জীবনের সুখের জন্য… – পর্ব ০৫


(৫ম পর্ব)

এইবার সব কিছু হয়ে যাবার পর আমি বিছানা থেকে নামলাম। বিদিশা মেঝেতেই বসে রয়েছে আমার দিকে তাকিয়ে মিটিমিটি হাসছে। আমি হাসতেই বলল, ‘হু হু বাবা আমিও পারি।‘

আমি ঝুঁকে ওর ঠোঁটে চুমু খেয়ে বললাম, ‘বিদিশা আমি তোমার কাছে খুব ঋণী হয়ে রইলাম। আমার জীবনের একেক স্বপ্ন তুমি পূর্ণ করে দিচ্ছ। ধন্যবাদ তোমাকে বিদিশা।‘
ও আমার গলা জড়িয়ে আদর করে বলল, ‘আর তুমি? তুমি যে আমার জীবনকে নতুন জন্ম দিলে তা কি করে ভুল্ব গৌতম। যে মেয়েটা সেক্স জানত না দেহের চাহিদা মেটাতে পারত না সে আজ এক সম্পূর্ণ নারী। এটা তো শুধু তোমার জন্যই গৌতম।‘

আমি আর কিছু না বলে বাথরুমের দিকে পা বাড়ালাম। আমার ভীষণ পেচ্ছাপ পেয়েছে। বীর্য স্খলন হবার পর চাপটা আরও বেশি বেড়ে গেছে। আমি আমার লিঙ্গ কোমডের দিকে তাক করে দাঁড়িয়ে রইলাম। বীর্যপাতের পরেই পেচ্ছাপ বেরোয় না। আমি অপেক্ষা করতে লাগলাম। তারপর ধীরে ধীরে আমার পেচ্ছাপ শুরু হোল। পেছনে আওয়াজ পেতেই তাকিয়ে দেখলাম বিদিশা। ও ঢুকেছে বাথরুমে। আমি ওর দিকে জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকাতেই ও বলে উঠলো, ‘দুধ খাওয়ালে, জল খাওয়াবে না। মা বলতেন দুধের পর জল অবশ্য খাবি না হলে অম্বল হয়ে যাবে।‘

ও আমার সামনে এসে দাঁড়ালো আর হাঁটু মুড়ে কোমডের সামনে বসে গেল। আমার লিঙ্গ থেকে প্রস্রাব ধারা বেরিয়ে আসছে তাই দেখতে দেখতে আমার লিঙ্গটা ধরে ওর মুখের দিকে ঘুড়িয়ে দিলো। আমার তখন পেচ্ছাপ বন্ধ করার ক্ষমতা নেই। আমি বয়ে যেতে দিতে থাকলাম আর বিদিশা পেচ্ছাপের ধারার সামনে নিজের মুখ খুলে দিলো। আমি ওর মুখে পেচ্ছাপ করতে লাগলাম। অবাক বিস্ময়ে দেখতে লাগলাম কিছুটা পেচ্ছাপ ও পান করছে আর কিছুটা বাইরে এসে পড়ছে। যতক্ষণ আমি পেচ্ছাপ করে গেলাম ততোক্ষণ ও হ্যাঁ মুখে পেচ্ছাপ পান করতে লাগলো। তারপর একসময় পেচ্ছাপের ধারা ক্ষীণ হয়ে এলে ও আমার শিথিল লিঙ্গ ওর মুখে পুরে ঠোঁট দুটো বন্ধ করে দিলো আর যতটা পেচ্ছাপ আমি পরে করলাম সবটা ও পান করে নিল। একসময় আমার লিঙ্গের মাথার উপর বড় করে একটা চুমু খেয়ে উঠে পড়লো আর লিঙ্গটাকে ছোট করে টোকা দিয়ে বলল, ‘দুষ্টু সোনা আমার। এসো একসাথে চান করে নিই আমরা।‘

স্নান সেরে আমরা বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসতেই বিদিশা বলল, ‘তাড়াতাড়ি খাবারের অর্ডার দাও। খুব খিদে পেয়ে গেছে।‘

খেয়ে নিয়ে আমরা দুজনে দুজনকে জড়িয়ে মস্ত একটা ঘুম মারলাম। উঠলাম প্রায় সাড়ে ছটা নাগাদ। আজ রাতে আমাদের ফেরার ট্রেন। আমরা তৈরি হয়ে নিলাম। দু পেগ করে ভদকা মেরে আমরা বেরিয়ে এলাম ট্রেন ধরব বলে।

বাড়ি ফিরে এসে মিতাকে দেখলাম একটু অন্যরকম। সেই সংসারের বিরক্তির ছাপ ওর মুখে নেই। খুব হাসি খুশি। আমাকে দেখে জিজ্ঞেস করলো, ‘ভালো কাটল ট্যুর?’

এই প্রশ্ন একটু অস্বাভাবিক। সাধারনত ও জিজ্ঞেস করে কেমন হোল কাজ বা কোন প্রব্লেম হয় নি তো। এরকম প্রশ্ন আমি একদম আশা করি নি। আমি বললাম, এবারে হঠাৎ এই প্রশ্ন? কনবার তো জিজ্ঞেস করো না।‘

ও একটু অপ্রস্তুত হয়ে বলল, ‘কোনবার করি না বলে এবার করবো না মাথার দিব্যি দেওয়া আছে নাকি?’

দিস ইস কলড মিতা। এক ঝটকাতে ও ওর স্বাভাবিকতায় ফিরে এলো। যাহোক আমি আর রগড়ালাম না ব্যাপারটা নিয়ে।

মিতা আবার জিজ্ঞেস করলো, ‘কি হোল বল কেমন হোল ট্যুর?’

আমি বললাম, ‘তুমি কি ট্যুর মুর বলছ? আমি তো গেছিলাম কাজে। কাজে গেলে আবার কেউ ট্যুরে গেছে বলে নাকি?’

মিতা মুখটা বেঁকিয়ে বলল, ‘বলে না বুঝি? তাহলে ট্যুরে যাবার আগে কেন বোলো আবার ট্যুরে যেতে হবে?’

বুঝলাম মিতা আজ তৈরি আছে পায়ের উপর পা দিয়ে ঝগড়া করার জন্যও। ট্যুর ছিল তো বটেই, ও মিথ্যে বলছে না আর এদিকে আমি যদি ওর ফাঁদে পা দিই তাহলে ট্যুরের যা কিছু ভালো সব কর্পূরের মতো উবে যাবে। স্মৃতি আর হাতরে বেড়তে হবে না কপাল থাপড়াতে হবে। তাই আমি ওর ঝগড়া থামাতে বললাম। ‘ওকে ওকে, আমিই ভুল করেছি। হ্যাঁ ট্যুর ভালই হয়েছে।‘

ও ঘুরে জিজ্ঞেস করলো, ‘কোম্পানির কাজ হোল?’

আমি জবাব দিলাম, ‘হোল মানে ফাটাফাটি হোল। কাজটা ওরা দেবে বলেছে।‘

মিতা উত্তর দিলো, ‘কনগ্র্যাট। গর্ব বোধ হয় আমার স্বামী বলতে।‘

আমি অবাক হয়ে ওর দিকে তাকালাম। আজ সূর্য কি পশ্চিম দিক থেকে উঠেছে নাকি। মিতাকে ঠিক চেনা যাচ্ছে না। ও তো কোনদিন এই ধরনের কথা বলে নি। স্বামীর জন্য গর্ব বোধ হয়। অথচ ছুতো পেলে ওর বন্ধুবান্ধবের মানে আলপনাদি, নায়িকাদি এদের কাছে বলে, ‘গৌতম? ও আবার কি করে? সবি তো আমি করি।‘

যাহোক মুফতে প্রশংসা পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। আমি সাদা মুখ করে বললাম, ‘এবার একটু চায়ের বন্দোবস্ত হবে? পায়খানা পেয়েছে। চা খেয়ে যাবো একটু।‘

ও চলে যাওয়াতে হাফ ছেড়ে বাঁচলাম। যাক ওর কথার জবাব দিতে হবে না। কিন্তু মনের মধ্যে খুঁতখুঁতানিটা রইল ওর কথা আর ব্যাবহারের স্টাইল দেখে। কিছু তো আছে। থাক পরে আবিষ্কার করা যাবে।

স্নান সেরে দুপুরে গরম গরম মাংস আর ভাত খেয়ে বিছানাতে শরীর ছেড়ে দিলাম।ভালই রান্নাটা হয়েছিল। আমি শুয়ে পড়ার পর মিতা এসে পাশে শুল। একটু পরে বলল, ‘তুমি কি অফিস থেকে ১৫ দিনের ছুটি পাবে?’

আমি ওর দিকে ঘুরে জিজ্ঞেস করলাম, ‘হঠাৎ ছুটির কথা বলছ কেন?’

ও বিরক্তি দেখিয়ে বলল, ‘উফফ, তোমাকে প্রশ্ন করলে তুমি আবার পাল্টা প্রশ্ন করো। সহজ কথার সহজ উত্তর দেওয়া যায় না?’

ঘুমটা নষ্ট হবে। আমি বললাম, ‘তুমি কি পাগল হলে নাকি? ১৫ দিনের ছুটি। একদিনও পাবো না পনেরো দিনের। এই টেন্ডারটা আমাকেই করতে হবে। দেবে ছুটি আমাকে?’

ও জবাব দিলো, ‘তুমি একটা আচ্ছা পাবলিক। তুমি কি অফিসে জিজ্ঞেস করেছো যে আগেভাগে বলছ ছুটি পাবে না? জিজ্ঞেস তো করো। তারপরে নাহয় বোলো।‘

আমি উত্তর দিলাম, ‘ঠিক আছে জিজ্ঞেস করবো, বাট আমি জানি আমাকে ছুটি দেবে না।‘

মিতা মুখ ভেটকে বলল, ‘হ্যাঁ শুধু তোমার জন্যই ছুটি নেই বাকি সবার জন্য আছে।‘

আমি অন্য দিকে তাকিয়ে বললাম, ‘হ্যাঁ তুমি যেন রোজ আমার অফিসে যাও আর জানো কে কে ছুটি পায়।‘ ওকে তুমি বলছ কাল অফিসে গিয়ে জেনে বলব।‘

আমি অন্য দিকে ঘুরতে ঘুরতে ভাবলাম জানার কি আছে। আমি জানি ছুটি পাবো না আর পেলেও নোব না। তবু আমি জিজ্ঞেস করলাম ওর দিকে পেছন ফিরে, ‘কিন্তু ছুটি নিয়ে করবেটা কি?’

ও অন্যদিকে মুখ ঘুড়িয়ে বলল, ‘আগে পাও কিনা দ্যাখো তারপর বলব।‘

তারপরের দিন অফিস থেকে ফিরে জুতো খুলতে খুলতে মিতাকে শুনিয়ে দিলাম যে ছুটি পাওয়া যায় নি। মিতা শুনে জবাব দিলো, ‘জিজ্ঞেস করেছিলে আদৌ না এমনিই বলছ?’

আমি চোখ কুঁচকে উত্তর দিলাম, ‘তোমাকে নিয়ে এটাই প্রব্লেম। সহজ কথা সহজভাবে নাও না।‘

সেদিন রাতে সব ব্যাপারটা ক্লিয়ার হোল মিতার এতো প্রশ্ন করার কি কারন। রাতে ঘুমোবার সম্য মিতা বলল, ‘তুমি ছুটি পেলে ভালো হতো। একটা প্যাকেজ ট্যুর আছে। আমাকে বলেছিল। কেরালা। ১০০০০ টাকা পার হেড। নিয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে ফিরিয়ে দেওয়া পর্যন্ত ওদের খরচ। ভেবেছিলাম তুমি আর আমি যাবো।‘

আমি সহানুভুতি দেখিয়ে বললাম, ‘এটা আবার কি ব্যাপার। আমরা তো কোনদিন নিজেদের ব্যাপারে অন্য কারো হস্তক্ষেপ করি নি। তাহলে আমার যাওয়ার সাথে তোমার যাওয়ার ব্যাপারটা আটকাচ্ছে কেন। আরামসে যাও।‘

ও একটু ধীরে জবাব দিলো, ‘না সে ব্যাপার নয়। আমি ভাবছি তুমি কি করবে একা একা। বলেছিলাম একটু আধটু রান্না শিখে নাও। এই সময়ে কতো কাজে লাগতো।‘

আমি উত্তর করলাম, ‘আরে বাবা আমার ব্যাপারে অতো ভাবতে হবে না। সকালে পাউরুটি দুধ আর চা। বাকিটা তো বাইরে সব।‘

ও বলল, ‘শনিবার আর রবিবার? কি করবে সেদিন।‘

শনিবার আর রবিবার আমার অফিস ছুটি। আমি উত্তর করলাম, ‘হোটেল যুগ যুগ জিও। হোটেলে খেয়ে নেবো। তুমি নিশ্চিন্তে ঘুরে এসো। আমি তো কোনদিন নিয়ে যেতে পারবো না এটা ঠিক। আমারও ভালো লাগে না আমি অফিসের ট্যুরে যাই আর তুমি একা একা ঘরে বসে থাক। যাও না মাইন্ডটা ফ্রেস করে এসো। কতদিনের ট্যুর?’

মিতা বলল, ’১৫ দিনের?’

আমি জবাব দিলাম, ‘এখন এটাই দ্যাখো যে একা একা এই ১৫ দিন থাকতে পারবে কিনা।‘

ও উত্তর দিলো, ‘সেটা ব্যাপার নয়। অনেকে যাচ্ছে। ঠিক ম্যানেজ করে নেবো। তারপর পাড়া থেকে দুটো ফামিলিও যাবে। আমার চিন্তা তোমাকে নিয়ে।‘

আমি ওর গায়ে হাত দিয়ে বললাম, ‘নো চিন্তা ডার্লিং, ডু ফুর্তি। ঘুরে এসো আরাম করে।‘
ডিল হয়ে যাবার পর ঘুমিয়ে পড়লাম। ঘুমোবার আগে ভাবলাম মিতা একা যাবে এই ভাবনাটাই বেশি করে আমাকে কষ্ট দেবে। যদি পথে কিছু হয় কে দেখবে।

অফিসে গিয়ে বিদিশাকে ফোন করে সব খুলে বললাম। মেয়েটার বুদ্ধি আছে ও আমাকে সঠিক বলতে পারবে এ ব্যাপারে। বিদিশা সব শুনে বলল, ‘গৌতম আমার মনে হয় তুমি অনর্থক চিন্তা করছ। তোমার চিন্তাতে মিতার খারাপ বই ভালো হবে না। তোমার কাছে যতটা শুনেছি ও খুব বুদ্ধিমতি এবং নিজের ভালোটা ও ঠিক বুঝবে। এমন হতে পারে ও হয়তো ওর কোন বন্ধুর সাথে ঘুরতে যাচ্ছে এবং যার সাথে যাচ্ছে তার সাথে ওর ভালই পরিচয় আছে। যাক না ও ঘুরে আসুক। তুমি যদি আমার সাথে ঘুরতে পারো তাহলে ওর বন্ধুর সাথে ওর ঘোরা কি দোষ করলো।‘

আমি আমতা করে বললাম, ‘না আমি ওর বন্ধুর ব্যাপারে ভাবছি না আমি ভাবছি কেরালা এতো দূর কিছু হলে তাহলে কি করা।‘

বিদিশা- আরে বাবা এতো চিন্তা কেন করছ। তোমরা ছেলেরা যখন বাইরে যাও তখন তো তোমাদের কিছু হতে পারে। কই আমরা মেয়েরা তো চিন্তিত হই না। কারন জানি এই বয়সে প্রত্যেকে নিজেদের দেখাশনা করার জন্য যথেষ্ট। হ্যাঁ, ওকে বলে দিও নিয়ম করে সকাল রাত যেন তোমাকে ফোন করে। কেমন? আর এই ব্যাপারে কোন মাথাব্যাথা করো না। আরেকটা ব্যাপার, নিকিতাকে একটু জিজ্ঞেস করে নাও যে বন্ধু মিতাকে যোগার করে দিয়েছে ঠিক কেমন। নিকিতাকে আমি বিশ্বাস করি ও ভুল কাউকে দেবে না। ওকে?’

বিদিশা ফোন ছেড়ে দেওয়ার পর আমার মনে হোল নিকিতার ব্যাপারটা তো আমার মাথায় ছিল না। হ্যাঁ ওকে তো ফোন করে জিজ্ঞেস করা যায়।

আমি সব কাজ ছেড়েছুঁড়ে নিকিতাকে ফোন করলাম। কিছুক্ষণ রিং বেজে যাবার পর

নিকিতা উত্তর করলো, ‘বোলো বন্ধু কেমন আছ?’

আমি- খুব ভালো। তুমি?

নিকিতা- আমিও ভালো। বিদিশার সাথে রিলেশন কিরকম। সব ঠিক চলছে?

আমি (হেসে)- হ্যাঁ সব চলছে ঠিক।

নিকিতা(খিলখিল করে হেসে)- অন্য সব?

আমি(অবাক হয়ে)-অন্য সব মানে?

নিকিতা(বিরক্তি প্রকাশ করে)- অফফ… আমার বুড়ো বন্ধুটা বুড়োই রয়ে গেছে। আরে
বাবা সক্কাল সক্কাল এই সব কথা বলাবে? বলছি গায়ে হাত থাত দিয়েছ না অপেক্ষা করে রয়েছ?

আমি(লজ্জার ভান করে)- আরে তোমাকে কি করে বলি বলতো এসব?

নিকিতা- তার মানে তুমি আমাকে বন্ধু ভাবো না।

আমি- এমা না না। তোমার মতো বন্ধু পাওয়া কারোর ভাগ্যের ব্যাপার।

নিকিতা- তাহলে, আমি জানি গৌতম তুমি বন্ধুর খোঁজ করেছো আর আমি তোমাকে বন্ধু দিয়েছি। আমি জানি তুমি কেন বন্ধুর খোঁজ করেছো আর আমি জানি আমি তোমাকে কেমন বন্ধু দিয়েছি। কোন কিছুই তো গোপনীয় নয়। তুমি যদি বোলো না তুমি কিছু করো নি আমি বিশ্বাস করবো না। অবশ্য তুমি না বললেও বিদিশা ঠিক বলে দেবে আমায়।

আমি- নাগো, তোমাকে লুকিয়ে কি লাভ। সব কিছুই হয়েছে হ্যাঁ একটু বেশিই হয়েছে।

নিকিতা- এই তো গুড বয়ের মতো স্বীকার। তুমি কিছু করতে না পারলে আমার খারাপ লাগতো।

আমি- থ্যাংকস নিকি……

নিকিতা- নিকি? ওহাট ইস দ্যাট?

আমি- ভালো লাগলো বলতে নিকিতাকে নিকি বলতে, তাই বলে ফেললাম।

নিকিতা(খিলখিল করে আবার হেসে)- ওহ অ্যাই সি… দ্যাটস গুড…… ডোন্ট মাইন্ড, বিদিশা কি বিদু হয়েছে? (আবার হাসি)

আমি(হেসে)- আরে না না, বিদিশাটাই ভালো। আচ্ছা নিকি একটা পার্সোনাল কথা এবার জিজ্ঞেস করি?

নিকিতা- বলে ফেলো।

আমি- জানো, মিতা ট্যুরে যাচ্ছে।

নিকিতা- তো?

আমি- মানে আমি জানতে চাইছি হয়তো ও ট্যুরে যাচ্ছে তোমারি ঠিক করে দেওয়া কোন বন্ধুর সাথে।

নিকিতা (গম্ভীর গলায়)- হ্যাঁ তো?

আমি- মানে বন্ধুটা তো ঠিক?

নিকিতা- গৌতম আমি তোমাকে বলেছিলাম শেষবারের মতো যে তুমি এ ব্যাপারে কিছু আর জিজ্ঞেস করবে না। দেন ওহাই এগেন?

আমি- আরে মিতা আমার বউ। তুমি ব্যাপারটা বুঝছ না।

নিকিতা- আর মিতা আমার বৌদি। আমার প্রিয় বন্ধুর বউ। তুমি ব্যাপারটা বুঝছ। এনি ওয়ে জোকস আপারট, গৌতম আমি জানি আমি কি করেছি কেমন বন্ধু দিয়েছি। তুমি আমার উপর ভরসা করতে পারো। মোর অভার বৌদির সাথে ওই বন্ধুটি অনেকদিন ধরে কথা বলছে যা আমার কাছে খবর আছে। বৌদি ইস স্মার্ট এনাফ টু জাজ। তাই নয় কি?

আমি (হতাশ গলায়)- যা হোক আমি সবাইকে বিশ্বাস করি। তোমাকে, মিতাকে এবং তার বন্ধুকে।

নিকিতা- ডোন্ট বি সিলি ফ্রেন্ড, নিকিকে তুমি ভরসা করতে পারো। ওরা যদি ঘুরতে যায় কোন ক্ষতি নেই। আরামসে তুমি ঘুমাতে পারো।

আমি- ওকে। তোমার কথা বিশ্বাস করলাম। এবার বোলো আমার নিকির সাথে কবে দেখা হবে।

নিকিতা- কেন, কি হবে?

আমি- আরে এতো ভালো বন্ধুর সাথে শুধু ফোনেই কথা হবে। দেখা হবে না? তাই কি কখনো হয়।

নিকিতা (মনে হোল যেন গম্ভীর)- তোমার নিকিতার অনেক খিদে। তোমার মতো বুড়ো বন্ধু সামাল দিতে পারবে? পারবে তোমার বন্ধুর চাহিদা মেটাতে? (আবার খিলখিল করে হেসে উঠলো)

আমি- নো জোকস নিকি। অ্যাই অ্যাম সিরিয়াস।

নিকিতা- হবে দোস্ত হবে। ঠিক সময়ে হবে। আমিও চাই তোমার সাথে দেখা করতে। জানো ইউ আর ভেরি ইন্টারেস্টিং।

আমি- থ্যাংকস। অপেক্ষা করে থাকব।

আমি ফোনটা ছেড়ে একটু নিশ্চিন্ত হলাম। নিকিতাকে আমি বিশ্বাস করি খুব ওর সাথে দেখা না হোলেও। ওর ভিতর একটা কিছু আছে যাতে ওকে বিশ্বাস করা যায়। তাই আমি নিশ্চিন্ত হয়ে মিতার ভাবনা ছেড়ে দিলাম নিকি কথা দিয়েছে বলে।

একদিন মিতা বেরিয়ে গেল ট্যুরে। ওর হাতে আমি প্রায় ২৫০০০ টাকা দিয়ে দিলাম। বলেছিলাম সাবধানে রাখতে। যদি প্রয়োজন পরে। ও বলেনি আমিও জানতে চাই নি ও কার সাথে কোথায় যাচ্ছে। ওর মুখের কনফিডেন্স দেখে আমার খানিকটা দুরভাবনা কমলো। ওকে বলে দিলাম, ‘যেখানেই থাক দুবার করে ফোন করবে। ভুলবে না একবারও।‘

মিতা কথা রেখেছে। যত বেশি ওর কথা বলেছে ততবেশি আমার ব্যাপারে জানতে চেয়েছে আমি ঠিক আছি কিনা, ঠিক মতো খেয়েছি কিনা। ঘুম হচ্ছে কিনা এই সব। আমি ওকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘তোমার ঘোরা কেমন হচ্ছে?’

ও হেসে জবাব দিয়েছে, ‘দারুন।‘

ওর কথাবার্তার উচ্ছ্বাসে বোঝা গেল ও যেটা বলছে সেটা ঠিক।

আমি অফিস আর বাড়ি এই করে বেড়াচ্ছি। মধ্যে একবার বিদিশার বাড়ি গেছিলাম। ওর আমন্ত্রনে। বাড়িটা বেশ সাজানো গোছানো। সামনে একফালি বাগান, নানান ফুলে ভর্তি। ও হাসি মুখে আমাকে স্বাগত জানাতে আমি বললাম, ‘বাগানের মালিক কে?’

ও জবাব দিলো, ‘কে আবার আমি। কেন?’

আমি উত্তর দিলাম, ‘না খুব যত্ন সহকারে বাগানটা সাজানো আছে তাই জিজ্ঞেস করলাম।‘

বেশিক্ষণ ছিলাম না। মিতার জন্য। ভেবেছিলাম মিতা কোথায় আছে কি করছে এর মধ্যে আমার আনন্দ করা ঠিক না। পরে আবার আসব বলে বেরিয়ে এসেছিলাম। ১৬ দিনের মাথায় মিতা ফিরে এলো। যখন বাড়িতে ঢুকল আমি তখন বাড়িতে। রান্না করে রেখেছিলাম। বেশ চনমনে, চেহারায় একটা খুশি খুশি ভাব। মুখে হাসি। ভালো লাগলো ওকে দেখে। আমি মনে মনে ধন্যবাদ জানালাম তাকে ম\জার সাথে ও ঘুরতে গেছিল।
আমাকে প্রায় বোর করে দিয়েছিল ও কেরালায় কি কি দেখেছে, কিভাবে আনন্দ করেছে সেই সব কাহানি বলতে বলতে। আমি যেন খুব ইন্টারেস্টেড এই ভাব দেখিয়ে শুনছিলাম ওর সব কথা। বলতে বলতে ও জানিয়ে দিতে ভোলে নি যে এর পরের মাসে ও আবার ট্যুরে যাবে। আমি একটু অবাক হয়েছিলাম ওর ট্যুরে যাবার ব্যাপারে। ও এতো বেশি ট্যুর নিয়ে মাতামাতি করতো না। হঠাৎ কি হোল ওকে ট্যুরে পেয়ে বসল। জানার কোন উপায় নেই। বিদিশাকে জিজ্ঞেস করবো বলবে তুমি বেশি চিন্তা কর। নিকিকে জিজ্ঞেস করব বলবে ডোন্ট ওরি বস ম্যায় হু না।

আমাকে মেনে নেওয়া ছাড়া অন্য কিছু করনীয় ছিল না। মিতাকে প্রশ্ন করেছিলাম, ‘এবার কোথায় ট্যুর?’

মিতা বলেছিল, ‘বললে বিশ্বাস করবে। গোয়া যাবো এইবার।‘

আমি শুধু শুনেছি। বিশ্বাস তো পরের ব্যাপার। আমি বলেছিলাম, ‘এই ট্যুর করে এলে, আবার যাচ্ছ শরীরে পারবে এর ধকল নিতে?’

ও হেসে বলেছিল, ‘ধকলের কি ব্যাপার আছে। ওখানে ছুটোছুটি করবো না পরিশ্রম করবো যে শরীরে কষ্ট হবে।‘

ওর আত্মপ্রত্যয় দেখে আমি চুপ করে গেছিলাম। ও ব্যাপারটা বুঝতে পেরেছিল।

আমাকে বলল, ‘তুমি কিছু মনে করলে না তো?’

আমি বললাম। ‘মনে করার কি আছে। তুমি যদি পারো তো আমি বলার কে। তবুও বলি একটু শরীরের দিকে খেয়াল রেখ।‘

মিতার যাবার আগে আমি একবার বাইরে গেছিলাম অফিসের কাজে। না এবার বিদিশাকে নিয়ে যাই নি কারন আমি ওকে সময় দিতে পারতাম না। বিদিশাকে বলেছিলাম ব্যাপারটা। ও বলেছিল, ‘সাবধানে যেও।‘ ব্যস এইটুকু। দুদিনের ট্যুর ছিল। এধার ওধার ঘুরে যখন বাড়ি ফিরেছিলাম শরীরে কিছু ছিল না। একদিন ছুটি নিয়ে পুরো দিনটা ঘুম মেরেছিলাম। অফিসে গিয়ে বিদিশাকে মিতার সেকেন্ড ট্যুরের ব্যাপারটা বলেছিলাম। বিদিশা জবাব দিয়েছিল এইটুকু, ‘ভালো তো যাক না।;

আমি ওর কথা শুনে আর কথা বাড়াই নি। আমার মনে হয়েছিল আমার পার্সোনাল প্রব্লেম নিয়ে বিদিশাকে আমি বিরক্ত করছি। যাহোক মিতা আবার বেরিয়ে গেল। ওর বন্ধুরা সবাই ছিল। কার সাথে গেল কেন গেল এসব প্রশ্ন আমাকে পাড়ার সবাই করেছিল আমি শুধু বলেছিলাম, ‘ঘোরার ইচ্ছে ওর। আমি কেন জানতে চাইবো।‘ সত্যি কি আমি জানতে চাই না। উত্তর খুঁজে পাই নি।

মনে হয়েছিল মিতা হাতের বাইরে বেড়িয়ে যাচ্ছে না তো। আমি কি ওর প্রতি খুব বাজে ব্যবহার করেছি? পরে মঙ্কে বলেছিলাম ও যেটাতে খুশি থাকতে চায় থাকুক। আমার ভাবার কি আছে। বিদিশাকে নিয়ে আমি যখন ঘুরতে গেছিলাম তখন তো ওর মনের ব্যাপার আমি চিন্তা করি নি। আবার হয়তো ঘুরব তখনো কি চিন্তা করব? তাহলে কেন এখন?

এবারের ট্যুর প্রায় ১২ দিনের। আমাকে আবার ১২ দিন একলা কাটাতে হবে। মনে হয়েছিল বিদিশার বাড়ি চলে যাই। কিন্তু মন সায় দেয় নি। সেদিন বাড়িতে ফিরে মদ খেতে ইচ্ছে হোল। একটা বোতল আমার কাছে সবসময় থাকে। মিতার আলমারিতে। আমি চাবি নিয়ে আলমারি খুলে মদের বোতলটা বার করলাম। দেখলাম মিতার পার্সোনাল তাকটা খুব অগোছালো। আমি সব কিছু ঠিক করে রাখতে গিয়ে দেখি একটা সিডি। আমি একটু আশ্চর্য হয়ে সিডিটা নিয়ে এপিট ওপিট করে দেখলাম সিডিতে কিছু লেখা নেয়। আমি ভাবলাম মিতার এখানে সিডি এলো কি করে। ও অনেক সময় ছেলে সিডি অন্য কাউকে দিয়ে দেয় বলে লুকিয়ে রাখে। আমি ভাবলাম তাই হবে বুঝি। কিন্তু তারপরে মনে হোল তাই যদি হবে তাহলে ও ওর পার্সোনাল তাকে এটা রাখবে কেন? আমার তো দরকার হতে পারে। তখন?

কৌতহলবশত আমি সিডিটা নিয়ে বাইরের ঘরে এলাম। একটা গ্লাসে মদ ঢেলে জল মেশালাম। আরাম করে সোফায় বসতে যাবো এমন সময় ফোন। দেখলাম মিতার ফোন। হ্যালো বলতেই মিতার গলা ভেসে এলো, ‘কি করছ?’

আমি বললাম, ‘কি আবার? টিভিতে ড্যান্স ইন্ডিয়া ড্যান্স দেখছি। তুমি?’

ও খুশীর গলায় জবাব দিলো, ‘খাচ্ছি আর তোমার কথা ভাবছি। খাবে এখন?’

আমি বললাম, ‘না, একটু ড্রিংক করছি।‘ আমি জাস্ট বলতে যাচ্ছিলাম সিডির কথা।

কিন্তু আমার অন্য মন বারন করল। আমি চেপে গেলাম ব্যাপারটা। ওর গলা শুনতে পেলাম, ‘বেশি নিও না। একা আছো।‘

আমি ভাবলাম কে একা আছে ও না আমি। আমি বললাম, ‘খেয়ে নিও আর ঠিক সময়ে শুয়ে পড়। বেশি রাত করো না। সমুদ্র দেখেছ?’

ও উচ্ছ্বাসে বলে উঠলো, ‘দেখেছি মানে রীতিমত চান করেছি। কি বিশাল সব ঢেউ গো। তোমার মাথা খারাপ হয়ে যাবে দেখলে।‘

এমনভাবে বলছে যেন আমি গোয়া দেখিনি। ওকে আমি গোয়া চেনালাম। মায়ের কাছে মাসির গল্প।

শুনলাম মিতা বলছে, ‘এই জানো আমি বিকিনি পরে সবার সামনে সমুদ্রে নেমেছিলাম। প্রথমে একটু লজ্জা করছিলো তারপরে সব ঠিক হয়ে গেছিল।‘

আমি হেসে উঠে বললাম, ‘তোমার তো ঠিক হয়ে গেছিল যারা বিচে ছিল তাদের অবস্থা তো খারাপ হয়ে গেছিল তোমার বুক আর পাছা দেখে।‘

ও হেসে যেন গড়িয়ে পড়লো এমন গলায় বলল, ‘যাহ্*, অসভ্য কোথাকার। ঠিক আছে রাখছি আর আবার বলছি বেশি নিও না।‘

ফোন ছেড়ে দিলাম। ভাবতে লাগলাম মিতার বিকিনি পরে গোয়ার বিচে ঘুরে বেরাবার ছবিটা। ওর ভরাট পাছা প্যান্টির আড়ালে উপর নিচ হওয়া, ওর হাঁটার তালে তালে ওর সুডৌল স্তনের থরথরানি আর বাকি লোকেদের ধুকপুকানি। মিতার যা চেহারা আমি নিশ্চিত ও ওই বিচে লোকেদের বুকের ধরকন বাড়িয়ে দিয়েছে। আমার কোথাও কি একটু কষ্ট হচ্ছে?

আমি ভাবতে লাগলাম আচ্ছা ও যখন সমুদ্রে নেমে আবার উঠেছিল তখন তো ওর ব্রা আর প্যান্টি সম্পূর্ণ ভেজা। তখন ওর ওইসব জায়গা কেমন হয়েছিল। আমি শিওর যে ওর বোঁটা, পাছার চেরা হয়তো ওর যোনীর চেরা ব্রা বা প্যান্টির বাইরে থেকে দেখা গেছিল। ঢোঁক গিলতে কষ্ট হচ্ছে। একবারে গ্লাসের আধা খালি করে দিলাম। আবার এক পেগ নিয়ে বসে রইলাম বুঁদ হয়ে। সিডির দিকে নজর গেল। হাতে তুলে নিলাম সিডিটা। দেখলাম আবার। মন বলছে এটা না দেখাই ভালো। কিন্তু অন্য মন বলছে দেখা দরকার। দোনামোনায় ঠিক করলাম দেখি কি আছে। ছেলের কোন পর্ণ সিডি যা ওর মা লুকিয়ে রেখেছে? আমি ডিভিডিতে ঢুকিয়ে দিলাম। টিভির চ্যানেল পালটে সিডিতে নিয়ে অপেক্ষা করলাম সিডিটা চালু হবার। সিডিটা চালু হতে হতে আমি একটা বড় সিপ নিলাম আর সেই মুহূর্তে সিডি চালু হোল।

টিভির স্ক্রিনে ফুটে উঠলো একটা লেখা ‘কেরালা ভ্রমন’। আমি একটু হচ্চকিয়ে গেলাম। মিতার কাছে এই সিডি। তারমানে ও যে ঘুরতে গেছিল তার সিডি। আমি দেখতে থাকলাম।

স্টেশন থেকে বেরিয়ে আসার সিন। থিরুভানান্তাপুরম স্টেশন। হ্যাঁ মিতাকে দেখলাম ও একটা সালওার কামিজ পরে এগিয়ে যাচ্ছে আগে। গলা শুনতে পেলাম, ‘বাঁদিকে গাড়ি আছে। মিতা বাঁ দিকে যাও।‘ গলাটা ভরাট এবং বয়স্ক। মিতা একটা সাফারি গাড়ির সামনে এসে দাঁড়ালো। ড্রাইভার দরজা খুলে দিলো। তবু মিতা গাড়িতে ঢুকল না।

ক্যামেরা এগিয়ে আসছে তারমানে যে তুলছে সে মিতার কাছে আসছে। খুব কাছাকাছি আসার পর ক্যামেরা বন্ধ হয়ে গেল। কিছুক্ষণ অন্ধকার। আবার স্ক্রিনে ছবি ফুটে উঠলো। মিতার। বাইরে তাকিয়ে আছে। বাইরে তাকিয়ে থাকতে থাকতে বলল, ‘ট্রেনে খুব একটা কষ্ট হয় নি বোলো?’

সেই গলা, ‘ না হওয়ারই তো কথা। ফার্স্ট এসি তায় আবার দুজনের কেবিন।‘

আমার আর বিদিশার ব্যাপার। আমরাও তো সেই ভাবেই গেছিলাম। মিতা আবার বলে উঠলো, ‘খাবারের কুয়ালিটি খারাপ ছিল না।‘

সেই গলা বলল, ‘হ্যাঁ, মমতা মন্ত্রি হবার পর খাবারগুলো ভালই দেয়।‘

এবার ক্যামেরা বাইরের সিন নিতে থাকলো। হু হু করে সাফারি ছুটে চলেছে। চারিধার সবুজ। কেরালা আমি কোনদিন যাই নি তাই বলতে পারবো না ওরা ঠিক কোথা দিয়ে যাচ্ছে। আমার মনে হচ্ছে ওরা শুধু দুজনেই আছে। তারমানে এটা ঠিক প্যাকেজ ট্যুর নয়। যার গলা শুনতে পারছি ও বোধহয় মিতার ফোন বন্ধু, বিদিশার মতো। কিন্তু ছেলেটাকে দেখব কখন। মিতার গলা শুনতে পেলাম, ‘আরে কি বাইরের ছবি তুলছ। ক্যামেরাটা আমাকে দাও তো আমি কিছুক্ষণ তুলি।‘

ক্যামেরাটা কেঁপে উঠলো মানে লোকটা মিতাকে ক্যামেরাটা দিচ্ছে। প্রায় দু মিনিটের মতো কামেরাতে কিছুই দেখা গেল না তারপর মিতা ক্যামেরাটা ফিক্স করলো। প্রথমে বাইরে তারপর আস্তে আস্তে গাড়ির মধ্যে। ড্রাইভারের মাথার পেছন কিছুটা বাইরের সিন তারপর লোকটার মুখে। মুখ দেখে আমি তো থ। মিতা একটু দুরের থেকে ওকে দেখাতে চাইছে তাতে আরও ভালো লোকটাকে দেখতে পারছি। লোকটার তো মনে হয় আমার থেকে বয়স বেশি। নিদেনপক্ষে গোটা ৬০/৬২ তো হবে। মিতা এর বন্ধু। মিতা কি ফোনে বুঝতে পারে নি না ওর সমন্ধে কিছু জিজ্ঞেস করে নি।

মিতার গলার আওয়াজ পেলাম, ‘হোটেলে ঢুকে প্রথমে দাঁড়ি কামাবে। পাকা পাকা দাড়িগুলো খুব চোখে লাগছে। মনেই হচ্ছে না তোমার ৬৫ বছর। অনেক বুড়ো লাগছে।‘
নাও কথা শোন। লোকটার বয়স বলে কিনা ৬৫। আরে যে কারনে মিতা বন্ধু খুঁজল সেতো ওর মনের মতো হোল না। যাহোক লোকটাকে দেখে কেতাদুরস্ত লাগছে। চোখে রিমলেস চশমা, মাথায় ভরাট চুল, ক্যামেরাতে ঠিক বোঝা যাচ্ছে না চুল কতোটা পেকেছে। আমার বেশ পাকা। মাঝে মাঝে কালার মারতে হয়। সে অবশ্য সবাই মারে। লোকটাও মেরেছে নির্ঘাত ট্যুরে বেরোনোর আগে।

লোকটা মিতার কথা শুনে মিতার দিকে ঘুরলো, খুব সুন্দর দেখতে। যদি ৬৫ ওর বয়স হয় তাহলেও মুখটা কিন্তু বেশ চকচক করছে। আমি সিডিটা পস করে উঠে গেলাম আয়নাতে আমার মুখটা দেখতে। দেখে সন্তুষ্ট হয়ে আবার সোফাতে এসে বসলাম আর সিডিটা চালু করলাম।

লোকটা মিতার দিকে তাকিয়ে হাসছে, বলল, ‘বুড়ো তো হয়ে গেছি আর কি দরকার বয়স লোকাবার। পাকা দাঁড়ি আমার হবে না একটা ২৫ বছর ছেলের হবে?’

মিতার গলা শুনলাম, ‘তাহলে চুলে কালার করেছো কেন?’

লোকটা আবার হাসল, উত্তর দিলো, ‘তোমার মতো একটা সুন্দরীর সাথে ঘুরতে যাচ্ছি একটু তো নিজেকে ইম্প্রেসিভ দেখাতে হবে নাকি। যারা আমাদের দুজনকে দেখবে বলবে দ্যাখো চাঁদ আর বাঁদর কোনদিন মিল খায়।‘

মিতা খিলখিল করে হেসে উঠলো, বলল, ‘বাবা এতো প্রশংসা? রাখব কোথায়?’

লোকটা বলল, ‘সুন্দরীকে তো সুন্দরী বলতে হবে। যাই বোলো না কেন মিতা অ্যাই ফিল প্রাউড টু বি উর ফ্রেন্ড। আমার বউয়ের থেকে অনেক সুন্দর তুমি।‘

মিতা বাইরের দিকে ক্যামেরার ফোকাস করে বলল, ‘থাক থাক আর সকালবেলা এতো প্রশংসা করতে হবে না।‘

আমার বেশ গর্ব বোধ হোল মিতাকে লোকটা সুন্দরী বলায়। মনে হোল যেন ওদের কাছে দাঁড়িয়ে আছি আর মিতার দিকে তাকাচ্ছি। মিতা বলছে, ‘নাও তুমি তুলবে তো তোল। আমার হাত ব্যথা হয়ে গেছে।‘ কিন্তু লোকটা ওর বউয়ের কথা বলল। ও কি আমার মতো। বউ বাড়িতে রেখে বাইরে মজা করতে এসেছে মিতার সাথে?
আবার সেই অন্ধকার, কিছুক্ষণ পর আবার বাইরের সবুজ দৃশ্য। দেখতে খুব ভালো লাগছে। বিদিশাকে নিয়ে যাবার কথা ভাবলাম। যেতে হবে এইখানে ওর সাথে। কিন্তু কোন অফিস কাজ নয় শুধুমাত্র ট্যুরের জন্য।

আবার মিতার গলা, ‘এই অনির্বাণ, গাড়িটা একটু থামাতে বলবে, খুব বাথরুম পেয়েছে।‘
মিতা কতো স্মার্ট হয়ে গেছে। আগে সবার সামনে বাথরুম পেয়েছে কথাটা বলতে পারত না এখন কতো অবলীলায় লোকটাকে বলে দিলো।

লোকটা ড্রাইভারকে বলল গাড়িটা থামাতে একটা সাইডে। গাড়িটা থেমে গেল। ক্যামেরা আবার অন্ধকার। বেশ কিছুক্ষণ পরে ক্যামেরাটা মিতার পেছনটা দেখাল। ও আগে হেঁটে যাচ্ছে, লোকটা ক্যামেরা নিয়ে ওর পিছন পিছন। মিতার হাঁটা খুব সুন্দর। মিতার হাইট খুব বেশি না আবার কমও না। সালওয়ারের উপর থেকে ওর বডির আন্দাজ পাওয়া না গেলেও ওর পাছার অবয়ব ফুটে উঠেছে। ভরাট পাছা ওর হাঁটার তালে তালে একবার উঠছে আর নামছে। লোকটা একটু অসভ্য মনে হয় কারন ও জুম করেছে মিতার পাছাকে। সারা স্ক্রিন জুড়ে মিতার পাছা। কামিজটা একটু উপরে উঠে আছে। টাইট প্যান্ট। থাই আর পায়ের মাংসল অংশ খুব পরিস্কার প্যান্ট মানে সালওারের উপর থেকে। অনির্বাণ নামটা শালা আমার থেকে খুব সুন্দর। অনির্বাণের গলা শুনলাম, ‘ওই তো একটা ঝোপ, ওর পিছনে বস গিয়ে।‘

মিতা পেছনে তাকিয়ে বলল, একটু দূরে কথাটা পরিস্কার না হোলেও বুঝলাম, ‘আরে তুমি আমার পেছনে আসছ কেন? আমার বাথরুমের ছবি তুলবে নাকি?’

অনির্বাণ হেসে বলল, ‘তুললেই বা, কি হবে ওঠালে?’

মিতা হাসল। বলল, ‘তোমরা বুড়োরা খুব সেক্সি হয়ে যাও বয়স হলে। না তুমি তুলবে না।‘

মিতা কি আমাকেও মিন করলো বুড়ো বলে। মিতার সাথে যেতে যেতে আমিও মেয়েদের পাছা আর বুকের দিকে নজর দিই। ঠিকই বলেছে। বয়স হলে দেখনদারী বেড়ে যায়।

অনির্বাণ বলল, ‘আরে ঘুরতে এলাম সব স্মৃতি তুলে রাখতে হবে কিনা।অবসর সময়ে এই তো সাথী হবে। দেখতে দেখতে আবার এই সব দিনগুলোতে ফিরে যাবো। কম নেশা!’

মিতা বলল, ‘যা ইচ্ছে কর।‘ বলে ও ঝোপের পিছনে চলে গেল। ঝোপ মানে কিছু ঘাস আরকি। অনির্বাণ ওখানে দাঁড়িয়ে পড়লো কিন্তু ক্যামেরা মিতার দিকে। মিতা ওর দিকে পিছন ফিরে কামিজের উপরের অংশটা তুলে দিলো। মিতার টাইট প্যান্টের উপর পাছাদুটো পরিস্কার। কি গোলাকার আর সুডৌল। অনির্বাণ জুম করে একদম স্ক্রিন ভরে ওর পাছার দৃশ্য তুলতে থাকলো। মিতা প্যান্টে আঙুল ঢুকিয়ে সালওার আর প্যান্টি দুটোই একসাথে নিচে হাঁটুর কাছে নামিয়ে দিলো। মিতার নগ্ন পাছা এখন স্ক্রিন জুড়ে। ধবধবে পেলব পাছা। আমার হাত নিশপিশ করছে অনির্বাণ ওর পাছার ছবি তুলছে বলে। কাছে থাকলে নিশ্চিতভাবে চর লাগাতাম ঠাটিয়ে। মিতা আস্তে আস্তে বসতে লাগলো আর ওর পাছা ততো ছড়াতে লাগলো দুধারে। অদ্ভুত একটা দৃশ্য। একি আমার লিঙ্গ তো খাঁড়া হয়ে যাচ্ছে এটা দেখে। মিতা আরেকটু নিচু হতে ওর পায়ুদ্বার দেখতে পেলাম। আমিও দেখলাম আর অনির্বাণও দেখল। পেছন থেকে যোনী ঠিক দেখা না গেলেও বুঝতে পারলাম যোনীদেশের কালো অংশ। যৌনকেশ দেখতে পেলাম মনে হোল। যতদূর জানি মিতা যোনী সেভ করে থাকে। তাহলে কি ওই কালো অংশ?
মিতা পেচ্ছাপ করতে শুরু করেছে। অনির্বাণের কামেরায় দেখতে পারছি পেচ্ছাপের ধার বিপুল বেগে নির্গম হচ্ছে। পায়ের কাছে ঘাস পুরো ভিজে উঠছে আর কেমন একটা ফেনা তৈরি হচ্ছে। জিও অনির্বাণ যেটা আমি এতো বছর ধরে দেখতে পাই নি সেটা তুমি তো দেখলেই আবার আমাকেও দেখালে। ধন্যবাদ। ওর খুব পেচ্ছাপ পেয়েছিল। আস্তে আস্তে গতিবেগ কম হয়ে এলো তারপর ফোঁটা ফোঁটা শেষে শেষ। মিতা বসে বসেই ব্যাগ থেকে টিস্যু পেপার বার করে ওর যোনী মুছল একটা আবার দুটো দিয়ে। তারপর আবার উঠে দাঁড়ালো। নগ্ন পাছা আবার চোখের সামনে। অনির্বাণ জুম কমায় নি। মিতা প্যান্ট আর প্যান্টি টেনে কোমরের উপর বসিয়ে দিল তারপর কামিজটা টেনে নিচে নামিয়ে ঘুরে দাঁড়ালো চলে আসার জন্য। ও হাসল অনির্বাণের দিকে তাকিয়ে। বলল, ‘আরে সব কিছু তো তুললে, এবার তো বন্ধ কর ক্যামেরাটা।‘

অনির্বাণের কাছে আসতে মিতা বলল, ‘খুব মজা না ল্যাংটো মেয়েদের ছবি তুলতে।‘

অনির্বাণ হেসে বলল, ‘সে আর বলতে। আরও মজা হবে যখন এই দৃশ্যগুলো টিভি স্ক্রিনে দেখব।‘

মিতা আবার হেসে জবাব দিলো, ‘বাড়িতে তো বউ নেই। তোমার মজাই আলাদা।‘

আমার একটু লজ্জা পেল। কিছুক্ষণ আগে লোকটার বউ আছে ভেবেছিলাম। লোকটা একা থাকে। ছেলেপুলে আছে কিনা কে জানে।

আবার ওরা গাড়িতে উঠে বসল এবং যথারীতি ক্যামেরা অন্ধকারে চলে গেল।

(৫ম পর্ব সমাপ্ত)

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s