এমনি করেই যায় যদি দিন (collected)


জনের কথাঃ

মেকআপ রুমের জানলা দিয়ে বাইরে গেস্ট গ্যালারির দিকে তাকিয়ে নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। দ্বিতীয় সারিতে রিচা ম্যাডাম বসে আছেন। গাঢ় সবুজ টপের সাথে জিনস। হাল্কা প্রসাধন মুখে। এখনও সেই রকম অ্যাট্রাক্টিভ ফিগার, শরীরে মেদ জমতে দেননি। কিন্তু উনি এখানে কিভাবে? ওনার কোনও রিলেটিভ কি এই কলেজে পড়ে? হতে পারে। আজ আমাদের কলেজে বাৎসরিক অনুষ্ঠান, আমরা ফাইনাল ইয়ারের পাবলিকরা নাটক মঞ্চস্থ করব। তাই দোতলার একটা ঘরে আমরা সবাই মেকআপ নিচ্ছিলাম। তার মধ্যে এই কাণ্ড। স্কুল-জীবনের ফ্ল্যাসব্যাক সব চোখের সামনে ভেসে উঠলো। জিভ জড়িয়ে যেতে লাগলো, মনে হল ডায়ালগ-টগ সব ভুলে যাব। কিন্তু এটাও মাথায় ছিল যে আমার ডায়ালগ ভুলে যদি নাটক আজ কেঁচিয়ে যায় (এই নাটকে আমার ছোট হলেও অন্যতম মুখ্য চরিত্র) তাহলে জনতা আমাদের ঠেঙিয়ে ঠোঙা বানিয়ে দিতে পারে। কিন্তু মনের ভিতরটা ধরফর করছে। কিভাবে ওনার সাথে কথা বলা যায় একটু। দেখি, সময় সুযোগ করতে হবে, তার আগে নাটকটার দিকে তো মন দেই।

রিচা ম্যাডামের কথাঃ

অনেকদিন বাদে জনের সাথে দেখা হল। ও যে এই কলেজে ফাইনালে পড়ে জানতাম না। আমার দিদির মেয়েও এই কলেজেই এবার ভর্তি হয়েছে। আজ ওদের কলেজে প্রোগ্রাম ছিল। ওর মা যেতে পারবেনা শুনে আমি এলাম বোনঝির সাথে। ভাগ্যিস এসেছিলাম, তাই না জনকে দেখতে পেলাম। অনেক পরিনত হয়েছে ও। সেই বাচ্ছাছেলে ভাবটা আর নেই। ওদের নাটক শেষ হবার পর পর ও নিজে থেকেই এগিয়ে এসেছিল। আমাকে বসতে বলে মেকআপ রুম থেকে মেকআপ তুলে বেরিয়ে এল। আমার হাত ধরে টেনে নিয়ে গেল কলেজের সামনে কাফেতে, কফি খাওয়ানোর জন্য। ওকে কনগ্র্যাটস জানালাম ওর পারফরম্যানসের জন্য। ও যে স্কুলে পড়ত আমি ইংলিস টিচার হিসাবে ওই স্কুলেই প্রথম যোগ দেই আমার ২৫ বছর বয়েসে। ছাত্র হিসাবে জনকে প্রথম থেকেই ভালো লেগেছিল। যার ফলে ক্লাস ও সিলেবাসের বাইরে আমাদের মধ্যে নানা রকম কথা হত, বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনাও হত। অন্য ছাত্রদের থেকে জন ছিল আমার সাথে অনেক ফ্রী। আজ সাত বছর পরে জনের সাথে দেখা হয়ে খুব ভালো লাগছিল। বাড়ি ফেরার সময় মনে হল আমার জীবনের সমস্যাটা নিয়ে জনের সাথে একটু আলোচনা করা উচিত। ও বড় হয়েছে, বুঝতে পারবে এসব কথা। তাই ওর মোবাইল নাম্বারটা নিয়ে নিয়েছি। ভাবছি এই উইকএন্ড এ ওকে বাড়িতে ডাকবো ডিনার করাতে।

জনের কথাঃ

ওনার ফোনটা পেয়ে চমকে গেছিলাম। শনিবার উনি আমাকে ডিনারে আমন্ত্রন জানিয়েছেন। ওয়াও… টুউউ গুড। আসলে স্কুল এর সময় থেকেই রিচা ম্যাডামের উপর আমার একটা দুর্বলতা ছিল। ওনার সঙ্গ ভালো লাগত। উনিও আমার সাথে নানা ব্যাপারে কথা বলতেন যেগুলো উনি অন্য কারুর সাথে হয়ত বলতেন না, খুব রোমান্টিক মহিলা ছিলেন উনি। এতদিন পরে ওনার ইনভাইটেশন পেয়ে সেই পুরানো দিনগুলোকে ফিরে পেতে চাইছিলাম। ওনার কাছ থেকে ডাইরেকশন বুঝে নিয়ে বাইক চেপে চলে এসেছিলাম ওনার ফ্ল্যাটে। সাদর অভ্যর্থনা করেছিলেন উনি। দুজনে একসাথে বসে ডিনার করলাম। বিরিয়ানি আর বাটার চিকেন। ওনার হাতের রান্না এককথায় অসাধারন (পাঠকরা দয়া করে খাই খাই করবেন না)। পেট ঠেসে খেয়ে বেসিনে হাত ধুচ্ছি এমন সময় বৃষ্টি। একদিক থেকে ভালই হল, কিছুক্ষন তো ওনার সাথে কাটান যাবে! দু-গ্লাস রেড ওয়াইন নিয়ে এলেন- “হ্যাভ ইট জন।” মুখোমুখি চেয়ারে বসে রিচা ম্যাডাম বললেন, “তোমাকে কিছু কথা বলতে চাই জন, আমার গল্প।”

ম্যাডামের কাহিনী সত্যিই দুঃখজনক। একটা নারীমাংসলোলুপ রাক্ষসের সাথে একজন মেয়ের বিয়ে হলে সেই মেয়েটির যা অবস্থা হয় ম্যাডামের অবস্থাও তাই। যতদুর বুঝলাম, বিয়ের পরে এক-রাতের জন্যও ম্যাডাম শান্তিতে ঘুমাতে পারেননি। প্রতি রাত্রে ম্যাডামের শরীর ও মনের উপর দিয়ে বুলডোজার চালিয়েছে রাক্ষসটা। ওনার পেটে লাথি মেরে ওনার গর্ভস্থ সন্তানকে গর্ভেই মেরে ফেলেছে ও চিরজীবনের জন্য ওনার মা হবার সম্ভাবনা শেষ করে দিয়েছে। তবে এসবের শাস্তিও সে পেয়েছে তাড়াতাড়ি। আকন্ঠ মদ্যপান করে মাঝরাতে ক্লাব থেকে ফিরছিল গাড়ি চালিয়ে, চলন্ত ট্রাকের সাথে হেড-অন। কর্তা ফিনিস, কর্ম ফিনিস, কারক ফিনিস। এখন উনি ম্যাডাম থাকেন একটা ফ্ল্যাটে, পুরানো চাকরিটাই বজায় রেখেছেন, তবে অন্য স্কুলে। আবার বিয়েতে একদমই ইচ্ছা নেই।

অতঃপর রিচা ম্যাডামের ফ্ল্যাটেঃ

“জন, স্টে হিয়ার টুনাইট”- জানলা দিয়ে বাইরের অবস্থা দেখছিল জন। রাস্তায় হাল্কা জল দাঁড়িয়েছে। বৃষ্টি সমানে হয়ে চলেছে। হঠাৎ ম্যাডামের কথায় চমকে উঠল জন। “না ম্যাম, কোনও প্রব হবে না, আমি যেতে পারব।”

“স্টপ ইট, বাইরে এত বৃষ্টি পরছে, তুমি বাইক নিয়ে কিভাবে যাবে? এখানে থেকে যাও। বাড়িতে ফোন করে বলে দাও, নাহলে ওনারা চিন্তা করবেন”- হুমমম, চিন্তার ব্যাপার। অগত্যা জন মাকে এসএমএস করে জানিয়ে দিল যে রাত্রে ও ম্যাডামের বাড়িতেই থাকছে। “ওয়েল, তুমি বেডরুমে শুয়ে পর, আমি ড্রইংরুমে শোব”- ম্যাডাম বললেন। ওনার দিকে তাকিয়ে ঘাড় নাড়ল জন।

“তুমি কিভাবে চেঞ্জ করবে? ”

“অ্যাম ওকে ম্যাম, আমার কিছু লাগবে না। এভাবে শুতে আমার কোনও অসুবিধে হবে না।”- জন বলে।

রিচা ম্যাডাম জনকে বেডরুমে নিয়ে আসেন। গোছানো বেডরুমের স্বল্প আলোয় জন খাটে বসে। ড্রেস বদলে নাইট গাউন পরে রিচা ম্যাডাম এক জগ জল নিয়ে আসেন। টেবিল এর উপর জগ রেখে জানলার কাছে গিয়ে দাঁড়ান উনি। “জন, আজ তোমাকে সব কথা বলতে পেরে নিজেকে অনেক হাল্কা লাগছে।”-ডানহাতে জানলার গ্রীল চেপে ধরে বলেন উনি। কিছুক্ষন চুপচাপ, কারুর মুখেই কোন কথা নেই। রিচা ম্যাডাম জানালার পর্দার ফাঁক দিয়ে তাকিয়েছিলেন বাইরে, তাঁর মনের ভিতর কি চলছিল তা বুঝতে পারল না জন। তার নিজের ভিতরে দুলে উঠলো ম্যাডামকে দেখে। উনি খুব একা এটা বুঝতে পারল জন, কিন্তু কিভাবে ওনার একাকিত্ব দূর করা যায় তা ওর মাথায় এল না। একটা ঘোরের মধ্যে চলে যাচ্ছিল জন। খাট থেকে উঠে এসে ম্যাডামের পাশে এসে দাঁড়াল সে। ডানহাত দিয়ে ওনার কাঁধ ধরে ঘুরিয়ে আনল নিজের দিকে। দুজনই পরস্পরের চোখের দিকে তাকিয়েছিল একদৃষ্টিতে। আস্তে আস্তে জন মাথা নামিয়ে ঠোঁট ছোঁয়াল রিচা ম্যাডামের ঠোঁটে। পুরো শরীরটা একবার কেঁপে উঠলো ম্যাডামের। চোখ বুঁজে দুহাত দিয়ে উনি জনের কাঁধ চেপে ধরলেন। জনের ঠোঁট ধীরে ধীরে ম্যাডামের পুরো ঠোঁটের দখল নিয়ে নিল, ওর দুহাত চলে গেল ম্যাডামের সরু কোমরে, শক্ত করে রিচা ম্যাডামকে নিজের সাথে জড়িয়ে ধরল সে। চোখ বন্ধ করে ম্যাডামের ঠোঁটদুটি চুষতে লাগলো জন। ম্যাডামের জিভ ঢুকে এল জনের মুখে। জন টের পাচ্ছিল ওর উত্তেজিত পুরুষাঙ্গ ম্যাডামের তলপেটে চেপে বসছে। ম্যাডামের উষ্ণ জিভকে নিজের জিভের সাথে মিলিয়ে নিতে নিতে নিজের উত্তেজিত পুরুষাঙ্গকে আর বেশি করে ফিল করছিল জন। বুঝছিল ওর পুরুষ দন্ডের সংলগ্ন অন্তর্বাস ভিজে উঠছে। একটা সম্পূর্ণ নতুন অভিজ্ঞতার সাথে পরিচিত হচ্ছিল সে। কিছু ট্রিপল-এক্স মার্কা সিনেমা দেখে ও পর্নোগ্রাফি বই পরে কিছু জ্ঞানার্জন করেছিল জন, কিন্তু তখন যা ভেবেছিল, বাস্তবে তার থেকেও যেন অনেক অনেক বেশীকিছু এই অভিজ্ঞতা। রিচা ম্যাডামের উদ্ধত স্তন আঙ্গুল দিয়ে স্পর্শ করল জন। হঠাৎ রিচা ম্যাডাম বিচ্ছিন্ন করলেন নিজেকে, লাল টকটকে হয়ে গেছে ম্যাডামের ফর্সা মুখটা। সরাসরি উনি তাকালেন জনের চোখের দিকেঃ “জন, দরজাটা বন্ধ কর অ্যান্ড সুইচ অফ দ্য লাইট”। ওনার হিসহিসে গলায় বলা কথাগুলো যন্ত্রচালিত মানুষের মত পালন করল জন। লাইট নেভাতেই রিচা ম্যাডাম প্রায় ঝাঁপিয়ে পরলেন ওর উপর। উন্মাদের মত খুলে ফেললেন ওর T-শার্ট। আক্রমন করলেন জনের গলায়, বুকে, নিপলসে। জনের মনে হচ্ছিল একটা হিংস্র বাঘিনীর শিকারে পরিনত হচ্ছে ও। তখনও ওর হাতদুটো ধরে রেখেছিল রিচা ম্যাডামের শরীর, অনুভব করছিলো তাঁর চুম্বন, গলায় বুকে তাঁর দাঁতের স্পর্শ, লাভ-বাইটস। একধাক্কা দিয়ে জনকে বসিয়ে দিলেন খাটে, নিজে ওর সামনে হাঁটু মুড়ে বসে খুলে ফেললেন ওর জিন্সের জিপার। বের করে আনলেন জনের উত্তেজিত পুরুষাঙ্গ যা কিনা এতদিন কোন নারী স্পর্শ করেনি। শিউরে উঠলো জন। কাঁচের জানালার পর্দার ফাঁক দিয়ে রাস্তার মার্কারি ভেপার ল্যাম্পের একচিলতে আলো এসে পড়ছিল ঘরে, তাতে জন দেখতে পাচ্ছিল আবছাভাবে। গরম জিভ বোলালেন রিচা ম্যাডাম জনের পুরুষাঙ্গের মাথায়। নিজের পুরু দুই ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরলেন সেটির চামড়া। উসসসস্ করে উঠলো জন। ওর শরীরের মধ্যে দিয়ে ইলেক্ট্রিসিটি চলাচল শুরু হয়েছে মনে হল। দুইহাতে জনের নিতম্ব চেপে ধরে ব্লোজব দিতে শুরু করলেন রিচা ম্যাডাম। ঘন কালো চুলে ঢাকা রিচা ম্যাডামের কাঁধ নিজের দুহাতে চেপে ধরল জন। গতিবেগ বাড়াতে শুরু করলেন রিচা ম্যাডাম। ওনার মুখ থেকে লালা বেরিয়ে জনের জিন্সের সামনের কিছুটা অংশ ভিজিয়ে দিয়েছে। হালকা শীতকার বেরোতে সুরু করেছিল জনের গলা থেকে। মিনিট তিনেক পরে তার মনে হল ওর তলপেটের তলার অংশে মুচড়ে উঠছে। কিছু একটা তার শরীর থেকে বেরিয়ে আসার জন্য উন্মুখ। মাস্টারবেট করতে গিয়ে জন এইরকম অভিজ্ঞতা পেয়েছে, কিন্তু এটা তার থেকে অনেক অনেক বেশী। জন বুঝল সে আর ধরে রাখতে পারবেনা নিজেকে, রিচা ম্যাডামের মুখে ইজাকুলেট হয়ে যেতে পারে। ঠিক সেইসময় রিচা ম্যাডাম মুখ তুললেন জনের থেকে, ডানহাত দিয়ে জনের অণ্ডকোষ চেপে ধরলেন জিন্সের উপর দিয়ে, টিপতে থাকলেন সেটা। জনের মনে হল বেগটা কমে এল। যে অগ্নুৎপাতটা হতে যাচ্ছিল সেটা সামলানো গেল একটু। “স্ট্যান্ড আপ”- আবার সেই হিসহিসে গলা রিচা ম্যাডামের। উঠে দাঁড়ালো জন। “ডিড ইউ এভার হ্যাভ সেক্স?” – রিচা ম্যাডামের প্রশ্ন। “নো ম্যাম” – জনের উত্তর। “কোনদিনও না?”- আবার প্রশ্ন । “না ম্যাম”- জনের উত্তর।

“ওয়েল, আই গেট ইউ” চাপা গলায় কথাগুলো বলে জনের বেল্টের বকলেস ঢিলা করলেন রিচা ম্যাডাম, একটানে নামিয়ে দিলেন জনের পরনের জিন্স আর অন্তর্বাস। “উঠে এস বিছানায়” – নিজের রাত-পোশাক খুলতে শুরু করেছেন রিচা ম্যাডাম খাটে বসে। বিহ্বলভাবে নিরাবরন জন খাটে উঠে বসলো রিচা ম্যাডামের পাশে। ঘরের হাল্কা আলোয় প্রথমেই জনের চোখ গেল রিচা ম্যাডামের বুকের দিকে। এখনও সেই একইরকম পীনোন্নত ভারী স্তন রিচা ম্যাডামের। উফফফফফ, আর সামলাতে পারলনা জন নিজেকে। রিচা ম্যাডামের বুকের উপত্যকায় নিজের মুখ গুঁজে দিল। কেমন একটা মন-পাগল করা গন্ধ। জনের ডানহাত উঠে এল রিচা ম্যাডামের বামস্তনে। রিচা ম্যাডাম জনের মাথা চেপে ধরলেন নিজের বুকে। জন জিভ রাখল রিচা ম্যাডামের ডানস্তনে। স্বপ্নে দেখা এই বস্তুটি আজ বাস্তবে নিজের মুখের ভিতরে অনুভব করে পুলকিত হতে লাগলো জন। স্তনবৃন্ত চুষতে লাগলো পাগলের মত। রিচা ম্যাডাম ওর চুলে, পিঠে হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলেন। নিজের স্বাদ পরিবর্তন করল জন, অর্থাৎ ডান থেকে বামস্তনে এলো তার জিভ ও ঠোঁট। আবারও স্তনবৃন্ত চুষতে লাগলো পাগলের মত ও অন্যহাতে ডানস্তন মর্দন করতে শুরু করলো। রিচা ম্যাডাম কতটা উত্তেজিত তা জন বুঝতে পারছিল না কিন্তু নিজের চুলে, পিঠে অনুভব করছিল রিচা ম্যাডামের কোমল স্পর্শ, যেন পরম মমতায় উনি হাত বুলিয়ে দিচ্ছেন জনের শরীরে। বিছানায় বসে থাকা রিচা ম্যাডামের স্তন থেকে মুখ তুলে জন নামতে থাকল ওনার পেটের দিকে, তাতে ওর নিজের শরীরের নিচের অংশটাও বিছানায় উপুড় হয়ে গেল। উত্তেজিত জন রিচা ম্যাডামের নাভিতে চুমু খেল, নাভির পাশে জিভ দিয়ে বলাতে থাকল। আরও নিচে হাল্কা ট্রিম করা পিউবিক হেয়ার, মুখ দিল জন সেখানে। কি রকম একটা অদ্ভুত গন্ধ। এইসময় রিচা ম্যাডাম দুপায়ে ভর দিয়ে উঠে বসলেন। ফিসফিসে গলায় জন কে জিজ্ঞাসা করলেন “ডু ইউ ন্যো হোয়াটস সিক্সটি নাইন পজিশন?” “নো ম্যাম” – জনের উত্তর (ওনাকে তো আর বলা যায়না যে পর্নো-ফিল্মের দর্শক জনের কিছু আইডিয়া আছে এব্যাপারে)। “অলরাইট, চিত হয়ে শোও”- চিত হল জন। রিচা ম্যাডাম জনের শরীরের উপরে সিক্সটি নাইন পজিশন নিলেন “লুক জন, নাউ আই’ল সাক ইওর পেনিস অ্যান্ড ইউ’ল সাক মাই ভ্যাজাইনা টুগেদার, উইদ মী। লাইক দিস…” বলে রিচা ম্যাডাম নিজের পুরু ঠোঁট দিয়ে জনের পুরুষাঙ্গের সামনের চামড়া চেপে ধরলেন, আস্তে আস্তে ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরেই নিচের দিকে টানতে শুরু করলেন ওটা। ধীরে ধীরে জনের উত্তেজিত লিঙ্গের প্রায় পুরোটাই ঢুকে গেল ওনার মুখে। উফফফফফফ। কি অসাধারন অনুভুতি!! জন মুখ রাখল রিচা ম্যাডামের যোনিতে। হাল্কা একরকম তরল অনুভব করলো সে জিভের উপর। অন্যরকম টেস্ট। ভ্যাজাইনার সামনের পাপড়িতে জিব ছোঁয়ালো জন। জিভ দিয়ে যোনির চারপাশে বোলাতে বোলাতে নিচের দিকে একটা মটরদানার মত অংশ পেল। ঠোঁট ছোঁয়ালো সেখানে। উম ম ম ম করে উঠলেন ম্যাডাম, মুখ তুললেন জনের থেকে। “জন প্লিজ, ওইখানটায়… হ্যাঁ হ্যাঁ, ওইখানটায় আবার জিভ দিয়ে আদর কর… দ্যাটস মাই ক্লিট… উফফফফ ডোন্ট স্টপ জন… সাক দ্যাট…ওহহহহ”- কামার্ত কাতরোক্তি ছিটকে আসে ম্যাডামের গলা থেকে। ওনার কথামত জন ওই মটরদানার চারপাশে জিভ বোলাতে শুরু করলো, চুমু খেল ওখানে। আআহ হ হ হ হ- ডুকরে ওঠেন রিচা ম্যাডাম, মুখ নামিয়ে আনেন জনের লিঙ্গে, একহাতে চেপে ধরে প্রবলভাবে চুসতে থাকেন ওটা। সেই উত্তেজনায় জন আরও বেশি করে চাটতে ও চুসতে থাকল রিচা ম্যাডামের যোনিদ্বার ও ক্লিট (একদম পর্নো-ফিল্মের মতো)। কিছুক্ষন পরে আবার জনের সেই পুরানো অনুভুতি হল। মোচড় দিয়ে উঠলো জনের তলপেট। কিছু একটা তার শরীর থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছে। জনের পুরুষাঙ্গ ফুলে উঠলো জন ম্যাডামের মুখের ভিতর। কি হতে যাচ্ছে বুঝতে পেরে ম্যাডাম আরও জোরে জোরে ব্লোজব দিতে শুরু করলেন। জন ম্যাডামের ক্লিট থেকে জিভ সরিয়ে নিল, আহহহ করে শীৎকার দিয়ে উঠলো, দুহাতে আঁকড়ে ধরল রিচা ম্যাডামের কোমর। সাথে সাথে বিপুল বেগে ছিটকে বেরলো জনের স্খলিত তরল বীর্য ম্যাডামের মুখের মধ্যে। রিচা ম্যাডামের পুরু ঠোঁট চেপে ধরে রাখল জনের উত্তপ্ত লিঙ্গ যাতে একফোঁটাও বাইরে বেরুতে না পারে। ওই অবস্থাতেই দুবার ঢোক গিললেন রিচা ম্যাডাম। জনের শরীর থেকে নির্গত বীর্য গিলে ফেললেন। জন তাকিয়ে দেখছিল, ঠিক যেমন পর্নো-ফিল্মে দেখায়, ম্যাডাম একদম সেরকমই করলেন। “ক্যারি-অন জন”- নিজের অর্গাজম এর সময় জন মুখ সরিয়ে নিয়েছিল ম্যাডামের নিম্নাঙ্গ থেকে, ওনার হিসহিসানি শুনেই মুখ লাগাল আবার। একই ভাবে চাটতে লাগলো ওনার ক্লিট, জিভ ঢুকিয়ে দিল ওনার যোনিছিদ্রে, ঠোঁট দিয়ে টেনে ধরতে লাগলো ওনার ভ্যাজাইনার সামনের পাপড়ি। ম্যাডামের গলা থেকে চাপা আর্তনাদ বেরিয়ে আসছিল ও ক্রমশ তীব্র হচ্ছিল সেটি। কিছুক্ষন পরে অদ্ভুত একরকম শব্দ বেরতে লাগলো ওনার গলা দিয়ে। সাথে সাথে উনি নিজের নিম্নাঙ্গ জনের মুখে সজোরে চেপে ধরলেন। জন তখনও দুহাতে ম্যাডামের নিতম্ব চেপে ধরে চেটে যাচ্ছিল ক্লিট ও তার আশেপাশে। ম্যাডামের যৌনাঙ্গে পেশীর সংকোচন-প্রসারন লক্ষ্য করলো জন। সাথে সাথেই ম্যাডামের শরীর থেকে বিক্ষুব্ধ তরল-ধারা যেন ঝাঁপিয়ে পরল জনের মুখের উপর। মুখ সরানোর আগেই জনের নাকে মুখে ঢুকে গেল সেই তরল। ইয়াম্মিইইইইই টেস্ট না হলেও জনের মনে হল স্বাদটা খারাপ না। পর্নো-ফিল্মে এরকম সিন এক-আধবার দেখেছে, তবে এই অভিজ্ঞতাটা নিজের শরীর-মন দিয়ে অনেক অনেক বেশী করে অনুভব করছিল জন। চেটে খেয়ে নিল কিছুটা।

জনের শরীর থেকে উঠে এলেন রিচা ম্যাডাম। জন বিছানাতে চিৎ হয়ে শুয়েছিল, তার ডানপাশে উপুড় হয়ে শুয়ে পড়লেন উনি, হাল্কা করে জড়িয়ে ধরিয়ে ধরলেন জনকে, নিজের শরীর ও ডানহাত দিয়ে। ওনার শক্ত হয়ে থাকা ডান স্তন ও নিপলস চেপে বসেছিল জনের বুকে। জোরে জোরে শ্বাস নিচ্ছিলেন ম্যাডাম, তার তীব্র উষ্ণ স্পর্শ অনুভব করছিল জন তার বুকে, গলায়। অনুভব করছিল, একবার অর্গাজম হবার পরেও ম্যাডামের ভিতরের আগ্নেয়গিরি ঠান্ডা হয়নি। জনের সারা শরীর অবশ হয়ে আসছিল। আসলে প্রথমবার এরকম অভিজ্ঞতা জনকে একাধারে উত্তেজিত ও ক্লান্ত করে ফেলেছিলো। কিন্তু…… রিচা ম্যাডামের ঠোঁট অনুভব করলো জন, নিজের গলায়। তার সাথে হাল্কা কামড়। জিভ বোলাতে শুরু করেছেন উনি জনের গলায়, কানে। ফিসফিস করে রিচা ম্যাডাম জিজ্ঞাসা করলেন- “কেমন লাগছে জন?” “ভালো ম্যাডাম”। “এবার তোমার ইজাক্যুলেশন তাড়াতাড়ি হয়ে গেছে। দ্বিতীয়বার কিন্তু এত তাড়াতাড়ি করলে আমি রাগ করব” সোহাগী গলায় কথাগুলো বললেন রিচা ম্যাডাম। জন বুঝতে পারল রিচা ম্যাডাম আবার চান। কৈশোর বয়েস থেকে আজ পর্যন্ত যা যা পর্নো-সিনেমা দেখেছে জন, সেগুলোকে নিজের মনে রিওয়াইন্ড করতে শুরু করলো। গত দশ মিনিটে যেসব কান্ড ঘটল তা দেখে জন ভীষনভাবে চাইছিল ম্যাডামের ভিতর নিজেকে পেনিট্রাইজ করতে। স্বপ্ন যখন চোখের সামনে বাস্তবে পরিনত হতে থাকে তখন মানুষের মনে একরকম আনন্দ ও উত্তেজনার ককটেল তৈরি হয়। জনেরও সেটাই হচ্ছিল। নিজের নেতানো লিঙ্গের উপর ম্যাডামের ডানহাত অনুভব করলো জন, হাল্কাভাবে চটকাচ্ছেন সেটি। ম্যাডামের কপালে চুমু খেল জন। ওর বাঁ-হাত নেমে এল রিচা ম্যাডামের ডান-স্তনে। স্পর্শ করলো স্তনবৃন্ত। রিচা ম্যাডাম নিজের ঠোঁট দিয়ে চেপে ধরলেন জনের ঠোঁট। আবারও প্রথমবারের মত চুসতে লাগলেন জনের ঠোঁট, নিজের জিভ ঢুকিয়ে দিলেন ওর মুখে। জন অনুভব করছিল রিচা ম্যাডামের শরীর ধীরে ধীরে উঠে আসছে তার উপর, পিষে দিতে চাইছে জনকে বিছানার সাথে। জনের দুহাত বেষ্টন করল রিচা ম্যাডামের শরীর। উনি জনকে আদর করছিলেন সাংঘাতিকভাবে। জনের পুরুষাঙ্গটি খাড়া হয়ে রিচা ম্যাডামের শরীর স্পর্শ করছিল। হঠাৎ জনকে উল্টে দিলেন রিচা ম্যাডাম। ওকে নিজের শরীরের উপর টেনে নিয়ে এলেন, তখনও ওনার জিভ জনের মুখের ভিতর, দুহাতে জনের মাথার চুল মুঠো করে ধরে রেখেছেন উনি। জন রিচা ম্যাডামকে বাধা দিল না। উনি যে রকম চান সেরকম ভাবেই আদর করতে দিল ওনাকে। একসময় নিঃশ্বাস নেওয়ার জন্য রিচা ম্যাডাম ঠোঁট ফাঁক করতেই জনের ঠোঁট নেমে এল ওনার গলায়, কানের লতিতে। রিচা ম্যাডামের হাল্কা শীতকার ও উষ্ণ শ্বাস-প্রশ্বাসের শব্দ জনের আদর করার গতিবেগ বাড়িয়ে তুলছিলো। কোনও এক ওয়েব-সাইটে ফোর-প্লে সংক্রান্ত একটা লেখা পড়েছিল জন, সেটাকে মনে করে তাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করতে লাগলো। রিচা ম্যাডামের গলায় আদর করতে করতে হাল্কা হাল্কা কামড় দিতে লাগলো ওনার কন্ঠনালিতে, তাতে প্রত্যেক কামড়ের সাথে সাথে উনি আদুরে শব্দ করতে থাকলেন। গলা থেকে নেমে জন নেমে এল ওনার বগলে। চুমু খেতে লাগলো সেখানে। আবার উঠে এল গলায়। একসাথে গলায় ও ওনার ঠোঁটে আদর করতে থাকলো জন আর তার ফলে রিচা ম্যাডামের অবস্থা খারাপ হয়ে উঠল। ওনার হাতের ধারালো নখ জনের পিঠে মাঝে মাঝে চেপে বসছিল। হাল্কা ব্যাথা অনুভুত হলেও জন সেটাকে মোটেও পাত্তা দিল না। সে তখন রিচা ম্যাডামের শরীর থেকে সুখ খুঁজে নিতে ব্যস্ত। ম্যাডামের গলা থেকে মুখ তুলে জন নেমে এল ওনার বুকে। স্তন দুটি শক্ত হয়ে রয়েছে। চুমু দিল জন দুই উন্নত স্তনবৃন্তে, মুখ গুঁজে দিল দুই স্তনের মাঝের ক্লীভেজে। উষ্ণ জিভ দিয়ে চাটতে লাগলো সেখানে, লালায় ভরিয়ে দিল। রিচা ম্যাডাম আর সহ্য করতে পারছিলেন না। ঘরের ঠান্ডা আবহাওয়ায় ছড়িয়ে পড়ছিল রিচা ম্যাডামের চাপা শীৎকার। নিজেই টেনে আনলেন জনের মাথা, ওর মুখ চেপে ধরলেন নিজের বাঁ-স্তনের উপর- “আআহহহহ…লিক ইট জন, ডোন্ট মুভ ইওর হেড।” বাঁ-হাতে অন্য স্তনকে মর্দন করতে করতে জন মুখে ঢুকিয়ে নিল বাঁ-স্তনকে। দুই ঠোঁট দিয়ে পুরো স্তন প্রায় গোড়া অবধি চেপে ধরল, ডানহাত দিয়ে সাপোর্ট রাখলো বাঁ-স্তনের ঠিক নিচে আর জিভ দিয়ে পর্যায়ক্রমে অ্যরিওলা ও নিপলে বোলাতে শুরু করলো। পনের মিনিট আগে এই একই কাজ করেছিল জন, তখন সে অনেকটা নভিস ছিল। কিন্তু এখন সে অনেকটা বুঝে নিয়েছে। তাই ক্রমাগত একই ভাবে সে এই কাজটি চালিয়ে যেতে লাগলো রিচা ম্যাডামের দুই সুঠাম, পীনোন্নত স্তনে। রিচা ম্যাডামের হাত সজোরে জনের মাথা চেপে রেখেছিল, যাতে জন আর কোনও দিকে না যেতে পারে। তাই জনের ডানহাত এগিয়ে গেল রিচা ম্যাডামের শরীরের নিচের দিকে। স্পর্শ করলো ওনার ঊরুসন্ধি। ভিজে গিয়েছে পুরো অংশটা। জন ঢুকিয়ে দিল ওর ডানহাতের তর্জনী ও মধ্যমা রিচা ম্যাডামের যৌনাঙ্গের ভিতরে। একটা ঝটকা দিয়ে উঠলেন রিচা ম্যাডাম। দু-আঙুল দিয়ে স্টিমুলেট করতে লাগলো জন। পচপচ করে আওয়াজ উঠছিলো। স্টিমুলেট করতে করতে রিচা ম্যাডামের নাভীতে, পেটে, স্তনে চুমু খেয়ে যাচ্ছিল জন। ধীরে ধীরে পরিনত হয়ে উঠছিল জন। তিন-চার মিনিট পর রিচা ম্যাডামের পুরো শরীরটা বেঁকে গেল, সাথে সাথে জন নিজের আঙ্গুলের উপর ওনার গরম ভিতরের অংশের চাপ অনুভব করলো, যেন উনি জনের আঙ্গুলগুলি পিষে ফেলতে চান। এর সাথে সাথেই জনের হাতে স্পর্শ করলো প্রবাহমান গরম তরলের ধারা, রিচা ম্যাডামের ভিতর থেকে উথলে আসছে। আঙ্গুল বের করতেই বিছানার চাদরে ছিটকে পরলো সেই তরল। “ওহহহহ জন, জাস্ট কাম ইনসাইড। আই কান্ট কন্ট্রোল মাইসেলফ”- ডুকরে উঠলেন ম্যাডাম। জনের দুই বাহু ধরে টেনে নিয়ে আসতে চাইলেন ওকে নিজের উপর। জন দুহাত দিয়ে ওনার দুই হাঁটু ফাঁক করে ধরল। হালকা আলো-আঁধারিতে দেখতে পেল যেন এক গভীর গুহা যেখানে রাজার ঐশ্বর্য লুকিয়ে রয়েছে। হাঁটু গেড়ে বসে নিজের যৌনদন্ডটি ধরে নিয়ে এল গুহাদ্বারের সামনে। গুহার মালকিনের আর দেরী সহ্য হচ্ছিলনা, তিনি নিজেই টেনে নিলেন জনের পুরুষাঙ্গ, সেট করলেন ঠিক জায়গায়। জন বুঝলো এবার এগোতে হবে (পানু দেখে শেখা!)। চাপ দিল ও। বেশ কিছুটা ঢুকল ভিতরে। আবার একটু চাপ। এবার পুরো যৌনদন্ডটিই ঢুকে গেল। “ওহ গড…”- রিচা ম্যাডামের চাপা আর্তনাদ। পাম্প করতে শুরু করলো জন। দুহাতে বিছানার চাদর আঁকড়ে ধরলেন রিচা ম্যাডাম। স্ট্রোক দিতে দিতে জন বুঝতে পারছিল ম্যাডামের ভ্যাজাইনা অত টাইট না, কিন্তু তার কোনও সমস্যা হচ্ছে না। স্ট্রোক দেবার স্পিড বাড়াতে থাকল জন। যত তার কানে আসছিল রিচা ম্যাডামের চাপা আর্ত শীৎকার ততই তীব্র হচ্ছিল সে। তার সাথে সাথে ম্যাডাম ওর পুরুষাঙ্গ চেপে ধরছিলেন নিজের ভিতরের দেওয়াল দিয়ে। কিছুক্ষন পর দু-পা দিয়ে জনের কোমর জড়িয়ে ধরলেন ম্যাডাম। জনের মনে হল তার বিষ্ফোরিত হওয়ার সময় এগিয়ে আসছে। একটু দ্বিধায় পড়ে গেল জন, ভিতরে ফেলবে না বাইরে ফেলবে? স্ট্রোকের স্পিড কমে এসেছিল ওর। মনে হয় রিচা ম্যাডাম ওর মন পড়তে পারলেন। “ওহহ জন নোহহ, লিভ ইট ইনসাইড। উমমহহহহ”- চাপা আর্তনাদ ভেসে এল ওনার গলা থেকে। শোনার সাথে সাথে স্পিড বাড়ালো জন। দুজনের শরীর ঘামে ভিজে চুপচুপে, ফুলস্পিডে ফ্যান চলা সত্যেও। রিচা ম্যাডামের যোনিপথের মধ্যে জনের পুরুষাঙ্গ ফুলে উঠতে লাগলো। তলপেটের নিচে কেমন একটা অনুভুতি হচ্ছিল ওর, সেটা তীব্র হল এবার। চোখ বন্ধ করতে করতে জন অনুভব করলো নিজের শরীরের ভিতরে আগ্নেয়গিরির বিষ্ফোরন, তার সাথে সাথে লাভার স্রোত যেন ঠিকরে বেরিয়ে আসছে। শরীরে ঝাঁকুনি দিতে দিতে রিচা ম্যাডামের ভিতরে বীজ-বপন করলো জন। হস্তমৈথুন করে বা রিচা ম্যাডামের ব্লোজব খেয়েও এত বেশী বীর্যপাত ওর কখনও হয়নি। চোখে অন্ধকার দেখছিল জন। রিচা ম্যাডামের শীৎকারে বাস্তবে ফিরে এল। গড়িয়ে পরলো রিচা ম্যাডামের পীনোন্নত বুকের উপর। দুহাতে জনকে জড়িয়ে ধরলেন রিচা ম্যাডাম। কানে চুমু খেলেন। “জন, আই অ্যাম হ্যাপি, রিয়েলি হ্যাপি। ইউ আর সাচ আ স্যুইটহার্ট ডিয়ার”, কানের পাশে রিচা ম্যাডামের ফিশফিশ আওয়াজ শুনতে পেল জন। নিজের নেতিয়ে যাওয়া পুরুষাঙ্গে স্পর্শ পেল রিচা ম্যাডামের হাতের। আবার একপ্রস্থ বিষ্ফোরনের জন্য জনকে তৈরি করছেন উনি। ওনার পুরু ঠোঁট আবার চেপে বসলো জনের ঠোঁটে এবং……

জনের কথাঃ

সেই রাত্রে আমরা মোট তিনবার মিলিত হই। ভোরবেলায় আরও একবার। প্রতিবারই ওনার মধ্যে নিজেকে উদগীর্ন করে দেই। শরীরে একফোঁটাও শক্তি ছিলোনা। কিভাবে যে সেদিন বাইক চালিয়ে বাড়ি এসেছি সে আমিই জানি। অবশ্য এখন আমাদের মধ্যে আর কোনও বাধা নেই। সময় সুযোগ পেলেই আমরা মিলিত হই। তবে এর সঙ্গে উনি আমাকে জীবনের পথ চলার জন্য উৎসাহ ও সাহস যোগান, ভাল সাজেশনও দেন। এককথায় উনি আমার ফ্রেন্ড, ফিলোসফার ও গাইড (সেক্সুয়াল লাইফেরও)। আমি জানি একদিন যখন আমি বিয়ে করে সংসারী হব, তখন ওনার সাথে এই সম্পর্ক শেষ করে দিতে হবে। কিন্তু ততদিন এমনি করেই যায় যদি দিন যাক না…।

রিচা ম্যাডামের কথাঃ

সেই রাত্রে আমরা মোট তিনবার মিলিত হই। ভোরবেলায় আরও একবার। প্রতিবারই আমার মধ্যে নিজেকে জন উজাড় করে দিয়েছিল, আমি-ই বলেছিলাম ওকে, কারন আমি সম্পুর্নভাবে বিপদমুক্ত, সৌজন্যে আমার রাক্ষস স্বামী । এখন আমরা নিজেদেরকে খুঁজে নিয়েছি। মাঝে মাঝেই আমরা মিলিত হই। নিজের নারীত্বকে, নিজের প্যাশনকে ভালবাসার সাথে তুলে দেই আমার ভূতপূর্ব ছাত্রের হাতে, ভুলে থাকতে চাই নিজের বিবাহিত জীবনের অতীতকে। কিন্তু একটা কথা তো কোনও দিন ভোলা যাবেনা, আমি আর কোনওদিন মা হতে পারব না। জনকে আমি জীবনে দাঁড়াতে সাহায্য করছি। খারাপ-ভালর ব্যবধানটা চেনাই। জনও আমাকে খুব ভাল বোঝে। আমি মন থেকে চাই যে জন মানুষ হোক, মানুষরুপী রাক্ষস যেন না হয়। আমি জানি একদিন জন বিয়ে করবে, সংসারী হবে। তখন ও আর আমার কাছে এইভাবে আসতে পারবে না। কিন্তু ততদিন এমনি করেই যায় যদি দিন যাক না…।

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s