বন্ধুর বউ – মধুর প্রতিশোধ


প্রতিশোধ বলা হলেও এটা কোন রেইপ ঘটনা না। এটা ছিলো সুযোগের সদ্বব্যবহার করা। প্রতিশোধটা ভিন্ন অর্থে।

আমার বন্ধুটির নাম নয়ন। আর তার এক সময়ের প্রেমিকা আর এখন বিবাহিত বউটির নাম – আখি। দুজনের প্রেমের বয়স ছিলো চার বছর। আর বিয়ে হয়েছে আর ছয় বছর। ওদের দশ বছরের সম্পর্কে কালি লেগে গেলো একদিন।

আখি আমাদের পাশের বিল্ডিং এ থাকতো। প্রায় প্রতিদিন বিকেলে আখি তাদের ছাদে উঠতো। আমিও উঠতাম আমার শখের কোডাক ক্যামেরা নিয়ে। বেশী ছবি তুলতাম না কারন শেষ হয়ে এলেই তো আবার রীল কিনতে হত। যাইহোক, আখি মাঝে মাঝে ইশারা বা কথা বলার চেষ্টা করলেও আমি পাত্তা দেইনি তেমন। কতই বা বয়স ছিলো ওর? ১৩ এর মত। চেহারাও তেমন আহামরি ছিলো না। সেই তুলোনায় আমাদের উপরের তলায় বিজলী ছিলো একটা আইটেম বম্ব। বিজলী ছিলো আমার বয়সী। কিন্তু ১৬ বছরেই বিজলীর ফিগার ছিলো চেয়ে চেয়ে দেখার মত। আমি আমার ধন-মন সব বিজলীর নামে সমর্পন করে বসে ছিলাম। আখি নামের পিচ্চি একটা আনাকর্ষনীয় মেয়ের দিকে আমার তাকানোটা ছিলো তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের ভংগিতে সীমাবদ্ধ। সেই আখির সাথে আমার বন্ধুর সেই বছরেই প্রেম হয়ে গেলো।

চার বছরের প্রেমের জীবনে অনেক ঝামেলা পেরিয়ে একদিন দুজনে হুট করে পালিয়েও গেলো। প্লাইয়ে গিয়ে তারা কোথায় যেনো কোর্ট ম্যারেজ করে এক মাস বাসার বাইরে থেকেও আসলো। আখির বয়স যদিও বিয়ের সময় ১৭ হয়েছিলো, নয়ন কিভাবে কিভাবে যেনো কিছু জাল সার্টিফিকেট বানিয়ে সেখানে আখির বয়স ১৮ দেখিয়ে দেয়। পালিয়ে যাওয়ার মাসখানেক পর একদিন দুজনকে দেখা যায় নয়নের মা বাবার পা ধরে বসে আছে। নয়নের মা বাবা ছহেলের কথা চিন্তা করে দুজনকেই মেনে নিলেন। নয়ন কিছুদিন পর একটা প্রাইভেট ফার্মে অল্প বেতনে চাকরী নিলো। আর আখি পুরোদস্তুর হাউজওয়াইফ হয়ে গেলো।

আজ দশ বছর পর আখিকে দেখে মনে হলো আমি বেশ বড় একটা ভুল করে ফেলেছি আখির প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে। সেই বালিকা আখি তার গুবরে পোকার খোলস ছেড়ে বেড়িয়ে এসে পরিপুর্ন প্রজাপতি হয়ে গিয়েছে। নীল শাড়িস সাথে সাদা ব্লাউজ পড়া আখিকে দেখে আমার বুকের কোথায় যেনো একটু ব্যাথা ব্যাথা করতে লাগলো।

আমরা বসে ছিলাম অঞ্জলীদিদির হলরুমের মত বিশাল ড্রয়িংরুমে। আজকে অঞ্জলিদিদি একটা পার্টি থ্রু করেছেন। তার নাকি বেশ বড় একটা শিপমেন্ট আটকে ছিলো চিটাগাং বন্দরে। গত সপ্তাহে সেটা ছাড়া পেয়েছে। এই উপলক্ষে পার্টি। নিশ্চয়ই বিশাল অঙ্কের টাকার ব্যাপার, নাহলে এতো বড় পার্টি দেয়ার কথা না। অঞ্জলিদিদিকে আমি আগে চিনতাম না। নয়নই আমাকে চিনিয়েছে। অঞ্জলিদি নয়নের বস। আমার কোম্পানীর সাথে নয়নদের কোম্পানির একটা ডিল হয়েছিল গত বছর। সেই ডিলের সময় আমি আর নয়ন নিজ নিজ কোম্পানীর রেপ্রেজেন্টেটিভ ছিলাম। তখনই অঞ্জলিদির সাতেহ পরচইয়। আজকের পার্টিতে কল করার আগে অঞ্জলিদির সাথে আমার সব মিলিয়ে তিনবার কথা হয়েছে। আজকের পার্টির কল টা অনেকটা অপ্রত্যাশিত ছিলো। এখানে আসার আগে নয়নের সাথে কনফার্ম হয়ে নিয়েছিলাম। যদি ও আসে তাহলে আমি আসবো। আর না হলে আমি স্কিপ করবো। এমন একটা চিন্তা ছিলো মাথায়। নয়ন কনফার্ম করলো যে ও তার বউ নিয়েই আসবে। তো, আমি আর নয়ন দুজনে দুটো ড্রিঙ্কস নিয়ে বসলাম। আর আমাদের দশফিট দূরে আখি অঞ্জলিদির সাথে হেসে হেসে কথা বলছে।

আখিকে আমি যেনো নতুন করে দেখতে লাগলাম। ওকে এর আগে একবার মাত্র দেখেছিলাম বিদেশ থেকে আসার পর। তাও কিছুক্ষনের জন্য নয়নের বাসায়। নয়নের মা ছিলো, আমরা কথা বলছিলাম। এমন সময় আখি এসে সালাম দিয়েছিলো। তখন ও অনেক ঢেকেঢুকে এসেছিলো। আমি চিন্তা করলাম – এই মেয়েটাকে আমি গত ৩/৪ বছর দেখিনি। গত ৩/৪ বছরে কি এমন ঘটলো গেলো যে ও এমন পরিপুর্ন যুবতী হয়ে গেলো! আমি ড্রিঙ্কস হাতে নিয়ে ওর সবকিছুতে চোখ বুলাতে লাগলাম। আখি শাড়ী পড়েছে নাভীর অনেক নীচে। প্রায় ছয় থেকে আট আঙ্গুল নিচে। এটা বোধহয় এখনকার ফ্যাশন। ওর নাভীটা দেখা যাচ্ছিলো না যদিও। সাদা ফুল হাতা ব্লাউজে আখিকে বেশ মানিয়েছে। ওর বুকের কাটাটা কিছুটা বড়। অল্প একটু ক্লিভেজ মাঝে মাঝে উকি দিচ্ছে। গলায় একটা পাথরের নেকলেস পড়া। এক হাতে ব্রেসলেট আরেক হাতে চুড়ি। সবচেয়ে যে ব্যাপারটা আমার কাছে ইরোটিক লেগেছে সেটা হলো আখির বগল ভেজা।

– কিরে কি দেখছিস এমন করে? (বন্ধু নয়নের ডাকে সম্বিত ফিরে পেলাম)

– তদের অঞ্জিলিদিকে দেখছিলাম। এই বয়সেও কেমন দারুন ফিগার করে রেখেছেন, তাই নারে? (আমি নার্ভাসভাবে গ্লাসে চুমুক দিলাম)

– হুম, ঠিকই বলেছিস। অফিসের প্রায় সবাই উনার ব্যাক দেখার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ে। ফ্রন্ট তো আর ওভাবে দেখা যায়না। উনি সবার চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলেন। (পরের কথাগুলু বলার জন্য নয়ন আমার খুব কাছে সরে আসলো) মাগীর সাথে আমাদের জেনারেল ম্যানেজারের ছেলের একটা সম্পর্কের কথা শুনেছিলাম বেশ কিছুদিন আগে। ব্যাপারটা ধামাচাপা পড়লেও আমি শিউর মাগী অল্প বয়সী ছেলেদের খেতে খুব পছন্দ করে।

– কস কী! তাইলেতো মামা তোমার চান্স নেয়া দরকার। (আমি তরল গলায় বললাম)

– চান্স নেয়ার জন্যই তো তোদের সাথে ডীল টা করলাম। সত্যি কথা বলতে কি, আমার পজিশন অতো বড় নয় যে অঞ্জলিদির ঘরোয়া পার্টিতে ইনভাইটেশন পাবো। আমার ইমেডিয়েট বস কে বলে কয়ে এই কাজ টা হাতে নিয়েছিলাম। তারপরের টা তো তুই ভালই জানস। থ্যঙ্কস দোস্ত। তুই না থাকলে ডীল টা এতো সহজে করা যাতোনা। (নয়ন আমার কাধ চেপে ধরলো)

– আরে ধুর, বাদ দে ব্যাটা। (আমি এড়াতে চাইলাম)

– তবে অঞ্জিলিদির চোখে পড়ার জন্য যতটা, তার চেয়ে বেশি এটার প্রয়োজন ছিলো আখির। মাঝে মাঝে ওর সংসার নিয়ে অভিজোগ গুলূ শুনলে মনে হয় – শালার, আমার যদি অনেক টাকা থাকতো, তাহলে এত যন্ত্রণা আর সহ্য করতে হতনা।

আমি চুপচাপ ড্রিঙ্কস করতে লাগলাম। আমার মাথায় তখন অন্য চিন্তা

কিছুক্ষন পর আখি এসে আমাদের সাথে জয়েন করলো।

– কী ভাইয়া, কেমন আছেন?

– এইতো, ভালো। তোমার কি অবস্থা?

– আপনাদের দোয়ায় আপনার বন্ধু যেমন রেখেছে আর কি।

– মানে কি! (নয়ন পাশ থেকে চেচিয়ে উঠলো) তুমি কি বলতে চাইছো আমি তোমাকে খারাপ রেখেছি?

– আমি কি তাই বললাম নাকি? (আখির কন্ঠে ডিফেন্ডিং সুর) আমিতো জাস্ট এই ভেবে বললাম যে…

– উহু, কথাটা তুমি এই ভাবে বলোনি। (নয়ন জোরে জোরে মাথা নাড়লো। ) তুমি আমাকে খোচা দেয়ার জন্যই বলেছো।

আখি আমার দিকে করুন চোখে তাকালো। আমি দেখলাম এভাবে চলতে থাকলে দুজনের মধ্যে ঝগড়া লাগতে দেরী হবেনা। আর এই মুহুর্তে থামানোর দায়িত্বটা আমারই।

– এই থামনা! কি শুরু করলিরে বাপ!

– না, ও এই কথা বললো ক্যান? (নয়নের ঝাল যেনো মিটছে না)

– আরে তুই এতো বোকা কেন? ওকে আজকে সবাই ঘুরে ঘুরে দেখছিলো। এতো সুন্দর ফি… মানে এত সুন্দর এবং হাসিখুশি মেয়েকে যেই দেখছে সেই অবাক হচ্ছে। আর আখি এর ক্রেডিট টা তোকে দিতে চাইলো আর তুই ঝামেলা শুরু করলি। মাঝে মাঝে তোদের ঝগড়া দেখে মনে হয় তোদের দুজনের বিয়েটাই ভুল হয়েছে। (আমি গলা না উচিয়েই নয়নকে ঝাড়লাম।)

– আচ্ছা, স্যরি। আমি আসলে বুঝতে পারিনি। (নয়ন কিছুক্ষন চুপ থেকে আমাদের দুজনের উদ্দেশ্য করে বললো। রাতের বেলা হয়তো বউ এর কাছে ভালো মত স্যরি বলবে)

আমরা তিনজনেই চুপ মেরে গেলাম এর পর। অবশ্য বেশিক্ষনের জন্য না। কিছুক্ষন পর অঞ্জলিদির পিএস এসে নয়নকে ডেকে নিয়ে গেলো। অঞ্জলিদি নাকি কথা বলবেন। আমাকে একা পেয়ে আখি যেনো একটু খুশিই হলো মনে হলো। আমার বুঝার ভুল ও হতে পারে।

আমি আখিকে একটু ওয়েট করতে বলে উঠে আরেকটা ড্রিঙ্কস নিয়ে আসলাম। আখির জন্যও একটা ড্রিঙ্কস নিয়ে আসলাম আমি।

– আমিতো ড্রিঙ্কস করি না ভাইয়া। (আখিকে বিব্রত দেখা গেলো)

– তাই নাকি? স্যরি, আমি ভেবেছিলাম পার্টিতে আসলে হয়তো একটু আধটু কর। এনিওয়ে, এটায় কিন্তু এলকোহোল তেমন নেই।

– সেটা সমস্যা না ভাইয়া, সমস্যা উনি। (আখি চোখের ইশারায় নয়ন কে বুঝালো)

– ও আচ্ছা, বুঝলাম। ঠিক আছে তাহলে নেয়ার দরকার নেই। তবে, জিনিসটা কিন্তু আসলে জুস। (আমি পাশে রাখতে রাখতে বললাম)

– দেখতে কিন্তু জুস এ লাগছে। খেলে মাথা ঘুরাবে নাতো? (আখি তাকিয়ে আছে ড্রিঙ্কসের দিকে)

– আরে নাহ। তোমাকে বলি এখান একি কি আছে। পিচ আচে, পাইনএপল আছে, ক্র্যানবেরি আছে, আর আছে ২ চামুচ ভদকা। এটা মেয়েদের জন্যই। অনেকেই খাচ্ছে তাকিয়ে দেখো।

– হুম (আখি আশে পাশে তাকালো।) আচ্ছা দিন। একদিন খেলে কিছু হবেনা।

আমি হেসে আখির হাতে ধরিয়ে দিলাম। আখি স্ট্র দিয়ে নেড়ে নেড়ে একটা সিপ নিলো।

– বাহ, খেতে তো অনেক মজা! (বলে আখি আরেকটা সিপ নিলো)

– হুম, বলেছিলাম না? চলো আমরা ওদিকটায় যাই।

আমি আখিকে নিয়ে বারান্দায় বের হলাম। বেশ বড় বারান্দা। সামনে কিছুটা খোলা যায়গা। আমরা দুজন একটু দুরত্ব রেখে দাড়ালাম।

– আচ্ছা ভাইয়া, এটার নাম কি? (আখি ওর ড্রিঙ্কসের প্রতি ইঙ্গিত করলো)

– সেক্স অন দ্যা বিচ। (আমি সংক্ষেপে বললাম)

– ও (আখি চুপ হয়ে গেলো)

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s