প্রাপ্তবয়স্ক ০১ (collected-series)


সুজাতা শাড়ীর আঁচলটা দিয়ে কপালের ঘামটা মুছে নিলো। আজ শুক্রবার, অফিস থেকে ছুটি নিয়ে সকাল আট-টা থেকেই সুজাতা ঘর পরিষ্কার করা শুরু করেছে – কোনরকমে ব্রেকফাষ্টটা সেরেই কাজের মেয়ে মালাকে নিয়ে লেগে পড়েছে ঘর সাজাতে। রাহুল – তার একমাত্র ছেলের আজ আঠেরো বছর বয়স হবে। ওর যখন তেরো বছর বয়স, ওর ইন্জিনিয়ার বাবা, অফিসের কাজে ট্যুরে বেড়িয়ে হাইওয়েতে গাড়ীর এক্সিডেন্টে মারা যায়। মানবিক কারণে সুজাতা ঐ কোম্পানীরই কলকাতার অফিসে চাকরী পায়। রাহুলের বাবা – বালীগন্জে এই পস্ এরিয়ায় ছ’তলায় চোদ্দোশো স্কোয়ার ফিটের ফ্ল্যাটটা আগেই কিনে রেখেছিলো, লাইফ ইন্সিওরেন্সের অনেকগুলো টাকাও সুজাতা পেয়েছিলো – তাই রাহুল টাকার অভাব কোনদিন বুঝতে পারেনি, কলকাতার নামী স্কুলেই পড়েছে, শুধু জানতো অন্যদের মতো তার বাবা নেই…. ।


অন্যান্য জন্মদিনে রাহুলকে নিয়ে সুজাতা কোন রেষ্টুরেন্টে খেয়ে আসতো, বাড়ী ফিরে গ্লাসে ‘জিন্’ নিয়ে চুপচাপ বসে খেতো আর পুরোনো দিনের স্বামীর অফিসের পার্টির কথা ভাবতো। রাহুল ১২ ক্লাসের ফাইনাল পরীক্ষা দিয়েছে, এখনও রেজাল্ট বেড়োয়নি, এবার আইনত ‘প্রাপ্তবয়স্ক’ হচ্ছে তাই সুজাতা এবার বাড়িতে ছোট করে ওর বার্থডে পার্টি দিচ্ছে আর তাই এই ঘর গুছোনো। রাহুলের কোচিং –এর দু-তিনজন বন্ধু ছাড়াও আসবে – ওর বাবার অফিসের ঘনিষ্ঠ বন্ধু অনিমেষের বৌ মিতা ও মেয়ে চন্দ্রিমা। অনিমেষ এখন পাটনায় পোষ্টেড। সুজাতা ও তারা একই জায়গায় থাকতো, রাহুলের বাবা মারা যাওয়ার পর সুজাতারা এই ফ্ল্যাটে এসে ওঠে। মিতার ডাক নাম ‘লায়লি’। ওর মেয়ে চন্দ্রিমা ১০ ক্লাস ফাইনাল দিয়ে মায়ের সাথে কলকাতায় দাদুর বাড়ীতে বেড়াতে এসেছে এ খবর পেয়েই সুজাতা ওদের ইনভাইট্ করেছে।

কলিংবেল বাজতেই কাজের মেয়ে মালা গিয়ে দরজা খুলে দেয়, রাহুল কেক্,পটাটো চিপস্, সিগারেট ও ড্রিংক্সের বোতল নিয়ে ঢোকে।
সুজাতা: তাড়াতাড়ি আগে সিগারেটটা ধরিয়ে আমার মুখে গুঁজে দে, কতক্ষণ সিগারেট ছাড়া কাজ করবো!
রাহুল প্যাকেট খুলে একটা সিগারেট ধরিয়ে মায়ের ঠোঁটে গুঁজে দেয়।
সুজাতা: তুই আর অন্য সিগারেট ধরাস্ না, আমি পুরোটা খাবোনা।
রাহুল: ডিনারের অর্ড়ার দিয়ে এসেছি,আটটায় হোম ডেলিভারী করবে। মম্, আজ তুমি আমার চয়েসে ড্রিঙ্কস নেবে, ভদ্কা উইথ্ লাইম্ কর্ডিয়াল।
সুজাতা: ওকে ডিয়ার আই হ্যাভ্ নো প্রবলেম অ্যাট্ অল্। কেক কি এনেছিস্?
রাহুল: বাটার স্কচ্।
সুজাতা: স্কচের সঙ্গে কেউ বাটার খায় নাকিরে!
রাহুল: মম্ , ইউ আর সো নটি!
সুজাতা: নটি হয়েইতো বয়সটা কমাতে চাই, পঁয়তাল্লিশ বছর বয়সতো হলো।
রাহুল: নো মম্, ইউ লুক লাইক্ থারটি ফাইভ।
সুজাতা: সত্যি!?
রাহুল: রিয়েলি, আমার বন্ধু পার্থ বলছিলো ‘ইওর মম্ ইস সো সেক্সি’।
সুজাতা: বাবা খুব স্মার্ট ছেলেতো! (রাহুলের মুখে সিগারেট গুঁজে দেয়) আজকে ও আসবে তো?
রাহুল: অফ্ কোর্স, হি ইজ্ আ গ্রেট ফ্যান অফ্ ইউ। মম্ একটা কথা বলবো, তুমি মাইন্ড করবেনা তো?
সুজাতা: বল্ না অ্যাতো হেসিটেট্ করছিস কেন!
রাহুল: না মানে পার্থ বলছিলো তোর মায়ের ব্রেস্ট আর হিপ্ খুব অ্যাপিলিং।
সুজাতা: ওমা, একথায় মাইন্ড করবো কেন, এটাতো পার্থ প্রশংসা করেছে। তবে ও নিজে যদি আমায় বলতো তবে বেশী খুশী হতাম। অবশ্য হ্যাঁ অল্প বয়স, ও নিজে বলতে তো একটু হেসিটেট্ করবেই।
রাহুল: আচ্ছা মম্ তোমার ফিগার এতো সুন্দর রাখলে কি করে বলোতো!
সুজাতা: তোর জন্মের পর থেকেই রেগুলার ব্যায়াম করেছি, আমাকে প্রায়ই তোর বাবার সাথে পার্টি অ্যাটেন্ড করতে হতো তো। এছাড়া এখন তো মালা রেগুলারলি আমার ব্রেষ্ট আর হিপ্ মালিশ করে দেয়।
রাহুল: সেকি আমি দেখিনি তো।
সুজাতা: তুই যে মাষ্টারবেট্ করিস্ সেটাও তো আমি দেখিনি, কিন্তু জানি সব পুরুষরাই মাষ্টারবেট্ করে, যে করেনা – হি ইজ্ নট এ নর্মাল পার্সন। হ্যাঁরে তুই ঠিকমতো মাষ্টারবেট্ করিস্ তো, মায়ের কাছে লজ্জা করবিনা।
রাহুল: ওঃ মম্, হাউ লাভলি ইউ আর, হ্যা মম্ করি, আয় অ্যাম্ আ নর্মাল পার্সন! আচ্ছা মম্ মেয়েরাও কি মাষ্টারবেট্ করে?
সুজাতা: অফ কোর্স।
মালা ড্রয়িংরুমে এসে ঢোকে।
মালা: বৌদি মাংসটা আরেকটু সেদ্ধ হবে কিনা দেখবে?
সুজাতা: হ্যাঁ যাচ্ছি, তুই এবার ঘরগুলো মুছে ফেল্।
সুজাতা আরেকটা সিগারেট ধরিয়ে কিচেনের দিকে এগোয়, মালা বালতিতে জল নিয়ে এসে পড়নের কাপড়টাকে প্রায় থাই পর্য্যন্ত গুটিয়ে নেয়। সোফায় বসে রাহুল মালাদির থাইয়ের দিকে তাকায়। মালাদির বয়স প্রায় ২৭/২৮ হবে, ৩/৪ বছর হলো স্বামী অন্য মেয়েকে বিয়ে করার পর ও রাহুলদের বাড়ীতেই থাকে। রাহুলের দিকে পিঠ রেখে মালা ঘর মুছছে, কিচেন থেকে বেড়োনোর পর ঘামে ভেজা ব্লাউজের মধ্যে ব্রেসিয়ারটা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে। মালাদির হিপ্ টাও বেশ ভরাট, ৩৮ সাইজের প্যান্টি লাগে বোধ হয়। আচ্ছা, মালাদিও কি মাষ্টারবেট্ করে – কিভাবে করে? ঘর মুছতে মুছতে মালা রাহুলের পায়ের কাছে চলে আসে, সোজাসুজি নিচের দিকে তাকাতেই রাহুল ব্লাউজের ফাঁক দিয়ে মালাদির ব্রেষ্টের অংশ দেখতে পায়, মনটা কেমন যেন হয়ে যায়। রাহুলের হঠাৎ মনে পড়ে মেঝে থেকে পা না তুললে মালাদি ঘর মুছতে পারবেনা, আচমকা পা তুলতে গিয়েই রাহুলের পা গিয়ে লাগে মালার বুকে, মালা ব্যাথায় কঁকিয়ে উঠে মেঝেতে বসে পড়ে, রাহুল কি করবে বুঝতে না পেরে মালার বুকে নিজের হাতের তালু দিয়ে চেপে ম্যাসেজ করতে থাকে, মালার নরম বুক থরথর করে কাঁপতে থাকে আর ঠিক এই সময়েই সুজাতা ড্রয়িংরুমে আসে।
সুজাতা: কিরে কি হলো?
রাহুল: আমি ঠিক বুঝতে পারিনি মম্, মেঝে থেকে পা তুলতে গিয়ে মালাদির বুকে মেরে দিয়েছি, সরি ভেরি সরি।
মালা: না না বৌদি এমন কিছু লাগেনি।
সুজাতা: বললেই হবে, তুই ঠিকমতো দম নিয়ে কথা বলতে পারছিস না। রাহুল যা তো আমার ড্রেসিং টেবিলের ড্রয়ার থেকে পেইন কিলার অয়েনমেন্টটা নিয়ে আয়।
রাহুল ড্রয়ারটা ঘাঁটতে ঘাঁটতে ভাবে মালাদির নরম বুকে তার নিজের হাত লাগার কথা, সে কখনো এভাবে কোন মহিলার বুকে হাত ছোঁয়ায়নি, অদ্ভূত একটা ভালোলাগার আবেশে তার নুনুটা শক্ত হয়ে উঠতে থাকে। মলমটা হাতে নিয়ে ড্রয়িংরুমে ঢুকে রাহুল হতবাক্, মালাদিকে মা সোফায় শুইয়ে ব্লাউজ খুলে দিয়েছে, এবার পিঠের দিকে মালাদির ব্রেসিয়ার খোলার চেষ্টা করছে, শাড়ীটার একদিক থাইয়ের থেকেও ওপরে উঠে গিয়েছে। রাহুল মলমটা সোফায় রেখেই নিজের রুমে যাওয়ার জন্য পা বাড়ায়, কিন্তু মায়ের ডাকে দাঁড়িয়ে পড়ে।
সুজাতা: কোথায় যাচ্ছিস্, ব্যাথা দিয়ে সরে পড়বি নাকি, মালার কোমরের পাশে বোস্।
রাহুল অপরাধীর মতো বসে। মালাদির পাছাটা রাহুলের পাছায় সেঁটে থাকে কিন্তু মায়ের ধমকের ভয়ে কিছু বলতে পারেনা। সুজাতা মালার ব্রেসিয়ারটা খুলেই চিৎ করে শুইয়ে দেয়, মালাদি চোখ বন্ধ করে রেখেছে, মালাদির ভরাট দুটো বুক খোলা অবস্থায় দেখে রাহুল কেমন যেন হয়ে যায়।
সুজাতা: দেখেছিস্ কি করেছিস্ – বুকটা লাল হয়ে রয়েছে। আমি এখন কিচেনে রান্নার কাজ করবো তাই মলমে হাত দিতে পারবোনা, রাহুল তুই মালার বুকের এই লাল জায়গাটায় মলম লাগিয়ে ভালো করে ম্যাসেজ করে দে।
রাহুল: আমি!
সুজাতা: আজ্ঞে হ্যাঁ তুমি। ব্যাথা দিয়েছো তুমি – তাই ম্যসেজ করবেও তুমি। চ্যারিটি বিগিনস্ অ্যাট হোম্, ঘরের মেয়ের ব্রেষ্ট বা মাইয়ে হাত দেওয়াতে লজ্জার কিছু নেই।

চলবে…

3 thoughts on “প্রাপ্তবয়স্ক ০১ (collected-series)

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s