অন্য রকম প্রতিশোধ – ১


০১

বাংলাদেশ নষ্টা মেয়ে সমিতির অন্যতম প্রতিনিধি রাত্রি। নির্ভীক, প্রচণ্ড যৌন বেদনাময়ী। রাত্রির শৈশব কৈশোর তারুণ্য কেটেছে প্রাচুর্য্যে। প্রাচুর্য্য ভরা সংসারে যা হয়ে থাকে আর কি! বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান বলে, খুব আহলাদে আহলাদেই বড় হয়েছে। নাক উঁচু স্বভাব, চারিপাশের কাউকে বোধ হয় মানুষ বলেই ভাবে না সে।
চেহারা সুরতে ভালো, দেখতে অভিনব সুন্দরী বটে। এমন চেহারার মেয়েগুলো পুরুষদের মনের জগতে রাজকন্যা রূপেই বিরাজ করে থাকে। গোলগাল চেহারা, গালগুলো ফোলা ফোলা! নাকটা সরু, ঠোট যুগল গোলাপী, খানিকটা পুরু! যার কারনে আরো বেশী যৌন বেদনাময়ী মনে হয়। কারন, ছেলেরা বোধ হয় এমনতর রসালো ঠোটে চুমু দেবার জন্যে পাগলা হয়ে থাকে।

বক্ষ সুউন্নত! কোন রকম পোষাকই আড়াল করার জোঁ নেই যে, রাত্রির বক্ষের আয়তন অনুমান করানো। ইদানীং পোষাক আশাকে এত বেশী অসচেতন যে, আরো বেশী নজরে পরে রাত্রির বক্ষ! এমন বক্ষের দোলন ভরা হাঁটা দেখে, পুরুষবর্গের লিংগ দোলন কেমন থাকে, তাতো সবারই অনুমান করার কথা। তবে, খানিকটা বক্ষ সমস্যার জটিলতায় ভোগা মেয়েদেরও কিন্তু কম হিংসে হয় না, রাত্রির বক্ষে চোখ পরলে।
নাহ, রাত্রি কোন সমকামী মেয়ে নয়। তবে, সমকামী মেয়েরা একটিবারের জন্যে হলেও, রাত্রিকে বিছানায় পাবার জন্যে, স্বয়ং বিধাতার কাছে প্রার্থনা করতেও দ্বিধা করেনা। ভালোবাসার জগৎটাই বুঝি এমন। নারী পুরুষ, শিশু বৃদ্ধ মানেনা। কাউকে ভালো লেগে গেলে, যে করেই হউক নিজ আয়ত্তে আনার চেষ্টাই চালাতে থাকে, এভাবে কিংবা ওভাবে। শরমিন ঠিক তেমনি একটি মেয়ে। রাত্রিকে প্রচণ্ড ভালোবাসে। অথচ, প্রকাশ করতে পারেনা।
মানুষের মনের ভাবগুলোপ্রকাশ করার ভংগীগুলোও বিচিত্র! শরমিনের প্রকাশভংগীগুলো আরো বেশী বিচিত্র!

শরমিন আমার খুব ভালো বান্ধবী।
ঢাকায় আসার পর থেকেই একই স্কুলে পড়তাম, আর শুরু থেকেই শরমিনের সাথে সখ্যতাটা গড়ে উঠেছিলো। দীর্ঘাংগী, সুন্দর মায়বী ডিম্বাকার চেহারা, খানিকটা বোকা বোকা মনে হয়। ঠোট যুগল ঈষৎ ফুলা। বক্ষ যুগলও তুলনামূলকভাবে আমার চাইতে খানিকটা উঁচু বলেই মনে হয়।
নুতন নুতন কোন স্কুলে এলে সবাই খানিকটা ঈর্ষাই করে। শরমিনই প্রথম বন্ধুর হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলো। স্কুলে ক্লাশের অবসরে, তার সাথেই গলপো গুজবে সময় কাটতো বেশী। তবে, বেশীরভাগ আলাপই পড়ালেখা সংক্রান্ত। পারিবারিক আলাপগুলো আমি কখনোই করতে চাইতাম না। ঠিক তেমনি শরমিন এর পারিবারিক ব্যাপারগুলোও জানতে চাইতাম না।
ঢাকায় এসে মাস তিনেক হয়ে গিয়েছিলো। আমি তখন স্কুল সংলগ্ন ছাত্রী নিবাসেই থাকি। তাই, শরমিন মাঝে মাঝে, হোস্টেলে আমার রুমে এলেও, কখনোই শরমিনদের বাসায় যাতায়াতটা হতো না।

সেবার স্কুল ছুটির পর হঠাৎ করেই শরমিন এর সাথেই তাদের বাসায় গিয়েছিলাম। শরমিনই জোড় করেছিলো। রুমে গিয়ে অন্য সব রুম মেইটদের সাথে খুব একটা আলাপ হতো না বলে, বোরই লাগতো। তাই খুব আগ্রহ করেই শরমিন এর সাথে তাদের বাসায় গিয়েছিলাম।
যে কোন মানুষের সাথে পরিচয় বন্ধুত্ব হলে, প্রথমেই পারিবারিক ব্যাপারগুলো, যেমন বাবা কি করে, ভাইবোন কয়জন, এসব জানজানি হবার কথা। অথচ, শরমিনদের বাসায় যাবার আগ পর্য্যন্ত, শরমিনদের পারিবারিক ব্যাপারে সত্যিই আমার কিছুই জানা ছিলো না। তার পেছনে হয়তো, আমার ব্যাক্তিগতভাবেই জানার ইচ্ছা অনিচ্ছাগুলোই বেশী কাজ করেছিলো। সাধারন অভিজাত এলাকায় ছিমছাম বাসাটাতে গিয়ে, সেবারই প্রথম তার মাকে দেখেছিলাম। এবং সেবারেই জেনেছিলাম, শরমিন এর বাবা নেই। মায়ের সাথেই বসবাস করে।

শরমিন এর মায়ের বয়স বুঝা যায়না। খুবই সুন্দরী মহিলা। চেহারায় আভিজাত্যের ছাপ। দেহের গড়নও চমৎকার! পোষাক আশাকের স্টাইলও যেমনি আধুনিক, ঠিক তেমনি বয়সটাকেও আরো লুকিয়ে রাখার জন্যে, আধুনিক স্বল্প আয়তনের কিছু পোষাক দিয়েই দেহটাকে সাজিয়ে রেখেছিলো।

আমার নিজ মা থেকেও নেই। তাই শরমিন এর মাকে দেখে দীর্ঘদিন পর নিজ মা এর কথাই মনে পরে গেলো। তাকে দেখা মাত্রই, আমি যেমনি বেশ খানিকটাক্ষণ তন্ময় হয়ে তাঁকিয়ে ছিলাম, শরমিনের মা জেসমিনও আমার দিকে বেশ মমতা নিয়েই তাঁকিয়ে থাকলো। তারপরই শরমিনকে জিজ্ঞাসা করলো, কে এই মেয়েটি? কখনো দেখিনি তো!
শরমিন খুব সহজভাবেই আমাকে তার মায়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলো। বললো, মা, ও হলো রিয়া। আমাদের ক্লাশেই পড়ে!
শরমিন এর মাকে আমি বুঝলাম না। সে খুব আনন্দ সূচক গলাতেই বললো, বাহ, খুব মিষ্টি মেয়ে তো!
শরমিন তার মায়ের উপর খানিকটা রাগ করেই বললো, মা, ওভাবে রিয়ার উপর নজর দেবে না তো! ও, খুবই ভালো মেয়ে। ক্লাশের ফার্স্ট গার্ল!
শরমিন এর মা বললো, তা তো বুঝলাম। ক্লাশের ফার্স্ট গার্ল কিংবা ফার্স্ট বয়রা অন্যদের চাইতে অনেক বেশী কিছু জানে বলেই তো ফার্স্ট হয়!
তারপর আমার দিকে তাঁকিয়েই বললো, তুমিও নিশ্চয়ই অনেক কিছু জানো!
শরমিন এর মা কি বুঝাতে চাইছে, তার কিছুই আমি বুঝতে পারছিলাম না। আমি আমতা আমতা করেই বললাম, জী! মানে?
শরমিন এর মা খুব সহজ গলাতেই বললো, লেখাপড়ার বাইরে, অন্য সব জগতের ব্যাপারগুলোও নিশ্চয় জানা!
আমি বললাম, জী, সাধারন জ্ঞানের উপরও ভালো দখল আছে।
শরমিন এর মা খুব গম্ভীর ভাবেই বললো, হুম! তোমার মতো মেয়েরা সাধারন জ্ঞানেও পটু থাকার কথা। তবে, অনেক সাধারন কিছুও আবার অনেকেই জানেনা।
আমি অবাক হয়েই বললাম, মানে? দৈনিক পত্রিকাটা প্রতিদনই পড়ার চেষ্টা করি। তা ছাড়া টি, ভি, নিউজগুলোও রেগুলার দেখার চেষ্টা করি।
শরমিন এর মা খুব রহস্যময়ী গলাতেই বললো, এ ছাড়াও মানুষের অনেক কিছুই জানতে হয়। তোমার চেহারা দেখেই মনে হচ্ছে, সেসব তুমি জানো না। তাই বললাম! কিছু মনে করো না।

শরমিনের মা কি বুঝাতে চাইছে কিছুই অনুমান করতে পারছিলাম না। আমি সহজভাবেই বললাম, না না, মনে করার কি আছে? আমার মা নেই। আপনাকে দেখে নিজ মা বলেই মনে হচ্ছে। কিছু যদি অজানাই থাকে, তাহলে সেগুলো শিখিয়ে দেবেন!
শরমিন এর মা খুব গর্বিত গলাতেই বললো, হুম! আমার কাজই তো শেখানো। কলেজে শিক্ষকতা করি। শুধু পাঠ্য বই শেখালেই তো চলে না! জীবন সম্বন্ধেও অনেক কিছু শেখাতে হয়!
আমি বললাম, বেশ তো! আপনার যদি ধারনা হয়ে থাকে, জীবন সম্বন্ধে অনেক কিছুই অজানা, তাহলে মায়ের দাবী নিয়ে, সেগুলোও শিখিয়ে দেবেন!
শরমিন এর মা বললো, বাহ! তুমি তো খুব গুছিয়ে কথা বলতে পারো! অবশ্যই শেখাবো। আমার নিজ মেয়েকে যেভাবে অক্ষরে অক্ষরে সব কিছু শিখিয়েছি, তোমাকেও ঠিক তেমনি করে শেখাতে ইচ্ছে করছে।

আসলে তখনও আমার জানা ছিলো না, শরমিন এর মা আসলে জীবন সম্বন্ধে কি শিখাতে চাইছে? হয়তো বা আমাকে দেখে, আমার মাঝে দৈনন্দিন জীবনের চালচালন, কথাবার্তা কিংবা আদব কায়দায় কোন ত্রুটি ছিলো, তেমনিই মনে হয়েছিলো। আমি খুব আগ্রহ করেই বললাম, আমার আপত্তি নেই।
শরমিন এর মা মুচকি হাসলো। তারপর বললো, ঠিক আছে, তোমরা দুজনে গলপো করো।
শরমিন এর মায়ের প্রথম আলাপেই, কেনো যেনো আমার মনটা অন্যরকম আনন্দে দোলে উঠলো। আমি বললাম, মা, আপনিও আসুন। আপনার সাথে গলপো করতে কিন্তু খুব ভালোই লাগছে।
আমার দেখাদেখি, শরমিনও হাত বাড়িয়ে বললো, হ্যা মা, এসো। স্কুলে তো রিয়ার সাথে প্রতিদিনই গলপো করি। আজকে তিনজনে মিলেই গলপো করি। কি বলো।
শরমিন এর মা বললো, আমার কি আর গলপো করার সময় আছে? এটা সেটা কত কাজ! তোমরা যাও। আমি না হয় তোমাদের জন্যে একটু চা বানিয়ে পরেই আসি!

হঠাৎ করে শরমিন এর মায়ের সাথে এতটা হৃদ্যতা গড়ে উঠবে নিজেই ভাবতে পারিনি। কেনো যেনো মনে হতে থাকলো, খুব কাছের একজন মানুষ! হয়তোবা, আমার নিজ মা নেই বলেই, কারো কাছে খানিকটা মমতার ছোয়া পেলে, তা হৃদয়ে দাগ কেটে ফেলে, মমতার কাঁচিতে। আর সেই রকম একজন মানুষ যদি খানিকক্ষণের জন্যেও খানিকটা দূরে থাকে, সেটাকেই কেনো যেনো অপচয় বলেই মনে হতে থাকলো। আর তা ছাড়া, শরমিন এর মা আমাকে অনেক অজানা কথা শিখাতে চাইছে। যে কোন কিছুই জানার আগ্রহটা আমার অদম্যই থাকে। বরং যতক্ষণ পর্য্যন্ত না জানা হয়, ততক্ষণ পর্য্যন্ত এক ধরনের অস্থিরতাই বিরাজ করে মনের মাঝে। আমি বললাম, না মা, চা খাবো না। কাজ তো সব সময়ই করেন। আমি তো আর প্রতিদিন আসবো না। আর শরমিন এর সাথে স্কুলেই প্রতিদিন কত গলপো করি। এসেছি যখন, কিছুটা সময় আপনার সাথেই গলপো গুজব করেই কাটিয়ে দিই। তাছাড়া, কি যেনো শিখাতে চাইছিলেন, সেগুলো জানার আগ্রহটাও দমন করতে পারছিনা।
শরমিনও আমার সাথে সুর মিলিয়ে বললো, হ্যা মা, চা বানাতে গিয়ে শুধু শুধু মজার সময় গুলো নষ্ট করতে যাবে কেনো?
শরমিন এর মাকে হঠাৎই কেমন যেনো অন্যমনস্ক মনে হতে থাকলো। আপন মনেই বেশ খানিকটাক্ষণ ভাবতে থাকলো।
আমি বললাম, কি ভাবছেন? ছোটদের সাথে গলপো করে মজা পাবেন না?
এই ধরনের মহিলাগুলোর ভাবনার মূহুর্তগুলোও বোধ হয় খুব একটা স্থায়ী হয় না। সে বললো, না তা নয়! কলেজে তো তোমাদের কাছাকাছি বয়সের ছেলেমেয়েদের নিয়েই মেতে থাকি! মজা পাবো না কেনো?

আমি বললাম, তাহলে আর দ্বিধা করছেন কেনো? আসুন!
শরমিন এর মা বললো, ঠিক আছে, চলো।
শরমিন এর মা আমাদের সাথে বসার ঘরে এসেই বসলো। প্রথমে টুক টাক আলাপই করলো। কোথায় থাকি, বাবা কি করে?
আমি যখন বললাম, হোস্টেলে থাকি, তখন অবাক হয়েই বললো, বলো কি? বাসায় থাকো না কেনো? স্কুল থেকে বাসা কি খুব দূরে?
আমি বললাম, জী না। বাবা সারাদিন ব্যবসা নিয়েই ব্যস্ত থাকে। বাড়ীতে একা আমাকে রেখে ভরসা করতে পারে না।
শরমিন এর মা খুব স্নেহভরা গলাতেই বললো, ঠিকই বলেছো! আজকাল চারিদিকে যেসব অঘটনগুলো ঘটছে, ছেলেমেয়েদের চোখে চোখে রেখেও নিরাপত্তা খোঁজে পাওয়া যায়না। আর তোমার মতো এমন একটা সেক্সী মেয়ে থাকলে তো মা বাবাদের আরো বিপদ!
আমি জানি, ছোট কাল থেকেই কেনো যেনো সবাই আমাকে সেক্সী মেয়ে বলেই জানে। সেভাবে অনেকে সরাসরিও ডাকে! বিশেষ করে স্কুলে যাবার পথে, বখাটে ছেলেরা সুর মিলিয়েই ডাকে, হেই সেক্সী! এতে করে আমি কখনো মন খারাপ করিনা। বরং, ভালোই লাগে। মাঝে মাঝে মনের ভেতর গর্বও বোধ করে থাকি। তবে, শরমিন এর মায়ের মুখে, সেক্সী শব্দটা আমাকে অবাকই করলো। কারন, কোন মেয়ে সেক্সী হলেও, মুরুব্বী ধরনের লোকেরা ঘুরিয়ে মিষ্টি বলেই ভুষন করে। আমি খানিকটা লজ্জায় মাথা নীচু করেই বসে রইলাম।
আমার ভাব সাব দেখে শরমিন এর মা কি ভাবলো বুঝতে পারলাম না। সে সোফা থেকে উঠে গিয়ে, শরমিনকে আড়ালে ডেকে নিয়ে গেলো।

শরমিন এর মা এর ব্যাপারটা আমাকে কৌতুহলী করেই তুললো। আমিও আড়াল থেকেই তাদের কথাবার্তা শুনার চেষ্টা ছিলাম। শরমিন এর মা শরমিনকে লক্ষ্য করেই বললো, তোমার এই বান্ধবীটি আমার সম্বন্ধে কতটুকু জানে?
শরমিন বললো, কিছুই জানে না। রিয়া আসলেই অন্য ধরনের একটা মেয়ে। পড়ালেখা ছাড়া অন্য কোন আলাপই করা যায় না তার সাথে। মাঝে মাঝে, অন্য সব বান্ধবীদের সাথে ফাজলামী আলাপ সালাপ শুরু হলে, রিয়া আমাদেরকে এড়িয়ে, কেটে পরে।
শরমিন এর মা বললো, হুম, মেয়েটা চমৎকার! মিষ্টি চেহারা! বক্ষগুলোও খুব সুন্দরই হবে বলে অনুমান করছি। সত্যিই তোমার রুচির প্রশংসা করতে হয়। তা কতদূর এগিয়েছো?
শরমিন বললো, বললাম না মা, রিয়া আসলে অন্য রকম একটি মেয়ে! এগুবো কি? জাষ্ট ফ্রেণ্ড!
শরমিন এর মা বললো, চুমু নিশ্চয়ই চলে! এত সুন্দর ঠোট! কি সরু, গোলাপী, চৌকু! খুবই লোভনীয়!
শরমিন বললো, দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, চুমু দেবার সাহসও পাইনি কখনো। তবে, চেষ্টার কোন ত্রুটি করিনি। রিয়ার এমন চমৎকার ঠোটে চুমু দেবার লোভটা অনেকদিনেরই। তাই তো আজকে ফুসলিয়ে নিয়ে এলাম বাসায়! কিন্তু, কিভাবে শুরু করবো, সেটাই তো বুঝতে পারছিনা। বরং ভয় হচ্ছে, চুমু দেয়া মাত্রই যদি রাগ করে চলে যায়!
আড়াল থেকে, শরমিন আর তার মায়ের আলাপ গুলো শুনে, ঠিকই আমার গা টা রাগে রি রি করছিলো। কারন, তার মনে যদি এমন কিছু আকাংখা থেকেই থাকতো, তাহলে আমাকে সরাসরিই জানাতে পারতো! তবে, কেমন যেনো রোমাঞ্চতার শিহরণও অনুভব করছিলাম সারা দেহে। শরমিন এর মা শরমিনকে অভয় দিয়েই বললো, ওসব আমার উপর ছেড়ে দাও। আমি সাইকোলজীর টিচার! আমি একবার রিয়ার সাইকোলজীটা পরীক্ষা করে দেখি।

শরমিন এর মা শরমিনকে তার ঘরে ঢুকতে বলে, আমার কাছাকাছিই এগিয়ে এলো। আমি এমন একটা ভাব দেখালাম যে, তাদের কোন কথাই আমি শুনিনি। শরমিন এর মা কোমরে হাত রেখে, খুব তীক্ষ্ম দৃষ্টিতেই আমার আপাদমস্তক একবার নিরীক্ষণ করলো। তারপর গম্ভীর গলাতেই বললো, শেখাতে তো চাই অনেক কিছু! শিখবে আমার কাছে?

শরমিন এর মায়ের সাথে প্রথম আলাপের সময় শেখানোর বিষয়বস্তুগুলো সত্যিই অনুমান করতে পারিনি। তাই, জানার একটা অদম্য আগ্রহ ছিলো। অথচ, আড়ালে মা মেয়ের আলাপ শুনে আমি শুধু বিষয়বস্তুটাই অনুমান করিনি, অবাকও হয়েছিলাম। সত্যিই ভিন্ন একটা জগৎ! যে জগতের কোন কিছুই প্রকাশ্যে কারো সাথে আলাপ করা যায়না! তাই কখনো বান্ধবীদের সাথে আলাপের আগ্রহ যেমনি ছিলো না, জানানো উচিৎ বলেও কখনো মনে হয়নি। আমি হঠাৎ করেই ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলাম। ফ্যাল ফ্যাল করে শুধু তাঁকিয়ে রইলাম শরমিন এর মায়ের দিকে!
আমার পরনে তখন স্কুল ড্রেসের এর সাদা কামিজ। কোমরে গোলাপী বেল্ট। বেল্ট বাঁধার কারনে বক্ষ দুটি যেনো খানিকটা স্পষ্টই হয়ে উঠেছিলো। শরমিন এর মা, আমার সেই বক্ষের দিকেই তাঁকিয়ে বললো, তোমার বক্ষও বেশ উঁচু! তবে শরমিন এর মতো অতটা নয়! যত্ন নাওনা বুঝি!
শরমিন এর মা সাইকোলজীর শিক্ষিকা। খুব অল্প সময়ের মাঝেই কেমন যেনো আবেশিত করে তুলতে থাকলো। তবে, আমার পারিবারিক জীবনের কথা অনেকেই জানে না। জানানোর মতো তেমন কোন আহামরি কিছুও নেই আমাদের পারিবারিক জীবনে। সবাই জানে আমার মা নেই। শুধুমাত্র বাবা! যার সাথে আমি বর্তমানে থাকি। আসলে, আমাদেরও মা বাবা, ভাই বোন নিয়ে সুন্দর একটা সংসারই ছিলো। হঠাৎ বলা যাবে না, ধীরে ধীরেই সব কেমন যেনো এলোমেলো হয়ে গেলো। আমার মনে পরে অতীতের কথা।

শরমিনের মা নিঃসন্দেহে সুন্দরী, আর চেহারাও আভিজত্যে ভরপুর। আমার মাও কিন্তু কম সুন্দরী ছিলো না। শরমিন এর মা কতটা কামুকী, কতটা যৌনবেদনাময়ী, তা আমার তখনো জানা ছিলো না। তবে আমার মাও কম কামুকী মহিলা ছিলো না। শৈশব থেকেই দেখতাম, আমাদের মা পোষাক আশাকেও খানিকটা উচ্ছৃংখল, এলোমেলো। বোধ হয় তার চমৎকার, সুবৃহৎ বক্ষ দুটি সবাইকে প্রদর্শন করতেই বেশী পছন্দ করতো।
সাগর পারে আমাদের বাড়ী। বিশাল এলাকা নিয়েই একটা বাড়ী। ধরতে গেলে, মাইল খানেকের মাঝেও পার্শ্ববর্তী কোন বাড়ী ছিলো না। তাই, মায়ের সুন্দর দেহটার প্রদর্শন অন্য কাউকে নয়! আমাদের পারিবারিক সদস্যদের জন্যেই শুধু।
পরিবার বলতে, বাবা মা, আর ভাইয়া আর আপু। আমাদের এই পাঁচ জনের সংসারে, মা যেনো বাকী চারজনকে তার সুন্দর দেহটা প্রদর্শন করে চলতো দিনের পর দিন। দেখতে দেখতে সবাই বোধ হয় অভ্যস্তই হয়ে পরেছিলাম। তাই মায়ের নগ্নতা কিংবা স্বল্প পোষাকের ব্যাপারটি, কখনো বড় করে দেখিনি। বরং মনে হতো, পারিবারিক সদস্যদের মাঝে দেহকে লুকিয়ে রাখার মতো কোন ব্যাপার না। কিংবা, খুব ছোট কালে মনে হতো, শুধু পরিবারই নয়, বাইরের কাউকেও দেহ প্রদর্শন করাটাও খুব লজ্জার কোন ব্যাপার নয়! কিন্তু, যখন ধীরে ধীরে বড় হতে থাকলাম, স্কুলে যেতে থাকলাম, তখন নুতন নুতন অনেক ব্যাপারের সাথে, দৈহিক লজ্জা শরমের ব্যাপারগুলোও শিখতে থাকলাম।

আমাদের তিন ভাইবোনের মাঝে, সাথী সবার বড়। আমার সাথে বয়সের বড় একটা ব্যবধান থাকলেও, বড় হবার সাথে সাথে, সাথীর সাথে সখ্যতাটাও বেড়ে উঠছিলো।
এক কথায়, সাথীর কোন তুলনা নেই। সাথীর কোন ব্যাপারে কিসের সাথে তুলনা করা যাবে, তাও আমি কখনো ভেবে পাইনা। অনেকে বলে থাকে, আমার চেহারা নাকি মিষ্টি, বেবী ফেইস ধরনের। আসলে, সাথী আপুর চেহারা আরো মিষ্টি! আরো সুন্দর! গোলাপী ঠোট যুগল আমার মতো অতটা চৌকু না হলেও চৌকুই বলা যাবে! নীচ ঠোটটা ঈষৎ ফোলা বলে অধিকতর সেক্সী বলেই মনে হয়। টানা টানা চোখ, আর গাল দুটিও ঈষৎ চাপা, যা তার চেহারাটাকে আরো তীক্ষ্ম করে তুলেছে।
সাথী আপুর বক্ষও অসম্ভব ধরনেরই উঁচু! শুধু উঁচু বললে কে কেমন ভাববে জানিনা, ধরতে গেলে ছোটদের খেলার ফুটবল দুটিই তার বুকের উপর রয়েছে। ঠিক ফুটবলের মতোই গোলাকার! ঘরোয়া পোষাকে সাধারন টাইট সেমিজের গলে, বক্ষের ভাঁজগুলোও অসম্ভব চমৎকার লাগতো। আর, সরু কোমরটার উপর এমন ভারী ফুটবল সাইজের দুটি স্তন নিয়ে যখন সাথী আপু হাঁটে, তখন অপূর্ব এক ছন্দ নিয়েই দোলে। তখন আমার বক্ষ খুব একটা বাড়েনি। ছোট আকারের পেয়ারার মতো হবে কি হবে না, তেমনি একটা সময়। সাথী আপুর বক্ষ দেখে, আমার হিংসা যেমনি হতো, তেমনি স্বপ্নেও বিভোর থাকতাম, কখন আমার বক্ষ দুটিও সাথী আপুর মতোই ফুটবলের আকার ধারন করবে। আর কখনইবা তেমন করে বক্ষ দুলিয়ে দুলিয়ে হাঁটতে পারবো।

স্কুল ছুটির পর, বিকাল বেলায় সাথী আপুর সাথেই সাগর বেলাতেই হাঁটাহুঁটা করে সময় কাটতো। পোষাকের ব্যাপারে সাথী আপুও খুব উদাসীন ছিলো। কলেজ থেকে ফিরে এসে, নিম্নাংগে স্কীন টাইট জিনস প্যান্টটা ঠিকই থাকতো, তবে উর্ধাংগে সাধারন টাইট সেমিজটাতেই ঘরে বাইরে চলাফেরা করতো। তেমনি পোষাকে সাথী আপুকে অপূর্ব লাগতো! সাথী আপুর দেখাদেখি, আমিও স্কুল থেকে ফিরে এসে, টাইট জিনসটাই বেছে নিতাম নিম্নাংগে পরার জন্যে।
তখন আমি ব্রা পরা শুরু করেছি মাত্র। ব্রা এর উপর অনেকে সেমিজও পরে। আমি পরতাম না। সরাসরি স্কুল ড্রেসই পরতাম। আর তাই স্কুল থেকে ফিরে এসে, কামিজটা খুলে, উর্ধাংগে শুধু ব্রাটা রেখে চলাফেরা করতে খুব ভালো লাগতো। কারন, আমার বক্ষ তখনো খুব ছোট ছিলো। ব্রা পরলে খানিকটা বড় দেখাতো।
সাথী আপুর কলেজ একটু তাড়াতাড়িই ছুটি হতো। আমার স্কুল অনেক দেরীতে। বাড়ীতে পৌঁছুতে পৌঁছুতে প্রায় পাঁচটাই বেজে যেতো। সাথী আপু যেনো, আমার বাড়ী ফিরে আসার জন্যেই ছটফট করতো। আমি বাড়ীতে ফিরতেই, সাথী আপু বলতো, এত দেরী হলো কেনো? চলো, সাগর পার থেকে ঘুরে আসি।
আমি অনেকটা তাড়াহুড়া করেই ঘর্মাক্ত স্কুল ড্রেসটা পরন থেকে খুলে নিতাম। ব্রা টা ঘর্মাক্তভাবেই পরনে থাকতো। নিম্নাংগে শুধু জিনসটা পরে নিতাম। তারপর, সাথী আপুর হাত ধরেই ঘর থেকে বেড়িয়ে সাগর পারে চলে যেতাম। সাগরপারের ফুরফুরে বাতাসে ঘর্মাক্ত ব্রাটা আপনিতেই শুকিয়ে গিয়ে, ফ্রেশ হয়ে উঠতো। ঠাণ্ডা বাতাসে বুকটাও জুড়িয়ে যেতো!

সবুজ বয়সে আমার আর সাথী আপুর মাঝামাঝি। বখাটে ছেলেদের সাথে মেলামেশা করে করে, কখন যে পড়ালেখা ছেড়ে দিয়েছিলো, কেউ টের পাইনি। সারাদিন টোঁ টোঁ করে কোথায় ঘুরে জানার উপায়ও নেই। তবে, বিকালবেলায় কেনো জানি বাড়ীতেই থাকতো। আমরা দু বোন যখন সাগর পারে যাবার জন্যে উদ্যত হতাম, তখন এটা সেটা কথা বলার ছোতা ধরে, আমাদের পথ রোধ করেই দাঁড়াতো। আমার কেনো যেনো মনে হতো, সবুজ ভাইয়ার কথা বলার কোন উদ্দেশ্য থাকতো না। উদ্দেশ্য থাকতো, আমাদের দু বোনের বক্ষ অবলোকন করাই। সবুজ ভাইয়া কথা বলার ফাঁকে ফাঁকে আমাদের দু বোনের বক্ষের দিকেই শুধু তাঁকিয়ে থাকতো তীক্ষ্ম দৃষ্টি ফেলে। আমার বিরক্তিই লাগতো। তবে, সাথী আপু কেনো যেনো মজাই পেতো। মুচকি হেসে হেসে খুব আগ্রহ করেই সবুজ ভাইয়ার সাথে আলাপ চালিয়ে যেতে থাকতো। তখন, সাথী আপুর উপর আমার খানিকটা হিংসেও হতো। মনে হতো, তার বক্ষ দুটি সুডৌল বলেই সবুজ ভাইয়াকে ইনিয়ে বিনিয়ে খালি দেখানোর চেষ্টাই করতো। সবুজ ভাইয়াও, সাথী আপুর বক্ষ দেখে দেখে মুগ্ধ হয়ে, আমাকে শুধু তিরস্কারই করতো। বলতো, ব্রা পরে যতই দেখাও না কেনো, ছোট দুধ, ছোটই! কেউ তাঁকাবেও না!
সবুজ ভাইয়ার উপর তখন আমার খুব রাগই হতো। রাগ করেই বলতাম, তোমাকে বলেছি নাকি তাঁকাতে।
সবুজ ভাইয়া আমার মাথায় হাত বুলিয়ে বলতো, এত রাগ ভালো নয়! ছোট মেয়ে, ছোট দুধ থাকবেনা কি, আপুর মতো এত বড় হবে নাকি? বড় হলে তোমারও অমন হবে!
সবুজ ভাইয়ার কথা শুনেও আমি স্বপ্নে বিভোর হয়ে পরতাম। সত্যিই যখন সাথী আপুর মতো বড় হবো, তখনও কি আমার অমন বিশাল দুটি দুধু হবে?

সবুজ ভাইয়ার ব্যাপারগুলো সত্যিই খুব রহস্যজনক মনে হতো। সত্যিই বিকালবেলাটি ছাড়া তার সাথে আর কখনো দেখা হতো না। সন্ধ্যার দিকে যখন সাগর পার থেকে নিজ বাড়ীতে ফিরে আসতাম, তখন বাড়ীতে শুধু মা।
আমাদের বাবা শুরুতে জীবনযাত্রাটা শুরু করেছিলো, সামুদ্রিক মাছ দিয়েই। একটা সময়ে চীংড়ির প্রজেক্ট করে, অর্থনৈতিক সমস্যাটা খুব চাঙা করে তুলেছিলো। তারপরই বিদেশেও চীংড়ি রফতানী করে, ব্যবসাটাকে আরো বিশাল করে তুলেছিলো। ধরতে গেলে এই বাড়ীতে আমরা মা মেয়ে শুধু তিনজন ছাড়া অন্য কেউই থাকে না। কারন, সবুজ ভাইয়া শুধু রহস্যজনকই ছিলো না, সন্দেহজনকও ছিলো। কেনো যেনো ধারনা হতো, সন্ধ্যার পর বখাটে বন্ধুদের সাথে, গাঁজা কিংবা ফেন্সিডীলের আড্ডাতেই জমিয়ে তুলতো।
সন্ধ্যার পর বাড়ীতে ফিরার পর, সারাদিন একা একা থাকা আমাদের মা খুব আগ্রহ করেই উঠানে এগিয়ে আসতো। বলতো, পাশাপাশি দুই বোনকে চমৎকার মানায়। তোমাদের জন্ম দিয়ে আমার জীবন ধন্যি! তোমাদের দুজনকে এক সাথে দেখলে চোখ যেমনি জুড়িয়ে যায়, মনটাও ভরে যায়।
তার পর পরই আমাদের মা ছোট্ট একটা নিঃশ্বাস ফেলতো। সেই নিঃশ্বাসটুকু দেখে প্রায়ই মনে হতো, আমাদের মায়ের মনে গোপন একটা চাপা কষ্টই বুঝি বিরাজ করছে। অথচ, সেই কষ্টের ধরনটাই শুধু বুঝতে পারতাম না।

আমাদের মা মেয়েদের আলাপটা জমে উঠতো সন্ধ্যার দিকেই, উঠানে দাঁড়িয়ে। আলাপ বলতে তেমন কিছুনা। মায়ের একটার পর একটা প্রশ্নই শুধু। সাথী আপু কলেজে কি কি করলো, তার কলেজে কি কি ঘটলো? ঠিক তেমনি, আমার স্কুলও কেমন কাটলো, স্কুলে কি কি ঘটলো?
সাথী আপুর দেহে তখন ভরা যৌবন! অনেক আলাপের মাঝে, হ্যাণ্ডসাম ছেলেদের কথাও তুলতো! মা সেসব খুব আগ্রহ করেই শুনতো! বলতো, কারো প্রেমে ট্রেমে পরিসনি তো?
সাথী আপু বুক ফুলিয়েই বলতো, কি যে বলো মা! যতই হ্যাণ্ডসাম হউক না কেনো, আমাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলা খুব কঠিন ব্যাপার!
আমার তখন উঠতি বয়স! এমন বয়সে কম বেশী সব মেয়েদেরই মনের মানুষ থাকে। তবে, কেনো যেনো জানা শুনা ছেলেগুলোকে খুব একটা পছন্দ হতো না। সাথী আপু যখন রসিয়ে রসিয়ে সেই সব হ্যাণ্ডসাম ছেলেদের গলপো করতো, তখন আমারও খুব লোভ জাগতো, সেসব হ্যাণ্ডসাম ছেলেগুলোকে দেখতে। আমিও মুচকি হেসে আলাপে অংশ নিয়ে বলতাম, আপু, একবার বাড়ীতে নিয়ে এসো না! দেখি কেমন হ্যাণ্ডসাম!
সাথী আপুও তখন তিরস্কার করতো, তুমি হ্যাণ্ডসাম ছেলে দেখে আর কি করবে? ছোট্ট একটা মেয়ে!
আমার মনটা তখন খুব খারাপ হয়ে যেতো। মা তখন সাথী আপুকে লক্ষ্য করেই বলতো, ও যখন বলছে, একবার নিয়ে আয়না সবাইকে!
কেনো যেনো মনে হতো, সাথী আপুর আর তখন, ছেলেদের ব্যাপারে কোন আগ্রহই থাকতো না।

সাথী আপু হঠাৎই আমাকে নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পরতো। ঘুরে, মায়ের পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আমাকেই প্রশ্নের পর প্রশ্ন শুরু করে দিতো। বোনের ছায়াতলে রেখেও, বন্ধু থেকে মুরুব্বীর আসনে দাঁড়িয়ে বলতে থাকতো, রিয়া, তুমি আবার কারো প্রেমে ট্রেমে পরো নি তো?
আসলে খুব ছোটকাল থেকেই পড়ালেখার প্রতি খুবই সীরিয়াস। ধরতে গেলে ক্লাশ ওয়ান থেকেই ক্লাশের ফার্স্ট গার্ল। পড়ালেখার পাশাপাশি, বিভিন্ন ধরনের জ্ঞান আহরনের ব্যাপারে বরাবরই খুব আগ্রহ থাকতো। তবে, প্রেম ভালোবাসার ব্যাপারগুলো আমাকে কখনোই কাতর করতো না। তারপরও আমি মজা করার জন্যে, ডান হাতটা গালে ঠেকিয়ে বললাম, পরলে কি খুব দোষ হবে?
সাথী আপু চোখ লাল করেই বলতো, দোষ হবে মানে? তুমি একটা ব্রিলীয়েন্ট ছাত্রী! সুন্দরী! লেখাপড়া শেষ করলে, কত ছেলেই লুফে নেবে! এসব ভাবার সময় আছে নাকি তোমার?
তারপর মাকে লক্ষ্য করে বলতো, দেখেছো মা! কেমন পেকেছে এই মেয়ে!
আমি শৈশব থেকেই খুব ঠাণ্ডা মেজাজের মেয়ে। আমি ঠাণ্ডা মাথাতেই বললাম, আপু, আমি যদি পড়ালেখা ঠিক রেখে, শুধু প্রেমই না, দশটা ছেলে নিয়ে বিছানাতেও যাই, তাহলে তোমার ক্ষতিটা কি? তুমি তো ইন্টারে থার্ড ডিভিশন পেয়ে, বি, এ, পরছো। বিয়ে তো কখনো হবে বলে মনে হয় না। তবে, তোমার এত সুন্দর দেহটা কাক শকুনেই চিড়ে চিড়ে খাবে, তাতেই খুব মায়া হচ্ছে!
সাথী আপু তখন রাগে শুধু থর থর করতো।

আসলে সাথী আপুকে সেসব কথা মন থেকে বলতাম না। সাথী আপু রূপসী ঠিকই, তবে লেখাপড়ায় একটু খারাপই ছিলো। খারাপ বলতে, লেখাপড়া ধরতে গেলে করতোই না। ঠিক সবুজ ভাইয়ার মতোই। সবুজ ভাইয়া তো ইন্টার এর পর লেখাপড়াটা ছেড়েই দিয়েছিলো, তবে সাথী আপু কোন রকমে পাশটা করে, বি, এ, তে ভর্তিটা হয়েছিলো। পাশটাও করবে জানি, কারন সাথী আপুর মেধাও ভালো। তবে, কেনো যেনো মনে হতো, এই ধরনের মেয়েদের খুব একটা ভালো বিয়ে হয়না। রূপ যৌবন পাগল ছেলেরা আগ্রহ করেই বিয়ে করার জন্যে পাগল থাকে ঠিকই, অথচ আভিভাবকদের কোন সায় থাকে না। শেষ পর্য্যন্ত পালিয়েই বিয়ে করতে হয়, কাউকে না জানিয়ে। সাথী আপুকে নিয়ে এমন একটা সন্দেহ বরাবরই হতো। তাই হয়তো সেবার মুখ ফসকে বলে ফেলেছিলাম। আমি পরক্ষণেই সাথী আপুকে খুশী করার জন্যে বলতে থাকলাম, আপু, তুমি রূপসী একটি মেয়ে! প্রেম-বিয়ে এসব করার কি কোন দরকার আছে? পুরু পৃথিবীর ছেলেগুলোর মাথা খারাপ করে দাও তো!
সাথী আপু তখন অর্থপূর্ণ দৃষ্টি মেলেই আমার দিকে তাঁকিয়ে থাকতো। আমি শুধু খিল খিল করেই হাসতাম। বলতাম, আপু, তোমার জন্যে আমার মনে একটা চমৎকার আইডিয়া আছে!
সাথী আপু খুব আগ্রহ করেই জিজ্ঞাসা করতো, কি? কি আইডিয়া?
আমি খিল খিল করে হাসতে হসতেই বলতাম, অভিনেত্রী! মৌসুমী, শাবনুর, এদের মতোই চমৎকার অভিনেত্রী! তাহলে, পুরু পৃথিবী না হউক, অন্তত বাংলাদেশের সব ছেলেদের অন্তরে অন্তরেই থাকবে! কি বলো?

আমার কথা সাথী আপুর মনপুতঃ হতো না। রাগে শুধু থর থর করে কাঁপতো। পারলে আমার গালে একটা চড় বসিয়ে দেয়, তেমনি একটা ভাব করতো। অথচ, আমার হাসি খুশী চেহারাটা দেখে, সেটাও করতে পারতো না। তারপর খুব কোমল গলাতেই বলতো, মৌসুমী, শাবনুর হলে সব ছেলেদের ভালোবাসা পাবো?
আমি বলতাম, যদি পছন্দের নায়িকা হতে পারো, তাহলে তো ফ্যান এর অভাব হবে না। তবে, তার আগে অভিনয়টা একটু শিখতে হবে! নইলে শীলা মমতাজ এর মতো ড্যান্সার বানিয়ে পাঁচ মিনিটের কোন দৃশ্য ছাড়া থাকবে না!
সাথী আপু তখন মাকে লক্ষ্য করেই বলতে থাকে, মা, ওর পাঁকা কথা শুনছো? আমি নাকি পাঁচ মিনিটের ড্যান্সার! ও আমাকে ভাবে কি বলো তো? ক্লাশে একটু ফার্স্ট হয়ে, এত দাপট?
মা বলতো, আহা, আমার ছোট্ট একটা মেয়ে! মজাই তো করছে! আমার তো শুনতে ভালোই লাগছে! তুমি নায়িকা হবে, এটা শুনেই তো গর্বে আমার বুকটা ফুলে উঠছে! আমিও কি কম স্বপ্ন দেখেছিলাম, নায়িকা হবার? চেষ্টাও তো কম করিনি। অডিশন এর জন্যে ঢাকাতেও গিয়েছিলাম। পুরু একটি সপ্তাহ এক প্রযোজকের সাথে দিন রাত কাটিয়েছি! কই, কিছুই তো হলো না। রাতে হোটেলে আমার দেহটাই শুধু উপভোগ করেছিলো। শেষ পর্য্যন্ত বললো, পার্শ্ব চরিত্র একটা দেয়া যায়। খুব একটা কষ্ট করতে হবে না। নায়িকার দাদীর চরিত্র! আলগা পাকা চুল আমরাই লাগিয়ে দেবো! মেক আপটাও আমাদের মেক আপ ম্যান করিয়ে দেবে। তবে, একটু কাঁপা কাঁপা গলায় কথা বলতে হবে।
মায়ের কথা শুনে সাথী আপু আরো রাগ করতো। রাগ করেই বলতো, যথেষ্ট হয়েছে মা, এখন ঘরে চলো!

আমি সবার ছোট ছিলাম বলেই কিনা জানিনা, খানিকটা আহলাদী ছিলাম। সাথী আপু আমার উপর রাগ করলেও, মুচকি মুচকি হাসতাম শুধু। সাথী আপু যখন মায়ের হাতটা টেনে ধরে, বাড়ীর ভেতর ঢুকার উদ্যোগ নিতো, আমিও তখন পেছন থেকে মায়ের অপর হাতটা টেনে ধরতাম। চোখ ইশারা করে বলতাম, আপুকে আপুর মতো করে ভাবতে দাও।
মাও আমাকে একটু বাড়তি স্নেহই করতো। সাথী আপুকে সহজ গলাতেই বলতো, সারাদিন কলেজ করেছো, ফিরে এসেও উঠানে পায়চারী, আবার সাগর পারে বেড়ানো! অনেক ক্লান্ত তুমি! ঘরে গিয়ে একটু বিশ্রাম করো।
আমার চালাকী চালে মাও খুব ভালোই চালাতে পারতো। সন্ধ্যার উঠানে মায়ের সাথে আরো খানিকটা সময় কাটাতাম আমি। মা খুব আবেগ আপ্লুত হয়েই, আমার সর্বাংগ একবার অবলোকন করে বলতো, চোখের সামনে এতটা বড় হয়ে গেছো তুমি! অনুমানও তো করতে পারিনি!
মায়ের কথায় আমি পাত্তা দিতাম না। কথা কাটানোর জন্যেই বলতাম, মা দেখো, দেখো! কে যেনো আসছে!
মা তখন দূরের পানেই তাঁকিয়ে বলতো, কই, কে আসছে?
আমি মজা করেই বলতাম, তোমার এই ফকিরা বাড়ীতে আবার কেউ আসবে? বাবাও আসবে না! ভাইয়াও আসবে না।
মা তখন খুব অনুযোগ করেই বলতো, ফকিরা বলছো কেনো মা? আমি জমিদার পরিবার এরই মেয়ে। তোমার বাবার পূর্ব পূরুষ হয়তো এক সময়ে জেলে ছিলো। কিন্তু, সেও তো এখন একজন আন্তর্জাতিক বিজন্যাস ম্যাগনেট! ঢাকার বাড়ীটা হয়ে গেলে কি আর, এই সাগর পারে পরে থাকতে হবে?

পৃথিবীর সব বিজন্যাস ম্যাগনেটগুলোকে কে কতটা জানে, আমি জানিনা। তাদেরকে কেমন করে ভাবে তাও আমার জানা নাই। আমাকে কিংবা বাবাকে যখন তেমনি ভাবে সবাই চেনার চেষ্টা করে, তখন খুব একটা খারাপ লাগে না। তারপরও, কেনো যেনো মনে হয়, আমাদের মতো কিছু কিছু পরিবারগুলোর মাঝে, কেমন যেনো চাপা কষ্টের ছায়াটা লেগেই থাকে। সেই হিসেবে সব সময়ই মনে হয়, গরীব কিংবা সাধারন মধ্যবিত্ত পরিবার এর মানুষগুলোই বুঝি সবচেয়ে সুখী।
আমাদের মতো পরিবারগুলোতে সবচেয়ে বড় কষ্ট হলো ভালোবাসার কষ্ট! ভালোবাসার দাবী নিয়ে যখন নীচু পরিবার থেকে কেউ এগিয়ে আসে, তখন বরণ করে নিতে পারিনা। আর সম মানের মানুষরা কেনো যেনো পছন্দের কেউ হয় না। মায়ের বেলাতেও তাই হয়েছিলো। যতদূর জানি, মায়ের পছন্দের একটি ছেলে ছিলো! যাকে মা মনে প্রাণেই ভালোবাসতো। অথচ, বিয়েটা হয়েছিলো বাবার সাথেই, কেনোনা, বাবার পরিবারটি জমিদার বংশের না হলেও, সামাজিকভাবে খানিকটা উপরেই উঠে এসেছিলো। অথচ, মা বাবার মাঝে ভালোবাসার খুব একটা জোড়ালো ব্যাপার হয়তো গড়ে উঠেনি। বাবা শুধু টাকার পেছনেই ছুটতো! যার কারনে, আমরা ভাই বোনেরা সব সময়ই চাহিদার যে কোন কিছুই, পৃথিবীর খুব অল্প সংখ্যক মানুষগুলোর মতোই সবার আগে হাতে পেয়েছি। সেটাই বোধ হয়, আমাদের অহলকার করার মতো একমাত্র ব্যাপার! অথচ, একটু তলিয়ে দেখলেই বুঝা যাবে, ভালোবাসার কষ্টে, মাঝে মাঝে আমরা অনেক নোংড়া কাজ করতেও দ্বিধা করিনা।

আসলে, মায়ের সাথে সাথী আপুর একটা গোপন সম্পর্ক ছিলো। ব্যাপারটা আমার অজানাই ছিলো। সেবার চাদনী রাতে, পড়ার ঘর থেকে জানালার বাইরে চোখ রাখতেই দেখলাম, মা পুরুপুরি নগ্নদেহেই উঠানে পায়চারী করছে।
মায়ের চেহারায় খানিকটা বয়সের ছাপ এলেও, দেহটা কিন্তু সাংঘাতিক! সাথী আপুর মতো ছোট আকারের ফুটবলের মতো বক্ষ না হলেও, জাম্বুরা সাইজের বক্ষ যুগল তখনও খুব সুঠাম! মাকে নগ্ন দেহে উঠানে পায়চারী করতে দেখে, সত্যিই ছোট একটা নিঃশ্বাস ফেলেছিলাম। কারন, ছোট বলে সবাই আমাকে যতই তিরস্কার করুক না কেনো, বুঝার মতো যথেষ্ট বয়স আমার তখন হয়েছিলো। মায়ের যৌবনে ভরা দেহটার আগুন নেভানোর জন্যে, বাবারই যথার্থ কিছু করা উচিৎ ছিলো। অথচ, সেই বাবাই, আমাদের চকোরিয়ার পাদদেশে সাগর পারে আমাদের রেখে একাকী বসবাস করতো ঢাকাতে। মাস দুয়েক অন্তরে আসতো কি আসতো না, এক দু রাতের বেশী বাড়ীতেও থাকতো না। আমাদের মা যে কতটা কষ্টে, তার ভরা যৌবনটাকে মাসের পর মাস নিয়ন্ত্রণে রাখছে, তা বোধ হয় বিয়ের পরও, দূরে বসবাস করা স্বামীদের বউরা ছাড়া অনুভব করার কথা না। অথচ, অমন একটা বয়সে, অবিবাহিত আমিও মায়ের কষ্টটা খুবই অনুভব করতাম। কেনো যেনো, পাঠ্যবই থেকে মনোযোগটা সরে গিয়ে, মায়ের দিকেই গভীর হলো। আমি উঠানে নগ্ন দেহে পায়চারী করা মাকেই তন্ময় হয়ে দেখতে থাকলাম। কি চমৎকার মায়ের হাঁটা! কি চমৎকার তার সুঠাম বক্ষের দোলন। আর, নিম্নাংগের সুদৃশ্য কালো কেশ গুলো চাঁদের আলোতেও খুব চক চক করছিলো।

মা তখন পায়চারী করতে করতে উঠানের অপর প্রান্তেই চলে গিয়েছিলো। আমি আবারো পড়ায় মন দিলাম। হঠাৎই পুনরায় আমার চোখ গিয়েছিলো জানালার বাইরে। অবাক হয়ে দেখলাম, সাথী আপুও উঠানে। আশ্চর্য্য! সাথী আপুও পুরোপুরি ন্যাংটু! তার দেহের সবচেয়ে বড় আকর্ষণই বুঝি, সুডৌল সুবৃহৎ বক্ষ যুগল! জ্যোসনা ছড়ানো চাঁদের আলোও যেনো, তার সেই সুডৌল বক্ষ যুগলের কাছে হার মানতে থাকলো। কেনো যেনো মনে হতে থাকলো, সাথী আপুর বক্ষ যুগল থেকেই অপূর্ব এক আলো ঝরিয়ে পুরো উঠানটা আলোকিত করে তুলছিলো। আমি আর পড়ায় মন দিতে পারলাম না। পড়ার টেবিলের চেয়ারটা ছেড়ে জানালার শিক ধরেই দাঁড়ালাম। দেখতে থাকলাম সাথী আপুকেই! সাথী আপুর নগ্ন দেহটাকে! ভরাট স্তন যুগলের শীর্ষে প্রশস্ত নিপলের খয়েরী রংটাকে! আর সেই চূড়াগুলোতে খানিকটা স্থুল বাদামের মতোই অগ্রাংশ দুটোকে!
কাপর বদলানোর সময়, সাথী আপুর নগ্ন বক্ষ কিংবা নগ্ন দেহ, আগেও যে দেখিনি তা নয়। কেনো যেনো উঠানে পুরোপুরি নগ্ন দেহে বিচরন করা মায়ের সাথে, তাকেও নগ্ন দেহে দেখে, দেহেও যেমনি ভিন্ন এক শিহরণ জেগে উঠতে থাকলো, মনের ভেতরও বাড়তি কিছু কৌতূহলই শুধু জন্মাতে থাকলো। আমি আর পড়ার টেবিলে ফিরে গেলাম না। জানালার শিকে কপালটা ঠেকিয়ে, চোখ দুটো যতদূর যায়, ততদূর পর্য্যন্তই নগ্ন দেহের মা আর সাথী আপুর পায়চারীগুলো পর্য্যবেক্ষণ করতে থাকলাম। সত্যিই সাথী আপুর বক্ষ যুগলের তুলনা হয় না। খাড়া সুঠাম বৃহৎ বক্ষ যুগল, হাঁটার তালে তালে ছন্দে ছন্দেই দোলছিলো।

সাথী আপু হাঁটতে হাঁটতে মায়ের কাছাকাছি পর্য্যন্তই এগিয়ে গেলো। অতঃপর দুজনে পাশপাশিই হাঁটছিলো। হঠাৎই মা তার মুখটা ঘুরিয়ে, সাথী আপুর চমৎকার ঠোটে একটা চুমু এঁকে দিয়ে কি যেনো বললো। তবে, সাথী আপুর অস্পষ্ট গলা শুনতে পেলাম, আমার ঠোটে চুমু দিয়ে, প্রশংসা করার কারন তো জানি! বুঝেছি! কি চাইছো! চলো, ওই পাকার উপরটায় চলো।
মা আর সাথী উঠানে দরজার কাছাকাছি প্রশস্ত পাকাটার উপরই এগিয়ে এলো। শূন্য আকাশের নীচে পাকাটার উপরই চিৎ হয়ে শুয়ে পরলো মা। সাথী আপুও পাকাটার উপর হাঁটু গেঁড়ে, নুইয়ে মায়ের ঠোটে এক গভীর চুম্বনে হারিয়ে যেতে থাকলো। সাথী আপুর চমৎকার ঠোট যুগল, মায়ের ঠোটে চুমুটা শেষ করে, থুতনী, অতঃপর তার বক্ষের দিকে নেমে এলো। মা তার ঠোট দুটি ফাঁক করে ফোঁস ফোঁস ধরনেরই এক শব্দ বেড় করতে থাকলো।
সাথী আপু রীতীমতো মায়ের গোলাপী নিপলগুলো চুষতে শুরু করে দিলো।
ছেলে মেয়েরা মায়ের দুধু চুষবে, এতে অবাক হবার কিছুই। একটা সময়ে হয়তোবা আমিও মায়ের দুধু চুষেছি, হয়তোবা মনে নেই। তবে, একটা সময় পার হয়ে যাবার পর, মায়ের দুধু চুষাটা আর হয়ে উঠেনি। তবে, সাতী আপুকে মায়ের দুধুগলো চুষতে, আমারও কেমন যেনো চুষতে ইচ্ছে হলো। আমি খুব আগ্রহ করেই দেখতে থাকলাম, মা আর সাথী আপুকে। অবাক হয়েই লক্ষ্য করলাম, সাথী আপুর ঠোট যুগল, মায়ের মেদহীন পেটটা গড়িয়ে এগিয়ে যেতে থাকলো মায়ের নিম্নাংগের দিকে।

মানুষ স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে যায় শেখার জন্যে, নুতন কিছু জানার জন্যে। কেনো যেনো মনে হয়, শুধুমাত্র পাঠ্য বই থেকেই মানুষ শেখে না। বরং বেশীর ভাগই শেখা হয়, বিভিন্ন পরিবেশ, পরিবার থেকে আসা বিভিন্ন জনের সাথে আলাপ পরিচয় এর মাধ্যমে। চলার পথে এটা সেটা দেখেও অনেকে অনেক কিছু শেখে। শিশুরা মায়ের দুগ্ধ পান করে, তাও বোধ হয়, হঠাৎ কখনো মা ও শিশুকে দেখে মনে হয়েছে, একটা সময়ে আমিও বোধ হয় অমন করে মায়ের দুধু পান করেছি। তবে, সাথী আপুর মায়ের নিম্নাংগ চুষার ব্যাপারটি অদ্ভুতই লাগতে থাকলো। এমন নিম্নাংগের প্রধান কাজ টুকু তো সবারই জানা। বয়সটা বাড়ার সাথে সাথে প্রতি মাসে বাড়তি একটা ঝামেলা, মিনসটা শুরু হবার পরও বান্ধবীদের সাথে আলাপ করে জানতে পেরেছিলাম, এটা খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। তবে, সব মিলিয়ে নিম্নাংগের ব্যাপারটা দেহের অপ্রয়োজনীয় জিনিষ গুলো বেড় করার জন্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি অংগই মনে হতো। তাই এর সঠিক পরিচর্য্যারও প্রয়োজন, তাও মনে হতো। তবে, কেউ সেখানে চুমু দেবে, চুষবে, এমন কোন ব্যাপার কখনোই ভাবিনি। আমি বুঝতে পারছিলাম, নিজের অজান্তেই আমার দেহটা কেমন যেনো উত্তপ্ত হতে শুরু করলো। সারা দেহে কেমন যেনো এক ধরনের শিহরণের ঢেউ খেলে যেতে থাকলো। আমি আমার পরনের ব্রাটা খুলে ফেললাম। জিনস এর প্যান্টটাও নামিয়ে, প্যান্টিটাও খুলে ফেললাম। তারপরও, কেনো যেনো দেহটাকে শীতল মনে হলো না। এক ধরনের অস্বস্থিই শুধু মাথার ভেতর কাজ করতে থাকলো।

অবচেতন মনেই উঠানের দিকে এগিয়ে গিয়েছিলাম আমি। পুরুপুরি নগ্ন দেহ আমার। মা কিংবা সাথী আপুর মতো অত বৃহৎ বক্ষ আমার ছিলো না। তবে, খুব খারাপও না। সুঠাম খানিকটা গোলাকার। নিপলের দিকটা ঈষৎ গোলাপী, তবে অতটা প্রশস্ত নয়। নগ্ন দেহে খোলা আকাশের নীচে থেকে, খুব রোমাঞ্চতাই লাগছিলো। আমি মা আর সাথী আপু থেকে খানিকটা দূরে দাঁড়িয়েই তাদের কর্ম কাণ্ড দেখছিলাম।
কেনো যেনো মনে হলো, মা আর সাথী আপু ভিন্ন এক অজানা জগতেই আছে। মায়ের যোনীটাতে, সাথী আপুর জিভের ঠোকরের সাথে, মায়ের মুখ থেকে কষ্টের না আনন্দের শব্দ বেড় হচ্ছিলো কিছুই অনুমান করতে পারছিলাম না। মা চোখ দুটি বন্ধ করেই, মুখটা পুরু পুরি হা করে রেখেই গলা থেকে সেই শব্দগুলো নির্গত করছিলো। তা দেখে, হঠাৎই আমি আমার নিম্নাংগে অদ্ভুত এক যন্ত্রণা অনুভব করতে থাকলাম। কেমন যেনো চিন চিন করা এক যন্ত্রণা। নিম্নাংগের ভেতরকার খানিক গভীর থেকেই। মনে হতে থাকলো, একমাত্র সাথী আপুই বুঝি পারে, তার চমৎকার জিভটি দিয়ে ঠুকরে ঠুকরে আমার নিম্নাংগের ব্যাথাটা উপশম করে দিতে। তাই আমি খুব কামুকী দৃষ্টি নিয়েই সাথী আপুকে দেখছিলাম। সেই সাথে দেখছিলাম কেঁপে কেঁপে উঠা মায়ের দেহটাও। মনে হতে থাকলো, মায়ের নিম্নাংগের ভেতরেও বুঝি অনুরূপ কোন চিন চিন ব্যাথা! যা সাথী আপুর জিভের ঠোকরে, উপশম পাবার চেষ্টায় মগ্ন! আসলে, মানুষের দেহও বোধ হয় রহস্যে ভরা। এতটা বছরেও, আমার দেহে অনেক পরিবর্তন এসেছে। অথচ, এমনতর অনুভূতি কখনোই হয়নি। দৈহিক অনুভূতিগুলোও বোধ হয়, বিশেষ কোন কিছু দেখার পরই জাগ্রত হয়!

সাথী আপুর ঠোট জিভে কি যাদু ছিলো, কিছুই বুঝতে পারলাম না। হঠাৎ মাকে চোখ খুলে, তৃপ্তি নিয়েই হাসতে দেখলাম। মাও যেমনি উঠে বসলো, সাথী আপুর চোখও আমার দিকে পরলো। সাথী আপু অপ্রস্তুত গলাতেই বললো, তুমি এখানে? পড়তে বসোনি?
আমি বরাবরই ঠোটকাটা স্বভাবের ছিলাম। সহজ গলাতেই বললাম, বসেছিলাম! খোলা আকাশের নীচে যা শুরু করে দিলে তোমরা, আর পারলাম কই!
মা আমার নগ্ন দেহটা খুব তীক্ষ্মভাবেই একবার পর্য্যবেক্ষণ করে বললো, নাহ মানে, চাঁদনী রাত! কি সুন্দর একটি রাত! মনটা হঠাৎই উদাস হয়ে গিয়েছিলো।
খানিকটা থেমে, মা আবারও বললো, বাহ, তুমি তো বেশ বড় হয়েছো! চমৎকার ফিগার হয়েছে তোমার!
সাথী আপু বরাবরই একটু স্বার্থপরই ছিলো। সেও একবার আমার আপাদ মস্তক নিরীক্ষণ করে বললো, হুম খারাপ না! ঠোটগুলোও চৌকু! সেক্সীই তো লাগে তোমাকে! দেখি তো তোমাকে চুমু দিতে কেমন লাগে?
এই বলে সাথী আপু আমার কাছাকাছি এগিয়ে এসে, আমার ঠোটে গভীর এক চুম্বন এঁকে দিলো। তাৎক্ষণিকভাবে, কি হচ্ছিলো কিছুই টের পেলাম না। তবে, সমস্ত দেহে এক ধরনের শিহরণের ঝড়ই বইয়ে দিয়েছিলো। সাথী আপু চুমুটা শেষ করে বললো, হুম, মন্দ না। চলবে! এবার লক্ষ্মী মেয়ের মতো আমার যোনীটা চুষে দাও তো!
আমি অবাক হয়েই বললাম, আমি? চুষবো? ওখানে?
সাথী আপু বললো, তো আর বলছি কি?
আমি যেনো হঠাৎই বোকা বনে গেলাম। কোথায় ভেবেছিলাম, সাথী আপু আমার নিম্নাংগটা চুষে দেবে, বুমেরাং হয়ে ফিরে এসে, আমাকেই তার যোনীটা চুষতে বলছে। অগত্যা আমি সাথী আপুর নিম্নাংগটা চোখের সামনে রেখে, হাঁটু গেড়েই দাঁড়ালাম।

আমি অনুভব করলাম, সাথী আপুর নিম্নাংগ থেকে চমৎকার একটা গন্ধ ছুটে ছুটে আসছে। যে গন্ধটা আমাকে খুব মাতাল করে তুলছিলো। সেই সাথে আমার নিম্নাংগের ভেতরকার যন্ত্রণাটাও বাড়তে থাকলো। মনে হতে থাকলো, সাথী আপুর নিম্নাংগটা চুষে চুষেও সেই যন্ত্রণা খানিকটা হলেও উপশম করা যাবে। আমি দু হাতে সাথী আপুর ভারী পাছাটা চেপে ধরলাম। তারপর, মুখটা গুঁজে দিলাম, তার কালো কেশে ভরা নিম্নাংগটার মাঝেই।
যৌনতার ব্যাপারে সত্যিই তখন পর্য্যন্ত কোন ধারনাই ছিলো না। কেনো যেনো মনে হতে থাকলো, আমার দেহে হঠাৎ জেগে উঠা এই ধরনের উষ্ণতাই বুঝি যৌনতা! আর, এমন যৌনতার উত্তাপ যখন দেহে ছড়িয়ে পরে, তখন বুঝি মানুষের কোন হিতাহিত জ্ঞান থাকে না।
সাথী আপুর যোনীতে ঠোট ছুয়াতেই, অনুভব করলাম তার যোনীর ঠোটগুলো কেমন যেনো স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে আছে। কেমন যেনো আঠালো একটা ভাব! আমি জিভটা বেড় করে, সেই যোনী ঠোটে ছুয়ালাম। নোন্তা একটা স্বাদ আমাকে কেমন যেনো আবেশিত করে তুললো। আমি জিভটা সাথী আপুর যোনী ছিদ্রটার অনেক গভীরে প্রবেশ করিয়ে, সেই স্বাদটুকু আরো নেবার চেষ্টা করলাম। আর এতে করে, সাথী আপুও যেনো আনন্দে আত্মহারা হয়ে উঠে, বড় বড় নিঃশ্বাস নিয়ে বলতে থাকলো, গ্রেইট মাই সুইট সিস্টার! তুমি তো আমাকে পাগল করে দেবে!
নিম্নাংগে জিভের স্পর্শ কতটা পাগল করে তুলতে পারে, আমার জানা ছিলো না। তবে, সাথী আপুর আনন্দে ভরা চেহারাটা দেখে, আমি প্রাণপণেই চেষ্টা করলাম তাকে সুখী করতে। আমি অনুভব করতে থাকলাম, সাথী আপুর যোনীর ভেতর থেকে উষ্ণ নোন্তা তরলগুলো আমার জিভে এসে জমতে থাকলো।

পৃথিবীর অন্য সব মেয়েদের, মা কিংবা বড় বোনগুলোর সাথে কেমন সম্পর্ক, তখনও খুব ভালো জানতাম না। সাথী আপু সহ, মায়ের সাথে যেনো হঠাৎই একটা নুতন সম্পর্ক গড়ে উঠলো, যা যে কোন সাধারন বন্ধুত্বের সীমানা ছাড়িয়ে, ভিন্ন এক জগতে হারাতেও মানা নেই, তেমনি এক ধরনের সম্পর্ক!
স্কুলে যাবার পথে, অনেক ছেলে বুড়ুই আমার দিকে তাঁকিয়ে থাকে, তা আমি অনুভব করতাম! এমন কি আমার বক্ষের দিকেও লোভনীয় দৃষ্টি ফেলে, তাও অনুমান করতাম। আমি লক্ষ্য করলাম, মাও আমার নগ্ন বক্ষের দিকে খুব লোভনীয় দৃষ্টি মেলেই তাঁকিয়ে আছে। সাথী আপুর যোনীর ভেতর থেকে এক পশলা রস খসিয়ে নিয়ে, উঠে দাঁড়াতেই, পেছন থেকে মা এসে আমাকে জড়িয়ে ধরলো। আমার সুঠাম বাড়ন্ত বক্ষে, দু হাতের তালুতে চেপে ধরে বললো, সত্যিই, তুমি অদ্ভুত ধরনেরই সেক্সী হয়ে উঠেছো। এমন নগ্ন না হলে তো আমারও জানা হতো না।
মায়ের কি হলো বুঝতে পারলাম না। আমার ঘাড়ে তার থুতনীটা ঠেকিয়ে, আমার নরোম সুঠাম বক্ষ যুগল টিপে কচলে কচলে, দলতে থাকলো পাগলের মতোই। আমারও কি হলো বুঝলাম না। মায়ের সেই হাতের স্পর্শে, এক ধরনের নুতন শিহরণই সারা দেহে ছড়িয়ে পরে, আমার নিম্নাংগের গভীরেও সংবেদন ছড়িয়ে দিতে থাকলো। সেই শিহরণ, সেই সংবেদনে, অজানা একটা সুখই যেনো অনুভব করতে থাকলাম, যে সুখের সন্ধান বোধ হয় সেবারই প্রথম পেয়েছিলাম জীবনে।

আমি দু চোখ বন্ধ করেই আমার বক্ষে মায়ের আদর ভরা হাতের স্পর্শগুলো অনুভব করছিলাম। মায়ের সেই হাতের স্পর্শ গুলো, আমার বক্ষ থেকে সরে গিয়ে, বক্ষের নীচ, পাছাটা সহ, সমগ্র দেহেই ছড়িয়ে পরতে থাকলো। সেই সাথে, আমার দেহের শিহরণটা যেনো আনন্দে আনন্দে ভরিয়ে তুলতে থাকলো। মা হঠাৎই আমাকে জড়িয়ে ধরে, উঠানের পাকাটার উপর শুইয়ে দিলো। অতঃপর তার হাতটা এগিয়ে নিলো আমার সদ্য ঘণ হয়ে উঠা নরোম কেশে ভরা নিম্নাংগটার উপরই।
আমি অনুভব করলাম, মায়ের হাতের একটা আংগুল আমার যোনী ছিদ্রটার ভেতরই ঢুকতে চাইছে। এতে করেই আমার দেহটা প্রচণ্ড রকমে কেঁপে উঠলো। আমি তা অনেক কষ্টেই গোপন করার চেষ্টা করছিলাম। কেনোনা নিম্নাংগের ছিদ্রে, মায়ের আংগুলীর প্রবেশটা যেনো, ভেতরকার চিন চিন করা যন্ত্রণাটাই উপশম করতে উদ্যত হচ্ছিলো।
আমার যোনীর ভেতর, মায়ের একটা আংগুল পুরুপুরিই ঢুকে গিয়েছিলো। মা সেটি সঞ্চালন করতে করতেই বললো, কেমন লাগছে, রিয়া!
আমি কথা বলতে পারছিলাম না। অস্ফুট গলাতেই বললাম, চমৎকার!
মা বললো, আরো চমৎকার লাগবে! দেখো!
এই বলে মা আমার যোনীর ভেতরে আংগুলী সঞ্চালনের গতিটা আরো বাড়িয়ে দিলো। আমি অনুভব করলাম, সাথী আপুর যোনীটার মতোই, আমার যোনীর ভেতরটাও রসে ভরপুর হয়ে উঠতে থাকলো। সেই সাথে চিন চিন করা যন্ত্রণাটা উপশম হয়ে হয়ে, সারা দেহে এক প্রকার আনন্দের বন্যাই ছড়িয়ে দিতে থাকলো।

আসলে একই পরিবারে দীর্ঘদিন বসবাস করেও, পরিবার এর সবার মন কিংবা চিন্তা ভাবনা, গতিবিধি জানা যায়না। তবে, কোন কিছুই বোধ হয়, কখনোই গোপন থাকে না। সেবার মা আর সাথী আপুর গোপন ব্যাপারগুলো হঠাৎ করেই আমার চোখের সামনে প্রকাশিত হয়ে পরেছিলো। সেই সুবাদে, নিজ যোনীতে মায়ের আংগুলীর চমৎকার একটা সঞ্চালনই উপহার পেয়েছিলাম।

চলবে

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s