ভালবাসা (jj collection)


দরজার উপর লেগে থাকা তালার দিকে তাকিয়ে আবার দীর্ঘশ্বাস ফেলল রনি। সকাল নয়টায় অফিস খোলার কথা আর এখন বাজে দশটা কিন্তু খোলার নাম নেই। সরকারী অফিস গুলোর এই সমস্যা। কোন টাইম টেবিল নেই। যার যখন মন চায় তখন আসে অফিসে। সকালে তাড়াহুড়ো করে চলে আসাতে নাস্তা করা হয়নি ঠিক মত। পেটের ভেতর এখন ক্ষুধায় রীতিমতো ব্যাঙ ডাকছে তার। পকেটে হাত ঢুকায় সে। আল্লাহই জানে প্যাকেটে আর সিগেরেট আছে কিনা। ইদানীং এই জিনিসটা খুব যাচ্ছে। এক প্যাকেটে অনেক সময় দিনই কাবার হচ্ছে না। প্যাকেট খুলে দেখে রনি। যাক বাবা! বাঁচা গেল! এখনো দুইটা আছে। ক্ষুধা পেটে নিয়েই ধরাল একটা। মুখ দিয়ে একরাশ ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে চারপাশে চোখ বোলাল রনি। আরো জনা পাঁচেক লোক অপেক্ষা করছে দরজার সামনে। সবাই নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত। তাদের মাঝে দেখার মত আহামরি কিছু না পেয়ে আবার সিগেরেট ফোঁকায় মন দেয় সে।


‘এহম…এক্সকিউজ মি…আচ্ছা আপনি কি বলতে পারেন অফিসটা কখন খুলবে??’
গল্প উপন্যাসে রনি কিন্নর কন্ঠের কথা অনেক পড়েছে কিন্তু বাস্তবে তার প্রমাণ পায় নি। আজ রনি বুঝল কিন্নর কন্ঠ কাকে বলে। এত সুমধুর কন্ঠ শুধু দেবীদের গলাতেই মানায়। মাথা ঘুরিয়ে রনি কন্ঠের মালিকিনের দিকে তাকাল। তাকিয়েই বুঝল বিধাতা মেয়েটার রূপের প্রতি সুবিচার করার জন্যই তার কন্ঠ এত সুমধুর করেছেন। মেয়েটার গলা যত না মিষ্টি তার চেহারা তার থেকেও বেশি মিষ্টি।
‘অফিসতো খোলার কথা আরো একঘন্টা আগে। কিন্তু কাউকে তো দেখছি না। আল্লাহই জানে কখন খুলবে’
‘আর বলবেন না সরকারী অফিস মাত্রই দেরী’, মেয়েটার কন্ঠে বিরক্তি ঝরে পড়ল। কিছুক্ষণ চারপাশের মানুষগুলোকে দেখে সে একটা নির্জন কোনে গিয়ে দাঁড়াল। হাতের সিগেরেটা ফেলে দিয়ে রনি মেয়েটার দিকে মনোনিবেশ করল। সৃষ্টিকর্তা যেন তাকে নিজ হাতে ছাঁচ কেটে বানিয়েছেন। উজ্জ্বল ত্বক, শার্প নাক সেই সাথে মানান সই চোখ। সব কিছু মিলিয়ে অনন্য সুন্দর। তার উপর গায়ের লাল ড্রেসটা তার সাথে মানিয়ে গেছে বেশ ভালো ভাবে যেটা মেয়েটার সৌন্দর্য্য অনেক গুণে বাড়িয়ে দিয়েছে। লালের ব্যবহার আর মেয়েটার সাজগোজ সবকিছু মিলিয়ে রনি চোখ বন্ধ করে বলে দিতে পারে মেয়েটা আটেন্সন সিকিং আর কর্তিত্বপরায়ণ স্বভাবের মেয়ে। সাইকোলজিতে পড়ে রনির আর কিছু না হোক মেয়ে পটানোতে অনেক সুবিধা হয়েছে। বাইরের গেট আপ দেখেই মেয়েদের সম্পর্কে অনেক কিছু আইডিয়া করে নিতে পারে। যার কারনে মেয়েদের সহজে হাত করা যায়।
‘আপনি কি আজই প্রথম এখানে আসলেন নাকি আগেও এসেছেন?’,মেয়েটার দিকে এগুতে এগুতে বলল রনি।
‘হুম আজই প্রথম এলাম। ভেবেছিলাম ঝটপট কাজটা হয়ে যাবে কিন্তু এখনতো দেখছি সারাদিন লেগে যাবে কাজ শেষ হতে।’
‘সারাদিনেও কাজটা হয় কি না তাই বা কে জানে। কখন থেকে অপেক্ষা করছি আর বাবাজীদের অফিস খোলার কোন নামই নাই।’
‘আপনার নামটা শোনা হল না, আমি রুবী।’
‘আমি রনৌক চৌধুরী, বন্ধুরা আমাকে রনি বলে ডাকে।’
‘আমি কি বলে ডাকবো ?’
‘রনি বলেই ডাকুন’
‘আমি কি আপনার বন্ধু যে রনি বলে ডাকবো?’
‘বন্ধু হতে কতক্ষণ?’
‘মনে তো হয় না আপনি বন্ধু হতে চান। চাইলে নিশ্চয় আপনি আপনি করে কথা বলতেন না।’
‘বাহ! আপনি তো খুব গুছিয়ে কথা বলেন!’
‘আবার আপনি!!’
রনি জিহ্বা কামড়ে ধরে ‘স্যরি ভুল হয়ে গেল, তুমি অনেক গুছিয়ে কথা বল’
গল্প করার ছলে রুবী রনিকে বাজিয়ে দেখল। মানুষকে চেনার জন্য তার কিছু নিজস্ব পদ্ধতি আছে। রুবী নিজেও সাইকলজির ছাত্রী। রনির চোখের ভাষাটা একটু খাপছারা। তার বাচন ভঙ্গির সাথে চোখের ভাষাটা ঠিক মিলছে না। কথা শুনে যতটা সহজ সরল মনে হোক না কেন তার চোখ বলছে সে যেন তেন চীজ না।
রনিও কথা বলতে বলতে রুবীর চোখের ঈগলের দৃষ্টি খেয়াল করল। বুঝতে পারল মেয়েটা তার সবকিছু খেয়াল করছে। জিনিসটা সুখকর নয়। আরো সাবধানে এগুতে লাগল সে। ওদের গল্পের মাঝেই অফিস খুলে গেল। কাজ শেষ করতে করতে দুপুর হয়ে গেল। এর মাঝেই মোটামুটি ভাবে বেশ ভাব হয়ে গেল রুবীর সাথে। মেয়েটা কেন জানি একটু বেশি তরল। তার ব্যক্তিত্বের সাথে এই তারল্য ঠিক মানাচ্ছে না। হয়তো বা রনিকে পরীক্ষা করে নিচ্ছে। সেই ওল্ড ট্যাকটিস। সহজলভ্য সুযোগেই মানুষের আসল চেহারা বের হয়ে আসে। মেয়েটা রনিকে চেক করে নিচ্ছে। ওকে, রনি মুচকি হেসে মনে মনে বলল ‘যত পরীক্ষা করার করে নাও, আমি তোমাকে হতাশ করবো না।’
‘কাজতো কমপ্লিট হয়ে গেল, এই দিকে ক্ষুধায় পেট চোঁ চোঁ করছে। সাম্নেই একটা ভালো রেস্টুরেট আছে, যাবে??’
‘খুব বেশি দূরে?’
‘না না ঐতো রাস্তার ওই পারে।’
‘তাহলে চল যাই।’
খেতে খেতে তারা দুনিয়ার সব বিষয় নিয়ে আলাপ করল। এই দেশ এই ভালো কাজ করেছে তো ঐ দেশের প্রেসিডেন্ট ওই খারাপ কাজটা করেছে। এই রকম আলাপের মাঝেই দুজন দুজনের সম্পর্কে জেনে নিচ্ছিল। খাওয়া শেষে যার যার কন্টাক্ট নাম্বার নিয়ে সেদিনের মত বিদায় নিল দুজন।
তারপর বিভিন্ন সিম কোম্পানীর বদৌলতে তাদের বেশ কথা হতে লাগল। কথাগুলো নিশি কাব্য হতে বেশি সময় লাগল না। দিন দিন যেন তাদের প্রনয় গাঢ় থেকে গাঢ়তর হতে লাগল।
‘হ্যালো, কই থাক তুমি! কয়বার ফোন দিলাম খবর আছে তোমার!’
‘হুম! বলো রুবী, ঘুমে ছিলাম বুঝি নাই’
‘ঘুমে মানে?? তুমি না আমার সাথে দেখা করবা আজকে?? আধাঘণ্টার মাঝে তুমি আসবা, কতো বড় কলিজা আমার সাথে দেখা করার কথা বলে উনি ঘুমাইতেসেন!””
‘আরে রাগ করো ক্যান। তুমি পাঁচ মিনিট অপেক্ষা করো আমি দশ মিনিটের মাঝে আসতেসি’
‘কুইক রেডি হয়ে চলে আসো। দেরী যেন না হয়”
রুবীর ফোন রাখার সাথে সাথে রনি বিছানা থেকে ঝড়ের বেগে উঠে ফ্রেশ হয়ে রওয়ানা দিল। পঁয়তাল্লিশ মিনিট পর হাঁপাতে হাঁপাতে হাজির হল রুবীর সামনে।
‘রাতভরে কি কর যে সকালে আমার সাথে দেখা করার কথা ভুলে যাও?’
‘তোমাকে স্বপ্ন দেখি’
‘হইসে আর গুল মারতে হবে না। নাস্তাতো কর নাই। কি খাবা?’
‘যা তুমি খাওয়াও’
রুবী ওয়েটারদ ডেকে খাবার অর্ডার করল। একটু পরে ওয়েটার খাবার দিয়ে গেল। খেতে খেতে গল্প করতে লাগল। হঠাৎ রুবী খাওয়া থামিয়ে রনির দিকে চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে রইল। চোখের মাঝে ভয়ের ছাপ স্পষ্ট। রুবীকে এইভাবে তাকিয়ে থাকতে দেখে রনি খাওয়া বন্ধ করে দিল।
‘রনি, তোমাত নাকে মুখে রক্ত ক্যান??”
‘হোয়াট! রক্ত!! তাইতো বলি খাবার ক্যান নোনতা লাগে’
‘আরে আশ্চর্য!! রক্ত বন্ধ হয় না ক্যান!!’
‘ভয় পেয়ো না। আমার সাইনাসের প্রবলেম আসে। ব্লিডিং প্রায়ই হয়। একটু পর বন্ধ হয়ে যাবে। তুমি বস আমি ফ্রেশ হয়ে আসি’
রনি হেঁটে ওয়াশ রুমে চলে গেল। এসে দেখে রুবী বিল দিয়ে যাবার প্রস্তুতি নিচ্ছে।
‘আরে কই যাও?’
‘তুমি অসুস্থ, রেস্টের প্রয়োজন। চলো তোমাকে বাসাতে ড্রপ করে দিয়ে আসি।’
‘আরে রেস্ট নেয়া লাগবে না। তুমি বস।’
‘আমি বলসি রেস্ট নেয়া লাগবে তো লাগবে। তুমি চলো।’
‘আচ্ছা আমি যাচ্ছি, তোমাকে ড্রপ করে আসা লাগবে না’
‘লাগবে তুমি চলো তো’
দুজনে রিক্সাতে উঠে বসল।
‘তুমি খামাখা যাচ্ছ। আমি একাই যেতে পারতাম’
‘তোমাকে বলসে একা আস্তে পারতা। দেখা যাইত রাস্তাতে ব্লিড করে ফিট হয়ে পড়ে আছ। আর এত ভয় ক্যান পাও। আমি বাসায় ডুকবো না। তোমার আব্বু আম্মু আমাকে দেখলে কি বলবে তাই চিন্তা করে ভয় পাইতেস, তাই না??’
‘আরে না। আম্মু আব্বু দেখলে কি আর বলবে। তাছাড়া বাসায় কেঊ নাই। কাকীর বাচ্চাকে দেখতে গেসে সবাই’
একথা সেকথায় তারা পৌঁছে গেল রনির বাসার সামনে।
‘আচ্ছা রনি, তুমি থাক। আমি যাই’
‘আরে যেও পরে। তোমাকে তো ঠিক ভাবে দেখাই হয় নাই। আস বাসায় গল্প করি। জাবার তাড়া আছে নাকি?’
‘ঠিক তাড়া না, তোমার বাসায় কেউ নাই। যাওয়া ঠিক হবে না’
‘এইটা কি বল তুমি! আমাকে বিলিভ কর না??”
রুবী মুচকি হেসে বলল ‘ তোমাকে করি কিন্তু নিজেকে না’
‘আরে ধুর, রাখ তোমার বিশ্বাস অবিশ্বাস। আসতো তুমি।’
রুবীর হাত ধরে তাকে ভেতরে নিয়ে আসল রনি। একদম সোজা তার রুমে নিয়ে গেল সে রুবীকে।
‘আরে বাহ তোমার গীটারটা তো অনেক কিউট! আজ লাইভ দেখবো তোমার গীটার বাজানো।’
‘হবে হবে সবই হবে। একটি ধৈর্য্য ধর।’
রনি গীটার তুলে নিল হাতে। দুই তিনটা random স্ট্রোক করে গান ধরল
আজ তোমার মন খারাপ মেয়ে তুমি আনমনে বসে আছ
আকাশ পানে দৃষ্টি উদাস আমি তোমার জন্য এনে দেব
মেঘ থেকে বৃষ্টির ঝিরি ঝিরি হাওয়া সে হাওয়ায় ভেসে যাবে তুমি।।
‘এই রুবী কোন দুনিয়াতে হারালে?’
‘পরীদের দেশে’ রুবী হেসে উত্তর দিল।
‘নেমে আসো ঐ দেশ থেকে, এইখানে তোমাকে পাবার জন্য কেউ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে’ পি.সি. তে গান ছাড়তে ছাড়তে বলল রনি।
‘শুধু বসে বসে অপেক্ষা করলে তো হবে না বৎস, পাবার জন্য কিছু করতে হবে’
‘কি করতে হবে আমার জানটুশকে পেতে হলে??’ বিছানায় রুবীর পাশে বসতে বসতে বলল রনি।
‘কি করতে হবে আমি ক্যান বলব। যার পাবার ইচ্ছা সে জানে তার কি করতে হবে।’
মুচকি হেসে রুবীর হাতটা নিজের হাতে নিল রনি। রুবীর মনের কথা বোঝার জন্য এখন কোন সাইকোলজীর স্টুডেন্ট লাগবেনা। খুব সহজেই বোঝা যায় রুবীকে আপন করে নিতে আর কোন বাধাঁ নেই। কিন্তু শত প্রেমে অভিজ্ঞ রনির মনে এই প্রথম বোধ হয় একটু অপরাধ বোধ কাজ করল। রুবীকে ধোঁকা দেবার চিন্তা করতেই তার আত্মা একটু কেমন যেন কেঁপে উঠল। রুবীকে সে বোধ হয় সত্যি ভালবেসে ফেলেছে। অনেক তো হয়েছে মেয়েদের সাথে লীলাখেলা। আজ থেকে রুবীতেই বন্দী হোক সে। রুবীর হ্রদয়ের কুঠুরীতে বন্দী হবার মাঝেও অন্য রকম সুখ আছে।
‘কি ব্যাপার এমন করে তাকিয়ে আছ ক্যান?? আগে দেখ নাই আমাকে??’
‘দেখেছি, আরো দেখতে চাই’
‘তাই!! তা আর কেমনে দেখতে চান আপনি??’
রনি কিছু না বলে রুবীর আরো কাছে এসে বসল। মুখটাকে রুবীর গালের কাছে এনে বলল ‘ তোমার মনের ভেতর ঘুরে আসতে চাই’
রুবী কোন জবাব দিল না। তার চোখের দৃষ্টিতে কেমন যেন একটা দ্বিধা খেলা করছে। যেন কি যেন একটা বলতে গিয়েও বলতে পারছে না। রনি রুবীর চিবুকে হাত দিয়ে তার মাথা নিজের দিকে ঘুরাল ‘কি হল রুবী? দেখতে দেবে না তোমার মনের ভেতরটা??’
‘আমাকে ভালবাসার সময় কি অনুমতি চেয়ে ছিলে?? তাহলে এখন কেন অনুমতি চাও?’
রনির যেটা শোনার দরকার ছিল সেটা শুনে নিয়েছে। সে ছোট্ট করে একটা চুমু খেল রুবীর গালে। তারপর নাক ঘষতে লাগল তার গালে। দুজনেরই নিঃশ্বাস আস্তে আস্তে ঘন হচ্ছে। ছোট ছোট আরো কয়েকটা চুমু খেল সে রুবীর ঠোঁটের আশে পাশে। একটা সময় ঠোঁটটা রুবীর ঠোঁটের সামনে আনতেই রুবী ওটা নিজের মাঝে নিয়ে নিল। রনিও প্রাণপণে রুবীর ঠোঁট থেকে শুষে নিতে লাগল প্রেম শুধা। রুবীর অধর নিজের মাঝে নিয়ে চুষতে লাগল সে। এর মাঝেই আলতো করে আদর করতে লাগল রুবীর জিহ্বাটাকে। রুবী আর রনি দুজনই আজ দুজনকে শুষে নিতে চায়। কতক্ষণ রুবীর ঠোঁটের মাঝে ডুবে ছিল বলতে পারবে না রনি। যখন হুস হল দেখল রুবীর ঠোঁট গোলাপের মত টকটকে লাল হয়ে গিয়েছে। রুবী এবার তাকে বুকে টেনে নিল। রনি আবার হারাল রুবীর চুলের মাঝে। রুবীর ঘাড় তাকে পাগলের মত হাতছানি দিচ্ছে। চুমুতে চুমুতে আর হাল্কা লাভ বাইটসে ভরিয়ে দিল রুবীর ঘাড়। রনি যতবার রুবীর ঘাড় স্পর্শ করছে ততবারই যেন রুবীর দেহে বিদ্যুৎ খেলা করছে। ঘাড়ে খেলা করতে করতেই রনি তার মুখ নিয়ে গেল রুবীর কানের কাছে। কানের খাঁজে জিহ্বা ঘুরাতে লাগল সে। সেই সাথে টপসের মাঝে হাত ঢুকিয়ে দিল সে। ব্রাসিয়ারের উপরের চাপতে লাগল রুবীর স্তন। কানের খাঁজে জিহ্বা ঘুরানোর মাঝেই তার জিহ্বা খেলা করতে লাগল রুবীর কর্ণকুহরে। তার সাথে স্তনে হাতের কারসাজি তো আছেই। রুবীর সমস্ত দেহে যেন ২৪০ ভোল্টের কারেন্ট বয়ে যেতে লাগল। রনি আর থাকতে না পেরে খুলে ফেলল রুবীর টপস। জামরঙ্গা ব্রাসেয়ারে রুবী তারচোখে Aphrodite(Greek Goddess of Love) এর ন্যায় ধরা পড়ল। হাত দিয়ে রুবীর জামবাটির মত স্তন চাপতে চাপতে মুখ নামিয়ে আনল রুবীর গলাতে সহস্র চুমুতে ভরিয়ে দিল জায়গাটা। আস্তে আস্তে মুখ নামিয়ে আনতে লাগল সে। এরই মাঝে খুলে ফেলল রুবীর ব্রাসিয়ার। জামবাটির মত স্তন দুটোর খয়েরী নিপল দুটো শক্ত হয়ে উপর দিকে মুখ করে আছে। রনি মুখে পুরে নিল বাম স্তনটা আর ডান স্তনটা দলিত মথিত করতে লাগল হাত দিয়ে। বাম স্তনে জিহ্বা দিয়ে বৃত্ত তৈরি করতে লাগল সে। সত্নের বোঁটার সাথে জিহ্বা দিয়ে খেলা করতে লাগল সে। মাঝে মাঝে হাল্কাভাবে কামড়ে দিতে লাগল। এইভাবে রুবীর সুউন্নত স্তন যুগল নিয়ে খেলা করতে লাগল। মাঝে মাঝে দুস্তনের মাঝে চুমু খেতে লাগল রনি। তারপর মুখ নামিয়ে আনল রুবীর পেটে। হাত দিয়ে স্তন দলিত মথিত করতে করতেই চুমু খেতে লাগল রুবীর পেটে। সেই সাথে চলতে লাগল জিহ্বার কারসাজি। রুবীর সারা দেহ ডাঙ্গায় তোলা মাছের মত খাবি খেতে লাগল। রুবীর দেহের কাঁপন চরমে পৌঁছাল যখন রনি তার জিহ্বার ডগা ছোঁয়াল তার নাভীতে। নাভীর মাঝে জিহ্বা ঘুরিয়ে পাগল করে দিল সে রুবীকে।
‘ওফফ…রনি এমন করো না…আমার সারা দেহে আগুন জ্বলছে।। প্লীজ আগুন আর বাড়িয়ো না’
রুবী রনিকে টেনে উপরে নিয়ে আসল। তারপর তার উপর চড়ে বসল। ঘাড়ে আর গলারে পাগলের মত চুমু দিতে লাগল। তারপর রনির শার্টের বাটন খুলতে লাগল সে। সেই সাথে রনির বুক চুমু আর কামড়ে ভরিয়ে দিতে লাগল। রনি এতক্ষণ রুবীর গায়ে যে আগুন লাগিয়েছে এখন যেন সে আগুনে রনির পোড়ার পালা। রনির শার্ট খুলে রুবী ঝাঁপিয়ে পড়ল রনির বুকে। হাল্কা হাল্কা কামড় দিতে লাগল রনির নিপলসে। সেই সাথে হাত ঢুকিয়ে দিল রনির প্যান্টের মাঝে। আস্তে আস্তে ম্যাসাজ করতে লাগল রনির পেনিস। রুবী চুমু খেতে খেতে নিচে নেমে আসতে লাগল। রনির প্যান্টের বাটন পর্যন্ত এসে থামল। তারপর ঝটপট খুলে ফেলল প্যান্ট। রুবীর হাতের স্পর্শে রনির পেনিস ক্রমে বড় হয়ে কাঁপতে লাগল। রুবী পেনিসের আগায় চুমু খেল একটা। তারপর জিহ্বার ডগা বুলাতে লাগল পেনিসের আগায়। তারপর আস্তে করে পেনিসটা মুখে পুরে নিল। চুষতে লাগল ললির মত করে। হাত দিয়ে রনির অন্ডকোষ ম্যাসাজ করতে লাগল। মাঝে মাঝে পাছার ফুটো থেকে পেনিসের গোড়া পর্যন্ত আঙ্গুল টেনে আনতে লাগল। রনির দেহ ক্ষণে ক্ষণে কেঁপে উঠতে লাগল। সে চোখ বন্ধ করে রুবীর ব্লোজবের মজা নিতে লাগল। এইদিকে রুবীর চোষার মাত্রা বেড়েই চলছে। শেষমেশ আর থাকতে না পেরে রুবীকে টেনে এনে আবার শোয়াল খাটে। একটানে খুলে ফেলল স্কার্ট আর প্যান্টি। হাল্কা গোলাপী যোনীর চারপাশে ছোট ছোট বাল। রুবীর যোনীটা রনির কাছে স্বর্গীয় ফুলের চেয়ে কম মনে হল না। সোজা মুখ নামিয়ে আনল রুবীর যোনিমুখে। জিহ্বা দিয়ে ক্লিটের সাথে খেলা করতে লাগলো সে। তারসাথে আঙ্গুল দিয়ে রুবীর যোনীতে অঙ্গুলি করতে লাগল রনি। যোনিতে জিহ্বার স্পর্শ রুবীকে পাগল করে তুলল
‘রনি, সোনা আমার! আর কষ্ট দিয়োনা জান! আমি যে আর পারছি না। এইবার আমার ভেতরে আস’
রনিরও এইদিকে অবস্থা খারাপ। আর অপেক্ষা করা তার পক্ষেও সম্ভব নয়।
‘রুবী সেট করো জিনিসটা তোমার দরজাতে’
রুবী রনির পেনিসটা হাত দিয়ে ধরে জায়গা মত সেট করল। রনি আস্তে আস্তে চাপ দিয়ে পেনিসটা রুবীর যোনিতে প্রবেশ করাল।
‘ওফ…সোনা, আস্তে !’
রনি আস্তে আস্তে থাপ দিতে থাকল। ঠোঁট জোড়া দিয়ে আবার আবদ্ধ করে নিয়েছে রুবীর ঠোঁট। আর স্তনে হাতের কারসাজি তো আছেই। আস্তে আস্তে রনি রুবীর ঠোঁট ছেড়ে দিয়ে থাপের গতি বাড়াল।
‘ওফ…ইশশ…সোনা আর একটু আস্তে দাও না…হুমম…এই ভাবে’
রনি থাপের গতি বাড়ানোর সাথে সাথে হাত দিয়ে স্তন নিয়ে খেলা করতে লাগল। সেই সাথে রুবীর ঘাড়ে চুমু খেতে লাগল।
‘আহহহ…সোনা থেমো না…ও মাহ…জান থেমো না প্লীজ আমার হবে…’
রুবীর দেহ সেই রকম ভাবে মোচড় খেতে লাগল। রনির ও আঊট হবার সময় হয়েছে। সে থাপানোর গতি আরো বাড়িয়ে দিল। থাপানোর মাঝেই রুবীর আউট হল। রুবীর মুখ থেকে তার অজান্তেই বের হয়ে এল সুখ চিৎকার। আর কয়েকটা থাপের পর রনিরও বীর্য পতন ঘটল। বীর্যের শেষ বিন্দুটা রুবীর যোনীতে ঢেলে দিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরে শুয়ে থাকল রনি।
হঠাৎ ধড়মড়িয়ে উঠল রনি ‘ হায় হায় এইটা কি করলাম!! বাচ্চা হবে না তো আবার??’
মুচকি হেসে রুবী তাকে বুকে টেনে নিল ‘ হবে না আমার সেফ পিরিয়ড এখন’
কথাটা বলে ছোট্ট একটা চুমু খেল সে রনির গালে। কানের কাছে মুখ নিয়ে বলল ‘ভালবাসি, ভালবাসি’।।

One thought on “ভালবাসা (jj collection)

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s