তরঙ্গ


সকালের সূর্যের আলোটা জানলা দিয়ে প্রবেশ করেছে ঘরে। রেশমীর নগ্ন শরীরের ওপর আলো। ঝলমলে শরীরটার ওপর আলোটাকে যেন সুরসুরি দেওয়ার মতন মনে হল। ঘুম ভেঙে গেল রেশমীর। শরীরটাকে নিয়ে বিছানায় আরও গড়াতে ইচ্ছে করছে। মনটা যেন সেই বিলাসী কাল রাতের মতন কমলের শরীরটাকে নিয়ে দাপাদাপি করতে ইচ্ছে করছে।

পাশে শুয়েছিল কমল। রেশমী ওর শরীরে এখনও বন্য উষ্নতার সন্ধান করতে চেষ্টা করছে। কমলের শিরদাঁড়াটা যেখানে বাঁক নিয়েছে, রেশমী সেখানে খেলাচ্ছলে হাত বোলাতে লাগল। কমল একটু কেঁপে কেঁপে উঠছে। রেশমীর ধারালো নখগুলো কমলের তামাটে রঙের চামড়ার ওপর ছোট ছোট চুলগুলোর মধ্যে বিলি কাটছে। কমল সুখের আবেশে চোখটা বন্ধ করে তেমনি পড়ে রইল। উঠতে ইচ্ছে করছে না ওর। বেশ বুঝতেই পারছে রেশমী ওর খোঁজ করছে। ধরা দিতে এখনি ইচ্ছে করছিল না কমলের।

রেশমী বলল, ওঠো কমল, আর ঘুম নয়। কমলের গলার কাছে মুখ নিয়ে বুক ভরে নিঃশ্বাস নিল রেশমী। একটা চুমুও খেলো সেখানে। উঠে পড়ো, কি গো? একটু আদর করো না? কমলকে আবার নাড়া দিল রেশমী। কি গো ওঠো। আবার একটু জড়িয়ে ধরো আমাকে। আমার মধ্যে প্রবেশ করো।

কমলের মুখে এবার সামান্য একটু হাসি ফুটতে দেখা গেলো। অসময় রেশমী ঘুমটা ভাঙিয়ে দিয়েছে। একটু বিরক্তিও প্রকাশ করল মুখে।

রেশমী বুঝতে পারছে কমলের এই অনীহাটা ক্লান্তির জন্য। সারারাত ধরে বেশ কয়েকবার সহবাসে লিপ্ত হয়েছে কমল, শুধু রেশমীর জন্যই। ওকে বাধ্য করেছে। কিন্তু এখনও সেই তৃষ্নাটা রয়ে গেছে রেশমীর। দিন শুরু হয়েছে, বিছানাটা ছাড়তে হবে। তার আগে শেষবারের মতন আর একবার কমলের সাথে মিলিত হতে চায় সে।

প্রথম দিনের আলোর মতন কমলের চোখদুটো পিটপিট করছে। রেশমীর ডাকে সারা দিতে ইচ্ছে করছে না। -থাক না এখন। যেন আগ্রহ নেই কমলের।

রেশমী জানে কমলকে কি করে সক্রিয় করে তুলতে হবে। ওর মাংসল স্তনজোড়া দিয়ে নগ্ন বুকের চাপ দিল কমলের পিঠে। স্তন দিয়ে পিঠটাকে ঘষতে ঘষতে কমলের পাজামাটা টেনে ফেললো নিমেষে। হাত দিয়ে কমলের লিঙ্গকে স্পর্ষ করলো রেশমী। হাতের মুঠোয় ধরে কমলের লিঙ্গকে পরিমাপ করার চেষ্টা করতে লাগল। যেন এতেই কাজ হল। কমল এবার একটু নড়ে চড়ে উঠলো।

রেশমীর হাতটা নিজের হাতের মুঠোয় চেপে ধরে এবার ওকে নিজের বুকের ওপর টেনে নিল কমল। আদরের পর আদর। উদ্যত লিঙ্গকে রেশমীর উরুসন্ধিতে স্থাপন করতে খুব একটা অসুবিধা হল না কমলের।

রেশমীর শরীরটাকে এভাবে বুকের ওপর তুলে যেন অবাক হয়ে যায় কমল। রেশমী ওর উরুদুটো দিয়ে কমলের শক্ত-সমর্থ দেহটা কেমন সাঁড়াশির মতন চেপে ধরেছে। রিরংসার ফলাটা দিয়ে কমল এবার বারবারে আঘাত করতে লাগল রেশমীর ত্রিভুজে। সাপের মতন এখনও একটু ঘুমিয়ে আছে লিঙ্গটা। কমল না হলে অনেক আগেই রেশমীর মধ্যে প্রবেশ করতে পারত। তবে খুব শীগগীরই জেগে উঠবে সে।

রেশমী ওর সুকোমল হাত দিয়ে কমলের উদ্যত রিরংসার ফলার ওপর বোলাতে লাগল। কোমরের সমস্ত শক্তি দিয়ে কমলের ওপর এমন ভাবে চাপ দিতে লাগল, যাতে কমল তার ইচ্ছাশক্তির প্রত্যুতত্তর দেয়। মিলনে তার সাথে আরও প্রবত্ত হয়।

কমল একটু হাসলো। বলল, রেশমী আজ তোমাকে উচিৎ শিক্ষা আমি দেব। খালি আমাকে দিয়ে চাহিদা মেটানো? দাঁড়াও।

রেশমীর নিতম্বে একটা চড় মারলো কমল। হাতের বাঁধন ছিন্ন করার জন্য ধ্বস্তাধ্বস্তি শুরু করেছে রেশমী। কমলের শক্ত সমর্থ শরীরটার কাছে ওর মেয়েলী শক্তি হার মেনে যাচ্ছে। সত্যিই হার মানল। এবার তারই সুযোগ নিতে চাইল কমল। রেশমী নিজের নগ্ন কোমরে কমলের চওড়া হাতের চাপ অনুভব করল। রেশমীর শরীরটা যেন টানটান হয়ে উঠছে, রক্ত টগবগ করে ফুটছে। উত্তাপ গলে গলে পড়তে শুরু করেছে দেহের অভ্যন্তরে।

রেশমীর মুখের রঙটা এবার বদলে যেতে শুরু করল। ফর্সা গালে যেন লালের ছোপ লাগছে। দেহের অভ্যন্তরে কোন যন্ত্রণা নেই। অদ্ভূত অনাস্বাদিত সুখ যেন ঝর্ণাধারার মতন বয়ে চলেছে অবিরত। রেশমীর উরুসন্ধিতে সুখের লাভা গলছে।

কমল অনুভব করলো রেশমীর স্নায়ুতে আগুন ছড়িয়ে পড়ছে একটু একটু করে। কামনার লিপ্সাকে তৃপ্ত করতে চাইছে রেশমী। কমলের সঙ্গে যেন আরও বেশী করে অন্তরঙ্গ হতে চাইছে।

উত্তপ্ত গোপণ গহ্বর। দহনের সেকি জ্বালা। কামনার অগ্নিশিখায় কমলকে দগ্ধ করে তুলতে চাইছে রেশমী।

রেশমীর গোপণ গহ্বর উত্তপ্ত হয়ে উঠছে, দহনের জ্বালা অনুভব করছে সে সেখানে। রেশমী চাইছে কামনার অগ্নিশিখায় কমলকে দগ্ধ করে তুলতে। ওর ভগাঙ্কুর একটা ছোট ধাতব বোমার মতন শক্ত হয়ে উঠছে, কমলের জাদুদন্ডর স্পর্ষ আকাঙ্খা করছে সে। একটু আগে দেখানো কমলের ওপর সব রাগ, ওর নিষ্ক্রিয় থাকার যন্ত্রণা এখন ভুলে গেল রেশমী। আর ও কমলের জন্য আফশোস করতে চায় না সে। সব ভুলে স্বামীকে শুধু কামলালসায় ভরিয়ে দিতে চায়।

কমলও আর নিষ্ক্রিয় থাকতে চায় না এখন। ঘুমন্ত পৌর*ষ জেগে উঠেছে এখন, সক্রিয় হয়ে কঠিন হতে শুরু করেছে। রেশমী বুঝতে পারছে কমল এবার সাড়া দিতে প্রস্তুত ওর আহ্বানে। নিজে থেকেই সে এবার উদ্যোগ শুরু করতে চায়।
কমলকে সাহায্য করার জন্য রেশমী নিজের এবং তার শরীরের মাঝখানে একটা হাত চালিয়ে দিলো এবং তার উদ্দেশ্য সফলও হলো। কমলের তপ্ত কঠিন লিঙ্গটাকে সে এবার তার হাতে তালুবন্দী করে ফেললো। রেশমীর এই হঠাৎই হাতের স্পর্ষে কমল স্তব্ধ হতবাক, স্ত্রীর নিতম্বে চড় মারা বন্ধ করে দিয়ে কমল চেয়ে রইল রেশমীর পানে। রেশমী যেন বিজয়িনী। কমলের আঁকড়ে ধরা হাতটা শিথিল করে দিয়ে হাঁটু মুড়ে বসল কমলের দুই উরুসন্ধির সামনে। নিচু হয়ে তার লিঙ্গ মুখে নিয়ে সুস্বাদু কিছু খাওয়ার মতন করে চুষতে থাকলো রেশমী। ছাড়তে যেন ইচ্ছে হয় না। বারবার চুমু খেয়েও তৃষ্না মেটে না। আসল জায়গায় এবার স্থান দিতে হবে লিঙ্গটাকে, তার গোপণ গহ্বরে।

রেশমী জানে কমল তার জিভের স্পর্ষ পুলকিত হবে,কিন্তু সে তো অল্প সময়ের জন্য, এভাবে চরম সীমায় পৌঁছে দেওয়া যায় না। কিন্তু কমলের এই লিঙ্গ মুখে নেওয়ার প্রয়োজনটাও স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিক।

ওর চোখের দিকে তাকিয়ে রেশমী অনুভব করছে, কমল এখন উত্তেজিত ও ক্ষুধার্ত। রেশমীর অভ্যন্তরে প্রবেশ না করলেই নয়। এটাই চেয়েছিল রেশমী। কমলের ভেতরের পশুটাকে জাগিয়ে তুলতে। শিকারী যেমন সিংহকে তাড়া করে তার গুহায় প্রবেশ করতে বাধ্য করে,রেশমীও তেমনি কমলের ভেতরের পশুটাকে উত্তেজিত করে তার গহ্বরে প্রবেশ করাতে চাইছে।

রেশমী এবার নিজের যোনীমুখ উন্মুক্ত করে কমলের পশুটাকে স্বাধীনভাবে ইচ্ছামত ভেতরে বিচরণ করার সুযোগ করে দিল,অনেক রোমাঞ্চকর আর উত্তেজনায় ভরপুর হবে এবার অভিযান।

খুব বেশীদিনের কথা নয়, এই তো কদিন আগেই কমল একটু মদ খেয়ে মাতাল হয়ে ঘরের মেঝেতেই রেশমীর ওপরে উপগত হয়েছিল।

পরপর দুবার করেছিল, বিছানায় যাবার মতন অবস্থা ছিল না। মাখনের ধারালো ছুরী বিদ্ধ হওয়ার মতন সহবাসের সেকি উত্তেজনা। কত মসৃণভাবে কমলের রিরংসার ফলা প্রবিষ্ট হয়ে গিয়েছিল। সেদিনের সেই মধুময় দৃশ্যের কথা অনুভব করে নিম্নাঙ্গের কোমল জায়গাটা কেমন আদ্র হয়ে উঠেছে,রেশমী এখন কমলের ঝাঁপিয়ে পড়ার আশায় প্রতীক্ষা করছে।

কিন্তু আজ যে হচ্ছে না সহজে, সব যেন তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছে। রেশমীর হিসেবের সাথে মিলছে না। চেষ্টার কোন ক্রুটি করছে না রেশমী। মেয়েরা তাদের সঙ্গী পুরুষের সুবিধার্থে যা যা করে থাকে, তার কোন কিছুই বাদ দিতে চাইছে না রেশমী।অথচ-

কমলকে কিছু বলতে হল না, রেশমী নিজের থেকেই তার হাঁটু দুটি শূন্যে তুলে ধরে,দুদিকে প্রসারিত করে, অপেক্ষায় রইল, কমল এবার তাকে গ্রহন করবে।

রেশমীর কোমর থেকে পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত নগ্ন দেহটা এখন কমলের সামনে উদ্ভাসিত। কমলকে উত্তেজিত করার জন্য এটাই তো যথেষ্ট। ওকে জাগানোর জন্য একটু দৈহিক পীড়নে উত্যক্ত করতেও কসুর করল না রেশমী। কমলকে এতটাই গভীরে পেতে চায় রেশমী, যে বুকের কাপড়টা সরিয়ে স্তনজোড়ার শোভা দেখাবে, সেই সময়টুকুও ও খরচ করতে চাইছিল না। নিজের গহ্বরে কমলের সেই আঙুল নিয়ে খেলা, যা ওর ওতি প্রিয়, যে খেলার মধ্যে একটা উত্তেজনা অনুভব করত রেশমী, তাও এখন ভুলে গেছে।

মনের মধ্যে সতর্কতা অবলম্বনেরও কোন ইচ্ছা নেই,যথেচ্ছভাবে তোয়াক্কা না করেই কমলের পৌরষ অহঙ্কারটাকে প্রবেশ পথে স্থাপন করলো রেশমী,ওতে সে একটু আঘাতও পেলো। কমল একবারেই রেশমীর মধ্যে প্রবিষ্ট হয়ে গেল, রেশমী এতে আঘাতটা আরও বেশী পেল, কঁকিয়ে উঠল রেশমী। সব ব্যাথা,যন্ত্রণা সহ্য করেও তার স্বামীকে সুখ দেবার জন্য সে কোমরটাকে ওপরের দিকে তোলার চেষ্টা করল যাতে কমল সম্পূর্ণভাবে তার অভ্যন্তরে প্রবিষ্ট হতে পারে। আরও আরও গভীরে। এখন একটাই লক্ষ্য কমল তাকে জানোয়ারের মতন গ্রহণ করুক। তার দেহটাকে নিয়ে ছিনিমিনি খেলুক।
কমলের কোমরে নখ দিয়ে খুঁটতে লাগল রেশমী, ওকে আরও উত্তেজিত করার জন্য।

কমল যেভাবে ওর মধ্যে প্রবিষ্ট হচ্ছিল, আবার বেরিয়েও আসছিল, জানোয়ারেরই কাজের সামিল। রেশমীর অভ্যন্তরে ও যেন আগুন লাগিয়ে দিতে থাকলো।

প্রতিটি চাপে যেন এবার ভয়ঙ্কর উগ্রতা, কোনো নম্রতা নেই, রেশমীও চাইছে, জানোয়ারের মতই লিপ্ত হোক কমল, গুহার ভেতরে লিঙ্গ কোন সুখের চিহ্ন বহন করছে না, সে তখন ভয়ঙ্কর এক মুন্ডরের রূপ ধারণ করেছে।

রেশমী যেন ধর্ষিতা হতে চাইছে কমলের কাছে, কমলের মধ্যে স্বাভাবিক আচরণের কোন লক্ষণ নেই, অথচ ও বুঝতে পারছে কত তীব্র রুক্ষতা এই আঘাতের মধ্যে। যাকে সে দেখতে চায় দক্ষ খেলোয়াড় হিসেবে,সভ্য মানুষের মতন নম্র ভাব প্রকাশ করত সহবাসে, সেই এখন একেবারে বন্য হয়ে গেছে। কমল যেন এখন অন্য মনের, অন্য দেহের। আচরণে কেমন বৈপরীতের আভাস, রেশমীর সন্মুখভাগের চেয়ে, নগ্ন পশ্চাদ তাকে আরও বেশী আকর্ষনীয় করে তুলেছে, সুখানুভুতি যেন তাকে ঘিরেই। কমলের সুখ হলেও রেশমীর দেহমন যেন অতৃপ্তই থেকে গেল।

কমলকে ও অনেক মিনতি করল, আমার বুকের ওপর ওঠো কমল, বুকের ওপরে। কমল শুনল না। অতিমাত্রায় সম্ভোগ করে একটা সুখের নিঃস্বাস টেনে নিয়ে কমল সঙ্গম প্রক্রিয়াকে স্তব্ধ করলো। ওর কামনার জারক রস গলে গলে পড়তে লাগল রেশমীর অভ্যন্তরে। রেশমীর ঠোঁটে একটা চুমু দিয়ে সে তার দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে তার পাশে বিছানায় ক্লান্ত দেহটা এলিয়ে দিল। অবশ্যই সে যে তার স্ত্রী কে মিলনে সুখ দিতে পারল না, এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ অজ্ঞাতই রয়ে গেল তার মনে। রেশমীর রাগমোচন হল না। পুলক লাভ থেকে সে বঞ্চিত হলো।

কষ্টটা রয়েই গেল রেশমীর মনে,সুখ তার অপূর্ণই রয়ে গেল, শরীরী জ্বালায় জ্বলে যাচ্ছে তার দেহটা। এ জ্বালা কখনও আবার মিটিয়ে নিতে হবে সুযোগ হলেই, শুয়ে থাকা স্বামীকে একটা শুধু চুমু দিয়ে রেশমী বলল, এবার উঠে পড়ো কমল, আমাদের প্রাতরাশটা তাড়াতাড়ি এবার সেরে নিতে হবে।

রেশমী রতিক্রিয়ার চরম পুলকলাভ থেকে বঞ্চিত হল। ওর তখনো রাগমোচন হয় নি। এদিকে অভ্যন্তরে প্রচন্ড জ্বালা, দহন। অথচ একটা সুখের নিঃশ্বাস টেনে নিয়ে কমল এইমাত্র তার সম্ভোগ স্তব্ধ করল। তার কামনার জারকরস গলে পড়তে লাগল রেশমীর অভ্যন্তরে। রেশমীর ঠোঁটে একটা চুমু দিয়ে সে তার দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে তার পাশে বিছানায় ক্লান্ত দেহটা এলিয়ে দিল। অবশ্যই সে যে তার স্ত্রীকে মিলন সুখে তৃপ্ত করতে পারল না, এ ব্যাপারে সম্পূর্ণ অজ্ঞাতই রয়ে গেল তার মনে।

রেশমী খুবই ক্রদ্ধ হয়ে উঠেছে। কমলের একটা হাত সে তার মুঠোয় চেপে ধরে ওর দুই উরুসন্ধিতে আবার স্থাপন করার চেষ্টা করছিল। ভগাঙ্কুরে কমলের হাতটাকে বোলাতে বাধ্য করল। এইভাবেই রেশমী তার শরীরের জ্বালা মেটানোর চেষ্টা করতে লাগল।

আমি দূঃখিত ডারলিং। তুমি তৃপ্ত হও নি?

কমল যেন ভুল বুঝতে পেরেছে। এবারে কৃত্রিম উপায়ে রেশমীকে সুখ দেবার জন্য তৈরী হল। ও জানে রেশমীর এটা খুব পছন্দ। রেশমীর যৌনফাটলে কমল আঙুলটা বোলাতে লাগল। ধীরে ধীরে রেশমী আবার উত্তেজিত হয়ে পড়ছে। শরীরে টান ধরে যাচ্ছে। রক্ত চলকে উঠছে। বহু আকাঙ্খিত সুখের পরশটা লাগছে সারা অঙ্গে। স্বামীর ওপর সঞ্চিত সব রাগ যেন গলে জল হয়ে গেল।

রেশমীর রাগমোচন হয়ে আসছিল, টানটান দেহটা এবার শিথিল হয়ে পড়ল। একটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে স্বামীর দিক থেকে মুখ ঘুরিয়ে পাশ ফিরে শুল বিছানায়।

কিছুক্ষনের জন্য দুজনে একসঙ্গে জড়াজড়ি করে ওরা আবার শুয়ে থাকল। ঘরের জানলাটা অর্ধেক খোলা অবস্থায় রয়েছে। সেই পথ দিয়ে প্রথম প্রভাতের সূর্যের আলো এসে পড়ছিল ওদের গায়ে। এই মূহূর্তে কমলকে বেশ পরিপূর্ণ তৃপ্ত দেখাচ্ছিল। দু’হাত দিয়ে রেশমীকে জড়িয়ে শুয়েছিল ও। একটা হাত দিয়ে রেশমীর স্তনের উপরে বিলি কাটছিল।
রেশমীর যেন কষ্টটা রয়েই গেল শেষ পর্যন্ত। সুখ তার অপূর্ণই রয়ে গেল মনে। শরীরি জ্বালায় জ্বলে যাচ্ছে দেহটা। সুখের যেটুকু প্রয়োজন ছিল, যাকে বলে আরো কিছু, সেই চরম পুলক, যৌনসুখের শেষ প্রাপ্তি পাওয়া। সেই পাওয়াটা যেন হল না। শারীরিক বিপদ, যন্ত্রণা ভয়, কিছুই রেশমীকে কুঁকড়ে রাখতে পারে না। ও আবার তীব্রভাবে সঙ্গমেচ্ছু হয়ে উঠল। স্বামীর সঙ্গে কামনা, নতুন করে জেগে উঠল তার দেহ-মনে।

প্রাতঃকৃত্য সারার জন্য কমল বিছানা থেকে বাথরুমে যাবার জন্য নামতে যেতেই,রেশমী ওকে আবার বাঁধা দিয়ে কাছে টেনে নিল। বেডকভারের নিচে ওদের নগ্ন দেহদুটি আবার ঢাকা পড়ে গেল। ওই অবস্থায় রেশমী তার স্বামীকে জড়িয়ে ধরে চোখ বুজল। রেশমীর ঠোঁটের কোণায় এক রহস্যময় হাসি ফুটে উঠেছে। শরীরের বাঁকে বাঁকে কমলের দেহের ঘর্ষণ আকাঙ্খা করছে। এই মূহূর্তে রেশমীর রূপ যেন অপূর্ব।

রেশমী যে রীতিমতন একজন আকর্ষনীয় নারী। তাতে কোন সন্দেহ নেই। অন্য মেয়েরা তাদের শরীরটাকে কৃত্রিম মোড়কে ঢেকে তাদের প্রেমিক বা স্বামীর কাছে তুলে ধরে। কিন্তু রেশমী সে ধরণের মেয়ে নয়। যৌবনে কত না পুরুষ তাকে পাওয়ার জন্য কামনা করেছিল। যেমন করে পুরুষরা সুন্দরী মেয়ে দেখলে মুগ্ধ হয়ে পড়ে। তবে তাই বলে এই নয় যে রেশমী অপরূপা সুন্দরী। চাঁদের যেমন কলঙ্ক আছে, রেশমীর মধ্যেও দু’একটা খুঁত ছিল বৈকি। তবে আবার একথাও ঠিক যে তার চোখ দুটি ছিল অদ্ভূত সুন্দর। নীল-সমুদ্রের মতো চার চোখের দৃষ্টিতে কত পুরুষের হৃদয় না বিদ্ধ হয়েছে।

রেশমী নিজের আঙুল দিয়ে ওর নিজের স্তনবৃন্তে বিলি কাটতে গিয়ে নিজের প্রকৃত প্রেমিককে কল্পনা করল। সে কিন্তু কমল নয়। যদিও সে তার কল্পনার প্রেমিক। কমলের সঙ্গে স্ত্রী হিসেবে থেকে রেশমী যে সুখী নয়, তাও নয়। তবুও রেশমীর প্রতি কমলের উদাসীন ভাব যখন প্রবল হয়ে ওঠে, তখনই রেশমীর পাগলের মতন অবস্থা হয়ে যায়। তখন তার ইচ্ছে হয় কমলকে আঘাত করে। কিন্তু সত্যি সত্যিই কি সে তার স্বামীকে মারতে পারে?

রেশমী আঙুলগুলি নিঃশব্দে নিজের পেটের ওপর এবং নাভীর নিচে রোমরাজির ওপর বিলি কাটতে থাকে।নখ দিয়ে তার গোপনাঙ্গের চুল খুঁটে খুঁটে নিজেকে উত্তেজিত করে তুলতে থাকে। প্রথমে সেগুলো আলতো করে ও টানতে থাকে। তারপরে প্রবল বেগে। ক্রমশ রেশমী ওর উরুসন্ধিতে এক অশুভ তাপ অনুভব করে। প্রবল দহন ও জ্বালা অনুভব করতে গিয়ে ভয়ঙ্কর ভাবে সে উত্তেজিত হয়ে পড়ে। ঠিক যেন এমনটিই চায় সে।
নিজেই নিজের হাত দিয়ে স্তনবৃন্তের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। কখনো বা নখ দিয়ে আঁচরাতে থাকে, যতক্ষণ না তার অভ্যন্তরে তাপের প্রবাহ অনুভব না হচ্ছে।

রেশমী ডানহাতের ওর আঙুলগুলো দিয়ে নিজের স্তনের বোঁটা খুঁটছিল। এবার হাতটাকে ও নিজের উরুর খাঁজে প্রবিষ্ট করালো। আগেই কামনার জারক রসে জায়গাটা সিক্ত ছিল। হাতের তর্জনীর অনামিকাটা রেশমী স্বচ্ছন্দে ঢুকিয়ে দিতে পারল নিজের ত্রিভূজ মুখে। ওই নিরীহ দুই আঙুলই তখন কল্পনায় তার স্বামীর গোপণাঙ্গ। দৃঢ় ফনার মতো প্রবিষ্ট হয়েছে। রেশমীর ত্রিভূজের মুখ বিস্তৃত হল। উত্তাপে গলে গলে পড়তে লাগল যৌবন, তাও যেন তৃষ্না তার মেটে না। বরং আরো বেড়ে গেল উত্তেজনা।

রেশমী জানে, রতিক্রিয়ায় তার চরম পুলকের সময়টা কখন আসে। সময়টা এগিয়ে আনার জন্য কৃত্রিম উপায়ে সঙ্গমের প্রক্রিয়াগুলো ও চালিয়ে যেতে লাগল। আঙুলের সঞ্চালন ক্রমশ তীব্র থেকে তীব্রতর হতে লাগল।

রেশমী আপন মনে ভেবে যাচ্ছে, সহবাসে যার সঙ্গে সে লিপ্ত হয়েছে, তার মুখ সে আর দেখতে পাচ্ছে না। শীতল মার্বেল পাথরের মেঝের উপর সে যেন পড়ে রয়েছে, আর সেই পুরুষটি রয়েছে তার পেছনে। অন্ধকারে একটি ছায়া ছাড়া আর কিছুই সে দেখতে পাচ্ছে না। তপ্ত দেহের কাছে মার্বেল পাথরের শীতলভাবটা তার এখন বেশ ভালো লাগছে। নিতম্বে একটা উত্তাপ অনুভব করছিল, কল্পনায় সেই অদৃশ্য পুরুষটির চাপ যেন ভীষন ভাবে সে অনুভব করছে। পেছন থেকে সে রেশমীর ভেতরে প্রবেশ করছিল। নিঃশব্দে সেই মিলন সুখ অনুভব করতে গিয়ে রেশমীকে বেশ যন্ত্রণাও ভোগ করতে হচ্ছিল। পুরুষটির মধ্যে একটুকুও নম্রভাব নেই। কামারের মতো সে হাতুড়ি পেটা করছে রেশমীর নরম মাংসল অভ্যন্তরে।

সঙ্গিনীর যে অসুবিধে হতে পারে, আঘাত পেতে পারে সে ব্যাপারে তার যেন কোন ভ্রুক্ষেপই নেই। রেশমী অবশ্য যতই কষ্ট হোক না কেন, কোন চিৎকার করল না। পুরুষটির রাজদন্ড তাকে ভয়ঙ্কর কঠিন ভাবে বিদ্ধ করলেও তাকে সব অত্যাচার সহ্য করে যেতে হল। যেন এভাবে শাস্তি পেতে তার ভালই লাগছে।

একসময় রেশমীর রাগমোচন হল। কানায় কানায় ভরে গেল ওর কামনা। আর তখুনি সব ঘোর ওর কেটে গেল, কল্পনার পুরুষটিও তার চোখের সামনে থেকে উধাও হয়ে গেল। রেশমীর ঠোঁটের কোণায় আনন্দধারা বয়ে গেল। ও এবার বিছানায় পাশ ফিরে শুলো।

একটু পরে চোখ মেলে তাকাতেই সে দেখলো, শীতল মার্বেলের পাথরের উপরে নয়, সে তার উষ্ণ নরম বিছানায় শুয়ে আছে। একটু আগে কল্পনার জগতে বাস করছিল রেশমী। বিছানার উপরে উঠে বসল রেশমী। দেখলো কমল দরজার সামনে দাঁড়িয়ে আছে। ওর বৃষণ আকাশমুখী, যেন টানটান হয়ে ফুঁসছে।

রেশমীকে দেখে এবার নীরবে হাসল কমল। বাথরুম থেকে স্নান করে আসার কথা বেমালুম ভুলে গেছে। বেডকভারের নিচে ঢুকে পড়ে রেশমীর শরীরের মধ্যে আবার ডুবে গেল। মাথা থেকে পা পর্যন্ত ওর জিভটা তখন রেশমীর শরীরে খেলা করছে। আসতে আসতে রেশমীর সিক্ত গোপণাঙ্গের গভীরতা পরিমাপ করতে কমলের জিভটা এবার ব্যস্ত হয়ে পড়ল।

চলবে

One thought on “তরঙ্গ

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s