একজন পাঠক, ও কিছু গলপো


এবারও বিয়েটা ভেঙে গেলো জুবাইরের।
বয়স তো আর কম হলো না। চোখের সামনে সমবয়েসী বন্ধুগুলো, প্রায় কিশোরী কিংবা যুবতী বয়সের কন্যাদের নিয়ে এখানে সেখানে বেড়াতে যায়, হাসি আনন্দে সময় কাটায়, তখন জুবাইরকে অধিকাংশ সময়ই কাটাতে হয় টয়লেটে, কিংবা বদ্ধ ঘরের অন্ধকার বিছানায় লিংগটা মুঠিতে রেখে।

জুবাইর হাসান, শৈশব থেকেই লেখাপড়ার প্রতি খুবই ঝোঁক তার। সেই সাথে অবসর সময়ে গল্পের বই পড়ারও প্রচণ্ড আগ্রহ তার। কিশোর বয়সে, মাসুদ রানার প্রতিটি সিরিজগুলোর এক একটি এক বসায়, এক নিঃশ্বাসে শেষ করার মতোই ছেলে সে। ঠিক তেমনি মেধাবীও বটে। তবে, অস্বাভাবিক কিংবা বেমানান কোন কিছুই সে পছন্দ করে না। শুধু তাই নয়, তেমনি কিছু চোখের সামনে পরে গেলে, সে আর স্থির থাকতে পারে না। হয়, কথায় বলে ফেলে, অথবা নিজেই সেটা স্বাভাবিক কিংবা মানানসই অবস্থায় ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করে। অনেক মানুষের ভীরে, সবার সামনেই তা সে করে থাকে। তার জন্যে, বন্ধু বান্ধবও খুব কম তার।

জুবাইর হাসানের তেমনি কোন স্বভাবের উদাহরন দিতে গেলে, এমনটিও বলা যায়। বাসে করে কোথায় যাচ্ছে। সামনেই একটি যুবতী মেয়ে পেছন ফিরেই দাঁড়িয়ে আছে। পরনে শাড়ী। কোন কারনে হয়তো শাড়ীটা দু পাছার মধ্যস্থলে আটকে গেছে। এটা তো স্বাভাবিক কোন ব্যাপারও হতে পারে। তবে, জুবাইর হাসানের চোখে এটা অস্বাভাবিকই মনে হতে থাকে। তার হাতগুলো তখন স্থির থাকে না। যেচে পরে, নিজ হাতে শাড়ীটা টেনে ঠিক ঠাক করে দেবেই।

সেবারও তাই করেছিলো। বাসে খুব একটা ভীর ছিলো না। তবে, দু একজনকে দাঁড়িয়েই যাত্রাটা করতে হচ্ছিলো। সেই বাসেই জাদরেল ধরনের একটি মেয়েই ছিলো। তার শাড়ীটাও ঠিক তেমনি দু পাছার মাঝে আটকে ছিলো। জুবাইর এর চোখেও সেটা পরে গিয়েছিলো। তখন কি আর সে ঠিক থাকতে পারে নাকি? শাড়ীটা টেনে ঠিক করেই দিয়েছিলো।
এমন একটি কাজ মেয়েটির ভালোর জন্যেই করেছিলো সে। কারন, ব্যাপারটা তার চোখে যেমনি পরেছে, পথ চলতে গিয়ে অন্যদের চোখে পরলেও লজ্জাকর! অথচ, মেয়েটি ঘুরে দাঁড়িয়ে, তার গালে ঠাস করেই চড় বসিয়ে দিয়েছিলো।
জুবাইর হাসান জবাবদিহি করতে চেয়েছিলো ঠিকই। তবে, জাদরেল সেই মেয়েটি কথা বলার কোন সুযোগ না দিয়ে, বাস কণ্ডাক্টরের হাতেই সোপর্দ করে দিয়ে বলেছিলো, আগে গণপিটুনী, তারপর আমি কেনো থাপ্পর দিলাম, তার করন বলবো।

নিজ কর্মকাণ্ডের জন্যে এমনি অপমান, গণপিটুনীও জুবাইর হাসানকে অনেকবার খেতে হয়েছিলো। তারপরও সে, যা বলা উচিৎ, যা করা উচিৎ, তা না বলে, না করে থাকতে পারে না। এবারেও, বিয়ের আলাপটা চলাকালে, তেমনি কিছু কর্মকাণ্ড করে ফেলেছিলো। যার জন্যে স্বয়ং পাত্রীই রেগে মেগে আগুন হয়ে, তার বেগতিক অবস্থাটাই ঘটিয়ে ফেলেছিলো। মন খারাপ করেই পুনরায় ফিরে আসতে হয়েছিলো বিদেশ বিভুইয়ে, নিসংগ প্রবাসে।

জুবাইর হাসান এর স্বভাব চরিত্র যাই হউক না কেনো, নিসঃন্দেহে মেধাবী, নীতীপরয়ান। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম, এস, সি, টা শেষ করে, দেশের বাইরেই পি, এইচ, ডি, করছে। পি, এইচ, ডি, কাজগুলো শেষ করে, অবসর সময়ে বই পড়েই সময় কাটাতে ইচ্ছে করে তার। তবে, কখনো বই কিনে পড়েছে বলে মনে পরে না তার।
দেশে থাকলে হয়তো এর তার কাছ থেকে বই ধার করে পড়তে পারতো। বিদেশ বিঁভুইয়ে সেই সুযোগ কই। তাই মাঝে মাঝে ইন্টারনেটেই ঢু মারে। ফ্রী কোন সাইট থাকলে, সেখানেই বিনে পয়সায় দু একটা গলপো পড়ে নেয়।

জুবাইর হাসান এর স্বভাব চরিত্রের মাঝে, আরো একটি বিশেষ দিক আছে। সুন্দরকে সে কখনোই সুন্দর বলে না। তবে, বিশ্রী কিছু তার চোখে পরলে, মুখটাকে আর বন্ধও রাখতে পারে না। এবারও, যার সাথে তার বিয়ের আলাপটা চলছিলো, তার নাম পারুল। আহামরি কোন সুন্দরী মেয়ে সে নয়। ঠিক তেমনি মেধাবীও বলা চলে না। ইউনিভার্সিটি যায় আসে। এর মাঝে যদি বিয়েটা হয়ে যায়, তাহলে তার মা বাবাও বুঝি একটা গুরু দায়ীত্ব থেকেই বাঁচে।
পাত্রীও পছন্দ করে রেখেছিলো, স্বয়ং জুবাইর হাসানের মা বাবাই। নাদুস নুদুস চেহারা, এমন চঞ্চলা একটি মেয়ে বাড়ীর বউ হয়ে এলে, বাড়ীটা আলোকিত হয়েই থাকবে, তেমনি একটি আশাতেই দিন গুনছিলো জুবাইর হাসানের মা বাবা। কিন্তু, জুবাইর হাসানের নিজ পছন্দ অপছন্দও তো আছে। তাই, সেবার গরমের ছুটিতেই, মাস খানেকের ছুটি নিয়েই দেশে এসেছিলো পাত্রী দেখতে। নাহ, পারুলকে নয়। নিজে এখানে সেখানে ঘুরে ফিরে, পছন্দের একটা মেয়ে খোঁজতে!
দেশে এসে প্রথমেই গিয়েছিলো নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে। আজকালকার আধুনিক মেয়েরা তো কত ধরনেরই পোষাক পরে। সংক্ষিপ্ত পোষাকও পরে। এমন পোষাকও পরে, যা দেখে অনেক সময় মনে হয়, এমন পোষাক না পরে, ন্যাংটু থাকলেও বুঝি আরো কম সেক্সী লাগতো!
খুব একটা সংক্ষিপ্ত পোষাক, পারুল কখনোই পরে না। তবে, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে, টপস স্কার্ট মাঝে মাঝে পরে। তবে, বিশাল ওড়নাটা দিয়ে, তার উঁচু বুকগুলো ঠিকই ঢেকে ঢুকে রাখে।
সেদিনও পারুলের পরনে, ঘিয়ে রং এর শার্ট, আর ছিটের স্কার্ট। লাইব্রেরীর সিঁড়িতে বসেই বান্ধবীদের সাথে আড্ডা মারছিলো। যার কারনে, স্কার্টের তলায়, আকাশী রং এর প্যান্টিটা চোখে পরার মতোই ছিলো। পারুলের সামনে দিয়ে যারা যাচ্ছিলো, তারা এক নজর প্যান্টি দৃশ্য আর ফুলা ফুলা ফর্সা উরু দুটি দেখে হয়তোবা আনন্দই পাচ্ছিলো। তেমনি একটি পথে জুবাইর হাসানও যাচ্ছিলো। পারুলকে তখন সে চিনেও না। অথচ, পারুলের বেমানান বসা দেখে, সে আর স্থির থাকতে পারলো না। সে এগিয়ে গেলো পারুলের দিকেই। কাছে এসে, সবার সামনেই বলতে থাকলো, পা চেপে বসেন! প্যান্টি দেখা যায়! লজ্জা শরম নাই আপনার!
পারুল অসম্ভব মেজাজী ধরনের মেয়ে। সেও স্থির থাকতে পারলো না। উঠে দাঁড়িয়ে, ঠাস করেই চড় বসিয়ে দিলো, জুবাইর হাসানের গালে। আর বললো, নিজের রাস্তা মাপেন! আপনাকে কেউ বসা গবেষক বানায়নি!
এত মানুষের সামনে, মেয়েলী হাতের থাপ্পর খেয়ে নিজের পথই মাপতে থাকলো জুবাইর হাসান।

জুবাইর হাসান এর অনেক বৈশিষ্ট্যের মাঝে এটিও একটি। সে কখনো কারো নাম মনে রাখতে পারে না। এমন কি কারো চেহারাও মনে রাখতে পারে না। এই যে, পারুল এর এত বড় একটা থাপর সে খেয়েছিলো, তার চেহারাটা কিন্তু মনে নেই।
অপরদিকে, পরুল যাকে একবার দেখে, তার চেহারা খুব সহজে ভুলতে পারে না। আর কেউ যদি তার অগ্নি চোখের রোসানলে পরেই যায়, তাহলে তো আর কথাই নেই। প্রতিশোধের আগুনেই মনটা জ্বলে পুড়ে ধাউ ধাউ করতে থাকে শুধু।
জুবাইর হাসানদের বাসাটা যে এই এলাকাতেই, তা পারুলও জানতো না। কারন, বাবার বদলী হয়ে এই এলাকায় এসেছে, খুব বেশীদিন হয়নি। আর, পারুলরা এই এলাকায় আসার কিছু আগেই, উচ্চ শিক্ষার জন্যে বিদেশ পারি দিয়েছিলো জুবাইর হাসান।
সেদিন বিকেলে এমনিতেই হাঁটা হুঁটা করছিলো নিজ বাসার সামনের উঠানে, পারুল। হঠাৎই অবাক হয়ে দেখলো, সামনের গলি দিয়ে এদিকেই আসছে জুবাইর হাসান। সাথে সাথেই রিপ্লেই হয়ে উঠলো তার চোখের সামনে, সেই ব্যাপারটা। এই লোকটিই তাকে বলেছিলো, পা চেপে বসেন! প্যান্টি দেখা যায়! লজ্জা শরম নাই আপনার!
প্রতিশোধের আগুনটা শতগুন বেড়ে গেলো পারুলের। তাই সে ভিন্ন একটি কৌশলই করলো তাৎক্ষণিক ভাবে। গরম লাগার ভান করে, পরনের কামিজটা বুকের উপর পর্য্যন্ত তুলে, উঠানের এ প্রান্তে গলির ধারটা পর্য্যন্তই এগিয়ে এলো।
জুবাইর হাসান এর শকুনী চোখ! এমন একটা ব্যাপার তো আর তার চোখে না পরে পারে না। সে প্রায় ছুটেই এলো পারুলের কাছে। বলতে থাকলো, এই মেয়ে, তোমার কি লাজ শরম নাই? গা গতর ঢাকি রাখতে পারো না?
পারুল মজা করেই বললো, ওমা, গা গতর ঢাকিনাই কে বললো আপনাকে? এই যে দেখেন! কামিজও আছে, ব্রাও আছে, নীচে স্কার্টও আছে!
জুবাইর হাসান একবার পারুলের বুকের দিকেই তাঁকালো। কামিজটা তখনো বুকের উপরে তুলে রেখেছিলো বলে, আকাশী রং এর ব্রা টা স্পষ্ট চোখে পরছিলো। জুবাইর হাসান আমতা আমতা করেই বললো, তাই বলে কি পর পুরুষকে এমন করে দেখাতে হয় নাকি?
পারুল রসিকতার সুরেই বললো, ওমা, আপনি আবার পুরুষ হইলেন কবে?
জুবাইর হাসান রাগে থর থর করতে থাকলো। বললো, কি বললা, আমারে তোমার পুরুষ বলি গণ্য হয়না! জানো, আমি কে? আমি একজন এম, এস, সি, হোল্ডার! আমেরিকায় আমি পি, এইচ, ডি, কইরতেছি! ওখানে কত বড় বড় প্রফেসার আমারে স্যালুট দেয়! আর তুমি বলতেছো, আমি পুরুষ না! আমি পুরুষ হইলাম কবে?
পারুল বললো, আপনি যদি সত্যিই কোন পুরুষ হয়ে থাকেন, তাহলে আমার ঘরে একটু আসতে পারবেন?
জুবাইর হাসান ঝোঁকের মাঝেই বলতে থাকলো, এইটা কোন ব্যাপার হইলো? তোমার মতো কত্ত মেয়ের ঘরে গেলাম! ধইরা চুমা খাইলাম!
পারুল আহলাদী গলাতেই বললো, চুমা পরে খাইয়েন। আগে একটু ঘরে আসেন!
জুবাইর হাসান খুব খুশী হয়েই বললো, ঠিক আছে, বলতেছো যখন, চলো! তুমি আসলে, একটু দুষ্টু! তবে, মানী লোকের মান তুমি দিতে পারো!

নিজ ঘরে জুবাইর হাসানকে এনে, পারুল বললো, এখন খুলি?

জুবাইর হাসান এর দেশের বাড়ী নোয়াখালী জেলায়। বাবার চাকুরীর কারনে, দীর্ঘদিন রাজশাহীতে বসবাস করলেও, নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষার টানটা একটু চলেই আসে। পারুলের কথা শুনে, সে তার আঞ্চলিক ভাষাতেই বলতে থাকলো, কি খুইলবা?
পারুলের বাবা সরকারী জেলা অফিসার। বাবার বদলীর কারনে, নোয়াখালীতেও বেশ কয়েক বছর ছিলো সে। তাই, নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষা সেও এক আধটু বলতে পারে। সে তার পরনের কামিজটা পুরুপুরিই খুলে বললো, কাপর খুলবো!
জুবাইর হাসান চোখ বড় বড় করেই বলতে থাকলো, খুলবা কি? খুলিই তো ফেললা!
পারুল বললো, ওমা, ইয়া কি কন? কই খুললাম! অহনো তো পরনে ব্রেসিয়ার আছে, প্যান্টিও আছে!
জুবাইর হাসান রাগ করার ভান করেই বললো, আন্নে কি আমার লগে মস্করা কইরতেছেন নি? আফনের ভাব সাব দেহি তো মনে হইতেছে, আরো খুইলবেন! দেহেন কইলাম, আন্নে আমারে পুরুষ বলি গণ্যই কইরেলেন না। আমারে কিন্তু আঁর বেইজ্জতি করিয়েন্না!
পারুল তার পরনের ব্রাটাও খুলে ফেলে বললো, ওমা, ইয়া কি কন? কাপর খুইলতেছি আমি! আফনে বেইজ্জতী অইবেন কিল্লাই। বেইজ্জতী অইলে তো, আর অইবো!
পারুলের নগ্ন গোলাকার সুঠাম বক্ষ দেখে, জুবাইরা হাসানের মাথাটাই খারাপ হয়ে গেলো। তার লিংগে কিছু সমস্যা থাকলেও, এমন উত্তেজনাকর দৃশ্য দেখলে, ঠিকই হঠাৎ দাঁড়িয়ে যায়। সে দু হাতে চোখ বন্ধ করে, আঙুলের ফাঁকেই, পারুলের নগ্ন বক্ষ যুগল দেখতে থাকলো। খুব বেশী বড় না হলেও, মাঝারী সাইজের বক্ষ যুগল সত্যিই লোভনীয়। বৃন্তপ্রদেশও খুব বেশী প্রশস্ত নয়, তবে গাঢ় খয়েরী। বৃন্ত দুটি ঈষৎ ফুলা ফুলা! পারুল তার প্যান্টিটাও দু হাতে টেনে নামাতে থাকলো। জুবাইর হাসান তোতলাতে তোতলাতেই বলতে থাকলো, ওমা, আরো খুইলবেন নি?
পারুল তার পরনের প্যান্টিটা পুরু পুরিই খুলে ফেলে, মেঝের উপর ছুড়ে ফেলে দেয়ালের গায়ে ঠেস দিয়ে দাঁড়িয়ে বললো, ওমা, আই কি আন্নের লগে বাইছলামি করিয়েরনি? কইলাম না, খুলতেছি!
জুবাইর হাসান আমতা আমতা করে বলতে থাকলো, শেষ পইজ্জন্ত ল্যাংডা অই গেলা? আমার কাছে তো গল্প কাহিনীর মতো মনে হইতেছে?
পারুল অবাক হয়েই বললো, গলপো?
জুবাইর হাসান সহজ গলাতেই বললো, গল্প কাহিনীতে সবাই এমন করি লেখে। একডা মাইয়া একটা পোলার সামনে ল্যাংডা অই যায়।
পারুল অবাক গলাতেই বললো, ইয়া কি কন? এইসব বুঝি মাইনসে গলপো উপন্যাসে লিহে! আর আন্নে বুঝি ঐসব বই বই পড়েন!
জুবাইর হাসান মাথা চুলাকতে চুলকাতেই বললো, না মাইনে, কিনি পড়িনা। ফ্রী পাইলে পড়ি ফেলাই আর কি!
পারুল বললো, ও, ফ্রী পাইলে পড়েন! তারপর কি করেন?
জুবাইর হাসান বললো, আই কি ঐসব বিশ্বাস করিয়ের নি। গালিগালাজ করি! বলি, এইসব ভুয়া কাহিনী! ছি ছি ছি!

জুবাইর হাসন এর কথা শুনে পারুলের মেজাজটাই খারাপ হতে থাকলো। সে তার মাঝারী আকারের সুঠাম বক্ষ যুগল দোলাতে দোলাতেই নিজ বিছানাটার দিকে এগিয়ে গিয়ে, বিছানায় বসে বললো, তো, ঐসব গালিগালাজ কি হেতাগো সামনেও করেন নি?
জুবাইর হাসান বললো, হেতাগো আমি সামনে পামু কেমনে? তই, ইন্টারনেটে যারা লেহে, তাগো মাইজে মইধ্যে বলি ফেলাই! হেতারা তো আঁরে আর দেইখতেছে না!
পারুল মাথা দুলালো, হুম, আন্নেরে আঁই বুজি হেলাইছি!
জুবাইর হাসান অবাক গলাতেই বললো, কি বুজি হেলাইছো?
পারুল খানিকটা ভেবে বললো, না কিছু না। তয়, ইন্টারনেটে যে, ঐসব বলেন, যারা এত্ত কষ্ট করে লেহে, তার কিছু কয় টয় না?
জুবাইর হাসান দু হাত দুলিয়ে, বুক ফুলিয়েই বললো, কি যে বলো ময়না!
পারুল চোখ কপালে তুলেই বললো, ময়নাটা আবার কে?
জুবাইর হাসান বললো, না তোমারে কইতেছি আর কি! তোমার নাম তো আমি জানিনা!
পারুল বললো, ও, নাম জানেন না! ঠিক আছে নাম বইলতেছি। পারুল। এইবার কন!
জুবাইর হাসান আবারো শুরু করলো, কি যে বলো পারুল! পাঠক হিসাবে সবাই আমারে কত্ত সম্মান করে! বুইজলানা, পাঠক না থাইকলে, লেখকদের লেহি লাভ আছেনি?
পারুল আবারো মাথা দুলালো, ঠিকই বলেছো, জুবাইর হাসান!
জুবাইর হাসান সাথে সাথেই রেগে উঠলো, তুমি আমার নাম জাইনলা কেমনে? আইচ্ছা, জানছো ভালো কথা! কিন্তু, তাই বলি তুমি আমারে নাম ধরি ডাইকতে পারো? জানো, আমেরিকাতে আমারে সবাই, মিষ্টার হাসান বলি ডাকে! ওখানে সবাই নাইপতারেও মিষ্টার বলি ডাকে। আর তুমি আমারে ডাকো জুবাইর হাসান? ভাইও ডাইকলানা! আমি তোমার চাইতে বয়সে বড় না?
পারুল বললো, ঠিক আছে, আপনারে আমি মিষ্টার বলিই ডাইকবো! মিষ্টার পাডা! অহন ঠিক আছে নি?
জুবাইর হাসান অবাক গলাতেই বললো, পাডা? তুমি আমারে পুরুষ বলি তো গণ্য কইরলেনা, তাই বলি মানুষ বলিও গণ্য কইরবানা? আমারে কি পাডার মতো লাগে নি?
পারুল বললো, ওমা, চ্যাতেন কিল্লাই? পাডা কি খারাপ জিনিষ নি কোনো? তয় কি বলদ কমু নি কোনো? বলদের কিন্তু বলু কাডা থাহে! আন্নের বলু কাডা নি কোনো?
জুবাইর হাসান হাত দুটি চেপে, দেহটাকে বাঁকিয়ে, লাজুকতার গলাতেই বললো, কি যে বলো, বলু কাডা থাইকবে কিজইন্যে! বলু কাডা থাইকলে, চডি পড়ি মজা আছে নি?
পারুল চোখ কপালে তুলেই বললো, ওমা, আন্নে চডিও পড়েননি কোনো?
জুবাইর হাসান জিভ কেটেই বললো, না মাইনে, কইলাম না! ফ্রী পাইলে, পইড়তে মন চায়! তয়, আঁই ঐসব বিশ্বাস করিনি কোনো?
পারুল আবারো মাথা দুলালো। বললো, আন্নেরে আঁই হাছা হাছাই বুজি হালাইছি। এইবার খুলেন!
জুবাইর হাসান অবাক হয়েই বললো, কি খুইলতাম?
পারুল সহজ গলাতেই বললো, কি আবার? আঁই খুইলছিনা? আন্নেও খুলেন! কাফর খুলেন!
কিছু কিছু ক্ষেত্রে, সব মানুষই দ্বিধাগ্রস্থ হয়ে পরে। চোখের সামনে পারুলের নগ্ন দেহ! পারুলের চেহারাটা যাই হউক না কেনো, তার নগ্ন দেহটা অতুলনীয়। মাঝারী সাইজের গোলাকার স্তন দুটি যেমনি লোভনীয়, নিম্নাংগের কালো কেশ গুলোও নয়ন ভরিয়ে দেয়। চোখের সামনে এমন নগ্ন দেহ থাকলে, কারই না জড়িয়ে ধরে, বিছানায় গড়িয়ে পরতে ইচ্ছে করে! জুবাইর হাসানের মনের ভেতর লালসা জমে উঠতে থাকলো। তারপরও সে নিজেকেও বিশ্বাস করতে পারলো না। এই ধরনের ব্যাপারগুলোর কথা সে গলপো উপন্যাসেই পড়েছে। কখনো বিশ্বাস করেনি। কারন, তার জীবনে এমন করে কোন মেয়ে চোখের সামনে নগ্ন হওয়া তো দূরের কথা, কাছেও আসে নি। স্বপ্ন টপ্নও দেখছে না তো? সে নিজের হাতেই চিমটি কেটে বিড় বিড় করেই বললো, আঁই স্বপ্ন দেখিয়ের নি কোনো?
পারুল খাটের কার্নিশে বালিশটা ঠেকিয়ে, সেখানেই মাথা রেখে চিৎ হয়ে শুলো। ডান হাঁটুটা ভাঁজ করে, বাম হাতে টেনে ধরে, কালো কেশে ঢাকা লোভনীয় নিম্নাংগটা আরো লোভনীয় করেই ফুটিয়ে তুলে ধরে বললো, দেরী গরি লাভ আছে নি কোনো? তাড়াতাড়ি করেন! আবার কেডাই আই পরে!
জুবাইর হাসান এবার কিছুটা সহজ হলো। সে তাড়াহুড়া করেই, অস্থিরতা নিয়েই তার পরনের প্যান্ট শার্ট জাংগিয়া সব খুলে ফেললো, মনের ভেতর অস্বাভাবিক একটা রোমাঞ্চতা নিয়ে।
জুবাইর হাসান, তার পরনের পোষাক গুলো খুলে ফেলতেই, পারুল বিছানা থেকে নেমে এলো। এখানে সেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা জুবাইর হাসানের পোষাকগুলো একত্রে করে, দলা পকিয়ে স্টীলের আলমীরাটার দিকেই এগিয়ে গেলো। আলমীরার দরজাটা খুলে, কাপর গুলো তার ভেতরেই রেখে চাবীটা ঘুরিয়ে, আলমীরার দরজাটাও বন্ধ করে দিলো। জুবাইর হাসান আহত হয়েই বললো, ওমা, আঁর কাফর আলমারীর বিতর রাইখলা কিল্লাই?
পারুল বললো, কয়ন তো যায়না, কহন কেডা আই পরে। আই পইরলে, ইয়ানো আন্নের কাফর চুফর দেইখলে, আঁর ইজ্জত থাইকবো নি?
জুবাইর হাসান বিচলিত হয়েই এদিক সেদিক তাঁকিয়ে বললো, ওমা ইয়ান কিয়া কও? আই তহন কিইরতাম?
পারুল সহজ ভাবেই বললো, আন্নে তহন খাডের তলায় হান্দাইয়া যাইয়েন!
জুবাইর হাসান খুব খুশী হয়েই বললো, ইয়ান ঠিক কথা কইছো! আসলে, তোমার বুদ্ধি আছে!
এই বলে পারুলের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছিলো। আর পারুল এগিয়ে গেলো, তার ড্রেসিং টেবিলটার দিকে। ড্রয়ারটা খুলে, তার চোখের ভ্রু কাটার কাঁচিটাই বেড় করে নিলো।
জুবাইর হাসানের চোখ দুটি এমনই যে, কোন কিছুই তার চোখকে ফাঁকি দিতে পারে না। পারুলের হাতে ছোট কাঁচিটা দেখেই ভয়ে তার কলজে শুকিয়ে উঠলো। সে কাঁপা কাঁপা গলাতেই বললো, ওমা, আবার কেঁছি বাইর কইরলা কিল্লাই? আঁর বলু কাডি দিবানি কোনো?
পারুল জুবাইর হাসান এর দিকে খানিক এগিয়ে বললো, আঁই কইছিনি আন্নের বলু কাডি দিমু! বলু কাডি দিলে, বলদ অই যাইতেন নো! আঁই তহন মিষ্টার পাডা ডাইকতাম কারে?
জুবাইর হাসান আরো দু পা পিছিয়ে বললো, না, না, তোমারে বিশ্বাস নাই। তুঁই আঁর বলু কাডি দিবার প্যালান কইচ্ছো!
পারুল, জুবাইর হাসানের দিকে আরো খানিক এগিয়ে এসে, হাতের কাঁচিটা এমনিতেই ক্যাঁচ ক্যাঁচ করে বললো, আন্নে ডরাইয়েন না। দেইখছেননি! আঁর তলার কেশ বাড়ি গেছে! বিরক্তি লাগে! এগিন এনা কাইটতাম!
পারুলের কথা জুবাইর হাসানের কানে আসছিলো না। সে আরো দু পা পিছিয়ে, নিজে নিজেই বিড় বিড় করতে থাকলো, ওমা, আঁই অহন কিইরতাম? হেতির মতলব তো বালা না। হেতি তো ডাইনী!
জুবাইর হাসান নিজের দেহটাও এক নজর বুলিয়ে আবারো বিড় বিড় করতে থাকলো, ওমা, হেতি তো আঁর কাফরও লুহাই ফেলাইছে! আঁই অহন কিইরতাম। এই ল্যাংডা শইল লই যাইয়াম কোনায়? খাডের তলাত হান্দামো নি কোনো? না, না, খাডের তলাত হান্দান যাইতো নো! পলায়াম কেমনে?
বিড় বিড় করতে করতে, ঘরের ভেতরই এদিক সেদিক ঘুরপাক খাচ্ছিলো জুবাইরা হাসান। পারুল আর এক পা তার দিকে এগুতেই, জুবাইর হাসান আর স্থির থাকতে পারলো না। হিংস্র ব্যঘ্র যদি কাউকে তাড়া করে, তখন যেমনি কারো হুশ থাকে না। আত্ম রক্ষার জন্যে, অন্ধের মতোই পালাতে থাকে, ঠিক তেমনি লিংগ কাটার ভয়ে, জুবাইর হাসানও ন্যাংটু দেহেই পারুলের ঘর থেকে চোখ বন্ধ করেই দৌড়ে পালালো।
পথে বেড়িয়েও, পেছনে না তাঁকিয়ে, ছুটতে থাকলো শুধু ছুটতে থাকলো, নিজ বাসার দিকেই। পথের মানুষ তাকে দেখে, ডাকারও চেষ্টা করলো, এই যে ভাই, আপনার কি হয়েছে? ন্যাংটু কেনো? চুরি করে ধরা পরেছেন নাকি?
জুবাইর হাসান পেছনে না তাঁকিয়েই বলতে থাকলো, ওম্মারে মা, হেতি একখান ডাইনী! হেতি বলে আঁর বলু কাডি দিবো! বলু কাডি দিলে আঁই, বলু পাইয়াম কোনাই?
জুবাইর হাসান বাড়ী পৌঁছুতেই, তার মা বোনও অবাক হয়ে দেখতে থাকলো। তার মা বললো, কিয়ারে? তুই ল্যাংডা কিল্লাই? চুরি করি দরা পইচ্ছুত নি কোনো?
তার ছোট বোনও বললো, বাইজান, আন্নের বলু কিন্তু মাশাল্লাহ! চুরি কইরতি যাই ব্যাবাক মাইনষে দেহি ফেলাইলো! শরম লাইগতেছে না?
জুবাইর হাসান, মেঝেতে বসেই হাঁপাতে হাঁপাতেই বলতে থাকলো, ব্যাকের মাথা খরাফ অই গেছেনি কোনো? আঁই বিদেশত পি, এইচ, ডি, গরিয়ের কিল্লাই? চুরি কইরবারলাই নি কোনো?
জুবাইর হাসানের মা বললো, তই, দিন দুফুরে তর কাফর খুলি লইলো কেডায়? ডাকাইতে দইরছিলো নি কোনো! আয় বাফ, জানে বাঁচি গেছত, এইডাই শোকর!
জুবাইরা হাসান এর রাগটা সব তার মায়ের উপর গিয়েই পরলো। সে বললো, হুদা কতা কও কিল্লাই। অই ডাইনি পারুলী আঁর কাফর খুলি লইছে! ওমারে মা, আঁই যদি আগে জাইনতাম, হেতি ডাইনী, তয় কি আঁই হেতির দারে কাছে যাইনি?
জুবাইর হাসান এর মা হঠাৎই অবাক হয়ে বললো, কোন পারুলী? তর লগে বিয়া ঠিক কইচ্ছি যে, হেই পারুলি নি কোনো?
জুবাইর হাসান চোখ কপালে তুলেই বললো, বিয়া? ঐ ডাইনি মাইয়ারে বিয়া? আঁরে পাগলে পাইছেনি কোনো!
জুবাইর হাসানের মা বললো, অহন উঠ! ডাঙর পোলা ল্যাংডা থাহন বালা না। পারুলিরে বিয়া কইরতি পাইরলে, ঘরের বিতর পারুলিরে লই ল্যাংডা থাহিস। অহন যা! একডা কাফর পরি ল!
জুবাইর হাসান সম্ভিত ফিরে পেতে থাকে। নিজ ঘরের দিকেই এগুতে থাকে লাজুক চেহারা করে।

(সমাপ্ত)

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s