ঈদের ছুটিতে


রাকিব ভাইকে দেখে আমি তো হতবাক হয়ে গেলাম। রাকিব বাংলাদেশে, তাও আমাদের বাড়িতে! অথচ কই, ওর আসার ব্যাপারে কিছুই তো জানতাম না! আসলে এটা ছিল আমাদের সবার জন্যই রাকিবের একট সারপ্রাইজ। শুধু ভাইয়া জানত। ভাইয়ার বেস্ট ফ্রেন্ডদের একজন রাকিব। ওরা একসাথেই কলেজ-ভার্সিটিতে পড়েছে। বছরখানেক হলো রাকিব চাকরিসূত্রে মালয়েশিয়া থাকে। সম্পর্কে রাকিব আমার কাজিন – আব্বুর চাচাতো ভাইয়ের ছেলে। ওদের পরিবারের সবাই থাকে গ্রামের বাড়িতে বিক্রমপুরে। শুধু রাকিব থাকতো ঢাকায় মোঃপুরে ফুফুর বাসায়। আর আমরা ধানমন্ডিতে।
রাকিবের সাথে প্রথম দেখাতেই ইঙ্গিতপূর্ণ হাসি দিয়ে জানতে চাইল কেমন আছি। সেই চাহনি, সেই হাসি! আমি কেমন শিহরিত হয়ে গেলাম, অনেকদিন পর শরীরে-মনে আবার সেই সুখের দোলা! আঃ কি মধুময় ছিল সেই কয়টা দিন! আমার জীবনে প্রথম পুরুষ ছিল রাকিব যার হাতে প্রথম সঁপে দিয়েছিলাম আমার শরীর, আমার নারীত্ব। রাকিবের জীবনেও আমি ছিলাম প্রথম নারী। ওর কাছ থেকেই জেনেছিলাম কত না সুখের আধার এই মানব শরীর! নিত্যনতুন আবিস্কারে আমি তখন মন্ত্রমুগ্ধ। মোহগ্রস্ত। এই দেহটার ভিতরে কামনা-বাসনার কত না চোরাস্রোত! সুখ আর আনন্দের কত না কানাগলি! কটা দিনের মধ্যেই ও আমাকে করে তুলেছিল এক কল্পলোকের মানবী; জগৎ-সংসার তখন মিছে সব। এক অপার্থিব সুখের ভেলায় ভেসে চলেছিলম দুজন। দিনে দুবার, তিনবার, চারবার, কখনওবা সুযোগ পেলে সারাদিনরাত মিলিত না হলে যেন চলতই না! কিন্তু হায়, শুধু ওই কটা দিনই মাত্র। হঠাৎ করেই ওকে চলে যেতে হল মালয়েশিয়া। আর আমি মুষড়ে পড়লাম বিরহ যন্ত্রনায়। তারপর? সময় সবকিছুরই উপশম ঘটায়। আমিও আস্তে আস্তে রাকিবের শূন্যতা ভুলতে লাগলাম। ব্র্যাক ভার্সিটিতে বিবিএ-তে ভর্তি হয়ে নতুন নতুন বন্ধু পেলাম – মার্জিত, ভদ্র, উদারমনা, এবং সেক্সি। সেক্স তখন আমার কাছে আর লজ্জা বা ঘৃণার কোন বিষয় না; এটুকু বুঝেছি এটা খুবই স্বাভাবিক একটা ব্যাপার, অন্যতম মৌলিক চাহিদা। তাই ‘জাস্ট ফান এন্ড এনজয়’ দর্শনে বিশ্বাসী আমি আমার শরীরের সুখ মিটিয়ে চলেছি অবাধে, সেই থেকে।
আর এখন রাকিবের পুনরাগমনে আমি নস্টালজিক হওয়ার সাথে সাথে প্রচণ্ড কামাতুর হয়েও পড়লাম। প্রথম প্রেম যেমন ভোলা যায় না, তেমনি কে ভুলতে পারে প্রথম যৌন সঙ্গীকে?

তাই খুশিতে আত্মহারা হয়ে গেলাম শুনে যে এই ঈদটা রাকিব ভাই আমাদের সাথেই করবে। রাকিব যেহেতু শুধু ঈদ করতেই কটাদিনের জন্য এসেছে, তাই ঠিক হলো ওদের পরিবারও এবার ঢাকায় আমাদের সাথে ঈদ করবে। রাকিব ভাইয়া এসেছে ঈদের ঠিক দুদিন আগে, আবার চলে যাবে ঈদের চারদিন পরে। যাবার আগে একদিন থাকবে তাদের গ্রামের বাড়ি। তাহলে তাকে আবার সেই একান্ত আপন করে পাবার সময় বা সুযোগ কোথায়?
আমি ব্যাকুল হয়ে উঠলাম। রাকিব ভাইয়ের ছোঁয়া যে আমায় পেতেই হবে! ওর চোখেমুখেও আমি দেখতে পাই কামনার বহ্নি, মিলনের আকুলতা। আসার দিন সন্ধ্যাবেলা রাকিব বলল আমাকে – কতদিন ছুঁয়ে দেখি না তোমাকে! প্লিজ একটু সুযোগ করে দাও না লক্ষীটি! কিন্তু সুযোগ কোথায় – বাড়িময় লোকজন জমজমাট, ঈদ আয়োজনের ব্যস্ততা। ওদের পরিবারও চলে এসেছে পরদিন সকালে। আর তার পরদিন ঈদ। ঈদের দিন পর্যন্ত কোন সুযোগ বের করা সম্ভব নয়। যা কিছু করার তার পরদিন হতে পারে। অবশ্য এ দুদিনে যতটা পেরেছি আমরা কাছাকাছি হয়েছি – দুজন দুজনকে জড়িয়ে ধরেছি, প্রচণ্ড উত্তেজনা নিয়ে সজোরে শরীরে শরীর মিশিয়ে দিতে চেয়েছি, অফুরন্ত তৃষ্ণা নিয়ে দুজন দুজনের মুখ চুম্বন করেছি, ঠোঁট চুষেছি, জিহ্বা চেটেছি.. আর সেইসাথে ওর দুটি সুচারু হাত ছুঁয়ে গেছে আমার শরীরের প্রতিটি অংশে, প্রতিটি ভাঁজে ভাঁজে, খাঁজে খাঁজে।
অনেক আনন্দ আর হৈচৈ নিয়ে ঈদের দিনটি পার করলাম। রাতে সবাই মিলে কয়েকটি চ্যানেলের ঈদের নাটক দেখলাম। ঘুমোতে যেতে যেতে রাত প্রায় একটা। সবাই ক্লান্ত। কিন্তু আমি অধীর হয়ে ছিলাম পরদিনের আশায়, কখন ভোর হবে! এই দিন যে আমার আশা পূরনের দিন!
কিন্তু হায়, পরদিন সবাই উঠল খুব দেরী করে। সবচেয়ে দেরী করল ভাইয়া আর রাকিব, ওরা উঠল প্রায় দুপুর বেলায়! রাকিব বুঝতে পারল আমি রেগে আছি। দুপুরে খাওয়ার পর এক ফাঁকে আমার ঘরে এসে জড়িয়ে ধরে আদর করা শুরু করল, আমার স্তনদুটি দুহাতে নিয়ে দলাই-মালাই করতে লাগল, ঘাড়ে গলায় গালে চুমু দিতে দিতে বলল – রাগ করো না সোনা, তোমাকে না পেয়ে আমিও কি ভাল আছি? ঠিক আছে, আজকে রাতটা শুধু তোমার আমার। শুধু দুজনার।
আমি ওকে দিয়ে প্রমিস করালাম। ও করল। কেউ এসে পড়তে পারে, তাই মুখে ছোট্ট একটু চুমু দিয়ে বলল – এখন শুধু চুম্বনটা হলো। চোষণ আর লেহন হবে রাতে, আর সেই সাথে… বলেই চোখ মেরে দুষ্টুমির হাসি দিয়ে বেরিয়ে গেল।

বিকেলবেলা বাড়িতে অনেক আত্মীয়-স্বজন এলো, আড্ডা হৈচৈ হলো, আমি ফুরফুরে মন নিয়ে সময়টুকু পার করলাম। আমার তখন কেবল রাতের অভিসারের প্রতীক্ষা! কিন্তু সন্ধ্যায় ভাইয়া আর রাকিব দুজনে সেইযে বের হয়েছে, আর ফেরার নাম নেই। ফিরলো ঠিক রাত দশটায়। আর ফিরেই সোজা বিছানায়। বুঝলাম দুজনে বেশ মদ খেয়ে এসেছে। অবশ্য সন্দেহটা আগেই হয়েছিল বাড়ি থেকে বেরনোর আগে যখন বলে গিয়েছিল রাতে কিছুই খাবে না। হোটেল-বারে গিয়ে মাঝে মাঝে মদ খাওয়ার অভ্যাস ওদের আগেই ছিল। কিন্তু আমার চিন্তা হলো রাকিব খুব বেশি খায়নি তো! ওর যদি হুঁশ না থাকে, আর ঘুমিয়ে যায়? আমি ভাইয়ার ঘরে গেলাম, রাকিব ওর সাথেই শোয়। দেখি দুজন খাটে আধশোয়া হয়ে গল্প করছে – কী সব আবোল তাবোল বকছে আর হেসে গড়াগড়ি খাচ্ছে। বুঝলাম নেশা ভালই জমেছে! আমি কৃত্তিম রাগ দেখিয়ে রাকিব ভাইকে চোখ রাঙানি দিলাম। রাকিব তা দেখে দুকান ধরে জোড়হাত করলো, আর সাথে সাথে চোখ মেরে বুঝিয়ে দিলো আজ রাতের কথা ভোলেনি সে।
আমি আমার ঘরে ফিরে এলাম। আর প্রতীক্ষার প্রহর গুণতে শুরু করলাম। কিন্তু সময় যেন কাটে না… ঘড়ির কাঁটা এগারোটা পেরিয়ে গেলো। ভাইয়ার ঘর থেকে কোন আওয়াজ আর পাচ্ছি না। তবে কি ওরা ঘুমিয়ে গেল? সাড়ে এগারোটা। আমি পা টিপে টিপে ভাইয়ার ঘরের সামনে এলাম। না, কোন সাড়াশব্দ নেই। ঘরে ফিরে এলাম। হতাশ হতে শুরু করলাম আমি; কান্না পেতে লাগলো। রাকিব এটা করতে পারলো? আবার আশায় বুক বাঁধলাম – রাকিব হয়তো জেগে আছে, আর উপযুক্ত সময়ের অপেক্ষা করছে। কিন্তু এ কি, বারোটা তো বেজে গেলো! আমি অধৈর্য হয়ে উঠলাম। সাড়ে বারোটা.. না, সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললাম, যা করার আমাকেই করতে হবে।
আবার গেলাম ভাইয়ার ঘরে। আস্তে আস্তে ভিতরে ঢুকলাম। আমি জানি, ঘরে ঢোকার মুখে খাটের সামনের পাশটিতেই শোয় রাকিব। আজকে শোওয়ার আগেও ওকে এই পাশেই দেখেছি।
আস্তে আস্তে খাটের পাশে গিয়ে ওর মাথায় হাত বোলাতে লাগলাম, আর কানের কাছে মুখ নিয়ে ‘রাকিব রাকিব’ বলে ডাকতে লাগলাম। কিন্তু ওর কোন সাড়াই পেলাম না। ক্রমেই আমি ধৈর্য হারাতে শুরু করলাম। ওর সারা শরীরে আমার হাত বোলাতে শুরু করলাম। সেই সাথে চুমুর পর চুমু, ওর কপালে, গালে, মুখে, বুকে.. কিন্তু কই, ওর জেগে ওঠার কোন লক্ষণ তো দেখছি না! একসময় ওর ঠোঁট দুটি চুষতে শুরু করলাম। চুষতে চুষতে মুখের মধ্যে জিহ্বা ঢুকিয়ে চাটতে লাগলাম। হঠাৎ মনে হলো ও যেন একটু নড়ে উঠল। ও কি তবে সাড়া দিতে শুরু করেছে আমার আদরে! দ্বিগুণ উৎসাহে আমি আদরের মাত্রা যেন বাড়িয়ে দিলাম। কতদিনের উপোসী আমি! আর কতদিন পর ওকে এত কাছে পাওয়া। এতক্ষণ ধরে চুমু আর চোষাতেও যেন আশ মিটছে না। তাই একটু বেপরোয়া হয়ে উঠলাম। আমার এক হাত ওর বুক পেট ছুঁয়ে আরও নিচে নেমে গেলো। প্যান্টের জিপারের ঠিক উপরে হাত বোলাতে লাগলাম। আঃ এই সেই আরাধ্য জিনিস নারী জীবনের! একে আমিই পেয়েছিলাম প্রথম। কী করে ভুলি একে! আমার সোনা, আমার মানিক! ইশ্ কতদিন আদর করিনি তোমায়, পাইনি তোমার পাগল করা উষ্ণ ছোঁয়া! হুম্, আমার হাতের ছোঁয়া পেয়ে কি ওটা উত্থিত হতে শুরু করল? হ্যাঁ তাইতো! ওটা তো এখন খুব গরম আর শক্ত হয়ে উঠছে! প্যান্টের উপর থেকেই বোঝা যাচ্ছে ওটার আকৃতি আর সামর্থ। প্রচণ্ড আবেশে আমি ওখানটায় চুমু দিয়ে মুখ ঘষতে লাগলাম। কামনার আগুনে তখন পুড়ে মরছি আমি। দেহে-মনে এক অনির্বচনীয় আনন্দের ঢেউ। আমি যেন আর আমাতে নেই। ওকে আদর করতে করতে আমি ঝুঁকে উঠে ওর মুখ আমার বুকে চেপে ধরে রাখলাম কিছুক্ষণ। তারপর আবার মুখে মুখ নিয়ে ঠোঁটদুটো চুষতে লাগলাম। আর ডানহাতটা দিয়ে আস্তে আস্তে ওর জিপার খুললাম, তারপর খুলতে লাগলাম প্যান্টের হুক। আর সেই সাথে বাড়তে লাগল আমার হার্টবিট, আর সারা দেহে সুখের শিহরন। আঃ আর একটু! অন্তর্বাসটা একটু সরিয়ে দিলেই বেরিয়ে আসবে ওটা! আমার যে আর তর সইছে না!

মুখটা নামিয়ে নিয়ে এলাম ওটার কাছে। এইতো, একহাত দিয়ে ধরে বের করলেই হলো। আমি হাত ঢুকিয়ে দিলাম অন্তর্বাসের মধ্যে। কিন্তু এ কী! সাথে সাথে ‘উফ্ফ্’ শব্দ করে আমার হাতটি চেপে ধরে উঠে বসলো ও, আর মৃদুস্বরে ধমকে বলল – কী করছিস এসব! আমি চমকে উঠলাম। এ তো ভাইয়া, রাকিব নয়! তাহলে এতক্ষণ আমি ভাইয়ার সাথেই… মুহুর্তখানেক যেন আমার সব চেতনা লোপ পেয়ে গেলো। তারপর প্রচণ্ড লজ্জার ভার কোনমতে সামলে আমি ছুটে বেরিয়ে আসলাম ওর ঘর থেকে। নিজের ঘরে এসে লজ্জা সংকোচ ভয়ের অবিমিশ্র অনুভূতি নিয়ে কোনমতে পার করলাম রাতটুকু।
পরদিন ভাইয়ার কাছ থেকে পালিয়ে পালিয়ে রইলাম, লজ্জায় মুখোমুখি হতে পারলাম না। কিন্তু একই ছাদের নিচে কতক্ষণই বা এড়িয়ে থাকা যায়! কিন্তু যখন মুখোমুখি হলাম দেখলাম ভাইয়া আগের মতই স্বাভাবিক! গতরাতের ঘটনা নিয়ে কোন কথাই বলল না। আমিও আস্তে আস্তে স্বাভাবিক হয়ে উঠলাম।
…. তারপর? তারপর রাকিব বা ভাইয়া কার সাথে কী হলো?
থাক্। সে আরেক গল্প।

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s