শীলা – ১


পর্ব ০১

শীলার মামা একটু পাগল কিসিমের মানুষ। দুনিয়াতে অনেক কিসিমের পাগল আছে। শীলার মামা সিকদার অনি কোন শ্রেণীতে পরে কে জানে? কয়েকটা উদাহরণ দিলে, পাঠক পাঠিকারা হয়তো একটা শ্রেণীতে ফেলে দিতে পারবেন। শীলার মামা, সিকদার অনি যে কোন চায়ের আড্ডা থেকে শুরু করে, সম্ভ্রান্ত বিয়ের অনুষ্ঠানেও, অপরিচিতজনদের কাছেও বলতে থাকে, চমৎকার পরীর মতো একটি মেয়ে আমাকে ভালো বাসতো। কিন্তু, আমি বিয়ে করিনি! সে আরো বলে, বি, সি, এস, প্রশাসন ক্যাডারেও আমার চাকুরী হয়েছিলো, কিন্তু, আমি করিনি!

বাংলাদেশে এই ধরনের কথাবার্তাকে সবাই গপ্ বলে। শীলার মামার এমন সব কথা বার্তাকে সবাই গপ্ বলে মনে করে, হেসেই উড়িয়ে দেয়। আসলে, সিকদার অনির কথার, একটিও গপ্ নয়। তার জীবনে চমৎকার ফুটফুটে একটি পরীর মতো মেয়ে এসেছিলো, যে তাকে ভালোবাসতো মন প্রাণ দিয়ে। অথচ, সে তাকে বিয়ে করেনি। তার জীবনে, বি, সি, এস, প্রশাসন ক্যাডারের মতো লোভনীয় একটা চাকুরী করারও সুযোগ এসেছিলো, অথচ সে যোগদান করেনি। এসবের কারন হলো, তার আত্ম বিশ্বাসের অভাব।

শীলার মামা সিকদার অনির মেধা ভালো, অথচ কোন আত্মবিশ্বাস নেই। সব কিছুই নিজের মতো করেই ভাবে। অথচ, কেউ যদি প্রশ্ন তুলে, এটা তো এমন হবার কথা নয়। অথবা, এমনটি উচিৎ না। তখনই সিকদার অনি খুব ঘাবড়ে যায়। নিজের ভুল মনে করেই পিছু হটতে থাকে।
তার জীবনে, প্রেমটাও তেমন করেই সমাপ্তি ঘটেছিলো। সেই ফুটফুটে পরীর মতো মেয়েটার সাধারন একটি কথায়, আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলে, পাগলের মতো একা একা সময় কাটিয়েছিলো। কখনো সেই মেয়েটির মুখোমুখি হবারও ইচ্ছে প্রকাশ করেনি।
বি, সি, এস, চাকুরীটাও তেমনি করেই হাত ছাড়া করতে হয়েছিলো। লিখিত, মৌখিক ম্যাডিক্যাল চেক আপ, সব ঠিক ঠাক। সর্বশেষ প্রেসিডেন্সিয়াল সৌজন্য সাক্ষাৎকারই ছিলো। সাধারন আলাপের মাঝেই, সাধারন একটি প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে, সিকদার অনি সাক্ষাৎকার কক্ষটি থেকেই বিদায় নিলো, কোন রকম যুক্তি পরামর্শ না করেই।
এইসব আর কেউ না জানলেও, সব যে সত্যি তা নিশ্চিত জানে শীলা আর শীলাদের পরিবার এর সদস্যরা। আর শীলার মা কেয়া সিকদার অনির আপন কোন বোন নয়। একদা বাড়ীর কাজের মেয়ে বলেই পরিচিতা, সেই কেয়াকে আপন বোনের চাইতেও যথেষ্ট আপনই মনে করে। কারন, এই পৃথিবীতে সিকদার অনির আপন জন বলতে শুধু, সেই কেয়া আপাই।

সিকদার অনি এম, এস, সি, পাশ করে, ঢাকাতেই একটা এক কক্ষের বাসায় থেকে চাকুরীর তদবীরটা শুরু করে, টিউশনি করে জীবিকা নির্বাহ দিয়ে। শেষ পর্য্যন্ত একটা বিদেশী কোম্পানীতে জুনিয়র প্রকোশলী হিসেবেই চাকুরী যোগার করেছে। সেই খুশীর সংবাদটাই দিতে এসেছিলো সেবার, সুদুর ঢাকা থেকে চিটাগং এ শীলাদের বাসায়।

সিকদার অনির বোকামী আর পাগলামীর জন্যে, সে তার দুলাভাই তো দূরের কথা, তার প্রাণ প্রিয় কেয়া আপার কাছেও ইদানীং কোন মর্যাদা পায়না। তবে, সে একটা বিশেষ মর্যাদা পায়, তার সুশ্রী, সুভাষীনী একমাত্র ভাগ্নী শীলার কাছে। সে যখন ঢাকা থেকে ক্লান্ত হয়ে চিটাগং এ বোনের বাড়ীতে বেড়াতে এসে, তাদের বসার ঘরে বসে আছে সময়ের পর সময়, তখন কেউ তাকে চেহারাটা দেখাতেও এলো না। সে তখন বসার ঘরে একাকী বসে থেকে, দেয়ালে টানানো একটা তৈল চিত্রের দিকেই গভীর মনোযোগ দিয়ে তাঁকিয়ে, পর্য্যবেক্ষণ করছিলো। ঠিক তখনই ট্রে ভর্তি চা নাস্তা নিয়ে ঢুকেছিলো শীলা।
আর কটা দিন পরই শীলার এইচ, এস, সি পরীক্ষা। সময় কত তাড়াতাড়িই বুঝিই পার হয়ে যায়। দেখতে দেখতে মেয়েটা যে এত বড় হয়ে যাবে, ভাবতেও পারেনি সিকদার অনি। দীর্ঘদিন পর দেখা শীলার দিকে এক নজর তাঁকিয়েই অবাক না হয়ে পারলো না।
খানিকটা মোটিয়ে গেছে শীলা। লম্বায় খুব একটা বাড়েনি, তবে বেটে বলা যাবে না। মোটিয়ে যাবার কারনেই শুধু খানিকটা বেটে লাগে। বক্ষ দুটিও তেমনি সুউন্নত হয়ে উঠে, নজরই কাঁড়ে। ঘরোয়া পোষাকে আরো বেশী চোখে পরে শীলার দেহের ভাঁজগুলো।
সাধারন ঘিয়ে রং এর পাতলা কামিজ পরনে। কামিজের তলায় কালো ব্রা এর ছাপ স্পষ্টই চোখে পরে। আর সেই কালো ব্রা এর নীচেই বক্ষ দুটি যেনো বেপরোয়া হয়েই বেড়ে উঠেছে।
গোলগাল চেহারা শীলার! ঠোট গুলো সরুও নয়, মোটাও নয়, মাঝামাঝি, তবে চৌকু। নাকটা যেমনি সরু, চোখ দুটিও টানাটানা। যুগের সাথে মিলিয়ে, বিউটি পার্লারে মেক আপ করা ঢেউ খেলানো চুলগুলো তাকে আরো সুন্দরীই করে তুলেছে।

শীলা সোফার পাশে ছোট্ট টিপয়টার উপরই ট্রেটা নামিয়ে রেখে ওপাশের টুলটার উপর গিয়েই বসলো, পা দুটি খানিকটা ছড়িয়ে। সিকদার অনি শীলার দিকে না তাঁকানোর ভান করেই, বিজ্ঞের মতোই মাথা দুলিয়ে বললো, ডিয়ার শীলা মামণি! তোমাদের স্বল্প আয়ের সংসার! অথচ, অমন একটা দামী পেইন্ট ঐ দেয়ালে ঝুলছে! এসব তো কোন আর্ট মিউজিয়ামে থাকার কথা! এতো দামী জিনিষ তোমাদের বাসায় এলো কি করে? তোমার বাবা, মানে আমার গুনধর দুলাভাই আবার চুরি টুরি করা শুরু করে নি তো?
শীলা চোখ কপালে তুলেই বললো, কি বলছো মামা?
শীলার কথা শেষ হবার আগেই সিকদার অনি বলতে থাকলো, ঐ টা যে একটা খুবই নামকড়া আর্টিষ্ট এর অরিজিনাল আর্ট, তা আমি চোখ বন্ধ রেখেও বলতে পারি। এসব এর দাম, তোমারও জানা থাকার কথা না! কিন্তু আমি ভাবছি অন্য কথা! এই বাড়ীতে এসব দামী জিনিষ কারো চোখে পরলে, যে কোন সময় পুনরায় চোর ডাকাতের হামলা থাকতে পারে।
সিকদার অনি একটু থেমেই বললো, তোমার বাবা তো আর আমাকে মুখটাও দেখাবে না! আমার পক্ষ থেকে তুমিই বলে দিও।

শীলা তার মামার কথায় না হেসে পারলো না। সে টুলটার উপর থেকে দাঁড়িয়ে, সামনে রাখা চেয়ারটার উপর ডান পা টা তুলে, ক্ষমতাপূর্ণ একটা ভাব দেখিয়ে, মজা করার জন্যেই বললো, আচ্ছা মামা, তোমার যদি আর্ট এর ব্যাপারে এতই জ্ঞান শক্তি থাকে, তাহলে বলো তো, এটা কার আর্ট?
সিকদার অনি রাগ করার ভান করেই বললো, কি ভাবো আমাকে, তুমি? তুমি কি ভেবেছো, নামকরা আর্টিষ্টদের আমি চিনিনা?
শীলা, গালে আঙুলী ঠেকিয়েই বললো, না, তা বলছিনা! তবে, এতই যখন জানো, তাহলে বলেই ফেলো না, কার আর্ট?
সিকদার অনি বললো, রিয়্যাল টাইমে বলবো, নাকি ব্যাক টু দ্যা ফিউচারে বলবো?
শীলা চোখ গোল গোল করেই বললো, ওটা আবার কি?
সিকদার অনি বললো, হ্যা, হ্যা, কিছু ব্যাপার বর্তমানে বুঝাও যায়না, জানাও যায়না! ভবিষ্যতে ঘটে। সেগুলো ভবিষ্যতে ফিরে গিয়েই জেনে আসতে হয়! আমি সেসব জানার চেষ্টা করি বলেই বলছি!
শীলা বললো, যথেষ্ট হয়েছে! আর ভণিতা নয়, নামটা তাড়াতাড়ি বলে ফেলো! আমার খুবই জানতে ইচ্ছে করছে!
সিকদার অনি আমতা আমতা করেই বলতে থাকলো, যতদূর জানি এটা একজন বিখ্যাত মহিলা আর্টিষ্ট এর আঁকা। তবে, এখনো বিখ্যাত হয়নি, ভবিষ্যতে হবে!
একটা অপদার্থ মামার সাথে কথা বলতে গিয়ে, শীলার চেহারাটা হঠাৎ অন্য রকমই হয়ে গেলো। সে অবাক হয়েই বললো, বিখ্যাত? এখনো হয়নি? ভবিষ্যতে হবে? কে সে?
সিকদার অনি খুব গর্ব করেই বুক ফুলিয়ে বলতো থাকলো, সে হলো আমার একমাত্র ভাগ্নী, নাদিয়া ইয়াসমীন, ওরফে শীলা!
সিকদার অনির কথায় হঠাৎই বোকা বনে গেলো শীলা। সে সরাসরিই বললো, মামা, তুমি তো আমাকে ঘাবড়েই দিয়েছিলে? কিন্তু বুঝলে কি করে, ওটা আমার আঁকা?
সিকদার অনি ছোট গলাতেই বললো, বুঝলাম কি করে, শুনবে?
শীলা খুব আগ্রহ করেই বললো, হুম, শুনবো!
সিকদার অনি বললো, ঠিক আছে, কানে কানে বলি!
সিকদার অনির সাথে সুর মিলিয়ে, শীলাও ফিশ ফিশ করে বললো, কানে কানে কেনো? ডাকাত টাকাত উৎ পেতে আছে নাকি?
সিকদার অনি হতাশ গলাতেই বললো, কারন আছে মামণি, কারন আছে! জোড়ে বললে, তুমি মনে বড় কষ্ট পাবে!
শীলার মনে, তার এই রহস্যময় মামাটির প্রতি আর কোন আগ্রহই রইলো না। পারলে, সেও যেনো তাড়াতাড়ি এখান থেকে কেটে পরতে পারে, তেমনি ভাব করতে থাকলো। সোফায় সোজা হয়ে বসে, নীরস গলাতেই বললো, ঠিক আছে কান পেতে দিলাম! তুমিই আমার কানের কাছে এসে বলো!
সিকদার অনি ফিস ফিস করেই বললো, তোমার কি ধারনা হয়েছিলো, সত্যিই আমি আর্ট বুঝি? আর্টটার নীচ দিকে, তোমার সাইনটা স্পষ্ট চোখে পরছে তো!

শীলা তখন ভ্যাংচিই কাটলো। বললো, মামা, তুমি আসলেই মানুষকে মাথায় তুলতে পারো! আবার ধপাস করে মাটিতেও ফেলে দিতে পারো।
(সিকদার অনির বাস্তব চরিত্র, যদিও ঘৃণিত! পছন্দ হলে বুকে টেনে নিয়ে, মাথায় তুলে রাখে। একবার ঘৃণার উপদ্রব হলে মাটিতে ফেলে আছার মারতে থাকে, যতক্ষণ পর্য্যন্ত না ধ্বংস না হয়। যার জন্যে ব্যক্তি জীবনেও সিকদার অনি খুব একটা লাভবান নয়, বন্ধু বিহীন)
সিকদার অনি বললো, যাই বলো মামণি, তুমি নির্ঘাত বিখ্যাত হবে!
সিকদার অনি খানিকটা থেমে, আবারও বললো, তোমরা তো কেউ কখনো, আমাকে দামও দিলে না! আমার কথাকেও কখনো পাত্তা দাওনা। আমি বলি কি, এইচ, এস, সি, পাশটা করে, ডানে বামে না তাঁকিয়ে, সোজা আর্ট কলেজে ভর্তি হয়ে যাও। অথবা ইউনিভার্সিটির ফাইন আর্টস জাতীয় কোন বিভাগে!
শীলা হাসলো। বললো, মামা, তুমি হলে এক বিড়ল প্রজাতির মানুষ! তোমার চিন্তা ভাবনার অনুরূপ অন্য কোন মানুষ, অন্ততঃ এই পৃথিবীতে, দুটি নেই। তোমাকে পাত্তা দিইনা, কথাটা ঠিক নয়। আসলে, তুমি নিজেকেই নিজে কোন দাম দাও না। তারপরও তোমার কথাটা আমি একদম ফেলে দেবো না। ভেবে দেখবো। এবার চা টা খেয়ে নাও তো! কখন বানিয়েছি! জুরিয়েই গেলো নাকি!

শীলা তার পাগলা অপদার্থ মামার কথামতোই ফাইন আর্টস এ অনার্সে ভর্তি হয়েছিলো। অনার্স, এম, এ, শেষ করে যখন চাকুরীর চেষ্টাতে গেলো, খুব একটা ভালো সুবিধা করতে পারলো না সে। তার পেছনে কি কারন থাকতে পারে, শীলা নিজেও তা বুঝতে পারলো না। তার মনে হলো, সে যেসব জায়গায় ইন্টারভ্যু দিচ্ছে, তারা আসলে কেউই তার শিল্পকে বুঝতে পারছে না। তা ছাড়া যুগ বদলে গেছে। সবকিছুই কম্পিউটারাইজড হয়ে গেছে। কম্পিউটার গ্রাফিকস দিয়ে যেখানে চমৎকার নিখুৎ আর্ট করা যায়, সেখানে নিজ হাতে আঁকা হ্যাণ্ড আর্টিষ্ট এর আর দাম কোথায়? শীলা ভাবলো অন্য কথা! সে তার নিজ চিন্তা ভাবনা দিয়ে, নিজের ভেতরের লুকিয়ে থাকা সুপ্ত প্রতীভাগুলোকে রূপান্তরিত করতে চাইলো অন্যদিকে। সে কাপরের দোকান থেকে, নানান রকমের কাপর কিনে, বাড়ীতে বসে, সেগুলো মনের মতো করে ডিজাইন কেটে, ফ্যাশন তৈরী করে, নমুনা নিয়ে যেতে শুরু করলো, ফ্যাশন শপ গুলোতে। তাতেও কোন লাভ হলো না। অত্যাধুনিক গার্মেন্টস গুলোতে এমন ডিজাইন আজকাল মেশিনেও করতে পারে। লেখাপড়াটা শেষ করেও, শীলা তার যথাযোগ্য কোন কর্ম সংস্থানে সফল হতে পারলো না।

অনেকটা বাড়ীতে শুয়ে বসেই দিন কাটতে থাকলো শীলার। শীলার জীবন শুয়ে বসে কাটলেও, শীলার মা বাবা তো আর শুয়ে বসে থেকে শান্তি পাবার কথা নয়। মেয়ে বড় হয়েছে, লেখাপড়াও শেষ করেছে। বিয়ে শাদী তো একটা দিতেই হবে। পরিচিতজনদেরই জানিয়ে রেখেছিলো, ভালো একটা পাত্রের সন্ধান জানাতে।
তেমনি সময় অতিবাহিত করার ক্ষণেই ভালো একটা বিয়ের প্রস্তাবই এসেছিলো। পাত্র বিদেশে থাকে, পি, এইচ, ডি, করে। এমন পাত্র আর কতটাই হাতে থাকে! পাত্র বিদেশে থাকে বলেই, পাত্রীর ছবি দেখেই পছন্দ করে ফেললো। এমন কি মাত্র কয়েকদিন এর ছুটি নিয়ে, দেশে এসে সরাসরি বিয়ে করে, বউ সংগে করে নিয়ে যাবে, তেমনি সিদ্বান্তই হয়ে গেলো।
ঘরে বসে আইবুড়ু হয়ে যাওয়া মেয়েটির জন্যে, তড়িঘড়ি করেই বিয়ের আয়োজনটা করেছিলো তার মা বাবা। শীলা অনেক অনুযোগও করেছিলো, আর কটা দিন! কয়েকটা শখেরই তো কাজ শুধু বাকী! অথচ, তার মা বাবা কিছুতেই যেনো কিছু বুঝতে চাইলো না। বিয়ের দিন তারিখ ক্ষণ পর্য্যন্তও ঠিক ঠাক করে ফেললো।
শীলা মোটেও ঘামলো না। সে বিয়ের দিন সকাল হবার আগেই ঘর পালালো। মেয়েরা ঘর পালিয়ে কতদূর যায় কে জানে? শীলা বেশী দূর পালাতে পারলো না। সে পালিয়ে, চিটাগং থেকে ঢাকায় তার মামার বাসায় এসে উঠলো।
তার মামাটি ব্যাচেলর বলে, সে কিংবা তার পরিবার এর কেউ কখনো এই ঢাকাতে এসে দেখতে আসেনি। শীলাকে হঠাৎ নিজ ঘরের দরজার সামনে দেখে সিকদার অনি যেমনি অবাক হলো, ঘরের ভেতর ঢুকে, শীলাও গুছানো একটা ঘর দেখে খুবই অবাক হলো।

নিজ বাসার দরজার সামনে, হঠাৎ শীলাকে দেখে অবাকই হলো সিকদার অনি। সে বললো, বলা নেই কওয়া নেই, হঠাৎ হুট করে চলে এলে! ব্যাপার কি বলো তো?
শীলা মিষ্টি করে হাসলো। বললো, কেনো আবার? মাঝে মাঝে মানুষকে চমক লাগাতে হয় না? তোমাকে একটা চমক দিতে ইচ্ছে করলো, তাই!
সিকদার অনি গম্ভীর গলাতেই বললো, না, না, তোমার চেহারা দেখে মনে হচ্ছে, একটা সমস্যা হয়েছে। কি ব্যাপার, খুলে বলো তো?
শীলা খানিকটা রাগ করেই বললো, ধ্যাৎ মামা! আগে আমাকে ভালো করে ঘরে ঢুকতে দেবে তো! ঘরে ঢুকতে না ঢুকতেই এত প্রশ্ন কেউ করে নাকি?
সিকদার অনি শান্ত গলাতেই বললো, আমি ব্যাচেলর মানুষ! ঘর বলতে তো শুধু এটাই! ওপাশে ছোট্ট কিচেন স্পেস! তবে, রান্না বান্না কখনো হয় না!
শীলা চোখ কপালে তুলেই বললো, বলো কি মামা! বাথরুম নেই? গরমে সিদ্ধ হয়ে গেলাম। ভেবেছিলাম, তোমার এখানে এসে গোসলটাই আগে সারবো!
সিকদার অনি মুচকি হেসেই বললো, মামণি, তোমার মামা কি এতই ফকির হয়ে গেছে নাকি যে, পাবলিক বাথ এ গোসল করবে? বাথরুমও আছে! ওই দিকে। যাও, গোসলটা শেষ করে, ঠাণ্ডা মাথাতেই সব খুলে বলো।

শীলা তার হাতের ছোট হ্যাণ্ডব্যাগটা মেঝের উপরই ধপাস করে ফেলে, বাথরুমটার দিকেই ছুটলো। বাথরুমে ঢুকে মিনিট পাঁচেকও হবে না, সে বাথরুম থেকেই চিৎকার করতে থাকলো, মামা, মামা, সাবান কই?
সাবান তো সাবান কেইসেই থাকার কথা। তবে, খানিকটা উপরেই দেয়ালের সাথে আঁটাকানো কেইসটাতেই রাখা আছে। শীলা খানিকটা খাটো বলেই বুঝি চোখে পরছিলো না। সিকদার অনি ঘরের ভেতর থেকেই উঁচু গলাতে বললো, দেয়ালেই আটকানো আছে। একটু উপরে তাঁকিয়ে দেখো!
কয়েক মুহুর্ত পরই, শীলার চেঁচানো গলাই ফিরে এলো, কই, দেখছিনা তো?
অগত্যা, সিকদার অনি বাথরুমের দিকেই এগিয়ে গেলো। খোলা দরজাটা খানিকটা ফাঁক করতেই চোখে পরলো, শীলা পুরুপুরিই নগ্ন! শুধু তাই নয়, তার দিকেই ফিরে ছিলো। হঠাৎ শীলাকে নগ্ন দেখে, খানিকটা লজ্জাই অনুভব করলো সিকদার অনি। সে দরজাটা খনিকটা ভেজিয়ে দিয়েই আঙুলী ইশারা করে বললো, ওইতো, দেয়ালে!
শীলা দেয়ালের দিকে তাঁকালো কি তাঁকালো না বুঝা গেলো না। সে আদুরে গলাতেই বললো, কই?
সিকদার অনি পুনরায় দরজাটা খুলে, সাবানের কেইস থেকে সাবানটা তুলে নিয়ে, শীলার হাতেই দিলো।
সিকদার অনিও মানুষ। অনেকে তাকে বিকৃত রূচির মানুষও বলে। চোখের সামনে, এমনি কোন নগ্ন দেহ থাকলে, নজরে তো পরবেই। হউকনা তার প্রাণ প্রিয় কেয়া আপারই মেয়ে। সিকদার অনি আঁড় চোখেই শীলার নগ্ন দেহটা এক নজর বুলিয়ে নিলো।

সিকদার অনি মাঝে মাঝে নিজেকেও বুঝতে পারে না। সব কিছুরই কিছু সীমা থাকে। মানুষ সেই সীমাতে থেকেই জীবনটাকে পরিচালনা করে। সিকদার অনির মনটা যেনো বরাবরই সেসব সীমা লংঘন করে অনেক দূর অতিক্রম ফেলে। তখনই সে শুধু প্রস্থাতে থাকে।
একই বাড়ীতে বসবাস করলে, দুর্ঘটনাক্রমে নিজ রক্ত সম্পর্কীয় কারো নগ্নতা চোখে পরারই কথা। সাধারন মানুষ গুলো তখন তা এড়িয়েই যায়। যৌনতার চেতনা আসার কথাই আসে না। অথচ, সিকদার অনির চোখে যেমনি কিছু সমস্যা আছে, তার দেহের রক্তের ধারায়ও কিছু সমস্যা আছে। তার চোখে নগ্নতা পরা মানে, এড়িয়ে যাবার মতো কিছু নয়। আর নগ্নতা একবার তার চোখে পরলে, তা তার দেহের শিরা উপশিরা গুলোকে জ্বালিয়ে পুড়ে ছাড়খাড় করে থাকে। বাথরুমের দরজাটা নিজেই বন্ধ করে, ঘরে ফিরে এলো সিকদার অনি। ছোট ঘরটার ছোট টেবিলটার উপর রাখা, পুরনো কম্পিউটারটা অন করে, ই মেইল বক্সটা খুলে ব্যাস্ত থেকে, কিছুক্ষণ আগে দেখা শীলার নগ্ন দেহটার কথাই ভুলতে চেষ্টা করলো। অথচ, তুষের আগুনের মতোই ঘেষে ঘেষে চোখের সামনে শীলার নগ্ন দেহটা ভেসে আসতে থাকলো।
খানিকটা মোটাই শীলা। উচ্চতায়ও একটু খাট। সেই কারনেই কিনা কে জানে? শীলার বক্ষ দুটি অনেকটা ছোট খাট দুটি কচি ডাবের মতোই! গায়ের রং মিষ্টি বলে, আরো বেশী চমৎকার, ফর্সা, তার বক্ষ যুগল। এক নজর যা চোখে পরেছিলো, বক্ষ বৃন্ত যুগলও বেশ প্রশস্থ, গাঢ়! অথচ, বোটা দুটি অধিকতর ছোট! ছোট আকারের মসুর ডালের মতোই।
সিকদার অনি, মেইল বক্স থেকে নুতন একটা মেইলে ক্লিক করে সেখানেই মনোযোগ দিতে চাইলো। মেইলে চোখ বুলিয়ে যেতে থাকলো ঠিকই, তবে মাথার ভেতর মেইলে লিখা কোন কিছুই ভেসে আসছিলো না। তার বদলে চোখের পর্দায় ভেসে আসতে থাকলো, শীলার নিম্নাংগের ঘন কালো কেশ গুলোই।
এক নজরের বেশী দেখা হয়নি সেই কেশ গুলো। কেনো যেনো শীলা দেহটা বাঁকিয়ে, ভারী বক্ষ দুটি ঝুলিয়ে, নিম্নাংগটাই লুকানোর চেষ্টা করছিলো! এক নজর যা চোখে পরেছিলো, শীলার নিম্নাংগের কেশ গুলো খাড়া, সমতল! যা দেখে কালো জলেরই এক ঝর্ণধারার মতোই মনে হয়েছিলো।
সিকদার অনি আরো একটা মেইল ক্লিক করে সব কিছু ভুলারই চেষ্টা করলো। অথচ, ট্রাউজার এর নীচে, তার লিংগটা কেমন যেনো বেসামালই হয়ে পরতে থাকলো।
সিকদার অনি আসলেই এক রূচি বিকৃত মানব! কেয়া তার আপন বোন না হলেও, সামাজিক ভাবে নিজ বোন বলেই পরিচিত এবং স্বীকৃত! অতীতে, কেয়া আপার সাথে সিকদার অনির কি সম্পর্ক ছিলো আর ছিলো না, তা কারো জানার কথা নয়। বর্তমানে, মাতৃ পিতৃহীন সিকদার অনির অভিভাবক হিসাবে, কেয়াও বড় বোনের দাবী নিয়েই লোক সমক্ষে মাথা উঁচু করে দাঁড়ায়। আর সেই কেয়ারই গর্ভজাত কন্যা শীলা! আপন ভাগ্নীর চাইতেও কোন অংশে কম নয়! অথচ, সিকদার অনির দেহে কেমন যেনো যৌনতার আগুনই ধাউ ধাউ করে জ্বলে উঠতে থাকলো, শীলার নগ্ন দেহটা দেখার পর থেকেই।

সিকদার অনি তখনো তার কম্পিউটারে চোখ রেখে, আত্ম মনেই বিভোর ছিলো। তার মাথার ভেতরটা শুধু ভোঁ ভোঁ করছিলো। পেছনে বাথরুম থেকে ফিরে আসা শীলার পায়ের শব্দ সহ, নিঃশ্বাসের শব্দও কানে আসছিলো। অথচ, সিকদার অনি পুনরায় কম্পিউটার এর মনিটরে, ই-মেইলগুলোতেই মনোযোগ দিলো।
শীলা পুরু পুরি নগ্ন দেহেই বাথরুম থেকে বেড় হয়ে এসেছিলো। অতঃপর, তার হ্যাণ্ডব্যাগটা খুলে পরনের একটা পোষাকই খোঁজতে থাকলো। সবুজ রং এর বোতামের লং শার্টটাই বেছে নিলো সে। সেটা গায়ে জড়িয়ে, বোতামগুলো লাগাতে লাগাতেই বললো, মামা, খাবারের আয়োজন আছে তো! ক্ষুধায় তো পেট চোঁ চোঁ করছে!
শীলার গলা শুনেই ঘুরে তাঁকিয়েছিলো সিকদার অনি। শীলার পরনের সবুজ জামাটার উপরের বোতামগুলো তখনো লাগানো হয়নি। ডান স্তনটা জামার আড়ালে থাকলেও, বাম স্তনটা তখনো পুরুপুরিই বেড়িয়ে আছে। সুডৌল একটা স্তন! সিকদার অনির নিজের অজান্তেই তার নিম্নাংগে প্রচণ্ড এক চাপ অনুভব করলো। সে চোখ নামিয়ে, কম্পিউটার এর দিকে মুখ করে গম্ভীর গলাতেই বললো, তুমি পোষাকটা পরে রেডী হয়ে নাও। তারপর, বাইরে একটা ভালো রেষ্টুরেন্টে খেতে যাবো।
শীলা আহলাদী গলাতেই বললো, বাইরে খেতে যাবো কেনো? তোমার বাসায় কি খাবারের আয়োজন নেই?
সিকদার অনি বললো, থাকবেনা কেনো? ব্যাচেলর মানুষ! মাঝে মাঝে একটা ডিম পোঁজ দিয়েই সেরে ফেলি। তুমি ওসব খেতে পারবে না।
শীলা বললো, তাহলে ঘরে বুঝি ডিম ছাড়া অন্য কিছুই নেই! তাইতো?
শীলার নগ্ন দেহটা দেখার পর থেকে, সিকদার অনির মাথাটা এমনিতেই খুব গরমই হয়েছিলো। সে খুব রাগ করেই বললো, তুমি তো বেশী প্যাচাল পারো! মুরগী, গরু, খাসীর মাংস, মাছ, সব্জী, সবই আছে ফ্রীজে! ইচ্ছে হলে, নিজে রান্না করে খাও!
শীলা কোমল গলাতেই বললো, তুমি এমন ধমকে ধমকে কথা বলছো কেনো?
সিকদার অনিও খানিকটা নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করে বললো, না মানে, আমার রান্না তোমার ভালো লাগবে না। আমি তো পেঁয়াজ আর মরিচ মিশিয়ে, লবন দিয়ে সব সিদ্ধ করে ফেলি।
শীলা আবারও বললো, তুমি কম্পিউটারের দিকে তাঁকিয়ে তাঁকিয়ে কথা বলছো কেনো? হঠাৎ এসে পরে কি তোমার বারডেন হয়ে গেলাম নাকি? আমাকে কি তোমার অসহ্য লাগছে? টাকা পয়সা কিছু সংগে করে এনেছি। যে কয়টা দিন থাকবো, খরচ দিয়ে দেবো। একটু থাকার জায়গাই তো চাইছি!
সিকদার অনি কি করেই বা বলবে, বাথরুমে দেখা শীলার নগ্ন দেহটাই তার মাথা খারাপ করিয়ে দিয়েছে। তাই সে তার সামনে সহজ হতে পারছেনা। সিকদার অনি নিজেকে খানিকটা সহজ করেই, শীলার দিকে তাঁকালো। শীলা ততক্ষনে, তার পরনের জামার সব গুলো বোতাম লাগিয়েই ফেলেছিলো। তবে, জামাটা কিছুটা পাতলা বলেই বোধ হয়, গায়ের সাথে সেঁটে থাকা জামাটার ভেতর থেকে, বৃহৎ বক্ষ যুগল যেমনি স্পষ্ট হয়ে আছে, তেমনি জামাটার সবুজ জমিনের উপর বক্ষ বৃন্তগুলোও স্পষ্ট ফুটে রয়েছে।

সিকদার অনি মহা লোচ্চা ধরনেরই মানুষ। জীবনে কত মেয়ে যে উপভোগ করেছে, সে নিজেও তা হাতে গুনে শেষ করতে পারবে না। তারপরও, শীলার দিকে তাঁকিয়ে নিজেকে খুব একটা সহজ করে নিতে পারলো না।
তার পেছনে কিছু কারন আছে। সামাজিক ভাবে, শীলার মা কেয়া, সিকদার অনির বড় বোন হিসেবে পরিচিতি পেলেও, কেয়ার সাথে সিকদার অনির রক্তের কোন সম্পর্ক নেই। খুব ছোট কাল থেকেই কেয়া তাদের বাড়ীর সাধারন এক কাজের মেয়েই ছিলো। শৈশবে মায়ের মৃত্যুর পর, বয়সে মাত্র তিন বছরের বড়, সেই কাজের মেয়েটিই তাকে বড় বোনের স্নেহ ছায়া দিয়ে বড় করে তুলেছিলো। তারই মেয়ে হলো শীলা।
এমন, বাড়ীর কোন কাজের মেয়েরই কন্যা হিসেবে, শীলার দিকে যে কারোরই যে কোন নজরেই তাঁকানো সম্ভব থাকার কথা। অথচ, সিকদার অনি শুধুমাত্র শীলার দিকেই কুৎসিত কোন নজরে তাঁকাতে পারে না। কারন, আর কেউ না জানলেও, সিকদার অনি জানে, সেবার কেয়া যখন তাদের বাড়ী থেকে বিদায় নিয়েছিলো, তখন কেয়া গর্ভবতীই ছিলো। আর কেয়ার বিদায় নেবার একমাত্র কারনই ছিলো, সিকদার অনির সাথে তার গোপন সম্পর্ক! রাতারাতি, শীলার বাবার সাথে কেয়ার বিয়েটা সম্পন্ন হলেও, শীলা কিন্তু কেয়ার বর্তমান স্বামীর ঔরশজাত কোন কন্যা নয়।
সিকদার অনি শীলার দিকে এক পলক তাঁকিয়ে, রাগ করার ভান করেই বললো, রাগ করছি এই কারনে যে, বলা নেই কওয়া নেই, অমন হুট করে কি কেউ চলে আসে?
শীলাও সিকদার অনির মতোই সরল প্রকৃতির। সেও কোন কথা প্যাঁচাতে পারে না। সে সামনা সামনি চেয়ারটাতেই বসে বললো, মামা, আমি ঘর পালিয়েছি!
শীলার অমন একটা কথা শুনেই সিকদার অনি অবাক হয়ে তার দিকে তাঁকিয়েছিলো। তাঁকাতেই চোখে পরলো, বসে থাকা শীলার পরনে কোন প্যান্টি নেই। সবুজ জামাটার দু অস্তিনের ফাঁক থেকে এক গুচ্ছ কালো কেশই শুধু প্রকাশিত হয়ে আছে। সিকদার অনির মাথাটা আবারো ভন ভন করে উঠলো। তারপরও নিজেকে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করেই বললো, ঘর পালিয়েছো? কেনো?
শীলা বললো, আজকে কে নাকি আমাকে দেখতে আসার কথা!
সিকদার অনি খানিকটা রসিকতা করেই বললো, তোমার মতো এমন একটা সুন্দরী রূপসী মেয়েকে তো, অনেক সুপুরুষেরই একটিবার দেখার লোভ থাকার কথা! তো, চেহারাটা একটু দেখিয়েই দিতে! দোষটা হতো কি?
শীলা খানিকটা পরিষ্কার করেই বললো, মামা, তুমি বুঝতে পারছো না! দেখা মানে, বিয়ে! বিয়ে করার জন্যেই দেখতে আসার কথা!
সিকদার অনি গম্ভীর হয়েই বললো, তাতো বুঝলাম! দেখতে আসতো! দেখে চলে যেতো! তোমার পছন্দ না হলে, সরাসরি নো বলে দিতে!
শীলা চুপ করেই রইলো।
সিকদার অনি বললো, বুঝেছি, তুমি ঠিক আমার মতো! বিয়ে করতে খুব ভয় পাচ্ছো!

সিকদার অনির কথায় শীলার মেজাজটাই খারাপ হয়ে গেলো কিনা কে জানে? সে চেয়ারটা থেকে উঠে দাঁড়িয়ে, কাঠের চেয়ারটা ঘুড়িয়ে, চেয়ারের দু পাশে দু পা রেখে, উল্টু হয়েই বসলো চেয়ারটাতে। তারপর বুকটা চেয়ারের পিঠে ঠেকিয়ে, রাগ করার ভান করে বললো, মামা, সবাইকে নিজের মতো করে ভাববেনা। তুমি একটা অপদার্থ! তাই বিয়ে করোনি। আর আমি হলাম একটা পদার্থ! তাই বিয়ে করতে চাইছিনা।
কাঠের চেয়ারটার পিঠে চেপে থাকা শীলার বুক থেকে সবুজ জামাটার একাংশ সরেই গিয়েছিলো। সারি করা টুকরো কাঠ গুলোর ফাঁকে, বক্ষের বৃন্ত যুগলের একাংশও বেড়িয়ে পরছিলো। সিকদার অনি আর সেদিকে ভ্রুক্ষেপ করতে চাইলো না। সে হাসি খুশী গলাতেই বললো, বুঝলাম! তাহলে, আমার এই বুদ্ধিমতী পদার্থ ভাগ্নীটি যে, মা বাবাকে একটা দুঃশ্চিন্তার মাঝে ফেলে রেখে চলে এলো, তার কি হবে? পুলিশ, পত্রিকা করে যদি একটা বিশ্রী কাণ্ড ঘটায়, তখন তোমাকে আর কেউ পদার্থ বলবে না। এমন কি আমিও না। সবাই একটা অপদার্থ মেয়েই বলবে!
শীলা মন খারাপ করেই বললো, তাহলে আর তোমার কাছে এলাম কেনো? আমার বোকামী হয়ে গেছে! স্যরি! কিন্তু, আমি এখন বিয়ে করবো না। একটা কিছু বুদ্ধি বেড় করে, মা বাবাকে ম্যানেজ করো। আমার খুব ক্ষুধা লেগেছে। দেখি তোমার রান্না ঘরে কি আছে?
এই বলে শীলা রান্না ঘরের দিকেই এগিয়ে গেলো।
সেই ফাঁকে সিকদার অনি, শীলার মা বাবাকে একটা টেলিফোন করে, তাদের নিশ্চিত করলো আগে। তারপর, আবারো কম্পিউটার এর মনিটরে মনোযোগী হলো।
রান্নাঘরে শীলা খুব বেশী সময় নিলো না। ঘন্টা আধেক পরই ডাকতে থাকলো, মামা, খাবার রেডী!
সিকদার অনি কম্পিউটার এ চোখ রেখেই বললো, তুমি খেতে বসে যাও। আমি এক্ষুণি আসছি!
শীলার পেটটা ক্ষুধায় চোঁ চোঁই করছিলো। সিকদার অনির দেরী দেখেই, তার পিঠের কাছে ঘেষেই দাঁড়ালো। বললো, কি করছো মামা?
সিকদার অনি গম্ভীর গলাতেই বললো, তোমার জন্যে একটু খোঁজাখোঁজি করছি!
শীলা রাগ করার ভান করে বললো, মামা, তুমিও? তোমরা সবাই মিলে বুঝি আমাকে বিদায় করতে পারলেই বেঁচে যাও, তাই না?
সিকদার অনি বললো, আরে না! তোমার জন্যে কোন পাত্র খোঁজছি না। খোঁজছি, তোমার প্রতীভা বিকাশেরই একটি পথ! ঠিক আছে, আগে খাবার দাবারটা সেরে নিই কি বলো? আমি ইন্টারনেটের কয়েকটা সাইট বুক মার্ক করে রেখেছি। খাওয়া দাওয়া শেষ করে, দুজনে এক সংগেই দেখবো।
সিকদার অনি অনেকটা সহজই হয়ে এলো শীলার সামনে। খেতে খেতেই শীলার পরনের বোতামের পাতলা সবুজ জামাটার দিকে তাঁকিয়েই বললো, তোমার ফ্যাশন সেন্স খুব ভালো। কে কিনে দিলো এই দামী পোষাক? তোমার আম্মু?
শীলা ফিঁক ফিঁক করেই হাসলো। বললো, মামা! তোমার চোখে কোনটা দামী, কোনটা সস্তা, বুঝিনা! কাটপিসের দোকান থেকে খুব সস্তায় কেনা কাপর! আর বানিয়েছি আমি নিজেই!

সিকদার অনি খানিকটা চিন্তিতই হয়ে পরলো।
মানুষ বোধ হয় অনেক কিছুই এড়িয়ে যেতে পারে। একটা সময়ে, জন্মদান করা মা বাবাকেও এড়িয়ে যেতে পারে মানুষ! কলহ কিংবা এটা সেটা কারনে, প্রাণপ্রিয় প্রেমিকা কিংবা বউকেও এড়িয়ে যেতে দ্বিধা করে না। তবে, নিজ ঔরশজাত সন্তানকে এড়িয়ে যেতে অনেক কষ্টই হয় মানুষের!
শীলা যে সিকদার অনির সন্তান তার কোন সামাজিক স্বীকৃতি দূরের কথা, কেউ জানেও না। এমন কি শীলা নিজেও জানে না, যাকে সে বরাবরই মামা বলে ডাকে, সে আসলে তার স্বয়ং পিতা। দূর থেকে আগুনে জ্বলে পুড়ে ছাড় খাড় হয়ে থেকেই তাকে স্নেহ ভালোবাসাটুকু উপহার দিয়ে এসেছে বছরের পর বছর। এমন কি, এইচ, এস, সি, পরীক্ষার পর ইউনিভার্সিটি পড়ালেখার ব্যাপারে, বিষয়টিও তার নিজ জন্মদাতা পিতা সিকদার অনিই ইংগিত করেছিলো। অথচ, সিকদার অনি কি জানতো, চারুকলার মতো একটা বিষয়ে পড়ালেখা করে, শীলাকে অন্ধকার ভবিষ্যৎ নিয়েই দিন কাটাতে হবে?
খাবার দাবার শেষ হবার পরই সিকদার অনি বললো, তোমার পরনের জামাটা সত্যিই খুব আকর্ষনীয় এবং দুর্লভ! এমন ডিজাইনের পোষাক বাজারে খুব একটা থাকার কথা না। তুমি যদি এটা সত্যিই নিজে বানিয়ে থাকো, তাহলে এই মেধাটা কাজে লাগাচ্ছো না কেনো?
এই বলে সিকদার অনি আবারো কম্পিউটার এর সামনে গিয়ে বসলো।
শীলা আবারো কাঠের চেয়ারটাতে উল্টু হয়ে বসে, হাত দুটি কাঠের চেয়ারটার পিঠের উপর দিকটায় রেখে, হাত দুটির উপর থুতনী ঠেকিয়েই বললো, সব চেষ্টা শেষ! আমাকে নিয়ে ভেবোনা তো! আমি নিজেই আমার কথা ভাবছি!

সিকদার অনি ব্যাচেলর মানুষ। বিভিন্ন কারনে বিয়েথা করেনি। কখনো করবে বলেও মনে হয়না। তাই এক রুমের ছোট খাট বাসা নিয়েই বরাবর বসবাস করে থাকে। হঠাৎ করে শীলা, তার এই ছোট এক কক্ষের বাসাটাতেই চলে আসার পর, রাতে ঘুমোনোর ব্যাপারটা নিয়েও সে চিন্তিত হয়ে পরলো।
প্রকাশ্যে সামাজিক ভাবে, শীলা তার বড় বোনেরই মেয়ে হলেও, বাস্তবে তো নিজ ঔরশজাত মেয়েই! বাবা মেয়ে একই বিছানায় কোন রকমে মাথা গুঁজে রাত কাটানো বোধ হয় খুব একটা কঠিন ব্যাপার নয়। তবে, সমস্যা হলো শীলার আচরন।
পোষাক আশাকের ব্যাপারে শীলা খানিকটা অসচেতন বলেই মনে হলো। ছোট্ট একটা মেয়ে হলে হয়তো, বাবার অধিকার নিয়ে শাসন করার অনেক কিছুই থাকতো। ইউনিভার্সিটি পাশ করা, এত বড় একটা ধীঙ্গী মেয়েকে, পোষাকের ব্যাপারে শাসন করাও তো, খুব কঠিন! আবার কিনা রাগ করে, এখান থেকেও পালিয়ে অন্য কোথাও উধাও হয়ে যায়! তখন তো সিকদার অনি সব কুলই হারাবে।
রাত খুব একটা হয়নি। ক্লান্ত দেহের শীলার খানিকটা ঘুম ঘুম ভাবই হচ্ছিলো। তাই সে রাতের ঘুমানোর পোষাকই বদলানোর উদ্যোগ করছিলো।
শীলার সব পোষাকই বুঝি নিজ হাতে বানানো। রাতের ঘুমানোর পোষাকটাও বোধ হয় নিজ হাতেই তৈরী করা। সাদা ট্র্যাক জ্যাকেটের মতোই জীপার টানা একটা পোষাক উর্ধাংগে পরার জন্যে বেছে নিলো। শীলার বক্ষ যুগল সত্যিই বৃহৎ! এমন একটা আঁটসাট জ্যাকেটে, তার বক্ষ দুটি ঢাকার জন্যে, জীপারটা টেনেও উপরে উঠাতে পারছিলো না। সে তার বৃহৎ বক্ষ যুগল প্রদর্শন করে রেখেই, খানিকটা লজ্জিত ভাব নিয়েই বললো, মামা, রাতারাতি সিদ্ধান্ত নিয়ে ঘর পালিয়েছিলাম। চোখের সামনে যা ছিলো, তাই ব্যাগে ঢুকিয়েছিলাম। এটা তো দেখছি অনেক পুরোনো! গায়ে ছোট লাগছে!
সিকদার অনি সাদা জ্যকেট পরা, জীপারটা পেটের দিকে খানিকটা তুলে আনা, শীলার নগ্ন বক্ষের দিকে আঁড় চোখেই তাঁকালো। এমন ধীঙ্গী একটা মেয়ের, এমন আহলাদী কথায়, সে কি বলবে, কিছুই বুঝলো না। তারপরও বললো, যদি এটা গায়ে ছোট হয়, অন্যটা পরে দেখো!
শীলা বললো, আর কোন পোষাক আনিনি তো!
সিকদার অনি বললো, তাহলে, আমার তো অনেক শার্ট আছে। আলনা থেকে পছন্দ মতো একাট শার্ট বাছাই করে পরে নাও।
শীলা চোখ কপালে তুলেই বললো, তোমার কি মাথা খারাপ হয়েছে? আমি অন্যের পরনের পোষাক পরবো? বাজারে কেনা রেডীমেইড পোষাকই পরিনা!
খানিকটা থেমে শীলা আহলাদী গলাতেই বললো, বুকটা একটু খোলা থাকবে, তোমার কি কোন সমস্যা হবে?
মেয়েদের দেহের প্রধান আকর্ষনই তো বক্ষে! আর তা যদি এমন সুদৃশ্য সুডৌল হয়ে থাকে, চোখের সামনে তা যদি প্রদর্শিতই হয়ে থাকে, তখন পুরুষদের কি সমস্যা হয়, তা তো একমাত্র পুরুষদেরই অনুভব করার কথা। সিকদার অনির দেহের নিম্নভাগটাও তেমনি এক জ্বালাতনই অনুভব করছিলো। তারপরও, শীলাকে বলার মতো কোন উত্তর খোঁজে পেলো না সে। পরোক্ষভাবেই বললো, অসুবিধা হবে কেনো? এরকম বুক খোলা রেখে ঘুমুলে, ঠাণ্ডাও তো লেগে যেতে পারে।

যৌন আচরন, যৌন প্রবৃত্তিগুলো বোধ হয় বংশ পরস্পরাতেই হয়ে থাকে। কারো বাবা যদি লোচ্চা প্রকৃতির হয়ে থাকে, পুত্র কন্যাদের মাঝেও সেসব প্রবৃত্তির সঞ্চার হয়ে থাকে। কিংবা কারো মাও যদি কামুক প্রকৃতির হয়, তাহলে সন্তানেরাও সেসব গুনাবলী গুলো পেয়ে থাকে।
পোষাক আশাকে আসেচতনতা গুলোও পারিবারিক ভাবেই পেয়ে থাকে মেয়েরা। তাই, শীলার আচরনে আমি খুব একটা অবাক হলাম না। কারন, শীলা, কেয়া আপা কিংবা আমারই সন্তান! পোষাকের ব্যাপারে কেয়া আপাও যেমনি অসচেতন ছিলো, আমি তার নগ্নতা দেখে মুগ্ধই হতাম। আর তেমনি এক পরিবেশেরই ফসল হলো শীলা। শীলার মাঝে খানিকটা দেহ প্রদর্শনের স্বভাব থাকবে এটাই স্বাভাবিক। শীলা তার সুডৌল নগ্ন বক্ষ প্রদর্শন করে রেখেই বাম হাতটা গলার দিকে বুকটায় ঠেকিয়ে বললো, বাসায় তো ন্যাংটু হয়ে ঘুমিয়ে পরি। কই, কখনো ঠাণ্ডা লাগে না তো!
সিকদার অনি আর বলার মতো কোন ভাষা খোঁজে পেলো না। সে ফ্যাল ফ্যাল করেই শীলার নগ্ন বক্ষের দিকে তাঁকিয়ে রইলো। তার মনে হতে থাকলো, ঘরের ভেতর শীলা নগ্ন থাকবে, এটাই স্বাভাবিক! আর তাকে তা সহজভাবেই দেখতে হবে, কোন রকম দ্বিধা দ্বন্দ না রেখে, এটাও খুব স্বাভাবিক।
শীলার বক্ষ ঈষৎ ঝুলে গেছে। বয়সের ভারে নয়, বরং বক্ষ দুটির ভারেই। ঝুলে গেলেও, সুঠাম, পরিপূর্ন আর লোভনীয় ধরনেরই সুদৃশ্য। খয়েরী বৃন্ত প্রদেশ অধিকতর প্রশস্ত, তবে নিপলটা অধিকতর ছোট! দেখলেই বুঝা যায়, এই বোটাতে এখনো কারো ঠোটের স্পর্শ লাগেনি। বড় আকারের ছোলা যুক্ত, মসুর ডালের মতোই অনেকটা! সিকদার অনি বললো, এটা তো আর তোমার নিজ বাসা নয়, নিজের বিছানাও এখানে নাই। অন্যের বিছানাতেই, অন্যের পাশে ঘুমাতে হবে! তাই পোষাক যা আছে, তাই পরেই ঘুমাও।

শীলা কি তার মামা সিকদার অনিকে অভিভূত করতে চাইছে নাকি? তার নিম্নাংগে তখনো কোন পোষাক নেই। অথচ, ঘরের ভেতর আহলাদী একটা ভাব নিয়েই পায়চারী করতে থাকলো, বুক খোলা সাদা জ্যকেটটার ভেতর থেকে, বৃহৎ স্তন যুগল বেড় করে রেখে, দুলিয়ে দুলিয়েই হাঁটছে। থেকে থেকে, সিকদার অনির নজরটাও সেদিকে চলে যাচ্ছিলো। সেই সাথে তার ট্রাউজারের তলায় লিঙ্গটাও এক ধরনের চাপই অনুভব করতে থাকলো কেনো যেনো।
শীলা হঠাৎই থেমে দাঁড়িয়ে, মাথাটা একটু হেলিয়ে, বাম হাতটা কানের কাছে ঠেকিয়ে রেখে বললো, ঘুমটা আসতে চেয়েও আসছে না। হঠাৎ জার্নি করে, খুব বেশী টায়ার্ড বলে কিনা কে জানে?
সিকদার অনি সহজভাবেই শীলার দিকে তাঁকালো। শীলার নিম্নাংগের কেশ গুলোও খুব লোভনীয়। পাতলা, তবে দীর্ঘ হয়ে উঠা কালচে কেশগুলো কেমন যেনো চোখ ঝলসে দেবার মতোই মোহনীয়। খানিকটা মোটিয়ে যাবার কারনেই বোধ হয়, পাছাটা যেমনি ভারী, উরু দুটিও খুব ফোলা ফোলা। সিকদার অনি তা দেখেও নিজেকে সহজ করে নিয়ে বললো, জার্নি করলে এমন একটু মনেই হয়। শুয়ে পরলে, কিছুক্ষণের মাঝেই ঘুম এসে যায়। আর যদি ঘুম নাই আসতে চায়, তাহলে ফ্রীজে লিকুইড দুধ আছে, গরম করে এক গ্লাস খেয়ে নাও।
শীলা কি সিকদার অনির সাথে মজা করতে চাইছে নাকি? সে রসিকতার সুরেই বললো, আমার বুকে দুধ দেখেই কি দুধ খেতে বললে নাকি মামা? নাকি তোমারই আমার এই দুধু খেতে ইচ্ছে করছে!
অন্য কেউ হলে হয়তো, সিকদার অনিও মজা করার চেষ্টা করতো। কিন্তু, শীলার সাথে তো আর যৌনতামূলক রসিকতা করা তার চলে না। শত হলেও নিজ ঔরসজাত কন্যা। সে গম্ভীর হয়েই বললো, শীলা, সব ব্যাপার নিয়ে ফাজলামী করা ঠিক নয়!
শীলা বললো, ফাজলামী করলে কি হয়? আমাকে দেখে ক্রেইজী হয়ে যাচ্ছো না তো আবার?
সিকদার অনি বললো, আহা, তুমি একটু তোমার স্বাধীন মতোই ঘুমানোর চেষ্টা করো তো দেখি। আমি দেখি, তোমার জন্যে ভালো একটা চাকুরী খোঁজে পাওয়া যায় কি না।
শীলা বললো, ওটা আমি দীর্ঘ ছ মাস চেষ্টা করে দেখেছি। কোন লাভ হয়নি। কিন্তু ঘুমাবো কোথায়? তোমার ঘরও একটা, খাটও একটা!
সিকদার অনি বললো, কি আর করার! হুট করে চলে এলে! এখন আমি তোমার জন্য আলাদা ঘরই বা কোথায় পাবো, খাটই বা বলো কোথায় পাবো।
শীলা বললো, ধ্যাৎ মামা! তুমি সব কিছুই খুব সিরীয়াসলী ভাবো। এমনিতেই মজা করলাম। বিপদের সময় আশ্রয় স্থল গুলোতে মানুষ এক রুমের ভেতর কয়েক পরিবার মিলে কাটিয়ে দেয়!
এই বলে শীলা লাফিয়ে বিছানার উপর গিয়ে উঠলো।

সিকদার অনি একা মানুষ। রাতে অনেক দেরীতেই ঘুমায়। মাঝে মাঝে মনের আনন্দে চটি লিখে, সারা রাতও না ঘুমিয়ে কাটিয়ে দেয়! শীলা বিছানায় লম্বা হয়ে শুয়ে বললো, মামা, তুমি ঘুমাবে না!
সিকদার অনি কিছু বলার জন্যে, বিছানার দিকে তাঁকাতেই দেখলো, শীলা নিম্নাংগে কোন কিছু না পরেই, চিৎ হয়ে শুয়ে পরেছে। সিকদার অনি এবার ধমকেই বললো, কি ব্যাপার, ওরকম ন্যাংটু হয়েই ঘুমুবে নাকি?
শীলা আহলাদী গলাতেই বললো, বললাম না, বাসায় আমি ন্যাংটুই শুয়ে পরি।
সিকদার অনি বললো, এটা তোমার বাসা নয়। আমার বাসা। এখানে তোমার তো স্বাধীনতা থাকতে পারে না।
শীলা মন খারাপ করেই বললো, এতো রাগ করছো কেনো? ঠিক আছে, আমার ব্যাগের ভেতর কোন প্যান্টি আছে কিনা খোঁজে দেখো। থাকলে একটা দাও!
আহলাদী এই মেয়ের কথা শুনে, সিকদার অনির মেজাজটাই খারাপ হতে থাকলো। তারপরও এমন চমৎকার ফুটফুটে সুন্দরী একটা মেয়ের উপর রাগ করেও বেশীক্ষণ থাকা যায়না। সে কম্পিউটার এর সামনে থেকে উঠে গিয়ে, শীলার ব্যাগের ভেতর থেকে হাতরে হাতরে, আকাশী রং এর একটা প্যান্টি, আর সাদা নীল প্রিন্টের একটা স্কার্টও বেড় করে নিলো। তারপর, তিন চার বছর বয়সের শিশু কন্যাকে বলার মতোই শাসনের গলাতেই বললো, আপাততঃ এগুলো পরে ঘুমাও।
শীলা উঠে বসলো। ক্লান্ত একটা ভাব নিয়ে প্রথমে স্কার্টটা কোমরে টেনে নিলো অনেক সময় করে। তারপর, প্যান্টিটা দু পায়ের মাঝে গলিয়ে, হাঁটু পর্য্যন্তই টেনে আনলো। তারপর, খানিকটা বিশ্রামের ভাব করেই বললো, মামা, আজকে যদি সত্যি সত্যিই আমার বিয়ে হয়ে যেতো, তাহলে তো জানা নেই শুনা নেই একটা ছেলেই আমার নগ্ন দেহটা দেখতো। এবং আরো অনেক কিছুই করতে চাইতো। মানুষের মাঝে সম্পর্কের দেয়াল গুলো খুবই বিচিত্র! তাই না!
সিকদার অনি পুনরায় কম্পিউটার এর সামনে এসেই বসলো। তারপর বললো, কি বলতে চাইছো?
শীলা বললো, না মানে, একই আমি। কেউ আমার পোষাক পরা দেহটা নগ্ন করে দেখার লোভ পোষন করে! আবার কেউ কেউ আমার নগ্ন দেহটা দেখেও বিরক্ত হয়। ঢেকে রাখার জন্যেই পায়তারা করে!
সিকদার অনি বললো, এটাই স্বাভাবিক। সভ্য জগতে এসব এর প্রয়োজন আছে।
শীলা তার হাটু পর্য্যন্ত টেনে আনা প্যান্টিটা পুরুপুরিই পরে নিলো। তারপর শুয়ে পরে বললো, কি জানি? কোনটা সভ্য জগৎ, আর কোনটা বর্বর জগৎ, বুঝিনা।
এই বলে শীলা ঘুমিয়ে পরারই চেষ্টা করলো।
সিকদার অনি কম্পিউটার এর সামনে বসেই ভাবতে থাকলো। তার চেনা জানা সবাইকে নিয়েই অনেক গলপো কাহিনীই তো লিখেছে সে। শীলাকে নিয়ে একটা গলপো লিখলে কেমন হয়?

পরদিন অফিসেও কাজে মন বসলো না সিকদার অনির। এতটা দিন ব্যাচেলর বলে নাম ভাঙিয়ে, কোন রকম জবাবদিহি ছাড়াই, গায়ে ফু দিয়ে, হাওয়ায় ভাসিয়ে জীবন কাটিয়েছে সে। হঠাৎ শীলা এমন করে ঘর পালিয়ে চলে আসায়, দায় দায়ীত্বও যেনো কিছু ঘুরপাক খেতে থাকলো তার মাথার ভেতর। শুধু তাই নয়, নিজেকে খুব অপরাধীও মনে হতে থাকলো। শুধু শুধু অন্য একটা লোক, তার নিজ পাপের ফসলের বোঝা বয়ে এসেছে এতটা দিন। আর তার সেই কেয়া আপাকেও মনে হতে থাকলো, মহান এক ব্যাক্তিত্ব। শীলার জন্ম নিয়ে জীবনে যে কখনোই ঘুনাক্ষরেও কটু শব্দটি করে নি। অভিযোগও করেনি।
সাইদার সাথে সিকদার অনির সম্পর্কটা একটু বিদঘুটে বলাই চলে। বন্ধুর সম্পর্ক! বয়সের ব্যাবধানও অনেক। এমন বয়সের ব্যাবধানে, ছেলেতে মেয়েতে বন্ধুর সম্পর্ক আবার হয় কি করে?
এটা ঠিক, সাইদা সিকদার অনিকে প্রাণপনেই ভালোবাসে। একটা বয়সে মেয়েরাও বোধ হয় হুশ জ্ঞান হারিয়ে ফেলে! ব্যাচেলর কিংবা সুদর্শন ছেলে দেখলে, যে কোন ছেলেকেই ভালোবেসে ফেলে। সাইদার ব্যাপারটাও ঠিক তেমনি।
সিকদার অনির বয়স আটত্রিশ। নুতন এই ক্যারিয়ার জবটায় যোগদান করার পর থেকেই সাইদার সাথে পরিচয়। সাইদা, সদ্য ইউনিভার্সিটি পাশ করা, দীর্ঘাংগী স্বাস্থ্যবতী একটা মেয়ে। মুখটা ডিম্বাকার, ফর্সা। চোখ দুটি উজ্জল! ঠোটগুলো ঈষৎ ফোলা ফোলা। বক্ষ দুটি সুডৌলই বটে, তবে আধুনিক পোষাকে আরো বেশী সুডৌল করেই প্রকাশিত করে রাখে সব সময়।
সেদিন সাইদার পরনে সাধারন লাল রল এর হাত কাটা একটা কামিজ। কামিজের তলায়, তার বক্ষের আয়তন স্পস্টই অনুমান করা যায়। লাঞ্চের সময় সিকদার অনির মন খারাপ দেখেই বললো, চলো, ছাদে গিয়ে একটু গলপো করি।
সাইদার সাথে হাসি ঠাট্টার গলপো প্রায়ি করে সিকদার অনি। কিন্তু এমন একটা সময়ে, সিকদার অনির মাথার ভেতরটা শীলাকে নিয়েই অস্থির। খোশ গলপো করার মতো কোন ম্যুড নেই তার। তারপরও, সাইদার কথাতেই ছাদের দিকে এগিয়ে গেলো।
সাইদা ছাদের রেলিং এ ঠেস দিয়ে দাঁড়িয়ে, বুকটা উঁচু করে ধরেই বললো, তোমার কি হয়েছে বলো তো?
সিকদার অনি অন্যমনস্কতার ভাব নিয়েই বললো, কি হবে আবার?
সাইদা বললো, কিছু একটা হয়েছে, তা বুঝতে পারছি। বিয়ে টা ভেঙে গেলো বলে?
সিকদার অনি জোড় করেই ঠোটে হাসি টেনে বললো, ধ্যাৎ, কি যে বলো! বিয়ে ভেঙে যাওয়াতে আমি মন খারাপ করবো? তোমার জন্যেই তো বিয়ের পোকাটা মাথা থেকে সরিয়েছি!
সাইদা দেহটাকে নাড়িয়ে, তার সুডৌল বক্ষ যুগল নাড়িয়েই বললো, আহারে আমার, সোনার চাঁদা পিতলা ঘুঘু! আমার জন্যে উনি বিয়ের চিন্তা মাথা থেকে সরিয়েছেন। তা বলি, কখনো একবার গলপো করার জন্যেও তো ডাকলে না।
সিকদার অনি অপ্রস্তুত হয়েই বললো, আমার সাথে তোমার এতটা বয়সের ব্যাবধান! আসলে, কিছুতেই সহজ পারিনা তোমার সামনে!
সাইদা গম্ভীর হয়েই সিকদার অনির মাথার চুলগুলো গভীর ভাবে পর্য্যবেক্ষণ করে বললো, বুড়ু হয়ে গেছো নাকি? কই, মাথার চুল তো একটাও পাঁকে নি!

বিয়ের আসর বসার আগেই, ঘর পালিয়ে সিকদার অনির ছোট্ট বাসাটাতে এসে, নুতন উদ্যমেই জীবন শুরু করলো শীলা। শীলা শুধু আর্ট কিংবা ডিজাইন করাতেই দক্ষ নয়, ঘর গোছালীর কাজেও বেশ দক্ষ। সিকদার অনি অফিসে যাবার পর, নিজ পরিকল্পনাতেই, ছোট্ট ঘরটাকে নুতন করে সাজাতে থাকলো। তবে, শীলার শুধু একটাই দোষ! পোশাকের ব্যাপারে সত্যিই সে একটু অসচেতন।
নিজ ঘরে কেউ ন্যাংটু থাকলেই বা কি? কিন্তু আশে পাশের মানুষগুলোর নজর তো আর গাধার চোখ নয়। খোলা জানালায়, যে কারোরই দৈবাৎ চোখ পরার কথা।
নাহ, খুব একটা খারাপ পোষাক পরে শীলা ঘর গোছালীর কাজ গুলো করছিলো না। সকালে ঘুম থেকে উঠে, বুকের উপর ব্রাটাও যেমনি পরেছিলো, সিলভার কালারের নুতন একটা প্যান্টিও বদলে নিলো। বুক খোলা সাদা জ্যাকেটটা বদলে জলপাই রং এর নিজ হাতে বানানো ঢোলা পাঞ্জাবী শার্ট ধরনেরই পোষাকটা পরে নুতন উদ্যমে কাজ শুরু করেছিলো। নিম্নাংগে প্যান্টিটা ছাড়া অন্য কোন পোষাক না থাকলেও, শার্টের আড়ালে প্যান্টিটা ঢাকাই ছিলো। তবে, ফর্সা ফোলা পোলা উরু দুটিই বুঝি উদোম ছিলো।
মাঝে মাঝে মেয়েদের ফর্সা ফোলা উরুও বুঝি ছেলেদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। শোভনের নজরটা হঠাৎই এই জানালায় পরেছিলো। তার পর থেকেই তার মাথাটা শুধু খারাপ হতে থাকলো।
শোভন পাশের বাসাতেই থাকে। ইউনিভার্সিটি সেকেণ্ড ইয়ারে পরে। সে আর ইউনিভার্সিটিতে গেলো না। বাসার সামনেই পায়চারী করে করে, সিকদার অনির এক কক্ষের বাসাটার জানালাতেই উঁকি দিতে থাকলো থেকে থেকে।
মানুষের চোখ গুলোও বুঝি চুম্বকের মতোই কাজ করে। ঘর গোছালীর কাজের ফাঁকেই, শীলারও মনে হলো, কে যেনো বার বার জানালায় উঁকি দিচ্ছে। সে জানালার ধারেই এগিয়ে গেলো। বাইরে কাউকেই চোখে পরলো না। তবে, খানিকটা দূরে, বিশ একুশ বছরের এক যুবককেই চোখে পরলো। অন্যমনস্ক হয়েই, অর্থহীনভাবে দাঁড়িয়ে আছে। শীলা কৌতুহলী হয়েই ডাকলো, এই শোনো!
যুবকটি খুব আগ্রহ করেই এগিয়ে এলো। বললো, আমাকে ডাকছেন?
শীলা বললো, এখানে আশেপাশে আর কি কেউ আছে?
যুবকটি লাজুকতার গলাতেই বললো, জী না!
শীলা চোখ গোল গোল করেই বললো, জানালাতে উঁকি দিয়ে দিয়ে কি দেখছিলে?
যুবকটি মাতা চুলকাতে চুলকাতে, আমতা আমতাই করতে থাকলো। শীলা দরদী মেয়ের মতোই, তার পরনের জলপাই রং এর শার্ট এর বোতামগুলো খুলতে থাকলো। তারপর, পাতলা কাপরের ব্রা টাও বক্ষ যুগলের উপর থেকে সরিয়ে নিয়ে, বৃহৎ বক্ষ দুটি উদোম করেই বললো, দেখবে?
যুবকটি হঠাৎই লজ্জায় কাতর হয়ে পরলো। শীলা তার বক্ষ ঢেকেই বললো, কি নাম তোমার?
যুবকটি বললো, শোভন!
শীলা মায়াবী গলাতেই বললো, এমন লুকিয়ে লুকিয়ে কাউকে দেখতে নেই। যে কাজে যাচ্ছিলে যাও।

লাজুকতার একটা ভাব করে, শোভন চলেই যেতে চাইছিলো। অথচ, হঠাৎই কেনো যেনো খুব মায়া পরে গেলো শীলার শোভনের উপর। সে আবারো ডাকলো, এই শোনো!
শোভন ঘুরে দাঁড়িয়ে, কৃতজ্ঞতার চোখেই বললো, জী!
শীলা বললো, ওদিক দিয়ে, ভেতরে এসো।
শোভন মিশ্র এক ভাবনার চেহারা করেই, দরজার দিকে এগিয়ে গেলো। শীলা দরজা খুলে দিয়ে বললো, এসো, ভেতরে এসো।
শোভন খুব ভয়ে ভয়েই ভেতরে ঢুকলো। শীলা অভয় দিয়েই বললো, এমন ভেজা বিড়াল হয়ে আছো কেনো? ভয় করছে?
শোভন অপ্রস্তুত ভংগীতেই বললো, না, আপনাকে কখনো দেখিনি তো! তাই কৌতুহলী হয়েই জানালায় চুপি দিয়েছিলাম।
শীলা বললো, বেশীদিন দেখবেও না। কয় দিনের জন্যেই বেড়াতে এসেছি।
শীলা খানিকটা থেমে বললো, বেড়াতে এসেছি বললে ভুল হবে। আসলে ঘর পালিয়েছি।
শোভন ফ্যাল ফ্যাল করেই শুধু তাঁকিয়ে রইলো শীলার দিকে। শীলা বললো, মেয়েরা ঘর পালায় প্রেম করে, প্রেমিকের হাত ধরে। আমি পালিয়েছি প্রেম না করে, বিয়ে করার ভয়ে। কিন্তু, পালিয়ে এসে আমার মাথাটাই খারাপ হয়ে গেছে। আসার পথেও বাসে বসে অনেক উল্টা পাল্টা ভেবেছি। এমনও ভেবেছি, আমার জীবনে প্রেম আসেনি কেনো! কারনটা তোমাকে এখন বলবো না। তুমি যদি আমার সাথে প্রেম করতে চাও, তাহলেই বলবো।
শোভন বোকার মতোই দাঁড়িয়ে রইলো। কি বলবে কিছুই বুঝতে পারলো না। শীলা মুচকি হেসেই বললো, ভালো কথা! কারো সাথে প্রেম ট্রেম করছো না তো? না করলেই না কথা!
শোভন খানিকটা সাহসী হয়েই বললো, কি যে বলেন! ইউনিভার্সিটি সেকেণ্ড ইয়ারে পড়ি। অথচ, কোন মেয়েই পাত্তা দিলো না। আপনার মতো অমন সুন্দরী মেয়ে কাছে পেলে তো, চোখ বন্ধ করেই প্রেম করা শুরু করতাম।
শীলা তার পরনের জলপাই রং এর শার্টটা বুকের উপর থেকে সরিয়ে, বক্ষ যুগল প্রদর্শন করে, মিনতি ভরা গলাতেই বললো, তাহলে প্রেম করছো!
শোভন হঠাৎই হতভম্ভ হয়ে বললো, আপা, আমি আপনাকে চিনিনা, জানিনা!
শীলা বললো, চিনোনা, তাতে কি হয়েছে? এখন থেকে চিনবে!
শোভন আমতা আমতা করেই বললো, আপা, আপনি কি অসুস্থ?
শীলা পুনরায় শার্টে তার বুক ঢেকে রাগ করা গলাতেই বললো, বুঝেছি, মুরদ নেই! যাও, তোমাকে আমার সাথে প্রেম করতে হবে না।
শোভন এবার বেশ সহজ হয়েই এলো। বললো, না মানে, সুন্দরী কোন মেয়ের সাথে কখনো কথা বলিনি তো! তাই, কেমন করে কথা বলতে হয়, বুঝে উঠতে পারিনি।
শীলা খানিকটা ঠাণ্ডা গলাতেই বললো, তুমি ঠিকই বলেছো। ঘর পালিয়ে, আমি আসলেই খুব অসুস্থ হয়ে পরেছি! আমার বোধ হয় বিয়েটা করা উচিৎই ছিলো। এতক্ষণে বোধ হয় ছেলেটা আমাদের বাসায় খুব আশা করেই বসে আছে, আমাকে একটিবার দেখার জন্যে! কি দেখতো আমার? শুধু তো চেহারাটাই। একটা মেয়ের শুধুমাত্র চেহারা দেখেই পছন্দ করে বিয়ে করে ফেলবে, এটা কেমন কথা! আমি তোমাকে সব কিছুই তো দেখালাম, পছন্দ হয় আমাকে?
শোভন রসিকতা করেই বললো, সব কিন্তু দেখান নি। ওই প্যান্টির তলায় কি আছে, তা কিন্তু এখনো দেখা হয়নি!
শীলা মুচকি মুচকিই হাসলো। বললো, দুষ্টু ছেলে! প্যান্টির তলায় কি থাকে জানো?
শোভন বললো, কি করে জানবো! কখনো দেখিনি তো!
শীলা বললো, দুর্গন্ধ! দুর্গন্ধ! প্রস্রবের গন্ধ! মিনস এর গন্ধ! এটা সেটা! মেয়েদের প্যান্টির তলায় হলো, যত্তসব ময়লা জায়গা!

লাজুক ছেলেগুলো, আড়াল থেকে সুন্দরী মেয়েদের গোপন দেহ দেখতে যতটা সাহসী থাকে, সামনা সামনি এলে বোকাই হয়ে যায়। পেটে বোমা মারলেও একটা কথা বেড় হয় না। অথচ, শীলা এমন করেই শোভনের সাথে আলাপ জমিয়ে তুললো যে, শোভনও খুব অল্প সময়েই সহজ হয়ে পরলো। শীলা তার পরনের জলপাই রং এর শার্টটা পুরুপুরিই খুলে ফেললো। অতঃপর, পরনের পাতলা ব্রাটাও খুলতে খুলতে বললো, তোমার নাম কি যে বললে? ওহ, মনে পরেছে, শোভন। জানো? আমার বয়স এখন চব্বিশ! একটা মেয়ের জীবন থেকে চব্বিশটি বসন্ত কেটে গেলো, তার নগ্ন দেহটা জানা শুনা কেউ দেখলোনা। অথচ, বিয়ের পর রাতারাতি একজন অজানা, অচেনা মানুষ হঠাৎ করেই দেখতে শুরু করলো, ব্যাপারটা তোমার কাছে কেমন মনে হয়?
শীলার আচরনে, শোভন খুব ভ্যাবাচ্যাকাই খেয়ে গেলো। পাগল টাগল নাকি এই মেয়ে? এমন করে নিজের দেহকে নগ্ন করে কেউ দেখায় নাকি? নিজেকে সৌভাগ্যবানও যেমনি মনে হচ্ছিলো, আবার ভাবতেও পারলো না। সে অপ্রস্তুত হয়েই বললো, আপা, আমাকে ইউনিভার্সিটিতে যেতে হবে, এখন আসি?
শুধুমাত্র প্যান্টিটা পরনে রেখে, শীলা মেঝের উপর শান্ত হয়েই বসলো। তারপর বললো, তোমাদের ছেলেদের নিয়ে হলো, এই এক সমস্যা। কোন মেয়ে দাম দেখিয়ে দূরে দূরে থাকলেই, তাদের ভালোবাসা পাবার জন্যে ব্যাকুল হয়ে থাকো। আর কাছে এসে ধরা দিলে, পাত্তাই দিতে চাওনা। আমি বলেছিলাম না, আমার জীবনে কখনো প্রেম আসেনি! তার কারন হলো এটিই। সব সময় নিজের উপর একটা আত্মবিশ্বাসই ছিলো। যে কোন ছেলেই আমাকে ভালোবাসবে। তাই কাউকেই পাত্তা দিইনি। দূর থেকে শুধু মজাটাই নিয়েছি।
শীলা হাঁটুর উপর ভর করে, দেহটাকে খানিকটা ঝুঁকিয়ে, বৃহৎ বক্ষ দুটিকে ঝুলিয়ে মন খারাপ করেই বললো, আমাকে খুব খারাপ মেয়ে বলেই মনে হচ্ছে, তাই না?
শোভন বেশ সাহসীই হয়ে উঠলো। বললো, না আপা, তা মনে হবে কেনো? বিয়ের পর অজানা, অচেনা একটা ছেলেকে কাছে পেতে হবে বলে, বিয়ে করতে ভয় পাচ্ছিলেন, অথচ আমাকে সব দেখাতে চাইছেন! আমাকেও তো আপনি ভালো করে চেনেন না!
শীলা বললো, ওহ, সেই কথা! তোমাকে কেনো দেখাতে ইচ্ছে হলো, তার কারন তো সহজ! চুপি চুপি জানালা দিয়ে আমাকে দেখছিলে বলে! আর যেনো আমার প্রতি তোমার কোন কৌতুহল না থাকে, তাই একটু মজা করলাম। কারন, ওরকম কারো জানালায় চুপি দেয়া ঠিক নয়। তুমি যে ওভাবে চুপি দিচ্ছিলে, তা হয়তো আশে পাশে আরো কেউও তোমাকে দেখছিলো। সবাই তখন ভাবতো, না জানি কি! এতে করে অন্যদেরও কৌতুহলও বাড়তো। সবাই সেই কৌতুহল থেকেই এই জানালাতে একবার করে চুপি দেয়ার চেষ্টা করতো। সেটা খুবই বিপদ জনক! কি বলো তুমি? এভাবে তোমার কৌতূহলটা নষ্ট করে ঠিক করিনি?
শীলার কথায় শোভন যেনো বোকাই বনে গেলো। চুপচাপ দাঁড়িয়ে রইলো শুধু।

শোভন অপরাধী একটা ভাব নিয়েই বললো, স্যরি আপা। আসলে, সিকদার ভাই আমাকে খুবই স্নেহ করে। উনি একাই থাকতো জানতাম। ঘরের ভেতর হঠাৎ আপনাকে দেখেই কৌতুহলটা হয়েছিলো। আর ভুল হবে না। আমি তাহলে এখন আসি!
শীলা বললো, কেনো, প্যান্টির তলায় কি আছে দেখবে না?
এই বলে শীলা তার পরনের প্যান্টিটাও খুলে ফেললো। শীলাকে পুরুপুরি নগ্ন দেখে, শোভন যেনো রীতীমতো ঘামতে থাকলো। শুধু তাই নয়, তার বুকটাও কাঁপতে থাকলো ভয়ে। সে বললো, আপা, আজকে সব দেখে ফেললে, অন্যদিন দেখবো কি? নাকি আমাকে আর না আসার জন্যেই এমন করে শাস্তি দিচ্ছেন।
শীলা মন খারাপ করেই মেঝেতে উবু হয়ে শুয়ে বললো, নাহ, মাঝে মাঝে মজা করতে গিয়ে, নিজেকেই কষ্ট পেতে হয়, নিসংগ হয়ে যেতে হয়। তুমি ইউনিভার্সিটি যেতে চাইছিলে, যাও। আবার আসবে কিন্তু! অমন জানালা দিয়ে চুপি নয়, সরাসরি দরজা দিয়ে, কেমন?
শোভন বললো, জী আপা। আসি তাহলে।
ইউনিভার্সিটি যাবার পথে শোভনের মাথার ভেতরটাও এলো মেলো হয়ে যেতে থাকলো। সুন্দরী একটি মেয়ের সাথে প্রেম করার শখ, তারও কম ছিলো না। তাই বলে, এভাবে? বয়সে বড় একটি মেয়ের সাথে? অথচ, কেনো যেনো তার মনটা ছটফট করতে থাকলো শীলার জন্যেই।

(পর্ব ০১ সমাপ্ত)

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s