জীবনের সুখের জন্য… – পর্ব ০২


(২য় পর্ব)

বিদিশা একটু দূরে গিয়ে আমাকে দেখতে লাগলো। আমি বোকার মতো ওর দিকে তাকিয়ে দাঁড়িয়ে আছি আর ভাবছি এখন কি আমি সত্যি মুরগী। কিছুক্ষণ এইভাবে থাকার পর দেখলাম ও মিষ্টি হেসে আমার কাছে এলো আর আমার হাত ধরে সিটের উপর বসিয়ে দিলো। আমার গা ঘেঁসে বসে বলল, ‘সত্যি কথা বলব, তোমাকে দেখে মনেই হয় না তোমার ৫০ বছর। এখনো যে কেউ তোমাকে দেখে বলবে হার্ডলি উ আর ৪০।‘

আমি ওর চোখে চোখ রেখে বললাম। ‘বিদিশা তোমার কাছে আমার মনে হয় আমি কাফি মুরগী হয়েছি। এটাও কি আরেকবার মুরগী বানান হোল?’

বিদিশা বড় বড় চোখ করে বলল, ‘মুরগী, সে আবার কি কথা। যেটা মনে হল সেটাই বললাম। তুমি বিশ্বাস করো আর নাই করো।‘

ওর চোখ মুখ দেখে মনে হোল ও সত্যি কথাই বলছে। নিজেকে খুব গর্বিত মনে হোল একজন সুন্দরীর মুখ থেকে প্রসংশা শুনতে পেয়ে। সামনে লটকানো আয়নায় নিজের মুখটা একবার উঁকি মেরে দেখে নিলাম। জানি না মনে হল যেন ইয়েস আই এম লুকিং গুড।

ওর পাশে এসে বসলাম। ওর মতো গা ঘেঁসে বসতে সাহস পেলাম না। ও জানালা থেকে মুখ ঘুরিয়ে আমাকে দেখল আর বলল, ‘হাই গুড লুকিং ওল্ড ম্যান। জানো আমি আবার বলছি উ হাভ মেনটেন উর ফিগার নাইস্লি। আই এম প্রাউড টু বি উর ফ্রেন্ড।‘
তারপর অনেক কথা বলতে বলতে খেয়াল করলাম ঝারসুগুদাহ প্রায় পৌঁছে গেছি। আমি তড়িঘড়ি ব্যাগগুলো সিটের নিচ থেকে টেনে বার করে ওকে বললাম, ‘বিদিশা হারি। স্টেশন এসে গেছে। আর কিছুক্ষণের মধ্যে আমরা পৌঁছে যাবো।‘

বিদিশা উঠে শাড়ি ঠিক করে তাকাতেই আমি কুপের দরজা খুলে বেড়িয়ে এলাম, পেছনে বিদিশা। স্টেশনে ট্রেন থামতেই আমরা নেমে গেলাম। বাইরে একটা গাড়ি ভাড়া করে চললাম হোটেলের উদ্দেশ্যে। বলাই ছিল। অর্চারড হোটেল। আমি কয়েকবার এখানে এসে থেকেছি। বাঙালি পরিচালিত। রিশেপ্সনে ঢুকতেই মেয়েটি ওয়েলকাম করলো। সুন্দর হেসে বলল বিদিশার দিকে তাকিয়ে ওকেও ওয়েলকাম ম্যাডাম বলে আমাকে বলল, ‘স্যার আপনার জন্য ২০১ রুম ঠিক করে রেখেছি। আপনার আগের দিনের রিকুয়েস্ট মনে আছে আমার।‘

আমি থ্যাঙ্ক উ বলে ওর হাত থেকে কার্ডটা নিলাম। ওটাই দরজা খোলবার চাবি। বিদিশাকে নিয়ে লিফটে ঢুকে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম যাক মেয়েটা প্রশ্ন করে নি বিদিশাকে নিয়ে। বিদিশার দিকে তাকাতে বিদিশা মুচকি হাসল। লিফট থেমে গেল ২নং ফ্লোরে। আমরা বেড়িয়ে এলাম আর ২০১ এর দরজা খুলে ভিতরে ঢুকলাম।

ব্যাগগুলো নামিয়ে রাখতেই বিদিশা বম্ব ছাড়ল, ‘গৌতম খুব যে একটাই ঘর নিলে। তুমি কি এই ঘরে আমার সাথেই থাকবে?’

আশা করেছিলাম বম্বটা। উত্তর দিতে গিয়ে ঢোঁক গিলতে হোল। আমি বলতে চাইলাম, ‘না মানে কি করে দুটো আলাদা রুম নিতে পারতাম বলতো? ওরা কি ভাবতো?’

বিদিশা গম্ভীর হয়ে বলল, ‘কি ভাবতো আবার? ভাবতো তোমার কোম্পানির আমিও একটা স্টাফ। ঠিক বললাম কিনা?’

আমি ঘাবড়ে উত্তর দি, ‘সেটা ঠিক বটে। তাইতো করতে পারতাম আমি। একদম খেয়াল করি নি।‘ ওর দিকে তাকিয়ে বলি, ‘তবে কি যাবো নিচে, আরেকটা রুম দিতে বলব?’

বিদিশা আয়নার দিকে এগিয়ে চুলের ভাঁজ খুলতে খুলতে বলল, ‘তুমি কি একদম বোকা? এখন যদি আরেকটা রুমের কথা বলতে যাও, তাহলে ওরা কি ভাববে যে তোমার অসৎ উদ্দ্যেশ্যে আমি রাজি হই নি বলে তুমি আরেকটা রুম নিতে এসেছ।‘

আমি স্বগতোক্তির মতো বলে উঠলাম, ‘অসৎ উদ্দ্যেশ্য?’

ও সেই চুলের জট খুলতে খুলতে বলল, ‘আর ন্যাকামো করতে হবে না। দারজা হাট করে খলে। বন্ধ করবে প্লিস?’

আমি তাড়াতাড়ি এগিয়ে গিয়ে দরজাটা বন্ধ করলাম। বললাম, ‘হ্যাঁ, দরজাটা হাট করে খোলা।‘

বিদিশার চুল খোলা হয়ে গেছে। চিরুনিটা নামিয়ে বলল, ‘আমি বাথরুমে যাচ্ছি। আমার পড়ে তুমি যেও।‘ ও বাথরুমের দিকে এগিয়ে গেল আর আমি বোকার মতো ওর যাওয়ার দিকে হাঁ করে তাকিয়ে থাকলাম।

ভিতরে ঢুকে ও দরজাটা বন্ধ করতেই একরাশ লজ্জা আমাকে গ্রাস করলো। ছিঃ ছিঃ কি লজ্জার কথা। মেয়েটার কাছে কি অপমানটাই না হলাম একটু বোকামির জন্য। কি ক্ষতিটা হত যদি আমি জিজ্ঞেসই করতাম। চমক ভাঙল বিদিশার গলা শুনে, ‘গৌতম আমার পার্সে আমার ব্যাগের চাবি আছে। ব্যাগটা খুললেই উপরে দেখবে আমার একটা নাইটি আছে। একটু বার করে দাও না প্লিস।‘

আমি সম্মোহনের মতো ওর পার্স খুলে ছোট চাবিটা বার করে ওর ব্যাগটা খুললাম। খুলতেই দেখি ওপরে ব্রা আর প্যান্টি রয়েছে সাজানো। আমি ভয়ে দুম করে ঢাকনাটা বন্ধ করে দিলাম আর ভাবতে থাকলাম কি করা উচিত আমার। আবার সম্বিত ফিরল

ওর গলা শুনে, ‘কি হোল, দেরি হচ্ছে কেন?’

যা থাকে কপালে বলে আবার ব্যাগটা খুললাম। ব্রা আর প্যান্টিগুলো সরিয়ে নাইটি বার করে আনলাম আর ব্রা প্যান্টি ঠিক করে সাজিয়ে রাখলাম। দরজাতে টোকা দিতেই ও একটু দরজাটা ফাঁক করে ওর সুন্দর পেলব একটা হাত বার করে দিলো। নাইটিটা হাতে দিতেই ও বলে উঠলো, ‘দাঁড়াও যেও না।‘

কিছুক্ষণ পড়ে আবার হাতটা বেড়িয়ে এলো এবার ওর হাতে শাড়ি আর সায়া। আমাকে বলল, ‘একটু হেল্প করো প্লিস, এগুলো খাটের ওপর রাখ।‘

আমি মন্ত্রমুগ্ধর মতো ওর হাত থেকে সেগুলো নিয়ে সরে এলাম ওখান থেকে। যেমন ভাবে মিতার শাড়ি আর সায়া ভাঁজ করে রাখি তেমন ভাবে ওগুলোও ভাঁজ করে রেখে দিলাম খাটের উপর। ওর কোন ব্রা পেলাম না। নিশ্চয় খোলে নি। আর শাড়ির নিচে প্যান্টি পরার তো প্রশ্নই ওঠে না। আমার তো তাই মনে হোল। যাইহোক আমার ব্যাগ খুলে আমি আমার নাইট ড্রেস বার করে নিলাম। দরজা খোলার শব্দ পেলাম। মুখ ঘুরিয়ে দেখি বিদিশা নাইটি পড়ে বেড়িয়ে এসেছে। একটা সদ্য প্রস্ফুটিত ফুলের মতো ওকে দেখতে লাগছে। চুল ছাড়া, নাইটির কালারের সাথে গায়ের রং যেন ফেটে বেরোচ্ছে। বিদিশাকে আরও সুন্দর দেখাচ্ছে। ও আমার দিকে তাকিয়ে হেসে বলল, ‘তুমি ফ্রেস হয়ে নাও।‘ বলে ও আয়নার দিকে গেল। আমি ওর স্তনের দোলা দেখতে পেলাম নাইটির নিচে। মানে ও নিচে কিছু পড়ে নি। আমি আর নজর না দিয়ে টাওয়েল কোমরে জড়িয়ে ওর দিকে পেছন ঘুরে প্যান্ট খুলে নিলাম। ভাঁজ করে দেওয়াল আলমারিতে হাঙ্গারে ঝুলিয়ে দেওয়ার পর শার্টটাও খুলে রেখে দিলাম। গেঞ্জিটা খুলে ভেতরে রেখে দিয়ে আমি বাথরুমে ঢুকলাম। ঢুকতেই নাকে বিদিশার গায়ের গন্ধ এসে লাগলো। নেশার মতো গন্ধ। মনমাতানো করা, পাগল করা একটা গন্ধ।

আমি দেখতে পেলাম দেওয়াল রডে ওর ভেজা ব্রা আর প্যান্টি ঝুলছে। ও কেঁচে শুকোতে দিয়েছে। প্যান্টির দিকে নজর দিতে মনে হোল স্টাইলিশ প্যান্টি। আস্তে করে হাতে নিলাম। সামনে মেলে ধরতে দেখি প্যান্টির সামনের দিকটা ফিশনেট লাগানো। প্যান্টিটা পড়ে যেন ওকে দেখতে পাচ্ছি। ওর যোনির সবটা দৃশ্যমান। আমার হাত কাঁপতে লাগলো। আমি যেমন ভাবে প্যান্টিটা রাখা ছিল তেমনি ভাবে রেখে দিয়ে আমিও আমার জাঙ্গিয়া খুলে কেঁচে নিলাম। আমার লিঙ্গটা থিরথির করে কাঁপছে। প্যান্টির এফেক্ট। কেঁচে দেবার পর দেখি শুকোতে দেবার জায়গা একটাই ওই রড। কিন্তু আবার রিস্ক নিতে আমি রাজি নই, আমি সওয়ারের ওপর আমারটা শুকোতে দিলাম। না রইল বাঁশ না বাজবে বাঁশী। আমি স্নান সেরে আমার নাইট প্যান্টটা পড়ে বেড়িয়ে এলাম।

বিদিশাকে দেখলাম টিভি চালিয়ে দেখছে। আমার একটু মদ খাওয়া দরকার। বাড়িতে থাকলে মিতার জন্য খাওয়া যায় না, আমিই খাই না, কিন্তু বাইরে বেরোলে আমি রাজা। আমার মালিক তখন আমি নিজে। বাট নাও হেয়ার ইস শি। আমি চুল আঁচড়াতে আঁচড়াতে বললাম, ‘বিদিশা, কি নেবে?’ দেখি ও কি উত্তর দেয়। তারপরে কায়দা করে বলা যাবে।

আমার হাত থেকে চিরুনি পড়ে গেল ওর কথা শুনে। ও উত্তর দিলো, ‘ভদকা বল, সাথে যাহোক স্নাক্স।‘

সেকি, মেয়েটা কি সহজভাবে উত্তরটা দিলো আর আমি কি করি কিভাবে করি ভাবতে লেগেছিলাম। বোকাচোদা। নিজেকে খিস্তি দিলাম। একটা মেয়ে এতো সহজ হতে পারে আর আমি কিনা এনএলপিপি করে যাচ্ছি। মানে নিজ লিঙ্গম পোঁদে পুরম। ছ্যাঃ।

আমি আর কোন কথা না বলে ফোনে অর্ডারটা দিলাম। কিছুক্ষণ পড়ে ওয়েটার অর্ডারটা রুমে দিয়ে গেল। আমি দুটো গ্লাসে যখন ভদকা ঢালছি বিদিশা কাছে এসে আমার গা ঘেঁসে দাঁড়ালো, বলল, ‘অবাক হলে না আমার মুখ থেকে ভদকা শুনে? আসলে একা থেকে থেকে সময় কাটাতেই এই অভ্যেস হয়ে গেছে। এখন না খেলে যেন ঘুম হবে না।‘

আমার গা ঘেঁসে দাঁড়ানোতে আমি ওর গায়ের উত্তাপ পাচ্ছি, ধীরে ধীরে আমার শরীরে ছড়িয়ে যাচ্ছে। আমি বুঝতে পারছি আর কিছুক্ষণ ও এভাবে দাঁড়ালে আমার লিঙ্গ আমাকে অপ্রস্তুতে ফেলবে। তাই আমি দুটো গ্লাস তুলে ওর থেকে একটু দূরে সরে গিয়ে ওর হাতে একটা গ্লাস তুলে দিয়ে বললাম, ‘খারাপ কিছু না। বরং একটা বয়সে ড্রিংক করলে সেটা শরীরের জন্য ভালো।‘ আমি স্নাক্সের ডিশ হাতে তুলে নিয়ে বললাম, ‘চল ছাদে চল। ওখানে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ড্রিংক করা যাবে।‘

ও মুখটা বেঁকিয়ে বলল, ‘কি বলছ, আমার নাইটির নিচে কিছু পরি নি। এ অবস্থায় কি করে বাইরে যাবো?’

আমি ওকে সাহস দিয়ে বললাম, ‘আরে এই সময় উপরে কেউ থাকে না। কেউ দেখবে না তোমাকে। আমিও তো প্যান্ট এর নিচে কিছু পড়ি নি।‘

ও আমার দিকে তাকিয়ে হাসল, বলল, ‘সে আমি জানি। তোমার সম্পত্তির দোলা দেখেই বুঝেছি।‘ ও খিল খিল করে হেসে উঠলো আমাকে আবার বোকাচোদা বানিয়ে।

আমি ওর গায়ে ঠ্যালা দিয়ে বললাম, ‘অনেক দেখেছ, চল এখন বাইরে।‘

আমরা বেড়িয়ে এলাম। দরজা বন্ধ করে আমি ঘুরে দেখি ও করিডোর ধরে ছাদের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। করিডোরেরে শেষ মাথায় একটা জোরালো লাইট জ্বলছে। আমি পরিস্কার ওর নাইটির ভেতর দিয়ে ওর আবছা শারীরের অবয়ব বুঝতে পারছি। ওর পিঠ, কোমর, পাছার ঢেউ, সেই ঢেউয়ের নেমে আসা থাইয়ের সাথে সুডৌল পাছার মিলিয়ে যাওয়া, ওর লম্বা কমল পা, সব। আমার লিঙ্গরাজ এখন বাঁধন ছাড়া। ও ধীরে ধীরে জেগে উঠছে, প্যান্ট এর উপর দিয়ে ওর উত্থান পরিস্কার। এ অবস্থায় ওর সামনে দাঁড়াবো কি করে ভাবতেই ও ঘুরে দাঁড়িয়ে বলল, ‘কি হোল, এসো।‘

আর এসো। আমি নিজের উত্থানকে আড়াল করে বলে উঠলাম, ‘তুমি এগোও না। দারজাটা ঠিক লাগছে না। আমি আসছি।‘

বিদিশা কিছু না বলে ছাদের দিকে এগিয়ে গেল। আমি আরেকটু ওয়েট করে স্বাভাবিক হয়ে ওর দিকে এগোলাম। ওর কাছে আসতেই বলে উঠলাম, ‘দরজাটা বোধহয় ঠিক নেই। আনেক চেষ্টা করে লাগাতে পারলাম।‘

ও গ্লাসটা উঁচু করে ধরে বলে উঠলো, ‘চিয়ার্স, আমাদের দীর্ঘস্থায়ী বন্ধুত্তের জন্য।‘
আমিও চিয়ার্স বলে একটা সিপ দিলাম। তারপর এগিয়ে গেলাম স্বুমিং পুলের দিকে। আমি জানি এ সময় কিছু মেয়ে এখানে সাঁতার কাটে। মানে আগে দেখেছি আরকি। দেখলাম আমার অনুমান সত্যি। তিনটে মেয়ে বিকিনি পড়ে সাঁতার কাটছে। জলটা একদম নীল, নীল আলো চারপাশে জ্বলছে। কেমন একটা মোহময় পরিবেশ। ২/৩টে হোটেলের ছেলে এধার ওধার ঘুরে বেড়াচ্ছে। মেয়েগুলোর তাতে ভ্রুক্ষেপ নেই। ওরা হাসছে, সাঁতরাচ্ছে, একে অন্য জনের দিকে জল ছুঁড়ছে। আমরা ওপরে দাঁড়িয়ে দেখছি।

বিদিশা জিজ্ঞেস করলো, ‘ছেলেরা সাঁতার কাটতে পারে না এদের মধ্যে?’

আমি বললাম, ‘কেন পারে না। নিশ্চয় পারে। এটা সকলের জন্য।‘ ও আর কিছু না বলে অন্য দিকে এগিয়ে গেল। বেশ ভালই লাগছিল ব্রা প্যান্টি পরা মেয়েগুলোকে দেখতে, বেশ ডাগর ডগর। পাছাগুলো ভরাট, বুকগুলো বেশ উন্নত। কিন্তু বিদিশা যে আরও ভালো। তাই ইচ্ছে না থাকলেও আমিও এগোলাম।

এবার একটু সাহস করে বিদিশার কাছে দাঁড়ালাম আমার গা ওর গায়ের সাথে লাগিয়ে। একটু ওয়েট করলাম কিছু বলে কিনা। ওকে দেখলাম নিজের শরীরকে আমার উপর এলিয়ে দিতে যাতে আরও ভালোভাবে ওর দেহের ভার আমার দেহের ওপর পড়ে। আমি ওর গায়ের ওম নিতে নিতে গ্লাসে চুমুক দিলাম। বিদিশা একটা সিপ দিয়ে বলল, ‘ব্রা প্যান্টি পরা মেয়ে দেখতে ভালো লাগে কি বোলো?’

আমি মানে মানে করে বলে উঠলাম, ‘তা বৈকি। বয়স হলেও ছেলে ধর্ম তো আর হারিয়ে যায় নি। দেখতে তো একটু মন চায়। তুমি কি রাগ করেছো নাকি?’

ও বলে উঠলো, ‘রাগ করব কেন। দেখার জিনিস তো দেখবেই।‘

সেই মুহূর্তে আমার ফোনটা বেজে উঠলো। বিদিশা মন্তব্য করলো, ‘দেখ বউয়ের ফোন কিনা।‘

আমি ফোনে বার করে দেখলাম সত্যি মিতার ফোন। ওর দিকে তাকিয়ে আমি উত্তর করলাম, ‘বোলো।‘

মিতা ফোনে উত্তর দিলো, ‘কখন পৌঁছালে? কোন খবর দাও নি যে। কারোকে সাথে নিয়ে গেছ নাকি?’

আমি অবাক হলাম এই ভেবে মেয়েরা কি সত্যি অন্তর্যামী। বিদিশা ঠিক বলছে, মিতা ঠিক বলছে। আমি জবাব দিলাম, ‘কেন এ কথা বলছ? তোমার সন্দেহ হচ্ছে নাকি?’

ওদিক থেকে মিতার গলা ভেসে এলো, ‘না ঠিক তা না। অন্য সময় পৌঁছেই ফোন করো কিনা।‘

আমি মিথ্যে বললাম, ‘না ট্রেনটা একটু লেট ছিল। গা ধুয়ে ঠিক করছিলাম তোমাকে ফোন করব, তোমার ফোন এসে গেল।‘

মিতা উত্তর দিলো, ‘ট্রেনে কোন কষ্ট হয় নি তো? ঠিক সময়ে খেয়ে নিও। দেরি করো না কেমন। ভালো থেকো। রাখলাম।‘

আমি ফোনটা বন্ধ করতেই বিদিশা প্রশ্ন করলো, ‘কাউকে সাথে নিয়ে এসেছ কিনা জিজ্ঞেস করছিলো তো?’

আমি বললাম, ‘তোমরা মেয়েরা কি অন্তর্যামী। সব কিছু ঠিক বোলো।‘

বিদিশা বলল, ‘অন্তর্যামী হবার কি আছে? ট্রেন লেট ছিল বলে তুমি মিথ্যে বললে, তাতেই মনে হোল।‘

আমি আবার বললাম, ‘আর মিতার ফোন এসেছে কি করে জানলে?’

ও জবাব দিলো, ‘সোজা ব্যাপার। তুমি দুপুর থেকে আমার সাথে আছো। একবারও মিতাকে ফোন করো নি। খুব স্বাভাবিক যে ও ফোন করবে। আমিও হলে তাই করতাম।‘

আমি মনে মনে ভাবলাম বালের তোমাদের হিসেব সব ঠিক আছে শুধু আমি একটা গ্রেট বোকাচোদা আছি যে এগুলো কিছুই বোঝে না।

আমরা দুজনে মদ খেতে খেতে এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত হাঁটছিলাম। দুপেগ শেষ হয়ে গেছে এবং আমি আরেকটু সাহসী হয়ে উঠেছি। সাহসী বলতে বিদিশাকে ছুঁয়ে বা ঠেলে কথা বলছি এই রকম আর কি। তিনটে পেগ ঢালার পর আমি বিদিশাকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘আমার একটা প্রশ্ন করতে খুব ইচ্ছে করছে জানো।‘

বিদিশা ওর বাঁ হাতের আঙুলগুলো আমার ডান হাতের আঙুলে আঁকড়ে ধরে প্রশ্ন করলো, ‘আমার ব্যাপারে?’

আমি বললাম, ‘হ্যাঁ, তোমার ব্যাপারে।‘

ও হেসে উঠে বলল, ‘এতদিন পরিচয় হবার পরও কথা হবার পরও তোমার আমার সম্বন্ধে প্রশ্ন আছে?’

আমরা আবার সেই সুইমিং পুলের কাছে এসে দাঁড়ালাম। মেয়েগুলো আর নেই। পুলটা এখন ফাঁকা। নীল জলের উপর মৃদু বাতাসের তরঙ্গ খেলে যাচ্ছে। আমি জলের দিকে চোখ রেখে বললাম, ‘হ্যাঁ আছে। তুমি আমাকে বোলো আমি সময় কাটানোর বন্ধু খুঁজে তোমাকে পেয়েছি। আমার ভালো লেগেছে। কিন্তু তোমার মতো একটা সুন্দরী, যার স্বাস্থ্য আছে, ভালো কথা বলতে পারে সে কি আর এতদিন বন্ধু ছাড়া থাকতে পারে?’

বিদিশা ওর পাছাটা ছাদের পাঁচিলের দিকে ঠেসান দিয়ে আমার দিকে ঘুরে দাঁড়ালো। কিছুক্ষণ চুপ করে থাকার পর একটা নিঃশ্বাস নিয়ে বলল, ‘স্বামী মারা যাবার পর আমি আমার বাপের বাড়িতে ফিরে যায় নি কারন দাদাদের অত্যাচারের জন্য। বিয়ে হবার আগে থেকে দাদারা আমাকে ভালো চোখে দেখত না বোধহয় সুন্দরী ছিলাম বলে কিংবা পাড়ার ছেলেরা আমার জন্য লাইন লাগাতো বলে। সুতরাং সেই বাড়িতে ফিরে যাবার প্রশ্ন ছিল না। শ্বশুর বাড়ি থেকে ও বিয়ের পরে পরে বেড়িয়ে এসেছিল। আমার শ্বশুর বাড়ীর ধারনা ছিল আমি বুঝি আমার স্বামীর মাথা বিগড়ে দিয়েছিলাম। তাই সে বাড়িতে ফিরে যাবার প্রশ্নটাও দুরেই ছিল। হ্যাঁ, আমার স্বামী ভালো চাকরি করতো। শ্বশুর বাড়ি ছেড়ে আসার পর খুব তাড়াতাড়ি আমরা আমাদের নিজের বাড়ি তৈরি করি। তাই নিজের ঘর ছেড়ে অন্য কোথাও যাবার ব্যাপারটা দিমাগেই আসেনি।‘

আমি জানতেও পারিনি ও ওর পেগ কখন শেষ করে দিয়েছে। ও গ্লাসটা বাড়িয়ে দিতে বুঝলাম। আমি বললাম, ‘আজ একটু বেশি হয়ে যাচ্ছে না বিদিশা? দু পেগ তো হয়ে গেছে।‘

বিদিশা বলল, ‘না আজ তুমি যে সাথে আছো। একটু লাগাম ছাড়া হতে দোষ কি। দাও আজ একটু মনের সুখে মদ খাই।‘
কথা না বাড়িয়ে আমি আরেকটা পেগ ঢেলে দিলাম আর জল মিশিয়ে দিলাম। ও একটা সিপ মেরে আবার বলতে শুরু করলো, ‘ বেশ ছিলাম ছেলেকে নিয়ে। ওকে স্কুলে নিয়ে যাওয়া, নিয়ে আসা, বাজার করা এর মধ্যে দিন কেটে যাচ্ছিলো। বন্ধুত্ব যে হয় নি ভুল কথা। বাট অল আর বিহাইনড মাই ফিগার। ওরা ভেবেছিল যেহেতু আমার স্বামী নেই সেহেতু আমি দেহের সুখের খোঁজে ফিরি। কতো প্রস্তাব, কতো লোভ, কতো ইংগিত। আনেক কিছু পিছনে ফেলে এসেছি গৌতম বাবু। দেহের সুখের তৃষ্ণা আছে ঠিকই তবে তার জন্য বন্ধু খোঁজা না সেটা আমার আসে নি। জানো, একজনের সাথে খুব বন্ধুত্ব হয়েছিল। প্রায় দুবছর আমরা খুব ঘনিষ্ঠ হয়ে ছিলাম। দুজনে দুজনকে ছুঁয়েছিলাম পর্যন্ত।‘ হঠাৎ বিদিশা কেমন উদাস হয়ে গেল।

আমি ফিসফিস করে বলে উঠলাম, ‘তারপর…।।‘

বিদিশা নিজেকে ফিরিয়ে বলল, ‘একদিন ওর সাথে দূরে কোথাও বেড়াতে গেছিলাম। জায়গাটার নামটা ঠিক মনে নেই। গিয়ে ওর আসল রূপটা টের পেয়েছিলাম। ও এক বন্ধুকে নিয়ে এসেছিল। আমাকে রাজি হতে বলেছিল থ্রিসামে মানে বুঝতে পারছ তো কি বলতে চাইছি। আমি রাজি না হাওয়াতে তার নোংরা চেহারা দেখতে পেয়েছিলাম। আজকালকার মেয়ে বলে ভালোয় ভালোয় ফিরে এসেছিলাম। তারপর আর বন্ধু খুঁজি নি। নিকিতা আমাকে আশ্বাস দেওয়াতে আমি আবার অপেক্ষা করেছিলাম বন্ধুর জন্য। তারপরে তুমি।‘

আমি সেই একি সুরে বললাম, ‘কিন্তু আমিও তো তোমাকে একটা ঘরে তুলেছি বিদিশা। আমিও তো একি দোষে দোষী।‘

বিদিশা বলল আমার গায়ে হাত রেখে, ‘গৌতম, তারপরে অনেকদিন হয়ে গেছে। এখন লোকের সাথে কথা বললে বুঝতে পারি সে কি চাইছে। হ্যাঁ, তোমার অনেক কথাতে আমি সেক্সের গন্ধ পেয়েছি, বুঝেছি যে তুমি সেক্স ভালোবাসো, কিন্তু তোমার মধ্যে কোন নোংরামো দেখিনি। তাই একটা ঘরে থাকাতে আমি আপত্তি করি নি। ঘরে ঢুকেই যে কথাগুলো তোমাকে বলেছিলাম তোমাকে চমকে দেবার জন্য। একটু ইয়ার্53;ি মারার জন্য।‘

আমি শেষ তীরটা চালালাম, ‘কিন্তু বিদিশা যদি কোন ভুল হয়ে যায়?’

বিদিশা আমার চোখের উপর চোখ রেখে বলল, ‘তাহলে আমাকেও ভুল করতে হবে।‘

ওর শেষ লাইনটা বুঝলাম না। খুব স্বাভাবিক। আমি ঠিকভাবে কোনদিন কোনটা বুঝতে পেরেছি। বিদিশা বলে উঠলো, ‘অনেকক্ষণ বাইরে ঘুরছি। কটা বাজল? চলো এবার।‘

আমি ঘড়ি দেখে বললাম, ‘রাত সাড়ে দশটা। চলো খেয়ে নি।‘

ঘরে ঢুকতেই বিদিশা লাফ দিয়ে বিছানার উপর উঠে পড়লো। তারপর পেটের উপর ভর দিয়ে শুয়ে পড়লো। বলে উঠলো, ‘উফ, দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কোমরটা ধরে গেছে। তুমি অর্ডারটা দাও আমি একটু শুয়ে থাকি।‘

আমি সাহস করে বললাম, ‘আমি একটু দাবিয়ে দোবো। ভালো লাগবে।‘

বিদিশা বালিশের মধ্যে মুখ গুঁজে বলল, ‘না না তার বোধহয় দরকার হবে না। যদি হয় বলব।‘

আমি মেনু কার্ড ওলটপালট করতে করতে বললাম, ‘কি খাবে?’

বিদিশা না তাকিয়ে বলল, ‘বোলো না যা হোক কিছু। তবে লাইট বোলো।‘

আমি রুটি। ডাল আর একটা মিক্স ভেজ বলে দিলাম। তারপরে ওকে ডিস্টার্ব না করে আস্তে করে টিভি খুললাম। কিছুক্ষণ পরে খাবার এলো। আমি আবার দরজাটা বন্ধ করে বিদিশাকে ওঠালাম। বিদিশার খাবার ইচ্ছে নেই তবু জোর করে খাওয়ালাম। ও দুটো রুটি খেল আমি চারটে। বিদিশা কোনরকমে উঠে মুখ ধুয়ে বোধহয় বাথরুম করেও এলো। আয়নার সামনে গিয়ে একটু চুল আঁচরে ফিরে এলো বিছানায়। আমাকে বলল, ‘যাও মুখ ধুয়ে এসো। ঘুমিয়ে পড়ব এখন।‘

আমি বাথরুমে গিয়ে মুখ ধুলাম। দেখলাম আমার জাঙিয়াটা শাওারের উপর ছিল ওটা ওখানে নেই। তারপরে দেখি ওটা বিদিশার ব্রায়ের পাশে রডে টাঙানো। ওই তাহলে ঠিক করে রেখে গেছে। ভালো লাগলো আমার জাঙিয়ায় ওর হাত পড়েছে বলে। ফিরে এলাম। একটা সিগারেট জ্বালিয়ে টিভি বন্ধ করে দিলাম। বিদিশা শুয়ে আছে। আমার বালিশটা ওর বালিশের গায়ে লাগানো। আমি লাইটটা অফ করে নীল বেড লাইট জ্বেলে দিলাম। ও আমার দিকে ঘুর503; বলল, ‘কি হোল শুতে আসবে না?’

আমি সিগারেটটা দেখিয়ে বললাম, ‘এটা শেষ করে আসছি।‘

কিছুক্ষণ পরে আমি বিছানাতে এসে উঠলাম। ভালোমানুষি দেখিয়ে বালিশটা টেনে নিতে বিদিশা বলে উঠলো, ‘এখানে থাকলে কি তোমার অসুবিধে হবে।‘

আমি আমতা আমতা করে বললাম, ‘না ঠিক তা নয়।‘

ও বলল, ‘তাহলে টানছ কেন?’

আমি কথাটা ঘুরিয়ে দিলাম। বললাম, ‘কোমরে ব্যাথাটা আছে?’

ও কোমরটা একটু নাচিয়ে বলল, ‘হ্যাঁ গৌতম, এখনো আছে। বুঝতে পারছি না হঠাৎ কি হোল?’

আমি জবাব দিলাম, ‘আমার মনে হয় একটু টিপে দিলে আরাম লাগতো। দেবো একটু টিপে?’

ও শরীরটাকে ঘুরিয়ে পেটের ওপর শুয়ে বলল, ‘আমারও তাই মনে হয়। বাট তোমাকে তো কাল কাজে যেতে হবে। না না তুমি শুয়ে পড়।‘

আমি বলে উঠলাম, ‘কি বলছ তুমি। তোমার কোমরে ব্যাথা আর আমি শুয়ে পড়ব। দেখি একটু টিপি।‘

আমি আস্তে করে ওর কোমরের উপর হাত রাখলাম। মিতা জানে আমি খুব ভালো মালিশ করি কিন্তু মিতা পুরোপুরি নগ্ন থাকে। আমি তো আর বিদিশাকে এ কথা বলতে পারবো না। তাই নাইটির উপর দিয়ে আমি আস্তে আস্তে টিপতে শুরু করলাম। ওপর থেকে নিচে আর নিচ থেকে ওপর। জাস্ট আমি ওর পাছার চরাই শুরু থেকে হাত ফিরিয়ে আনছি। প্রায় ১৫ মিনিট বাদে বিদিশা বলে উঠলো, ‘এখন খুব আরাম লাগছে গৌতম। থ্যাঙ্ক উ। নাও শুয়ে পড়।‘

আমি বললাম, ‘না তুমি ঘুমিয়ে পড়ার পর আমি ঘুমবো। মিতার সঙ্গেও আমি তাই করি। আমার জন্য চিন্তা করো না। তুমি একটু এইদিকে ঘোর আমি তোমার পায়ে একটু সুড়সুড়ি দিয়ে দি। দেখবে তাড়াতাড়ি ঘুম আসবে।‘

ও বাচ্চা মেয়ের মতো খুশীতে ঝলমল করে উঠলো। ‘সুড়সুড়ি, সত্যি দেবে?’

আমি হাসলাম, ‘না আমি ইয়ার্কি করে বলছি।‘

ও ঘুরলো আর বলল, ‘সুড়সুড়ি খেতে আমার খুব ভালো লাগে। মা ছোটবেলায় আমাকে সুড়সুড়ি দিয়ে দিত আর আমি ঘুমতাম। ইস তোমাকে কতো কষ্ট দিচ্ছি।‘

আমি ওর মুখের ওপর হাত রেখে বললাম, ‘নো মোর টক। আমি সুড়সুড়ি দি তুমি ঘুমোতে চেষ্টা করো কেমন।‘

ওর একটা পা আমি আমার কোলের উপর টেনে নিলাম। আমি ওকে জানালাম, ‘বিদিশা আমি একটু নাইটিটা ওঠাচ্ছি।‘

বিদিশার কোন জবাব নেই। আমি জাস্ট হাঁটু অব্দি নাইটিটা টেনে তুলে দিলাম তারপর আঙুল দিয়ে আস্তে আস্তে পায়ে সুড়সুড়ি দিতে লাগলাম। ওর পা একদম নির্লোম, মসৃণ, পেলব। নীল আলোতে না বুঝতে পারলেও এটা বোঝা যাচ্ছে যে একটা লাল আভা বেরোচ্ছে ওর পায়ের ত্বক থেকে। বেশ কিছুক্ষণ পরে বুঝতে পারলাম ও ঘুমিয়ে পড়েছে।

আমি আস্তে করে ওর পাটাকে আমার কোলের থেকে নামিয়ে বিছানাতে রেখে নিজেকে মেলে দিলাম ওর পাশে তবে একটু দূরে। কিন্তু ওর গায়ের নেশা করে দেবার গন্ধ আমার নাকে ঢুকছে। গায়ের গন্ধ শুঁকতে শুঁকতে কখন ঘুমিয়ে পরেছি জানি না।
পেচ্ছাপের চাপে ঘুমটা ভেঙে গেল। চোখ খুলতে অন্ধকারে অভ্যস্ত হাওয়ার জন্য কিছুক্ষণ চোখ জেগে শুয়ে থাকলাম।

নিজেকে যে ভাবে আবিষ্কার করলাম তা রীতিমতো চমকে দেওয়ার। আমার পাশে বিদিশা শুয়ে আছে, ও শুয়ে আছে ওর পিঠের ওপার, একটা হাত পাশে শোওয়ানো আরেকটা আমার আর ওর মধ্যে। আমার হাতের আবস্থা দেখে আমি আঁতকে উঠলাম। আমি কাত হয়ে শুয়ে আর আমার বাঁ হাত সরাসরি ওর বুকের ওপর। নিঃশ্বাসের তালে তালে ওর বুক উঠছে আর নামছে তার সাথে আমার হাতটাও। আমি খুব ধীরে ধীরে হাতটা সরিয়ে নিলাম ওর বুকের ওপর থেকে। ওর দিকে একটু লক্ষ্য রাখলাম, বুঝলাম ও গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন। ওর শোয়া দেখে আমার মিতার শোয়া মনে পরে গেল। এখানে বিদিশা শুয়ে আছে কিন্তু ওর নাইটি ঠিক জায়গাতেই আছে মানে একটুও সরে নি। আর মিতা হলে নিশ্চিত ভাবে ওর নাইটি উঠে যেত কোমর অবধি, ওর পাছা ওর যোনী সব উন্মুক্ত থাকতো। মিতা শুলে ওর চারপাশের আর খেয়াল থাকে না। আমি বাথরুমে গিয়ে পেচ্ছাপ করে আবার এসে শুয়ে পড়লাম। ঘড়িতে রাত ৩টে বাজে। আমি ওর পাশে এসে চিত হয়ে শুয়ে পড়লাম ওর গায়ে গা ঠেকিয়ে।

ঘুমটা আসব আসব করছে এমন সময় বিদিশা নড়ে উঠলো। ও চিত অবস্থা থেকে নিজেকে আমার দিকে কাত করে একটা হাত আমার বুকের ওপর আর একটা পা আমার কোলের ওপর উঠিয়ে দিয়ে আমার কাঁধ আর গলার মধ্যে ওর মুখ ডুবিয়ে দিলো। আমার হাতের উপর ওর নরম স্তনের চাপ, আমি আড়চোখে ওর স্তনের দিকে নজর দিতে দেখলাম নাইটির খোলা অংশ থেকে ওর ভরাট স্তনের অনেকখানি বেড়িয়ে এসেছে। আমি চোখ ভরে ওর স্তনের উপরের অংশ দেখতে লাগলাম। নীল পাতলা শিরা ওর স্তনের উপর দিয়ে আঁকিবুঁকি করেছে। খুব ফর্সা, সবসময় ঢাকা থাকে বলে। মিতার স্তনগুলো খুব ফর্সা। আমার যা মনে হোল মিতা আর বিদিশার দুজনের স্তনের আকার প্রায় এক। অবশ্য না দেখলে আমি শিওর নই। বিদিশা আরও নিজেকে আমার দেহের মধ্যে চেপে ধরল আর আমি ওর ভরাট স্তনের নরমভাব অনুভব করতে করতে আবার ঘুমিয়ে গেলাম।

ঘুম যখন ভাঙল ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি সকাল ৭/৩০। বিদিশার দিকে তাকিয়ে দেখি ও আর আমার দিকে ফিরে নেই উলটো দিকে ঘুরে গেছে। আমি বিছানা থেকে নেমে ওর দিকে তাকাতে দেখলাম ওর একটা পা সোজা টান অবস্থাতে আরেকটা হাঁটুর থেকে মুড়ে শুয়ে রয়েছে। পেছন থেকে ওর পেলব পাছার পূর্ণ অবয়ব দেখতে পাচ্ছি। ভরাট, সুডৌল, ওর জঙ্ঘার আকার সব কিছু চোখের সামনে ভাসছে। আমি এমনকি ওর পাছা দুটোর মধ্যের চেরা অংশও দেখতে পেলাম।

একে পেচ্ছাপের জন্য আমার লিঙ্গ শক্ত তারপর এ ছবি আমার লিঙ্গের কঠিনতা আরও বাড়িয়ে দিলো। আমি একটা নিঃশ্বাস ফেলে বাথরুমে ঢুকলাম নিজের পেটকে খালি করতে।

পেচ্ছাপ শেষ করে যখন ফিরে এলাম ঘরে তখন বিদিশা নড়ছে। আমি আসতেই চোখ খুলে বলল, ‘আজকের দিনটা মনে হয় ভালো যাবে। তোমার মুখ প্রথমে দেখলাম।‘

আমি বললাম, ‘থ্যাঙ্ক উ। রাতে ভালো ঘুম হয়েছে?’

ও হাসল, সকালের রোদের মতই মিষ্টি ওর হাসি। ‘হ্যাঁ খুব ভালো ঘুমিয়েছি। মনে হয় তুমি পাশে ছিলে বলেই এতো নিশ্চিন্তে ঘুমোতে পারলাম।‘

আমি আর বলতে পারলাম না যে আমাকে তুমি খুব করে জড়িয়ে ঘুমিয়েছিলে। আমি বললাম, ‘সকালে কি খাও চা না কফি?’

ও আড়মোড়া ভেঙে বলল, ‘চা।‘

আমি ওর দিকে তাকিয়ে থাকলাম। আড়মোড়া ভাঙতে গিয়ে ওর স্তন দুটো বুকের ওপর আরও উঁচু হয়ে উঠলো। ওর নাইটির ফাঁক আরও ফাঁকা হল আর আমি ভরপুর ওর স্তানের শোভা দেখলাম। ও বিছানার উপর সোজা হয়ে বসে পা দুটো খাটের অন্য পাশে ঝুলিয়ে বলল, ‘তুমি চায়ের অর্ডার দাও আমি বাথরুম থেকে ঘুরে আসি।‘

বাথরুমের দরজা বন্ধের কোন শব্দ শুনলাম না। ওকি দরজা বন্ধ করে নি? আমি জলদি চায়ের অর্ডার দিয়ে বাথরুমের দিকে গেলাম। দেখলাম দরজাটা একটু ফাঁক। ফাঁকা জায়গা দিয়ে যদিও কিছুই দেখা যাচ্ছে না তবুও ও দরজা খোলা রেখেছে এটাই আমার কাছে অনেক বড়। আমি জানালার পাশে গিয়ে শোভা দেখতে থাকলাম। খুব সকালে এই জায়গা আমার খুব পছন্দের। কারন গ্রামের মেয়ে বউ সব এসে এখানে পাইখানা করতে আসে। ওরা ভাবে কেউ দেখছে না। তাই ওরা কোমরের ওপর শাড়ি তুলে বসে পরে আর আমি মনের সুখে ওদের নিটোল পাছা আর চুলে ঢাকা যোনী দেখতে থাকি। সেই রকম আজ কিছু বউ আর মেয়ে এসে বসেছে।

বিদিশা বাথরুম থেকে বেড়তেই আমি ওকে ডাকলাম। আমাকে ধরে ফেলার চাইতে ওকে আগেভাগে বলে দেওয়া ভালো। ও এগিয়ে এলো। আমার পাশে দাঁড়িয়ে জিজ্ঞেস করলো, ‘কি হল ডাকলে কেন?’

আমি বাইরের দৃশ্য দেখিয়ে বললাম, ‘সকালের শোভার সাথে এগুলো উপরি পাওনা।‘

ও দেখে মুখে হাত দিয়ে আঁতকে উঠলো। বলে উঠলো, ‘ও বাবা এগুলো আবার কি। তুমি একটা অসভ্য। সকালবেলা এগুলো কেউ দেখায় না দেখে।‘

আমি হেসে বললাম, ‘বিনে পয়সায় যদি নিটোল পাছা দেখতে পাওয়া যায় তবে কেনা দেখে?’

ও জানালা থেকে সরে এসে বলল, ‘আমার আর দেখে কাজ নেই তুমিই দেখ।‘

চা এসে গেছে। দুজনে দুকাপ নিয়ে বিছানাতে বসলাম। আমি চায়ে মুখ দিয়ে বললাম, ‘তোমার চা খাওার পরই নিচের বেগ আসে না তো? আমার কিন্তু আসে।‘

বিদিশা চায়ে চুমুক দিয়ে বলল, ‘নারে বাবা ভয় নেই, তুমিই প্রথমে যেও।‘

আমি চা শেষ করে একটা সিগারেট ধরিয়ে বাথরুমে ঢুকে গেলাম এবং ওর মতই দরজা ফাঁক রেখে দিলাম। সব হয়ে যাবার পর দাঁত মেজে বেড়িয়ে এলাম। আমি বেড়তেই ও ঢুকে গেল বাথরুমে। আমি খবরের কাগজটা ওলটপালট করে দেখতে লাগলাম।

বেশ কিছুক্ষণ পর ও বেড়িয়ে এলো। চুল আঁচড়াতে আঁচড়াতে জিজ্ঞেস করলো, ‘তুমি কখন বেরোবে?’

আমি ঘড়ি দেখে জবাব দিলাম, ‘এই ধর সাড়ে নটা। কেন বলতো?’

ও বলল, ‘নাহ, তুমি বেড়িয়ে গেলে তবেই চান করতে যাবো। সাধারনত আমি এখনি চান করে নি।‘

আমি বললাম, ‘আরে সেটা কোন ব্যাপার নয়। তুমি করলেও করতে পারো।‘

ও উত্তর দিলো, ‘না না তুমি চান করে নাও। আমার আবার সময় লাগে।‘

আমি জিজ্ঞেস করলাম, ‘বিদিশা, কেমন লাগছে এই ছুটি?’

ও তৎক্ষণাৎ কোন জবাব দিলো না। চুল আঁচড়ানো শেষ করে ও ঘুরে আমার কাছে এলো। আমি বিছানাতে পা ঝুলিয়ে বসে ছিলাম।

ও যা করলো আমি স্বপ্নেও ভাবতে পারি নি। বিদিশা আমার মাথাটা দুই হাতে জড়িয়ে ওর দেহে আঁকড়ে ধরল। আমিও বিনা দ্বিধায় ওর দেহে আমার মাথা গুঁজে দিলাম। হাত বাড়িয়ে ওর শরীর জড়িয়ে ধরলাম। আমি পরিস্কার বুঝতে পারছি ওর ভরাট স্তনের ভার আমার মাথার উপর। আমার হাত ওর পেলব শরীর জড়িয়ে আছে। আমি শুনলাম বিদিশা বলছে, ‘কাল রাত থেকে দেখছি তুমি আমার জন্য কিনা করছ। আমার শাড়ি, সায়া গুছিয়ে রাখা, আমার কোমর টিপে দেওয়া, সুড়সুড়ি দিয়ে আমাকে ঘুম পাড়িয়ে দেওয়া। এরপরে কারো ছুটি বাজে লাগতে পারে?’

আমি কোন উত্তর না দিয়ে ওর পেলব শরীরে ওম নিতে থাকলাম। ও আবার বলল, ‘থ্যাঙ্ক উ গৌতম এতো সুন্দর একটা সময়ের জন্য।‘ তারপর ও আমাকে ছেড়ে হাত দিয়ে আমাকে ওঠাবার চেষ্টা করে বলে উঠলো, ‘যাও গৌতম, তোমার সময় হয়ে যাচ্ছে। অফিসে দেরি হয়ে যাবে।‘

আমার ওকে ছাড়তে ইচ্ছে করছিলো না। কিন্তু বাধ্য হয়ে আমাকে উঠে পরতে হোল। আমি চানের জন্য তৈরি হলাম। বিদিশা বলল, ‘তোমার ব্যাগের চাবি দিয়ে যাও, তোমার ড্রেস বার করে রাখি।‘

আমি চাবি দিয়ে চলে গেলাম চানে। বিদিশা আমার ব্যাগ থেকে জামা প্যান্ট সব বার করে রেখেছিলো। আমি তৈরি হয়ে নিলাম। বেড়িয়ে যাবার আগে ওকে বললাম, ‘সময় মতো ব্রেকফাস্ট করে নিও। আমি তাড়াতাড়ি ফেরবার চেষ্টা করব। যদি দেখ ২ট বেজে গেছে তাহলে আমার জন্য আর অপেক্ষা না করে খেওে নিও।‘

বিদিশা আমার কলারটা ঠিক করতে করতে বলল, ‘ঠিক আছে বাবা, আমার জন্য চিন্তা করতে হবে না। আমি ঠিক খেয়ে নেব। তোমার যদি ল্যাপটপের দরকার না থাকে তাহলে রেখে যেও ডাটা কার্ডটাও। আমার টাইম পাশ হয়ে যাবে। বাই। টেক কেয়ার।‘
আমি বেড়িয়ে এলাম বিদিশাকে একা রেখে। খারাপ লাগছিল বাট কোম্পানির কাজ। যেতে তো হবেই।

ফিরে এলাম তখন প্রায় ৫/৩০। খুব চেটেছে লোকগুলো। চাটারই কথা। আমাদের কাজ দেবে অথচ যাচাই করবে না তাতো আর হয় না। যাহোক আমি খুব স্মার্টলি উত্তর দিয়েছি। কোম্পানির প্রোফাইল, টার্ন ওভার, স্টাফ আরও অনেক কিছু। ভাগ্য ভালো আমার সব জানা ছিল। ওরা খুব সাঁটিসফায়েড আমার জবাব শুনে। আর ওরা তৈরি আমাদের টেন্ডার দেবার জন্য।

আমি ওদের ধন্যবাদ জানিয়ে বেড়িয়ে এলাম। কোম্পানিতে ফোন করে সব বললাম। কোম্পানি খুশি টেন্ডার আসবে শুনে।

আমি খুশি মনে চললাম হোটেলের দিকে। বিদিশা ওয়েট করছে। দরজা ঠেলতেই খুলে গেল। আমি একটু অবাক হলাম ও দরজা খোলা রেখেছে বলে। দেখি ও জানালায় দাঁড়িয়ে বাইরের শোভা দেখছে। আমি ঢোকাতে ও ফিরে বলল, ‘আগে বোলো মিটিঙে কি হোল?’

আমি সব খুলে বললাম। আমরা শুধু টেন্ডারই পাব না হয়ত কাজটাও পেয়ে যেতে পারি জেনে বিদিশা খুব খুশি হোল।

আমি ওকে জড়িয়ে ধরে বললাম, ‘সব তোমার শুভ কামনার জন্য। থ্যাঙ্ক উ বিদিশা।‘

ও হেসে বলল, ঠিক আছে আর ওপরে ওঠাতে হবে না। এখন জামা কাপর ছেড়ে ফ্রেশ হও, চা খাও। তারপরে কথা বলা যাবে।‘

আমি জুতো খুলতে খুলতে বললাম, ‘কিন্তু ঢোকবার সময় দেখলাম দরজা খোলা। এরকম ভাবে দরজা খোলা রাখে নাকি?’

ও জবাব দিলো, ‘কি হবে আবার? আমি এইমাত্র ছাদ থেকে ঘুরে এলাম। বোর হয়ে গেছিলাম নেট দেখে আর একা বসে।‘

আমি জামা প্যান্ট ছাড়তে ছাড়তে বললাম, ‘কি হবে মানে। আমার অবর্তমানে কেউ যদি আমার বিদিশাকে কিছু করতো?’

ও খিলখিল করে হেসে উঠে বলল, ‘ও বাবা কি দরদ ছেলের আমার। কিছু হবে নাকো সোনা আমার। তোমার বিদিশা তোমারি থাকবে।‘

আমার জামা প্যান্ট ছাড়া হয়ে গেছে। আমি টাওয়েল আমার কোমরে জড়িয়ে ওর দিকে পেছন ঘুরে জাঙিয়াটা খুলে বাথরুমে যাবো বিদিশা বলল, ‘দরকার নেই, আমাকে দাও আমি ধুয়ে দেবো।‘

আমি জিজ্ঞেস করলাম, ‘মানে তুমি ধোবে মানে?’

ও প্রশ্ন করলো আমার দিকে তাকিয়ে, ‘কেন আমি ধুতে পারিনা।‘ বলে ও জবরদস্তি আমার হাত থেকে জাঙিয়াটা কেড়ে নিল।

আমি ওর চুল ঘেঁটে দিয়ে বললাম, ‘অ্যাই আমার এখনো বউ আছে। ওর থেকে আমাকে কেড়ে নিও না।‘

ও আমাকে আস্তে ঠেলে দিয়ে বলল, ‘ভয় নেই গো তুমি ওরই থাকবে।‘

কিন্তু কথা তো হচ্ছে, কখন যে টাওয়েল বাবাজি কোমর থেকে ঢিলে হয়ে গেছে সে খেয়াল নেই আমার। হটাৎই ঘটলো ব্যাপারটা। বিদিশার সামনে টাওয়েলটা খসে মেঝেতে পরে গেল আর আমি পুরো নগ্ন অবস্থায় ওর সামনে দাঁড়িয়ে। আমার কি কর্তব্য ঠিক করার আগে বিদিশা হো হো করে হেসে উঠলো মুখে হাত দিয়ে। আমি বোকার মতো আমার শিথিল লিঙ্গ উন্মুক্ত করে ওর সামনে দাঁড়িয়ে। বিদিশা হাসতে হাসতে বলল, ‘এতো বড় হয়েছ টাওয়েল ঠিক মতো বাঁধতে শেখনি। ঘরে কি করো?’

আমি টাওয়েলটা তুলে কোমরে বাঁধতে বাঁধতে বললাম, ‘আরে ঘরে তো গামছা ব্যাবহার করি। ওতে থোরি কোন প্রব্লেম হয়।‘

ও আমার বাঁধা দেখে বলল, ‘সরো, অনেক হয়েছে। আবার খুলে যাবে। দেখে নাও কেমন ভাবে বাঁধতে হয়।‘

ও আমার হাত থেকে টাওয়েল নিয়ে প্রথমে খুলে তারপরে কোমরের পেছন দিক দিয়ে জড়িয়ে দুটো দিক সামনে নিল। আমি আমার লিঙ্গ নিয়ে ওর সামনে দাঁড়িয়ে আছি আর ভগবানের কাছে প্রার্থনা করছি লিঙ্গের যাতে উত্থান না ঘটে তাহলে সত্যি মুখ দেখাবার উপায় থাকবে না। সেরকম কিছু হবার আগেই ও টাওয়েলটা জড়িয়ে ফেলেছে আমার কোমরে। একটা দিক অন্য ভাঁজে ঢুকিয়ে আমার গায়ে হাত দিয়ে বলল, ‘নাও এবার যত খুশি টানো এ আর খুলবে না।‘

আমি বাথরুমে যেতে নিতে বিদিশা বলল, তুমি একটু রেস্ট নাও বিছানায় আমি এটা ধুয়ে নিয়ে আসি।‘ বলে ও বাথরুমে চলে গেল আর আমি বিছানায় শুয়ে পড়লাম। আইডিয়া ভালই ছিল। বিছানাতে শোওয়ার পর মনে হোল খুব আরাম লাগছে গা এলিয়ে দিতে নরম গদির উপর। ও বেড়িয়ে আসতেই আমি ওঠবার চেষ্টা করলাম, বিদিশা বারন করলো, ‘উহু, উঠো না। তোমাকে দেখে খুব ক্লান্ত মনে হচ্ছে। শুয়ে থাক। আমি পাটা দাবিয়ে দিচ্ছি।‘

আমি শুয়ে শুয়ে বললাম, ‘দেবী আর কতো ঋণী করবে আমায়। এতো আদর সহ্য হবে?’

ও এসে বিছানাতে বসে বলল, ‘আর ন্যাকামো করতে হবে না। শুয়ে থাক দিকিনি।‘ ও আমার পাশে এসে টাওয়েলের এক প্রান্ত ধরে নিজের ভেজা হাতটা পুঁছল। বলল, ‘পেটের উপর ভর দিয়ে শোও।‘

আমি তাই করলাম আর ওর হাত আমার পায়ের পাতার উপর অনুভব করলাম। বিদিশা ধীরে ধীরে আমার পায়ের আঙুল দিয়ে শুরু করলো। তারপর দুটো হাত দিয়ে পায়ের পাতাগুলোকে মোচড়াতে লাগলো। আমি উপুর হয়ে শুয়ে বুঝতে পারছি ওর হাতদুটো ধীরে ধীরে উপরে উঠছে। ওর হাতের মোলায়েম স্পর্শে আমার সারা গায়ে কাঁটা দিয়ে উঠছে। বিদিশার হাত আমার হাঁটুর নিচে পায়ের ডিমের ওপর অনুভব করছি। ও আস্তে আস্তে হাতের চেটো দিয়ে ডিমগুলোয় চাপ দিতে থাকলো। ও জানে কোথায় ব্যাথা হতে পারে। ওর হাত যখন আমার জাঙের ওপর এসেছে তখন আমি আমার শরীরে রক্তের দৌড় বুঝতে শুরু করেছি। আমার লিঙ্গ কোমরের নিচে মাথা চাগাতে শুরু করেছে। বিদিশার কোন ভ্রূক্ষেপ নেই ও কি করছে বা আমাকে কতোটা উত্তেজিত করছে। ও আমার থাইয়ে ওর নরম হাতের চাপ দিয়ে বলল, ‘তোমার আরাম লাগছে না এমনি এমনি দাবাচ্ছি?’

আমি আমার মুখ বালিশে গুঁজে বললাম, ‘নাহলে তো উঠে যেতে বলতাম।‘ মুখ তুলে আর ওর দিকে তাকাই নি পাছে আমার উত্তেজনা ধরা পরে যায়।

ওর গলা শুনতে পেলাম, ‘কাল কি প্রোগ্রাম? কখন যাবে?’

ও হ্যাঁ, বিদিশাকে তো বলাই হয়নি যে আজকেই আমার কাজ শেষ হয়ে গেছে। কাল আমি ফ্রী। তাই ওই অবস্থাতেই বললাম, ‘সরি, তোমাকে বলা হয় নি। কাল কোন কাজ নেই। কাল আমি ফ্রি। আজকেই সব হয়ে গেছে।‘

বিদিশার হাত আরও উপরে। আমি শরীরে শিহরন বধ করছি। ওই অবস্থাতেই ও জিজ্ঞেস করলো, ‘তাহলে কি কাল ফিরে যাবার প্রোগ্রাম আছে?’

আমি ওর দিকে মুখ ঘুরিয়ে বললাম, ‘কেন তুমি কি ফিরে যেতে চাও?’

ও জবাব দিলো, ‘না ঠিক তা না। মানে ব্যাপারটা হোল তোমার কোন কাজ নেই। এমনি বসে থাকবে?’

আমি আবার মুখ ঘুরিয়ে বললাম, ‘কেন, তুমি তো আছো এমনি বসে থাকব কেন?’

মুখ ঘোরাতে গিয়ে ওর মুখে হাসি দেখতে পেলাম। আমি আরও রং চড়িয়ে বললাম, অবশ্য সব নির্ভর করছে তোমার উপর। তুমি থাকতে চাও কিনা, আমাকে তোমার বিরক্ত মনে হচ্ছে কিনা, এইসব ব্যাপার আর কি।‘

ওর হাত খুব সাংঘাতিক জায়গায় পৌঁছে গেছে। আমার পাছা আর থাইয়ের সন্ধিস্থলে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমার শিহরন বন্ধ হতেই আমি কোমরটা একটু দোলালাম। ও ব্যাপারটা বুঝতে পেরে বলল, ‘অসুবিধে হচ্ছে?’

আমি প্রথমে কিছু বলি নি তারপরে মনে হল উত্তর দেওয়া দরকার। বললাম, ‘না, ঠিক অসুবিধে হচ্ছে না, তবে তোমার হাতটা বোধহয় ঠিক জায়গায় নেই।‘

ও উত্তর দিলো, ‘কেন, এই তো আমার হাত।‘ বলেই ও হাতটা থাইয়ের নিচে নিয়ে যাবার চেষ্টা করতেই কোমরের নিচ থেকে আমার লিঙ্গের উঁকি মারা মুখে ছুঁয়ে ফেলল। আমি কোমরটা সংগে সংগে উঁচু করে তুলে ধরলাম আর ও
ব্যাপারটা বুঝতে পেরে ঝট করে হাতটা সরিয়ে নিল। আমি আবার আমার কোমরটা নিচু করে দিলাম। না, এই ব্যাপারে কথা না বলাই ভালো।

কিছুক্ষণ পরে ওর আমার কোমরের সামনে এসে বসা টের পেলাম। কিছুক্ষণ, এই ঘটনার পর আমরা চুপচাপ ছিলাম। আমি আবার ওর হাত আমার কোমরের উপর ঠিক টাওয়েলের সামনে উপলব্ধি করলাম। ও আস্তে আস্তে ওর হাত দিয়ে আমার কোমরের উপর চাপ দিচ্ছে। ও বলছে, ‘এই জায়গাতে আমারও খুব ব্যাথা হয় যখন অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে কাজ করি।‘ ও নিজের মনেই যেন কথা বলছে। আমি অনুভব করলাম ও আঙুলগুলো আমার টাওয়েলের নিচে ঢোকাবার চেষ্টা করছে।

ও বলল, ‘কোমরটা একটু তোল তো টাওয়েলটা একটু লুস করি।‘

আমি বাধ্য ছেলের মতো কোমরটা তুলে ধরলাম। ও আমার কোমরের নিচে হাত নিয়ে গিয়ে টাওয়েলটার কোন যেখানে গোঁজা ছিল সেটা খুলে দিল। আমি বুঝতে পারলাম টাওয়েলটা আমার কোমর থেকে লুস হয়ে গেল। আমি কোমরটা তুলেই রেখেছি। ও বলল, ‘হয়ে গেছে। কোমরটা নামাও।‘

আমি আবার যথাস্থানে ফিরে এলাম মানে বিছানাতে শুয়ে পড়লাম। আমি জানি না বিদিশা ঠিক এবারে কি করবে। কিন্তু আমার লিঙ্গ মহারাজ বোধহয় কিছু টের পেয়েছে। সে আমার কোমরের নিচে ছটফট করছে মুক্তি পাবার জন্য। আমার খুব বেহাল অবস্থা। পারলে একটু খামচে দিতাম নেহাৎ বিদিশা পাশে আছে বলে। আমি টের পেলাম বিদিশার হাত আমার কোমরের উপর। ও হাতের চেটো দিয়ে আমার কোমরের নিচে জাস্ট পাছার শুরুর কাছে বোলাচ্ছে। আমার ভালই লাগছে, কিন্তু নিচের অবস্থা খুব শোচনীয়। টের পেলাম ওর হাত আমার টাওয়েলের নিচে আমার ঠিক পাছার ওপর। তারপর আর কোন বিধিনিশেদ মানা নেই। ওর হাত চলে গেল সতান আমার পাছার ওপর।

শুনতে পেলাম ও বলছে, ‘জানো গৌতম, অনেকক্ষণ বসে থাকলে পাছাটাও ব্যাথা করে। ঠিক এইখানে।‘ বলে ও যেখানে আমার শিরদাঁড়া শেষ হয়েছে সেখানে একটু প্রেসার দিয়ে বলল। ‘আর এই ব্যাথা সারা পাছায় ছড়িয়ে পরে। মনে হয় যেন একটু বসলে ভালো হই। তাই না?

ও আমার কাছ থেকে কি আর উত্তর আশা করে। আমি কি আর জবাব দেবার ক্ষমতায় আছি? তবুও ঘাড় নাড়লাম। বোঝালাম ও ঠিকই বলছে। বিদিশার হাত আমার দুটো পাছার ওপর কি খোঁজবার জন্যও এক্সপ্লোর করে যাচ্ছে। আমি টের পেলাম ওর হাতের আঙুল আমার দুটো পাছার মধ্যের ভাগে ঢুকেছে। একবার সেই ক্র্যাক বরাবর উপর আর নিচে চলে ফিরছে। একবার ও ওর আঙুল পাছার এতো নিচে নিয়ে গেল আমি স্পষ্ট টের পেলাম আর আঙ্গুলের ডগা আমার অণ্ডকোষ স্পর্শ করে গেল আমার সারা শরীরে শিহরন জাগিয়ে। আমার সারা শরীর কেঁপে উঠলো। আমি নিজেকে সংযত করার চেষ্টা করলাম যাতে বিদিশা বুঝতে না পারে।

কিছুক্ষণ পরে ও টাওয়েলের নিচ থেকে হাত বার করে নিল আর আমি স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললাম। যাক আর আমার লিঙ্গ উত্তেজিত হবে না। কিন্তু কোথায় কে, বুঝতে পারলাম, বিদিশা একটু নিচে নেমে টাওয়েলের তলা থেকে আমার থাইয়ের উপর হাত রেখেছে। এইবার যদি বলি আমি উত্তেজিত নই তাহলে মিথ্যা বলা হবে। আমি রীতিমতো উত্তেজিত। ততোধিক উত্তেজিত আমার লিঙ্গ। খুব ছটফট করছে। বাঁধন আর রাখতে চাইছে না সে। ভগবান রক্ষা করো। কে কারে রক্ষা করে। ও থাইয়ের তলার দিকে হাত নিতেই আমার লিঙ্গের মাথার সাথে তার আঙ্গুলের সাক্ষাৎকার। লিঙ্গ তার মাথা আরও এগিয়ে দিলো যেন করমর্দন করতে চায় ওর আঙ্গুলের সাথে। আমি ওর ছটফটানি বুঝতে পারছি কিন্তু আমার কিছুই করার নেই শুধু শুয়ে থাকা ছাড়া।

দুচারবার লিঙ্গের মাথার সাথে মুটভের হবার পর আমি শুনতে পেলাম বিদিশা বলছে, ‘ইস, এখানটা ভেজা ভেজা লাগছে। কিছু পড়েছে নাকি?’

কেলো করেছে। ও ভেজা যে সে ভেজা নয় সে তো আমিই জানি। ওটা যে আমার লিঙ্গের রস। সে যে নির্গম করছে। তারপর

বিদিশা যা করলো আমার বালিশের মধ্যে মুখটা আরও ডুবিয়ে দেওয়া ছাড়া আর কিছু করনীয় থাকলো না। ও টাওয়েটা সটান উপরে উঠিয়ে দিয়ে বলল, ‘একটু ওপরে ওঠো তো। দেখতে দাও কেন এখানটা ভেজা।‘

বোলো কি বলবে। আমি জানি কেন ভেজা আর ও সেটা পরীক্ষা করবে, দেখবে। ও আমার কোমর ধরে ঠেলে সরিয়ে দিলো। বলল, ‘এমা, চাদরটা তো কেমন ভিজে ভিজে দেখছি। অ্যাই তুমি আবার মুতে দাও নি তো আরামে? তোমার কোন দোষ নেই, অনেকেই করে থাকে।‘

সে কি আরও অনেককে করেছে নাকি। কিন্তু এখন সে খবর নেওয়ার সময় নয়। হটাৎ তার হাত আমার লিঙ্গকে স্পর্শ করলো আর সব কিছুর পরদাফাশ। ও চেঁচিয়ে বলে উঠলো, ‘এমা তোমার লিঙ্গ থেকে তো রস গড়াচ্ছে।‘

ওরে বাবা হ্যাঁ, আমার লিঙ্গ থেকেই রস গড়াচ্ছে। কিন্তু এর জন্য তো তুমি দায়ী। সেটা কি বলতে পারলাম। ও আমার লিঙ্গটাকে হাতে ধরে মুখটা নামিয়ে খুব কাছের থেকে দেখল। ‘ঠিক দেখেছি। এ তোমার এই দুষ্টু সোনার কারবার। সে কাঁদতে শুরু করেছে। বোধহয় এটাই বলতে চাইছে, মালিককেই সারাক্ষণ দেখবে, আমাকে দেখবে না।‘ ও খিলখিল করে হেসে উঠলো।

আমি বললাম, ‘আমার বোধহয় হয়ে গেছে। যাই এখন গাটা ধুয়ে আসি।‘ বলে আমি উঠতে গেলাম। ও আমার পাছার উপর হাত রেখে চেপে শুইয়ে দিলো। বলল, ‘শুয়ে থাক লক্ষ্মী ছেলের মতো। যখন বলব তখন উঠবে। এর কি ব্যাথা এখন একটু দেখা যাক।‘ বলে বিদিশা আমার লিঙ্গটাকে ধরে একটু নাড়িয়ে দিলো। আমি বিদিশাকে যতটুকু দেখেছি আশা করি নি ও এতটা ডেসপারেট হবে। মুখ আমার নিচের দিকেই করা। তবু সাহস করে একটু ঘুরিয়ে ওর দিকে তাকালাম, দেখলাম ও মিচকি মিচকি হাসছে। বোধহয় আমার এই অসহায় অবস্থা দেখে। আমি ওর হাতে নিজেকে দিয়ে অপেক্ষা করতে থাকলাম ও কি করে জানার জন্য।

বিদিশার কথা আমার কানে ভেসে এলো। ‘গৌতম, তুমি একটু পিঠের ওপর শোও।‘ আমার কোমর ধরে ও আমাকে ঘুরিয়ে দিতে চাইল। আমি নিজেকে ঘুরিয়ে পিঠের ওপর শুলাম। আমার টাওয়েল আমার কোমর থেকে খসে গেছে।

তা যাক, অসুবিধে নেই। কিন্তু যেটা এই মুহূর্তে আমাকে অস্বতিতে ফেলছে সেটা হল আমার নগ্নতা। আমি আমার উত্থিত লিঙ্গ যার মুখ থেকে আমি নিশ্চিত এখনো রস গড়াচ্ছে সেটা উন্মুক্ত ওর চোখের সামনে। আমার যেটা একটুও ভালো লাগছে না।

বিদিশা আমার লিঙ্গ ছেড়ে পেটের উপর হাত বলাতে শুরু করলো। তারপর আমার যৌনকেশের উপর হাত ঘোরাতে ঘোরাতে বলল, ‘তোমার বয়স তো ৫০ না?’

আমি চোখ বুঝে বললাম, ‘হ্যাঁ, বাট তোমাকে তো আগে বলেছি।‘

আমি চোখ বুঝেই ওর হাসি শুনতে পেলাম। ও বলল, ‘আরে বাবা, আমি না বলেছি কোথায়? আমি শুধু প্রশ্ন করছি এই লোমগুলোর জন্য,’ ও আমার যৌনকেশগুলো মুঠো করে ধরে একটু টান দিল। আবার বলল, ‘তোমার বয়স অনুযায়ী এগুলো অনেক বেশি। আমি যা জানি তাতে এই বয়সে এগুলো পাতলা হয়ে যায়। কিন্তু তোমার অনেক ঘন। এতো ঘন যে তোমার অণ্ডকোষ এইগুলোতে ঢাকা পরে গেছে।‘

হ্যাঁ, আমার ওই জায়গার লোম খুব বেশি। এই জন্য মিতা আমার ওখানে মুখ দিতে অস্বত্তি বোধ করতো। কিন্তু যার যেটা আছে। আমিও এর জন্য অনেক অসুবিধে ফিল করেছি বিশেষ করে পেচ্ছাপ করার সময়। জাঙ্গিয়ার পাশ থেকে লিঙ্গ টেনে বেড় করার সময় এই লোমগুলোয় টান পড়ত। আমি অপেক্ষা করছি ও কি বলে। বিদিশাকে শুনতে পেলাম, ‘তুমি বললে না আজ তোমার সব কাজ মিটে গেছে। তারমানে কাল আমরা ফ্রী। কাল তোমার লোমগুলো পরিস্কার করে দিতে হবে। আমার কাছে ওয়াক্স আছে। তাই দিয়ে করে দেবো।‘

আমি একদম আঁতকে উঠলাম। ও বলে কি। ওয়াক্স দিয়ে মানে? আমি জানি আমি একবার মিতার পায়ের লোম ওয়াক্স দিয়ে ওঠাতে গেছিলাম। যখন কাপড়টা টান মেরে উঠিয়েছিলাম এখনো আমার কানে ভাসছে মিতার পরিত্রাহি চিৎকার। ওটা ভাবতেই আমার গা শিউরে উঠলো। আমি আমার হাত দিয়ে আমার যৌনাঙ্গ ঢেকে বললাম, ‘আরে তুমি কি পাগল হলে নাকি? ওই লোমগুলো তুমি ওয়াক্সিং করে তুলবে? না বাবা যা আছে ঠিক আছে। কোন দরকার নেই আমার লোমমুক্ত হবার।‘

বিদিশা আমার হাত সরিয়ে আবার আমার যৌনাঙ্গের ওপর হাতের চেটো রেখে চটকাতে চটকাতে বলল, ‘ঠিক আছে বাবা। আমি জোক করছিলাম। নাও এবার হাত সরাও দেখি। তোমার দুষ্টু সোনার সাথে একটু খেলা করি।‘

আমি হাত সরিয়ে মাথার ওপর তুলে রাখলাম।

ও আমার অণ্ডকোষদুটো মোলায়েম করে চটকে দিলো। ও আবার বলল, ‘জানো গৌতম তোমার অণ্ডকোষ দেখে মনে হয় সত্যি তোমার বয়স হয়েছে।‘

আমি একটু অবাক হলাম। অণ্ডকোষ দেখে বয়স হয়ে গেছে এটা কি করে মনে হতে পারে। আমার মুখ থেকে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে বেরিয়ে এলো, ‘মানে কি ভাবে বললে?’

ও আমার অণ্ডকোষ দুটো থিরথির করে নাড়িয়ে উত্তর দিলো, ‘দ্যাখো, কেমন থলের মধ্যে লুস হয়ে ঝুলে আছে। এগুলো টাইট থাকার কথা।‘ আবার ও দুটো গুলিকে নাড়িয়ে দিলো।

আমার কোন কথা নেই।

বিদিশা আমার কোমরের একটু ওপরে এগিয়ে এলো। তারপর ওর দেহটাকে আড়াআড়ি ভাবে টান করে দিল বিছানার ওপর। আমি ঠিক বুঝে উঠতে পারলাম না ও কি করতে চাইছে? আমি ওয়েট করছি। দেখলাম ও আড়াআড়িভাবে নিজেকে মেলে দিলো বিছানার উপর আমার শরীরের অন্যদিকে। ও আমার পেটের ওপর মুখ রেখে শুয়ে পড়লো।আমি এখন ওর জাস্ট মাথার পেছনটা দেখতে পারছি। ও ওর মুঠোতে আমার লিঙ্গ তখনো ধরে আছে। ও ওর মাথাটা পেটের আরও নিচের দিকে নামিয়ে দিলো। আমি বুঝতে পারছিনা আমার যৌনাঙ্গ থেকে কতোটা দূরে। হটাৎ আমার শরীরে একটা শিহরন বয়ে গেল। আমি বুঝতে পারলাম আমার লিঙ্গের মাথায় একটা হাওয়ার ছোঁওয়া। আমি বুঝলাম ও আমার লিঙ্গের মাথাতে ফুঁ দিচ্ছে। আমার লিঙ্গ এখন খুব দৃঢ়, শক্ত, থেকে থেকেই কেঁপে উঠছে। আমি টের পাচ্ছি আমার সারা শরীরে কেমন একটা শিরশির ভাব, একটা তরঙ্গ খেলা করছে। বুঝলাম ও ধীরে ধীরে আমার লিঙ্গের উপরের ত্বক টেনে নিচে নামিয়ে দিচ্ছে, উন্মুক্ত করছে আমার লিঙ্গের মনিকে, যে এখনো অশ্রুপাত করে চলেছে। ও ধীরে ধীরে লিঙ্গের ত্বককে উপর নিচ করতে শুরু করলো আর থেকে থেকে মাথার অপর ফুঁ দিতে থাকলো। আমার লিঙ্গ ক্ষেপে উঠেছে, আমি বুঝতে পারছি আমার সকল উত্তেজনা আমার দেহের উপরের ভাগ থেকে তীব্র গতিতে নিচে আমার অণ্ডকোষের দিকে জমা হচ্ছে। বাঁধ ভাঙ্গবার সময় হয়ে এসেছে। এখন বারন না করলে সর্বনাশ হয়ে যাবে। আমি কোমর ঝাঁকি দিয়ে ওকে বোঝাবার চেষ্টা করলাম ওই বিপদজনক মুহূর্তকে। কিন্তু ও কিছুই বুঝছে না। ওর হাতের গতি আরও তীব্র হয়ে উঠেছে। আর ধরে রাখা অসম্ভব। ঘটতেই চলেছে ঘটনা। আমি বুঝতে পারলাম সব চোরা স্রোত বাঁধ ভাঙা ঢেউয়ের মতো বেড়িয়ে আসছে। আমার অণ্ডকোষ সংকোচিত হয়ে সেই ঢেউয়ের তিব্রতা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। ভয়ংকর গতিতে আমার সারা উত্তেজনা আমার লিঙ্গের শেসভাগে পৌঁছেছে, আর ধরে রাখা গেল না। সব বাঁধা ভেঙে তীব্র গতিতে আছড়ে পড়লো বাইরে।

বিদিশা মুখ সরিয়ে নেবার সুযোগও পায় নি এতো তার গতি। সব ওর মুখে ছিটকে পড়লো। এই অকস্মাৎ আক্রমনে সে সমানে আমার লিঙ্গের উপর হাত নাড়ানো থামায় নি। টিপে টিপে ও শেষ বিন্দু বীর্যের পতন ঘটিয়ে ছাড়ল। আমার লিঙ্গ এখন ক্রমাগত শিথিল হতে চলেছে। আমার সারা শরীর নিস্তেজ। ৫০ বছরের বিবাহিত জীবনে আমার এতো স্খলন কোনদিনও হয় নি। আমি ক্লান্ত। আমাকে এখন দাঁড় করিয়ে দিলে আমি কোমর ভেঙে পরে যাবো।

আমি বিদিশার মাথা হেলানো টের পেলাম। ও ধীরে ধীরে মাথা আমার পেটের ওপর থেকে তুলে আমার দিকে ঘুরে তাকাল। কেউ যেন ওর মুখে সাদা ঘিয়ের ছিটে মেরেছে আমার বীর্যপাতে ঠিক এমনি মনে হচ্ছে। ও বলল, ‘শেষ কখন তুমি মিতার সাথে সম্ভোগ করেছো?… এইমুহূর্তে তোমার থেকে আমার বাথরুমে যাওয়া জরুরী। তুমি একটু শুয়ে থাক আমি মুখটা ধুয়ে আসছি।‘

(২য় পর্ব সমাপ্ত)

One thought on “জীবনের সুখের জন্য… – পর্ব ০২

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s