরেছিল। দেখে মনে হচ্ছিল যেন সে পারলে সর্বক্ষণের জন্য ওর জিভটাকে তার মুখের ভিতরে ঢুকিয়ে রাখে।

না! সবকিছু নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। কিন্তু আমার বউকে দোষ দেওয়া যায় না। তাকে এমন পরিস্থিতিতে ফেলার পিছনে আমিই দায়ী। দুই ঘণ্টা ধরে চুমু খাওয়া, পাছা টেপা এবং পেট-কোমর হাতড়ানোর পরে আঠাশ-উনত্রিশ বছরের কোন বিবাহিত স্ত্রী বারবার নিজেকে আয়ত্তের মধ্যে রাখতে পারবে। হাজার হোক সেও তো এক নারী। আমি চটজলদি ঠিক করে ফেললাম কি করবো। বউয়ের কাঁধে সান্ত্বনার হাত রাখলাম। আমার বউ আমার দিকে তাকাল। দেখতে পেলাম তার সারা মুখে অনুতাপের ছাপ পরেছে। তার দুই চোখের কোণ দুটো ভিজে উঠেছে। আমি বউয়ের চোখ মুছে দিলাম। সে ফিসফিসিয়ে বলে উঠলো, “চলো, আমরা চলে যাই।”

“হ্যাঁ, আমিও তাই ভাবছি। চলো, যাওয়া যাক।” বলে আমি উঠে দাঁড়ালাম। ঠিক তখনই পিছন থেকে জগদীশবাবু এসে আমার কাঁধে হাত রাখলেন। আমি ঘুরে তাকালাম।

“সিদ্ধার্থবাবু, আমি আপনার সাথে একটু আলোচনা করতে চাই।” উনি আমাকে পাশের ঘরে নিয়ে গেলেন। এই ঘরটাকে খানিকটা অফিসের মত সাজানো হয়েছে। আমি বুঝতে পারলাম এখানে চুক্তি সারা হয়।

“আপনি প্লিজ বসুন।” জগদীশবাবুর গলা বন্ধুত্বপূর্ণ শোনালো।

“দেখুন, আমার সাথে পরিচালক মশাই আর মৃণ্ময়বাবুর কথা হয়েছে। ওনারা দুজনেই বলেছেন যে আপনার অর্ধাঙ্গিনীর মধ্যে পুরো একশো শতাংশ স্টার হয়ে ওঠার উপাদান রয়েছে। কিন্তু যেসব দৃশ্যগুলি আমরা শুট করেছি, তার থেকেই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আপনার স্ত্রীকে সাদাসিধা দিদি-বোনের চরিত্রে মানাবে না। ওনার মধ্যে একটা আলাদা উত্তেজক আবেদন আছে আর ওনার শরীরটাও বেশ চমৎকার। ওনার মুখটাও খুব শিশুসুলভ। আপনি না বললে আমরা বুঝতেই পারতাম না যে ওনার আঠাশ হয়ে গেছে। উনি ওনার সহ-অভিনেতার সাথেও দুর্দান্ত এক রসায়ন পেশ করেছেন। তাই সমস্তকিছু দেখে আমরা স্থির করেছি যে আমরা কোনো পারিবারিক সিরিয়াল না করে ওনাকে নিয়ে দুটো ভাষাতে একটা বহুভাষী সিনেমা বানাবো। আপনার বউ আর কাশিফকে নিয়ে একটা টিনএজ প্রেমের ছবি তৈরি করা হবে, যার বক্স অফিস কলেক্সনই হয়ে যেতে পারে নয়-নয় করে দুই কোটি টাকা। যেহেতু আপনার বউই এই ছবির প্রধান আকর্ষণ হতে চলেছেন, তাই আমরা ওনাকে পঁচিশ লাখ টাকা দিয়ে সই করাতে চাই। তাও আবার প্রথম ছবিতেই এত বড় একটা সংখ্যা আমরা ওনাকে দিতে রাজী আছি। সিদ্ধার্থবাবু, আপনি প্রস্তাবটা নিয়ে একটু ভালো করে চিন্তা করে দেখুন। আমরা আপনাকে আর আপনার বউকে পনেরো মিনিট ভাবার সময় দিচ্ছি।” জগদীশবাবু একটা চেক বই বের করে, তাতে একটা পঁচিশ লক্ষ টাকার চেক কাটলেন। তারপর চেকটা আমার হাতে গুঁজে দিলেন।

“যদি আপনারা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন, তবে চেকটা ফিরিয়ে দেবেন।” জগদীশ ঘর ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার আগে বলে গেলেন। আমি কয়েক মিনিট হতবাক হয়ে ওখানেই বসে রইলাম। তারপর আমার মাথায় বউকে ফিল্মস্টার করার চিন্তা উদয় হল। আমি বউয়ের কাছে ফিরে গেলাম। আমি আবার তাকে একতলায় হোটেলের লাউঞ্জে নিয়ে এসে জগদীশবাবুর প্রস্তাবের কথাটা শোনালাম। যখন তাকে জানালাম যে ওনারা তাকে তার প্রথম ছবির জন্যই পঁচিশ লক্ষ টাকা দিতে রাজী আছেন, তখন আমার বউয়ের সুন্দর মুখটা গর্বে উজ্জ্বল হয়ে উঠলো। যখন তাকে জানালাম যে কাশিফের সাথে জুটি বেঁধে সে একটা অল্পবয়েসী মেয়ের চরিত্রে এই সিনেমাটায় অভিনয় করবে, তখন সে আরো খুশি হয়ে উঠলো। কিন্তু তবুও কিছুক্ষণ আগে যা ঘটেছে সেটা সে কিছুতেই ভুলতে পারলো না। বিপর্যস্ত স্বরে আমাকে জানালো, “কিন্তু ডার্লিং, আমি মাঝেমাঝে নিজেকে হারিয়ে ফেলি।”

আমার বউয়ের গলা শুকিয়ে গেল আর বুঝে গেলাম যে সে জিভ চষার কাণ্ডটার দিকে ইশারা করছে। আমি আবার তার কাঁধে হাত রেখে বউকে সান্ত্বনা দিতে কতগুলো মিথ্যে বললাম, “আরে ও কিছু নয়। আমি জানি ওটা অভিনয়। আমি এক মুহূর্তের জন্যও ভাবিনি যে তুমি ছেলেটার দিকে আকর্ষিত হয়েছিলে। আমি জানি যে তুমি সবসময় আমার প্রতি বিশ্বস্ত রয়েছ। দৃশ্যটার জন্য যেটার প্রয়োজন ছিল, তুমি শুধু সেটাই করেছ। আমি সেটা বুঝি। আমার বউ যে একজন পাক্কা পেশাদার অভিনেত্রী, তার জন্য আমার গর্বে বুক ফুলে গেছে।”

আমরা দুজনেই জানি যে দৃশ্যের চাহিদা পূরণ করতে বা পেশাদারীত্ব দেখাতে আমার বউ কাশিফের জিভ চোষেনি। কিন্তু তবু আমি এমন ভান করলাম যেন সেটাই সত্যি। পঁচিশ লাখ টাকা আমাকে এতগুলি মিথ্যে কথা বলতে সাহায্য করল। আমার ভনিতা দেখে বউও সংকেত পেয়ে গেল আর বলল, “ডার্লিং, যখন তুমি আমার উপর এতটাই বিশ্বাস রাখো, তখন আমি অভিনয় করবো। আর আমি কথা দিচ্ছি যে আমি সর্বক্ষণ পেশাদার থাকবো।”

আমার বউ রাজী হয়ে যাওয়াতে আমি খুবই আনন্দ পেলাম। আমি বউকে জড়িয়ে ধরলাম আর তারপর আবার শুটিঙের ঘরে ফিরে গেলাম। পরিচালক মশাই, মৃণ্ময়বাবু আর জগদীশবাবু একটা সোফাতে পাশাপাশি বসে কতগুলো স্ক্রিপ্ট দেখছিলেন। আমি জগদীশবাবুর কাছে গিয়ে ওনাকে জানালাম যে ওনাদের সিনেমায় আমার স্ত্রী নায়িকার চরিত্রে অভিনয় করতে রাজী হয়ে গেছে। সুখবর শুনে জগদীশবাবু হাত বাড়িয়ে আনন্দের সঙ্গে আমার হাতটা কয়েকবার ঝাঁকিয়ে দিলেন আর জানালেন, “পরিকল্পনা পাল্টে যাওয়ায় আমাদের স্ক্রিপ্টটা বদলাতে হচ্ছে। এখন আমাদের একটা নতুন স্ক্রিপ্ট দরকার, যাতে করে আপনার স্ত্রীয়ের মেকআপ পরীক্ষাটা নেওয়া যায়। আমরা প্রচুর প্রেমের গল্প ঘেঁটে একটা উপযুক্ত স্ক্রিপ্ট খুঁজছি। আপনারা প্লিজ একটু অপেক্ষা করুন।”

আমি ফিরে গিয়ে বউয়ের পাশে বসলাম। দেখলাম আমার বউয়ের আরেক পাশে কাশিফ বসে আছে আর তারা বন্ধুদের মত গল্প করছে। আমার বউ কাশিফকে ওর বান্ধবীদের সংখ্যা নিয়ে খেপাচ্ছে আর কাশিফ তাকে ‘দিদি’ বলে সম্বোধন করছে। কেউ যদি তাদের দেখে তবে সে তাদের ভাই-বোন বলেই ভাববে। সে কল্পনাও করতে পারবে না, যে এই কিছুক্ষণ আগে এরাই আবার একে-অপরকে উষ্ণভাবে চুমু খেতে খেতে একে-অপরের জিভ চুষছিল।

মিনিট পনেরো পর পরিচালক মশাই একটা স্ক্রিপ্ট চূড়ান্ত করলেন। আমাদের ডাক পরল। আমার স্ত্রী আমার পাশে দাঁড়িয়ে ছিল। পরিচালক মশাই তার হাত ধরে ওনার কাছে টেনে আমার স্ত্রীয়ের গলা জড়িয়ে ধরে বললেন, “আমি তোমাকে কথা দিলাম, আমি তোমাকে এই রাজ্যের স্বপ্নসুন্দরী বানিয়ে দেবো।”

এই বলে আমার বউকে উনি জাপটে ধরলেন। আমার বউ বুঝে উঠতে পারলো না কিভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবে আর তাই সেও ওনার গলা জড়িয়ে ধরল। পরিচালক মশাইয়ের হাত দুটো নেমে গেল আর উনি আমার বউয়ের প্রকাণ্ড পাছাটা চটকাতে লাগলেন। উনি আর আমার বউ কয়েক সেকেন্ড একে-অপরকে জড়িয়ে ধরে রইলো আর সবাই দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সেটাই দেখতে লাগলো। এতক্ষণে আমিও লোকজনের আমার স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরাতে আর তার পাছা টেপাতে অভ্যস্ত হয়ে গেছি। তাই অস্বাভাবিক কোনকিছুই যেন ঘটছে না, এমন ভাব করে আমিও চুপচাপ দাঁড়িয়ে রইলাম।

কয়েক সেকেন্ড বাদে পরিচালক মশাই আবার ওনার পেশাদারী ব্যক্তিত্বে ফিরে গেলেন। উনি জানালেন যে এই স্ক্রিন টেস্টের ফুটেজ চিত্রপরিবেশকদের কাছে পাঠানো হবে, যাতে করে সিনেমাটা ভালো করে আঞ্চলিক ব্যবসা করতে পারে। আর সেই টাকায় ওনারা একটা বড় বাজেটের ফিল্ম তৈরি করবেন। এটাই ওনাদের পরিকল্পনা। পরিচালক মশাই বললেন যে পরিবেশকেরা যাতে এক নজরেই পছন্দ করে ফেলে, তাই এই স্ক্রিন টেস্টের ফুটেজটা খুবই আকর্ষণীয় হওয়া দরকার। উনি তাড়াতাড়ি করে স্ক্রিন টেস্টের দৃশ্যটাকে বুঝিয়ে দিলেন। উনি বললেন যে আমার বউ আর কাশিফ কলেজ সহপাঠী এবং একান্তে একটা পিকনিক করতে এসেছে। তারা একটা ঘর ভাড়া করেছে এবং এই হোটেল রুমে একা রয়েছে। দুজনের বয়েসই খুব কম আর প্রলোভনের পরিবেশে তারা একে-অপরের সাথে ঘনিষ্ঠ হতে আরম্ভ করেছে। এখান থেকে দৃশ্য শুরু হচ্ছে যে তারা বিছানায় যাচ্ছে। এখানে দৃশ্যের সমাপ্তি ঘটে আর কল্পনায় নায়ক-নায়িকা নাচগান করে।

আমার স্ত্রী আর কাশিফ দুজনেই খুব মনোযোগ সহকারে পরিচালক মশাইয়ের কথা শুনল। আমার স্ত্রী ঘরের মাঝখানে যাওয়ার জন্য সবে পা বাড়িয়েছে, তখনই জগদীশবাবু তার পথ আটকে বললেন, “এই স্ক্রিপ্টের জন্য আপনার একটা নতুন পোশাকের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখানে আপনাকে একটা আধুনিক অল্পবয়েসী কিশোরী সাজতে হবে আর তাতে শাড়ি চলে না। আপনি পাশের ঘরে গিয়ে নতুন পোশাকটা পরে আসুন।”

জগদীশবাবু নতুন পোশাকটা আমার স্ত্রীকে দিলেন আর আমার স্ত্রী সেটা নিয়ে পাশের লাগোয়া ঘরে ঢুকে পরল। কিন্তু দশ মিনিট বাদেও সে যখন ঘর থেকে বেরলো না, তখন ক্যামেরাম্যান মৃণ্ময়বাবু গিয়ে ঘরে ঢুকলেন। আমরা তাদের কণ্ঠস্বর শুনতে পেলাম। প্রথমে আমি শুনতে পেলাম আমার স্ত্রী অস্ফুটে কি যেন বলছে। তারপর আমি মৃণ্ময়বাবুর ঘ্যাঁসঘ্যাঁসে গলা শুনতে পেলাম।

“আরে নমিতা, তোমাকে এই পোশাকে দারুণ তো দেখাচ্ছে।”

“না, না! এটা খুবই ছোট!”

“আরে নমিতা, তোমার ঊরু দুটো তো খুবই সুন্দর। এই পোশাকে ও দুটো আরো প্রকট হবে। জানো, শুধু এই ঊরু দুটোর কারণেই তুমি বিখ্যাত হয়ে যেতে পারবে।”

“কিন্তু আমার বুকের খাঁজটাও তো অনেকটা দেখা যাচ্ছে।”

“দূর বোকা মেয়ে! তুমি ওসব নিয়ে অত চিন্তা করো না। আমি ক্যামেরাটাকে এমনভাবে ফেলবো যে খাঁজটা যথেষ্ট শোভন দেখাবে।”

তারপর কিছুক্ষণ সব চুপচাপ। আমি আন্দাজ করলাম যে মৃণ্ময়বাবু এতক্ষণে আমার বউকে আশ্বস্ত করতে তাকে জড়িয়ে ধরেছেন। কয়েক সেকেন্ড বাদে, আমি এমনকি চুমুর আওয়াজও শুনতে পেলাম। এতক্ষণে ঘরের প্রতিটা লোকই বুঝে গেছে যে আমার বউকে আশ্বস্ত করার সেরা পদ্ধতি হল তাকে জড়িয়ে ধরে তার পাছার দাবনা টেপা আর তার মুখের মধ্যে একটা জিভ ঢুকিয়ে দেওয়া। যদিও আমার সন্দেহ হল যে মৃণ্ময়বাবু আমার বউয়ের সাথে এভাবে একান্তে ঘনিষ্ঠভাবে সময় কাটানোর পূর্ণ সুযোগ নিচ্ছেন, তবুও আমি চুপ করে রইলাম। কিছুক্ষণ বাদে মৃণ্ময়বাবু বেরিয়ে এলেন আর সবার দিকে থাম্বসআপ দেখিয়ে জানিয়ে দিলেন যে উনি সফলভাবে আমার বউকে রাজী করাতে পেরেছেন।

মিনিট পাঁচেক বাদে আমার স্ত্রীও ঘর থেকে বেরিয়ে এলো। লজ্জায় তার মুখটা রাঙা হয়ে গেছে। সে খুব দ্বিধাগ্রস্তভাবে তার প্রতিটা পদক্ষেপ ফেলছে। ভগবান! আমার বউকে একটা মিনিড্রেসে মারাত্মক সেক্সি লাগছে। কেউ তাকে দেখে বলতে পারবে না যে তার আঠাশ বছর বয়স হয়েছে আর তার বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট্ট পোশাকটা তার ডবকা শরীরে একেবারে আঁটসাঁটভাবে চেপে বসেছে আর তার বিশাল দুধ দুটোকে দেখে মনে হচ্ছে যেন ও দুটো এক্ষুনি ড্রেস ছিঁড়ে বেরিয়ে পরবে। পোশাকের নিচের দিকের স্কার্টটা আমার বউয়ের প্যান্টিটাকে কোনমতে ঢাকতে পেরেছে। আমার স্ত্রীকে বারবার হাত দিয়ে স্কার্টটাকে টেনে নিচে নামাতে হচ্ছে, যাতে না সেটা উঠে গিয়ে তার লাল রঙের প্যান্টিটা বেরিয়ে পরে। আমি বুঝতে পারলাম যে সিনেমাটা মুক্তি পেলেই এক কলেজ ছাত্রী হিসেবে আমার স্ত্রী দারুণ জনপ্রিয় হয়ে উঠবে।

ইতিমধ্যেই এই সেক্সি পোশাকে আমার বউয়ের খুব অস্বস্তি করছে। তারপর যখন সে বুঝতে পারলো যে ঘরের সমস্ত লোক তার সম্পত্তিগুলোর দিকে হাঁ করে তাকিয়ে আছে, তখন সে খুবই লজ্জা পেয়ে গেল। আমার বউ প্রায় দৌড়ে আমার কাছে এসে, আমার পিছনে লুকিয়ে পরল। সে ফিসফিস করে আমাকে জিজ্ঞাসা করল, “আমার এমন পোশাক পরাটা কি ঠিক?”

আমি কোনো উত্তর দেওয়ার আগেই জগদীশবাবু বলে উঠলেন, “ভগবান! এই পোশাকে যদি ওনার কয়েকটা স্টিল ছবি বাজারে ছাড়া হয়, তাহলেই উনি পরের ফিল্মের জন্য অনাসায়ে পঞ্চাশ লাখ টাকা দাবি করতে পারবেন।”

জগদীশবাবুর পর্যবেক্ষণ ক্ষমতাকে আমি সম্মান করি। এক বাক্যে উনি আমার সব সমস্যা মিটিয়ে দিলেন। তৎক্ষণাৎ আমি বউকে বললাম, “পোশাকটা তো ঠিকই আছে ডার্লিং। এটাতে তোমায় দারুণ মিষ্টি দেখাচ্ছে।”

যদি কেউ আমার স্ত্রীকে এই ছোট্ট পোশাকে দেখে, তাহলে মনে হয় ‘মিষ্টি’ শব্দটা সে সবথেকে শেষে ব্যবহার করতে চাইবে। আমার বউকে পাক্কা সেক্সবোমা লাগছে, যাকে দেখে যে কারুর ধোন খাড়া হয়ে যাবে। কিন্তু তবু বউয়ের সামনে আমাকে একটা ভাবমূর্তি বজায় রাখতে হবে এবং তাকে কোনমতেই জানানো যাবে না যে শুধুমাত্র টাকার লোভে আমি তাকে এমন একটা ছিনালি পোশাক পরার অনুমতি দিচ্ছি। আমার বউ যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচল।

“আমি খুব টেনশনে পরে গেছিলাম। এমন পোশাকে আমাকে বেরোতে দেখে যদি তুমি কিছু বলো। কিন্তু মৃণ্ময়বাবুকে আমাকে বুঝিয়ে রাজী করালেন।” মৃণ্ময়বাবুর কথা বলতে গিয়ে আমার বউয়ের গলাটা আবার বুজে এলো। হয়ত ওই ঘরের ভিতর গোপনে মৃণ্ময়বাবু তার সাথে কি করেছেন, সেটা বউয়ের মনে পরে গেল। কিন্তু আমি তাকে পোশাকটা পরার অনুমতি দেওয়াতে তার আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়ে গেল। ঠিক সেই মুহূর্তে পরিচালক মশাই চেঁচিয়ে উঠলেন, “নমিতা আর কাশিফ বিছানায় চলে আসো।”

বিদ্যালয়ে পড়া ছাত্রী যেমন তার প্রধান শিক্ষকের কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে, ঠিক তেমনই পরিচালক মশাইয়ের আদেশ শুনে আমার বউ তৎক্ষণাৎ বিছানায় চলে গেল। তাকে অমনভাবে পরিচালক মশাইকে ভয় পেতে দেখে আমি খুব আশ্চর্য হয়ে গেলাম। আমার স্ত্রী আর কাশিফ গিয়ে খাটের পাশে দাঁড়াল। পরিচালক মশাই তাদের দৃশ্যটা বিশদভাবে বুঝিয়ে দিলেন।

“দেখ কাশিফ, তুই তোর বান্ধবীর সাথে একলা রয়েছিস আর পুরো মেজাজটা খুব আবেগপূর্ণ হয়ে আছে। ফাঁকা ঘর। সুন্দরী বান্ধবীর প্রলুব্ধকর পোশাক। তোর চোখে-মুখে সেই আবেগ, সেই লালসাটা প্রকাশ পাওয়া চাই। নমিতা, তুমিও ভীষণ আবেগপ্রবণ। প্রথমে কাশিফ এসে তোমাকে জড়িয়ে ধরবে। তুমিও সাথে সাথে ওকে জড়িয়ে ধরবে। তোমার মনেও কামনা জেগে উঠেছে। কাশিফ, তুই নমিতাকে জড়িয়ে ধরার পর ধীরে ধীরে ওকে খাটে বসিয়ে দিবি আর তারপর নিজে ওর পাশে বসে পরবি। দুই হাতে নমিতার মুখ তোর দিকে ঘুরিয়ে ওর ঠোঁটে চুমু খাবি। চুমুটা যেন লম্বা হয়। আমি কাট না বলা পর্যন্ত নমিতাকে চুমু খেতে থাকবি।”

দৃশ্য শুরু হল। পরিচালক মশাইয়ের নির্দেশ মত কাশিফ আমার বউকে জড়িয়ে ধরল আর আমার বউ ওকে। তারপর কাশিফ তাকে ধীরে ধীরে বিছানার উপর বসিয়ে দিল। এতক্ষণ আমার বউ শুধু দাঁড়িয়ে ছিল। কিন্তু বিছানায় বসার সাথে সাথে তার ছোট্ট পোশাকের নিচের দিকের স্কার্টটা উঠে গিয়ে তার ধবধবে ফর্সা থাই দুটোকে সবার চোখের সামনে সম্পূর্ণ উন্মুক্ত করে দিল আর একইসাথে স্কার্টের তলা দিয়ে আমার বউয়ের পরা লাল রঙের প্যান্টিটাও পরিষ্কার দেখা যেতে লাগলো। মৃণ্ময়বাবুর ক্যামেরা আমার বউয়ের সেই স্কার্ট তোলা প্যান্টি বের করা প্রদর্শনী গড়গড়িয়ে তুলতে লাগলো।

এদিকে কাশিফ যখন আমার বউয়ের ভাইয়ের পাঠ করেছে, তখনি তার প্রতি ওর ভালোবাসা জাহির করতে ও প্রবল উৎসাহ দেখিয়েছে। এখন তো ও আমার স্ত্রীয়ের প্রেমিক। আবার গোঁদের উপর বিষফোড়ার মত রয়েছে আমার স্ত্রীয়ের সেক্সি পোশাক। তাই বলার অপেক্ষা রাখে না, যে এক সেকেন্ডও নষ্ট না করে কাশিফ আমার বউয়ের উপর হিংস্রভাবে হামলে পরে পাগলের মত তার ঠোঁট দুটোকে চাটতে-চুষতে আরম্ভ করল। নমিতাও ওকে চুমু খেয়ে পূর্ণ সহয়তার হাত বাড়াল। এরফলে কাশিফ আরো বেশি উত্তেজিত হয়ে পরল আর ওর দুটো হাত আমার বউয়ের সারা শরীরে ঘুরতে লাগলো। আবার কাশিফ ওর প্রিয় স্থান, আমার বউয়ের প্রকাণ্ড পাছার দাবনা দুটো থেকে শুরু করল। কিন্তু এবারে ওর হাতে মিনিড্রেসের বিলাসিতা চলে এসেছে। তাই ও খুব সহজে স্কার্টটাকে আরো একটু উপরে তুলে দিয়ে আমার বউয়ের উলঙ্গ থাই দুটোতে হাত বোলালো। তারপর ওর হাত চলে গেল নমিতার পাছার দাবনায়। আমার স্ত্রীয়ের নগ্নপ্রায় পাছা আর কাশিফের আঙ্গুলের মাঝে কেবলমাত্র একটা লাল প্যান্টি রয়ে গেল। যখন প্রায় মনে হচ্ছে যে এবার না কাশিফ ওর একটা আঙ্গুল ওই প্যান্টির ভিতরেই ঢুকিয়ে দেয়, ঠিক তখনই পরিচালক মশাই আচমকা ‘কাট’ বলে চিল্লিয়ে উঠলেন।

part 2 coming

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s