দেখি নাই ফিরে (উপন্যাস) (cont. series 22)


আগের পর্ব – Part 21
আসন পাতা হয়েছে। সবার। অনাদি বাসুরও আছে। আমরা যে যার মতো বসে পরলাম, খালি বড়মা বসলো না ছোটোমাকে মাঝখানে রেখে আমরা দুজনে দুপাশে। বড়মা পরিবেশন করলো, মাঝে চিংড়িমাছ নিয়ে মিত্রা আমার সঙ্গে ঝগড়া করলো, ওকে চিংড়িমাছ দেয় নি বড়মা, আমাকে বেশি ভালবাসে তাই আমাকে দেওয়া হয়েছে। বড়মা হাসতে হাসতে ওকে চিংড়িমাছ বেছে বেছে দিয়ে গেলো। হাসাহাসি চলছেই। নিরঞ্জনদা মাঝে বললো মিত্রা আমরা কিন্তু পান্তা পেলাম না, তোর জন্য স্পেশাল হলো। মিত্রা নিরঞ্জনদার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসলো। খাওয়া শেষ হতে আমি বললাম, আজ কি এবাড়িতে রান্না বন্ধ।
বড়মা বললো হ্যাঁ তোর বাড়ির বাঁশ বাগানে হচ্ছে।
এ্যাইল। মিত্রা একহাত জিভ বার করলো।
তুই আবার কালী ঠাকুর হলি কেনো।
বড়মা তুমি আগে বলো নি কেনো।
কি বলবো।


আজকের মেনু ও বাড়িতে তাহলে পান্তাটা খেতাম না।
ছোটোমাকে টপকে দিল আমার থাইতে একটা চিমটি।
শয়তান খাওয়ার শেষে মনে করিয়ে দেওয়া।
সবাই হো হো করে হাসছে।
আমি কি করলাম।
আমি কি করলাম, ও বাড়িতে আজ বিরিয়ানী আছে, তুই জানতিস না, এক পেট খেয়ে ওটা টেস্ট করতে পারবো।
একটু বাঁশ বাগানে নেচে নিবি।
এটা কি রস খেলাম, যে নেচে নিলে নেমে যাবে।
বড়মা হাসতে হাসতে মাটিতে থেবড়ে বসে পরলো।
সবাই হো হো করে হাসছে আমি উঠে দে ছুট পুকুর ঘাটে।
হাসির রোল এখনো চলছে মিত্রাকে নিয়ে।

আসন পাতা হয়েছে। সবার। অনাদি বাসুরও আছে। আমরা যে যার মতো বসে পরলাম, খালি বড়মা বসলো না ছোটোমাকে মাঝখানে রেখে আমরা দুজনে দুপাশে। বড়মা পরিবেশন করলো, মাঝে চিংড়িমাছ নিয়ে মিত্রা আমার সঙ্গে ঝগড়া করলো, ওকে চিংড়িমাছ দেয় নি বড়মা, আমাকে বেশি ভালবাসে তাই আমাকে দেওয়া হয়েছে। বড়মা হাসতে হাসতে ওকে চিংড়িমাছ বেছে বেছে দিয়ে গেলো। হাসাহাসি চলছেই। নিরঞ্জনদা মাঝে বললো মিত্রা আমরা কিন্তু পান্তা পেলাম না, তোর জন্য স্পেশাল হলো। মিত্রা নিরঞ্জনদার দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসলো। খাওয়া শেষ হতে আমি বললাম, আজ কি এবাড়িতে রান্না বন্ধ।
বড়মা বললো হ্যাঁ তোর বাড়ির বাঁশ বাগানে হচ্ছে।
এ্যাইল। মিত্রা একহাত জিভ বার করলো।
তুই আবার কালী ঠাকুর হলি কেনো।
বড়মা তুমি আগে বলো নি কেনো।
কি বলবো।
আজকের মেনু ও বাড়িতে তাহলে পান্তাটা খেতাম না।
ছোটোমাকে টপকে দিল আমার থাইতে একটা চিমটি।
শয়তান খাওয়ার শেষে মনে করিয়ে দেওয়া।
সবাই হো হো করে হাসছে।
আমি কি করলাম।
আমি কি করলাম, ও বাড়িতে আজ বিরিয়ানী আছে, তুই জানতিস না, এক পেট খেয়ে ওটা টেস্ট করতে পারবো।
একটু বাঁশ বাগানে নেচে নিবি।
এটা কি রস খেলাম, যে নেচে নিলে নেমে যাবে।
বড়মা হাসতে হাসতে মাটিতে থেবড়ে বসে পরলো।
সবাই হো হো করে হাসছে আমি উঠে দে ছুট পুকুর ঘাটে।
হাসির রোল এখনো চলছে মিত্রাকে নিয়ে।

আমি পুকুরের পার ধরে বাঁশবাগানের ভেতর দিয়ে খিড়কি দরজা দিয়ে আমার বাড়িতে ঢুকে সোজা ওপরে চলে এলাম, কেউ আমাকে দেখতে পেল না। দরজাটা আস্তে করে ভেজিয়ে দিয়ে, আমি ল্যাপটপটা বার করলাম। মোবাইলটা ভাইব্রেসন মুডে রেখে ল্যাপটপটা খুলে বসলাম, বেশ কয়েকদিন হলো মেল চেক করা হয় নি। মানিপার্টস থেকে চিপটা বারকরে নিলাম। জানিনা এখানে নেট কানেকসন পাবো কিনা। তবু চিপটা লাগাতেই দেখলাম কানেকসন পেয়েছে। বেশ আনন্দ লাগলো।
একবার সন্দীপকে ফোন করে লাস্ট আপডেট নিলাম। ওখানে সব ঠিক আছে। আমাদের কাগজের আজ দারুন মার্কেট। ওকে খুব উচ্ছসিত দেখালো। আমাকে দশবার গুরু গুরু বলে প্রণাম করলো। আমি ওকে বললাম নেক্সট লেখা গুলো ঠিক ঠাক কনটিনিউ করবি, কোনো সমস্যা যেন না হয়। ও কথা দিল। ফলোআপ নিউজ গুলো ঠিকঠাক করবি। ও বললো তোকে চিন্তা করতে হবে না। আমি প্রয়োজন হলে তোকে ফোন করবো।
নিচে আমাকে খোঁজা খুঁজি শুরু হয়ে গেছে। অনাদি চিকনা নীপা বাসু মিত্রা সবাই খুঁজছে। শেষে অনাদি বলে দিয়েছে, কোথায় গেছে এখন খুঁজতে পারবো না, যখন আসে আসবে। এদিকে অনেক কাজ।
মিত্রা বললো, অনাদি আমি একা একা টেস্ট করবো, ও থাকলে বেশ মজা হতো।
সেতো বুঝলাম। ফোন করো না।
করছি তো। ধরছে না।
তাহলে ও আশেপাশে কোথাও আছে। ঘাপটি মেরে আছে।
নারকেল গাছগুলো একবার দেখোতে। নীপা বললো।
তুই থাম। এখন সে বয়স নেই।
ছারো তুমি অনাদিদা খেঁজুর গাছে উঠে চুরি করে রস খেতে পারে, আর নারকেল গাছে উঠে ডাব খেতে পারবে না, তা হয়।
ঠিক বলেছিস দাঁড়া চিকনাকে খবর দিই ও ঠিক খুঁজে বার করবে।
অনাদি থাক। ওকে ওর মতো থাকতে দাও। তারপর আসুক মজা দেখাচ্ছি।
তখন বড়মা আছে, ম্যাডাম তুমি কিছুই করতে পারবে না। অনাদি বললো।
মিত্রা খিল খিল করে হাসছে। চল নীপা আমরা বরং স্নান সেরে নিই।
চলো।
আমি একে একে মেল গুলো চেক করলাম, শেষে একটা সেক্স সাইট খুলে বসলাম। বেশ নেশা লেগে গেছে এই কদিনে। ফাঁক পেলেই সেক্সসাইট সার্ফিং করি। মাঝে মাঝে ডাউনলোড করি। নিস্তব্ধে এক মনে কাজ করছিলাম। কেউ আমাকে বিরক্ত করার নেই।
হঠাৎ দরজাটা কেঁচ করে আওয়াজ হলো। একটু খানি ফাঁক হলো, দেখলাম মিত্রা ভিঁজে কাপরে ভেতরে ঢুকছে। আমাকে দেখে চমকে গেছে। শয়তান তুই…….।

আমি ওকে ঠোঁটের ওপর আঙুল রেখে চুপ করতে বললাম।
দাঁড়া তোর মজা দেখাচ্ছি। আস্তে করে বলে, দরজাটা ভেতর থেকে বন্ধ করলো।
আমি উইনডোটা মিনিমাইজ করে দিয়েছি।
বসে বসে এখানে ল্যাপটপ চালান হচ্ছে, আমাকে বাদ দিয়ে।
আমার কাছে এগিয়ে এলো ভিঁজে কাপরে।
একবারে ধরবি না আমার জামা কাপর ভিঁজে যাবে।
যাক। কখন থেকে খুঁজে মরছি, বাবু এখানে বসে বসে …….।
আমি হাসছি।
চটকে দেবো কিন্তু।
দেনা। এখন এখানে কেউ আসবে না। সবাই এখন ও বাড়িতে।
তুই এ বাড়িতে এলি কেনো।
ও আমার হাত চেপে ধরে আমাকে টেনে তোলার চেষ্টা করছে।
আগে কাপর খোল।
খালাচ্ছি তোকে দাঁড়া। কি দেখছিস বল।
তোকে বলা যাবে না।
আমাকে বলা যাবে না, তার মানে তুমি সেক্স সাইট খুলে বসে আছো।
আমি হাসছি।
দাঁড়া আগে কাপরটা ছেড়ে নিই, তারপর দেখাচ্ছি।
মিত্রা আলমাড়ি খুলে শাড়ি সায়া ব্লাউজ ব্রা বার করলো। আমি উইনডোটা ম্যাক্সিমাইজ করে বন্ধ করে দিলাম।
দেখে ফেলেছি, তুই বন্ধ করলি, মনে রাখিস ওটাই তোকে খুলে দেখাতে হবে।
ওঃ শকুনের চোখ।
কি তুই আমাকে শকুন বললি।
আমি ওর দিকে তাকালাম। এগিয়ে আসছে আমার দিকে আমি ওকে দু’হাতে আটকালাম।
হাসতে হাসতে খাটের কাছে এগিয়ে গেলো। কাপরটা খুলে ফেললো শরীর থেকে, তারপর ব্লাউজ খুললো, আমি এগিয়ে গেলাম।
একবারে কাছে আসবিনা চেঁচাবো।
চেঁচানা চেঁচা।
মিত্রা ফিক করে হেসে ফেললো।
এখন ধরিস না গাটা মুছি।
দেখ তোকে দেখে কেমন নড়া চড়া করছে।
মিত্রা আমার মতির দিকে তাকালো, ফিক করে হেসে ফেললো।
কালকের থেকে এরকম হচ্ছে, আগে এরকম হতো না।
মিত্রা শায়াটা খুলে ফেললো। একেবারে নিরাভরণ শরীরে আমার চোখের সামনে। আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি। আজকে ওর মুন্তিটা দেখতে বেশ ভালো লাগছে। মনে হচ্ছে নতুন বাথরুমে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সেভ করেছে। কোমরে একটা ঘুমসি দেখলাম কালো শুতোয় বাঁধা। তার সঙ্গে একটা মাদুলি। কাল রাতে ওটা ওর কোমরে দেখি নি। কোমরবন্ধনিটা দেখতে বেশ ভালো লাগছে, একটা আলগা শ্রী ফিরে এসেছে কোমরটায়। আমার ভ্রুদুটো ছুঁচোলো হয়ে গেলো।
এটা দেখে ভ্রু কোঁচকাচ্ছিস।
আমি মাথা দেলালাম।
তুই ও বাড়ি থেকে চলে আসার পর বড়মা ঘরের ভেতরে নিয়ে গিয়ে কেমরে বেঁধে দিলো।
এটা আবার কোথাকার।
যেখানে গেছিলাম, সেই ভদ্রলোক দিয়েছে।
আমি এগিয়ে গেলাম।
প্লীজ হাত দিস না এখন।
আমি ওর পায়ের কাছে বসলাম ও মুন্তিতে হাত ঢেকেছে। আমি কোমরের মাদুলিটা দেখলাম, সোনার মাদুলি, মুখটা গালা দিয়ে বন্ধ। কালো কারে বাঁধা। আমি ওর হাতটা সরিয়ে দিলাম। না। মিত্রা চেঁচিয়ে উঠলো।
আমি দাঁত মুখ খিঁচিয়ে উঠলাম, এখুনি একটা বিপদ ঘটাবি।
শয়তান তোকে কখন থেকে বারন করছি।
মিত্রার হাত সরে গেলো, আমি এ সুযোগ ছারলাম না, ওর মুন্তিতে মুখ দিয়ে পাছুটা জাপ্টে ধরলাম। মিত্রা ছটফট করে আমার মাথার চুলের মুটি ধরলো। আমি দমবার পাত্র নয় ঠিক জায়গায় জিভের স্পর্শ দিয়ে ফেলেছি। মিত্রা কিছুক্ষণ ছটফট করে, আমার মাথার চুলগুলো ছেড়ে দিলো। আমি ওর মুন্তির গর্তে আঙুল দিয়ে দিয়েছি। মিত্রার গায়ে বাতাস লাগলো, থির থির করে কাঁপছে।
বুবুন ছার না। তুই একা একা মজা করবি নাকি।
আমি মুখ তুলে ফিক করে হেসে ফেললাম।
শয়তান। তুই ভীষণ জালাস। এমন করলি এখন ছারতে ইচ্ছে করছে না।
কর। কে বারন করেছে।
ওঠ।
আমি উঠো দাঁড়ালাম। মিত্রা আমাকে জাপ্টে ধরে ঠোঁটে ঠোঁট রাখলো।
কেউ যদি হঠাৎ চলে আসে।
আসে আসুক। আমি ল্যাপটপে বসবো, তুই জামা কাপড় পরবি। আমি আস্তে করে দরজাটা খুলে বলবো প্লিজ একটু দাঁড়া।
মিত্রা খিল খিল করে হেসে উঠলো।
তোরটা পরে আছিস কেনো, খোল।
ঠিক সময়ে খুলবো।
না এখুনি।
আমি পাঞ্জাবীটা খুললাম, মিত্রার শরীরের সঙ্গে আমার শরীর মিসে গেলো। আমার মতি বেশ দাঁড়িয়ে গেছে।
কিরে খোঁচা মারছিস কেনো।
হাসলাম।
খোলনা। কেন শুধু শুধু পরে আছিস।
আচ্ছা খুলছি।
আমি পাজামার দড়িটা খুলে ফেললাম। নিচে চিকনা আর সঞ্জয়ের তুমুল হচ্ছে।
আজকে কাদের কাদের নেমন্তন্ন।
সবার।
তোর বন্ধু-বান্ধব নীপার বন্ধু-বান্ধব ও বাড়িতে মাছ হচ্ছে, বড়মা ছোটোমা সুরমাসি কাকীমা নীপা রান্না করছে। প্রায় একশো জনের আয়োজন।
বাবাঃ।
হ্যাঁ, নিরঞ্জনদা ফোনে ফোনে কাদের ডাকলো।
বড়মা কি বলছেরে।
মিত্রা আমার মতি নিয়ে নিজের মতিতে ঘোসছে।
তোরটা কি শক্ত হয়ে গেছে। এখন করতে গেলে লাগবে।
তোর গাটা কি ঠান্ডা।
তুই তো গরম হতে দিলি না।
আমি মিত্রার ঠোঁটে কামর দিলাম।
মুন্তিতে একটু মুখ দে।
তোর কোন মুন্তিতে সেন্স বেশি।
তুই বল।
আমি কি করে জানবো।
বাঃ এতোবার করলি এটা বুঝতে পারলি না।
তোদের বোঝা মুস্কিল।
একটি থাপ্পর।
কোনটায় বলনা বাঁদিকে না ডান দিকে।
অন্যজায়গায় মাথা খোলে এটাতে মাথাটা খোলে না ?
এটার জন্য তুই আছিস।
আমি একটু মুখ দিই।
না স্নান করে এসেছিস একবারে না।
না।
পাছুতে রাম চিমটি মারবো।
তোর পাছুটাও খোলা আছে মনে রাখিস।
চল বিছানায় চল একটু রেডিমেড করে নিই। কেউ চলে এলে বিপদ।
তাহলে একটু ঘসে ঘসে বার করে দিই।
দেনা কামরে ছিঁড়ে দেবো।
ইস তোরটা একেবারে ভিজে চপ চপ করছে।
তোরটা যেনো শুকনো খট খট করছে।
আমি এক ঝটকায় ওকে একটু তুলে নিয়ে বিছানায় চিত করে শুইয়ে দিলাম। আমি ওর ওপরে আমার মতি ওর মতির ওপর ঘসা খাচ্ছে।
আজকে জঙ্গল পরিষ্কার করেছিস না।
কি করে বুঝলি।
কাল রাতের থেকে আজ বেশ চক চক করছে।
মিত্রা আমার নাকটা ধড়ে মুচরে দিলো।
তোর নাকটা সত্যি টিয়াপাখির ঠোঁটের মতো।
তোর নাকটা চিনে ম্যানের মতো, প্লাস্টিক সার্জারি করতে হবে।
আমি কোমর দোলাচ্ছি।

পারবি না থাইতে ঘোসছিস।
ফাঁক কর।
না। আগে একটু মুখ দিতে দে।
সত্যি তুই দিবি।
হুঁ।
না।
তাহলে পাবি না।
আমি উঠে পাজামা পরে নেবো।
পরে দেখনা ছিঁড়ে ফর্দাফাঁই করে দেবো।
আমি ওর মুন্তিতে মুখ দিলাম। চকাত চকাত করে চুষতে আরম্ভ করলাম।
মিত্রা আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমি ওর মুখের দিকে তাকিয়ে মিটি মিটি হাসছি আর মুন্তি চুষছি। নিপিলটা শক্ত হয়ে আসছে। বুঝতে পারছি।
এদিকটা একটু মুখ দে।
হেসেফেললাম। বুঝেছি।
কি।
তোর বামদিকে সেন্স বেশি।
ধ্যাত।
আমি বামদিকের মুন্তিতে মুখ দিয়ে ডানদিকের নিপিলে নোখের আঘাত করলাম। মিত্রার চোখর ভাষা বদলে যাচ্ছে।
বুবুন।
উঁ।
একটু দেনা মুখ দিই।
সত্যি তুই দিবি।
হ্যাঁ।
আমি ওর শরীর থেকে উঠে দাঁড়ালাম। মিত্রা তড়াক করে উঠে আমার পায়ের কাছে হাঁটু মুড়ে বসে পরলো।
আমার মতিতে হাত দিয়ে জামাটা আস্তে করে টেনে খুললো। পাজামাটা টেনে নিয়ে একটু মতির মুখটা মুছে নিয়ে চুমু খেলো। আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি। ও হাসলো। শুধু মুন্ডিটা মুখের মধ্যে পুরে কিছুক্ষণ চুষলো। আবেশে আমার চোখ ঢুলু ঢুলু।
আর না এবার ছার।
আর একটু।
তোর মুখের মধ্যে বেরিয়ে গেলে জানিনা।
এরকম করিস না।
না পারলে কি করবো। তুই এমন ভাবে চুষছিস, ধরে রাখা দায়।
ঠিক আছে ঠিক আছে। আর একবার।
মিত্রা আবার মুখের মধ্যে আমার মতিকে ঢুকিয়ে নিলো। সত্যি আজকে ও ভীষণ গভীর ভাবে চুষছে। আগেও ও আমার মতিতে মুখ দিয়েছে কিন্তু এ ভাবে নয়। আমার প্রায় বেরিয়ে যাওয়ার অবস্থা। আমি একঝটকায় ওর মুখ থেকে মতিটা বার করে নিয়ে, ওকে টেনেতুলে বিছানায় শুইয়ে দিলাম।
মিত্রা মিটি মিটি হাসছে।

কিরে বহুত গরম হয়ে গেছিস মনে হচ্ছে।
কেনো তুই ঠান্ডা আছিস।
আমিতো গরম খেয়েই থাকি।
দেবো ফাটিয়ে।
পারবি না। মিত্রা হাসছে।
দেখবি।
না ওরকম করিস না, কালরাতের কথাটা মনে রাখিস, তোর জীবন কালকে আমাকে দিয়েছিস আমাকে ফিরিয়ে দিতে দে।
আমি হেসে ফেললাম। ঠিক আছে করবো না।
এরকম করিস না। আস্তে কর।
না করলে কি আছে। এটা একটা নেশা।
রাগ করলি।
নারে বিশ্বাস কর।
আয়।
মিত্রা পা দুটো ফাঁক করলো। আমি ওর শরীরের ওপর নিজের শরীরটাকে ছুঁড়ে ফেললাম, মিত্রা আমার পেটের মধ্যে দিয়ে হাত ঢুকিয়ে আমার মতিকে চেপে ধরলো। আস্তে করে ওর মতিতে ঘসে গর্তে রাখলো, দে চাপ দে।
আমি ওর ঠোঁটের কাছে ঠোঁট নিয়ে গিয়ে চুমু খেলাম।
ঢোকাই।
মিত্রা ঘার দোলালো।
আমি একটু ঠেলতেই বেশ কিছুটা ঢুকে গেলো।
কিরে! একেবারে তৈরি করে রেখেছিস মনে হচ্ছে। একটুও টের পেলাম না।
মিত্রা চোখ মেরে হাসলো।
আমি আবার একটু জোরে চাপ দিলাম, পুরোটা ঢুকে গেলো।
আমি মিত্রার দিকে তাকিয়ে হাসছি। আমি শয়তান। তাই না ? তুই কি ?
তুই বল।
আমি কেনো বলবো।
ঝগড়া করিস না।
আবেশে মিত্রার চোখের পাতা বন্ধ হয়ে আসছে।
কিরে কষ্ট হচ্ছে।
একটু ওপরে উঠে আয়।
কেনো।
তোকে জড়িয়ে ধরি।
আমি মিত্রার বুকে নেমে এলাম। ওর মুন্তিটা আমার বুকের ভারে চেপ্টে গেলো, আমি ওর নাকে নাক ঘোসলাম, ঠোঁটে ঠোঁট রেখে চুষলাম।
ভালো লাগছে।
ভেতরটায় এতো সুন্দর ফিলিংস হচ্ছে তোকে কি বলবো।
আমারও।
নাড়া চাড়া করিস না।
তুই মতির ঠোঁট দিয়ে আমার মতিকে চিবোচ্ছিস।
মিত্রা হাসলো। তুই বুঝতে পারছিস।
অবশ্যই।

এইটা দারুন লাগে, মনে হয় পুরোটা যায় নি আর একটু ভেতরে গেলে দারুন লাগবে। তাই করি।
আমি ওর মুখের দিকে তাকিয়ে আছি। মিত্রার চোখের চাহুনিতে পরিতৃপ্তির ছাপ।
বুবুন।
উঁ।
তোকে একটা কথা বলবো।
বল।
রাগ করবি না।
কেনো।
থাক পরে বলবো।
না। বলনা।
নিখিলেশদা কয়েকদিন ভীষণ জ্বালাচ্ছে।
কে নিখিলেশদা।
আমরা কলেজ লাইফে যার কাছ থেকে নোট নিতে যেতাম মনে আছে তোর।
হ্যাঁ খুব মনে আছে। স্যারের ছাত্র, আমার সঙ্গে নিখিলেশদার প্রায় দেখা হয় স্যারের বাড়িতে।
তাই।
হ্যাঁ।
তুই বলিস নি তো।
নিখিলেশদা আমার কাছে ততটা জরুরী কখনো মনে হয় নি। তাই।
নিখিলেশদা একটা ইন্টারনেট লাইব্রেরী করেছে।
ইন্টারনেট লাইব্রেরী!
হ্যাঁ।
ইউ আর এল-টা কী।
ডব্লিউ ডব্লিউ ডব্লিউ ডট বেঙ্গলীলাইব্রেরী ডট ও আর জি।
দাঁড়া করে নিই, আমারটা কেমন নরম হয়ে যাচ্ছে।
মিত্রা হাসলো।
কিরে তোরটা বেড়িয়ে গেছে নাকি !
মিত্রা হাসছে।
সত্যি।
মিত্রা মাথা দোলাচ্ছে।
তাই তখন তুই আমার মতিকে কট কট করে চিবোচ্ছিলি।
মিত্রা চোখ দুলিয়ে হ্যাঁ বললো।
খালি আমার খচখচানি থাকে। যা আর করবো না।
প্লীজ ওরকম করিসনা বুবুন। কি করবো বল, তোরটা ঢোকার সময়েই কেমন যেন হয়ে গেলো।
তুই আগে থেকেই গরম খেয়ে ছিলি।
মিত্রা মাথা দোলাচ্ছে।
আমার আর হবে না।
কেনো।
একেতো নুয়ে গেছে তারওপর তোর পুকুরে আমার মতির স্নান সারা হয়ে গেছে।
করনা ওরকম করিস কেনো।
ঠিক আছে দেখি ট্রাই করে।
আমি কোমর চালালাম বেশ কয়েকবার। মিত্রা শুয়ে শুয়ে হাসছে।
মজমা নিচ্ছিস।
আমার দুবার হবে তোর একবার।
তোর রস বেশি।
আমি বেশ কয়েকবার দাপাদাপি করবার পর, আমার মতি আবার সমহিমায় ফিরে এলো। মিত্রা হাসছ।

কিরে শক্ত হয়ে গেছে।
বুঝতে পারছিস।
মিত্রা মাথা দোলালো।
আমি দুহাতের ওপর ভর দিয়ে করে যাচ্ছি।
বুবুন আওয়াজ হচ্ছে।
তুই শোন। আমি করে যাই।
মিত্রা ফিক করে হেসে উঠলো।
বুবুনরে আমি মনে হয় বেশিক্ষণ সহ্য করতে পারবো না।
দাঁড়া।
দাঁড়াবো কিরে আমারতো একটুতেই হয়ে যাচ্ছে আজ।
হোক।
আমি করে যাচ্ছি। একবার নিচের দিকে তাকালাম। একবার সম্পূর্ণটা বেরোচ্ছে আবার ঢুকে যাচ্ছে।
দেখিসনা ওরকম করে। তোরটা হামানদিস্তের মতো ভেতরটা যেনো গুড়িয়ে দিচ্ছে।
বুঝতে পাচ্ছি মিত্রার মতির ঠোঁট দুটো আমার মতিকে আবার কামড়ে কামড়ে ধরতে শুরু করেছে, তারমানে মিত্রার এবার হয়ে যাবে, মিত্রার চোখ বন্ধ। দুটো হাত আমার হাতদুটোকে শক্ত করে ধরেছে, ওর মুন্তির নিপিল দুটো বেশ শক্ত হয়ে গেছে, আমি বেশ জোরেই কোমরদোলাতে শুরু করলাম। তারপর ভেতরে ঢুকিয়ে আরো জোরে দুতিনবার চাপ দিতেই আমার মতি মিত্রার মতির মধ্যে কেঁপে কেঁপে উঠলো।
মিত্রা পা দুটো একটু ওপরের দিকে তুলে আমার পাছুতে নিয়ে এসে জোরে জাপ্টে ধরলো। ওর চোখ বন্ধ, আমি ওর ঠোঁটে ঠোঁট রাখলাম, ওর ঠোঁট দুটো কি গরম আমার জিভ যেনো পুরে ছাই হয়ে যাবে। মিত্রা আমার গলা জড়িয়ে ধরে আমার শরীরীটাকে বুকের সঙ্গে চেপে ধরে আছে।
কিরে বেরিয়েছে।
তুই যেমন তোর মতিটাকে কাঁপাচ্ছিলি আর একটু কাঁপা।
কেনো।
ভীষণ ভাল লাগছে।

আমি আমার মতিটাকে একটু একটু করে কাঁপাতে চেষ্টা করলাম, যতটা কাঁপে আর কি। মিত্রা চেখ খুলে ফিক করে হাসলো।
তোর দম আছে।
কেনো।
যে ভাবে করছিলি। মনে হচ্ছিল আমার নাভি পর্যন্ত চলে যাচ্ছে।
ওঠ।
এই তোর একটা বদঅভ্যাস হয়ে গেলেই খালি ওঠ।
কেনো।
দাঁড়ানা। তোরটা একটু ছোটো হতে দে। এই সময়টা ভীষণ ভালো লাগে।
তোর মুন্তিটা একটু খাই।
খা। ওঠবার নাম করবি না।
বড়মা এসে যদি অনি অনি বলে চিতকার করে।
করুক। বড়মারা করেনি কোনো দিন।
আচ্ছা বাবা আচ্ছা।
আমি মিত্রার মুন্তিতে মুখ দিলাম, মুন্তির নিপিল দুটো এখনো শক্ত। মিত্রা মাঝে মাঝে চোখ বন্ধ করছে আবার খুলছে। আমি ধীরে ধীরে ওর শরীর থেকে উঠে দাঁড়ালাম।
মুছে দে।
আমি হাসলাম। পাজামাটা দিয়ে ওর মতি মুছিয়ে দিলাম, মতির ঠোঁট দুটো লাল হয়ে আছে। আমি একবার চুমু খেলাম। মিত্রা হেসে ফেললো।
ওকে হাত ধরে তুলে ধরলাম। পাজামাটা পরে নিলাম।
কিরে এটা পরলি।
স্নান করতে যাবোতো ধুয়ে ফলবো।
মিত্রা উঠে ভিঁজে কাপর দিয়ে গা হাত পা ভাল করে মুছে কাপর পরলো, আমি ল্যাপটপে বসলাম।
ওটা খোল।
কোনটা।
সেক্স সাইটটা।
না এখননা রাতে। তুই কি বলছিলি তখন।
কি বলতো।
আরে নিখিলেশদার লাইব্রেরীটা।
লেখ http://www.********.org আমি লিখে এন্টার মারতেই খুলে গেলো।
বাঃ বেশ করেছে রে।
দেখি দেখি।
মিত্রা আমার ঘারের কাছে মুখ নিয়ে এলো।
আমি এ্যাবাউট আসটা ভালো করে পরলাম। বেশ ক্রিয়েটিভ কাজ। ক্যাটাগরিতে ক্লিক করতেই বইগুলোর ক্যাটাগরিগুলো দেখতে পেলাম। প্রথমেই আমি সেক্সের বইগুলো দেখে ফেললাম। দারুন দারুন সব বই আছে। আমি একটা ক্লিক করে ফ্রি ডাউনলোড করলাম।

মিত্রা মিত্রা এই মিত্রা।
বড়মার গলা।
আমি মিত্রার দিকে তাকালাম, কিরে সারা দে।
খেপেছিস তুই, কখন কাপর পরতে এসেছি বলতো।
করতে গেলি কেনো।
শয়তান আমার একার শখ না।
আমি যাচ্ছি।
না তোকে যেতে হবে না।
মিত্রা বাইরের বারান্দায় বেরিয়ে গেলো।
অনি কোথায়রে, ও আবার কোথায় গেলো বলতো।
বড়মার আর গলা পেলাম না। বুঝলাম মিত্রা বড়মাকে ইশারায় কিছু বলছে।
আমি আমার কাজে মন দিলাম।
কিছুক্ষণ পর বড়মা ঘরে এলেন। মিত্রার চোখ চকচক করছে।
দেখেছো তোমার ছেলের কান্ড। কিরকম নিস্তব্ধে কাজ করে যাচ্ছে। কেউ টের পাবে না।
ওতো তোর জন্যই করছে।
জানিগো জানি। মিত্রা বড়মাকে আঁকুড় করে ধরলো। গালে গাল ঘোষে বললো, জানো বড়মা অনিছাড়া আমি বাঁচবো না।
বড়মা মিত্রার দিকে তাকালো।
তোকেও তোর কাজগুলো বুঝে নিতে হবে ওর থেকে।
সত্যি বলছি বিশ্বাস করো ভালো লাগে না। আমার কাজের প্রতি ভালোলাগাটাকে ওরা বিষিয়ে দিয়েছে।
কারা করেছে, অনিকে বলেছিস।
আমার বলার আগেই অনি সব জেনে গেছে।
ও জানেনি ওকে জানতে হচ্ছে, তুই ওকে সাহায্য কর।
ওকে এসব বলতে ভাললাগে না।
ভাললাগে না বললে হবে, তুই না বললে ও তোকে সাহায্য করবে কি করে।
কেনো! জ্যোতিষি বলেছে ও সব পারবে।
সেতো জ্যোতিষি বলেছে। তুই ওকে সাহায্য কর।
মিত্রা বড়মাকে ছেড়ে একটু চা আনবি। আর ছোটমাকে একটু ডেকে আনবি।
দেখছো বড়মা দেখছো, যেই আমি তোমাকে একটু জড়িয়ে ধরেছি, ওর ওমনি গায়া জ্বালা ধরে গেলো, মিত্রা এটা করতো, ওটা করতো।
বড়মা মিত্রার দিকে তাকিয়ে ওর গালে হাত বুলিয়ে দিলো।
ওর দিকে তাকালাম।
দেখলে, ওমনি তোমার ছেলের রাগ হয়ে গেলো। ঠিক আছে বাবা যাচ্ছি।
এখুনি আসবি ছোটমাকে নিয়ে। আমার একটু দরকার আছে। তুই আবার থেকে যাবি না।
আচ্ছা।

মিত্রা চলেগেলো। আমি বড়মার দিকে তাকিয়ে বললাম। বসো।
বড়মা সোফায় বসলো।
দাদা ফোন করেছিলো।
তোকেও তো করেছিলো।
জানি। তবু তোমায় জিজ্ঞাসা করছি কেনো বুঝতে পারছো না।
না। আমার মাথাটা তোর মাথার মতো নয়।
হাসলাম।
হাসিসনা। তোর হাসিটা সব সময় একটা অর্থ বহন করে নিয়ে আসে। তার চেয়ে পরিষ্কার করে বল কি জানতে চাইছিস।
আমার কাছে দাদার এক্সপ্রেসন আর তোমার কাছে দাদার এক্সপ্রেসন দুটো একেবারে আলাদা। এটা বোঝার মতো বুদ্ধি লাগে নাকি।
তোর লাগে। আমার লাগে না।
আমি তোমার কাছ থেকে দাদা নিরঞ্জনদা ইসলামভাই-এর এক্সপ্রেসন জানতে চাইছি। ওরা তোমাকে কে কি বললো।
তোর দাদা খুব ইমপ্রেসড তোর প্রতি। তোর কাজের প্রতি তোর দাদার পূর্ণ সমর্থন আছে।
কালকের ব্যাপারগুলো দাদাকে বলেছো।
বলেছি।
কি বললো।
তোর দাদা প্রথমে একটু আপত্তি করেছিলো। তারপর বললো ও যখন করছে, ভেবেচিন্তেই করছে। ওকে বাধা দিও না।
ইসলামভাই।
তুই এখন যা বলবি ও সেই ভাবে কাজ করবে।
নিরঞ্জনদা।
ওতো তোর চালচলন দেখে অবাক হয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন পার্টি করছে বললো এরকম ছেলে ও দেখে নি।
বাড়িয়ে বলছো।
একটুও না।
আমাকে একটু বেশি ভালবাসো তাই আমার দোষগুলো বলতে চাইছো না।
তোর দোষ দেখলে নিশ্চই প্রতিবাদ করবো।
করবেতো। না চুপ কর থাকবে।
তাহলে তোর ক্ষতি। সে ক্ষতি মন থেকে চাইবো না।
ছোটমা নীপা মিত্রা ঘরে ঢুকলো।
তুমি এখন চা খাবে স্নান করবে কখন।
করছি।
মিত্রা চায়ের কাপ এগিয়ে দিলো।
কিরে বড়মাকে দিলি না।
বড়মা তোর মতন নাকি খালি চা খাবে।
হাসলাম।
হাসবিনা। সব সময় একটা প্ল্যান ভাজিস মাথায়।
ঠিক আছে বোস। নীপা একবার ইসলামভাই আর নিরঞ্জনদাকে ডেকে দাও।
নীপা বুঝলো কিছু একটা আলোচনা করবো। ও দাঁড়ালনা চলে গেলো।
ছোটমা বড়মার পাশে সোফায় বসলো।
কি দেখছ অমন করে।
তোকে দেখছি। তুই যে কখন নিজেকে হঠাৎ হঠাৎ বদলে ফেলিস। আমরা নিজেরাই বুঝতে পারিনা।
মিত্রার দিকে তাকালাম।
তোকে একটা কথা জিজ্ঞাসা করবো। সত্যি করে বলবি।
ও আমার চোখে চোখ রাখলো। বুঝতে পারলো। নিশ্চই গুরুত্বপূর্ণ কিছু।
বল। মাথা নিচু করে নিলো।
মিঃ ব্যানার্জীকে তুই ভালবাসিস।
ও আমার দিকে তাকালো। চোখে চোখ রাখলো। চোখদুটো মুহূর্তের মধ্যে বদলে গোলো। এক একটা চোখ যেনো গনগনে আগুনের কয়লার টুকরো।
তুই কি বলতে চাস। গলার স্বরটা কর্কশ।
আমি একটা স্টেপ নিতে যাচ্ছি। তোর অনুমতি নিতে চাই। বড়মা ছোটমার কাছ থেকেও অনুমতি নেবো। জায়গাটা খুব সেনসিটিভ।

মিত্রা চলেগেলো। আমি বড়মার দিকে তাকিয়ে বললাম। বসো।
বড়মা সোফায় বসলো।
দাদা ফোন করেছিলো।
তোকেও তো করেছিলো।
জানি। তবু তোমায় জিজ্ঞাসা করছি কেনো বুঝতে পারছো না।
না। আমার মাথাটা তোর মাথার মতো নয়।
হাসলাম।
হাসিসনা। তোর হাসিটা সব সময় একটা অর্থ বহন করে নিয়ে আসে। তার চেয়ে পরিষ্কার করে বল কি জানতে চাইছিস।
আমার কাছে দাদার এক্সপ্রেসন আর তোমার কাছে দাদার এক্সপ্রেসন দুটো একেবারে আলাদা। এটা বোঝার মতো বুদ্ধি লাগে নাকি।
তোর লাগে। আমার লাগে না।
আমি তোমার কাছ থেকে দাদা নিরঞ্জনদা ইসলামভাই-এর এক্সপ্রেসন জানতে চাইছি। ওরা তোমাকে কে কি বললো।
তোর দাদা খুব ইমপ্রেসড তোর প্রতি। তোর কাজের প্রতি তোর দাদার পূর্ণ সমর্থন আছে।
কালকের ব্যাপারগুলো দাদাকে বলেছো।
বলেছি।
কি বললো।
তোর দাদা প্রথমে একটু আপত্তি করেছিলো। তারপর বললো ও যখন করছে, ভেবেচিন্তেই করছে। ওকে বাধা দিও না।
ইসলামভাই।
তুই এখন যা বলবি ও সেই ভাবে কাজ করবে।
নিরঞ্জনদা।
ওতো তোর চালচলন দেখে অবাক হয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘদিন পার্টি করছে বললো এরকম ছেলে ও দেখে নি।
বাড়িয়ে বলছো।
একটুও না।
আমাকে একটু বেশি ভালবাসো তাই আমার দোষগুলো বলতে চাইছো না।
তোর দোষ দেখলে নিশ্চই প্রতিবাদ করবো।
করবেতো। না চুপ কর থাকবে।
তাহলে তোর ক্ষতি। সে ক্ষতি মন থেকে চাইবো না।
ছোটমা নীপা মিত্রা ঘরে ঢুকলো।
তুমি এখন চা খাবে স্নান করবে কখন।
করছি।
মিত্রা চায়ের কাপ এগিয়ে দিলো।
কিরে বড়মাকে দিলি না।
বড়মা তোর মতন নাকি খালি চা খাবে।
হাসলাম।
হাসবিনা। সব সময় একটা প্ল্যান ভাজিস মাথায়।
ঠিক আছে বোস। নীপা একবার ইসলামভাই আর নিরঞ্জনদাকে ডেকে দাও।
নীপা বুঝলো কিছু একটা আলোচনা করবো। ও দাঁড়ালনা চলে গেলো।
ছোটমা বড়মার পাশে সোফায় বসলো।
কি দেখছ অমন করে।
তোকে দেখছি। তুই যে কখন নিজেকে হঠাৎ হঠাৎ বদলে ফেলিস। আমরা নিজেরাই বুঝতে পারিনা।
মিত্রার দিকে তাকালাম।
তোকে একটা কথা জিজ্ঞাসা করবো। সত্যি করে বলবি।
ও আমার চোখে চোখ রাখলো। বুঝতে পারলো। নিশ্চই গুরুত্বপূর্ণ কিছু।
বল। মাথা নিচু করে নিলো।
মিঃ ব্যানার্জীকে তুই ভালবাসিস।
ও আমার দিকে তাকালো। চোখে চোখ রাখলো। চোখদুটো মুহূর্তের মধ্যে বদলে গোলো। এক একটা চোখ যেনো গনগনে আগুনের কয়লার টুকরো।
তুই কি বলতে চাস। গলার স্বরটা কর্কশ।
আমি একটা স্টেপ নিতে যাচ্ছি। তোর অনুমতি নিতে চাই। বড়মা ছোটমার কাছ থেকেও অনুমতি নেবো। জায়গাটা খুব সেনসিটিভ।

তুই যা খুশি করতে পারিস আমার কোন আপত্তি নেই।
ঠিক আছে তার আগে তোর কাছে আমি কিছু জানতে চাই তুই বলবি।
বল।
তুই কোনো ব্ল্যাঙ্ক স্টাম্প পেপারে সই করেছিস। বিগত তিন বছরে।
করেছি। আমাকে দিয়ে করানো হয়েছে।
বেশ।
মিঃ ব্যানার্জীর ছেলে এখন কোথায়।
ও আমার দিকে তাকালো।
তুই জানলি কি করে।
উনি তোকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন।
ছোটমা বড়মার চোখ ঠেলে বেরিয়ে আসতে চাইছে।
পাস্ট ইজ পাস্ট তুই ওগুলো নিয়ে ভাববি না। ওর এই গলার স্বর বড়মা ছোটমার পরিচিত নয়।
একটা জট পেকে আছে, তোকে খুলতে হবে।
কিচ্ছু জট নয়। সবকটাকে লাথি মেরে দূর করেদেবো। তুই কি আমাকে বাঁজা মেয়ে পেয়েছিস।
ছোটমা বড়মা মিত্রার এই রূপ দেখে নি। ওদের চোখের ভাষা বদলে গেলো। এ মিত্রা সেই মিত্রা নয়। যাকে ওরা হাসি খুশি দেখেছে।
আমি মিত্রার মুখটা তুলে ধরলাম। তুই আমাকে ভালবাসিস।
ও আমার চোখে চোখ রাখলো। চোখের আগুন এখন কমে নি। সামান্য জল টল টল করছে। চোখের পাতা পরলো। গাল বেয়ে দুফোঁটা জল গড়িয়ে পরলো।
তুই ছোটমাকে ভালবাসিস।
চোখের ভাষায় আমাকে বুঝিয়ে দিলো।
তুই বড়মাকে ভালবাসিস।
ও আমাকে জড়িয়ে ধরলো। ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠলো।
বড়মা উঠে আসতে চাইছিল, আমি ইশারায় না বললাম।
শোন না, আমার কথা শোন। রাগ করলে হবে না। খুব বুঝে কাজ করতে হবে। ওরা তোর অনেক খতি করেছে। আমি তোর সাহায্য ছাড়া কিছু করতে পারব না।
তুই বড়মা ছোটমাকে চলে যেতে বল। আমার এই কথা বড়মা ছোটমা জানলে আমাকে নোংরা মেয়ে বলবে।
এতদিনে বড়মা ছোটমাকে এই চিনলি। কই আমার দিকে তাকা।
বড়মা ছোটমাকে আমি সব বলিনি।
ঠিক আছে বলিসনি কি হয়েছে। আজ না হয় কাল বড়মা সব জানবে। বড়মা কাল আমাদের সামনে কনফেস করেছে। করেছে কিনা বল।
ও বুকের মধ্যে মুখ গুঁজে মাথা দোলাচ্ছে।
দেখ তোর মতো ছোটমার একটা দুঃখ আছে। তুই সেটা বহুবার বলেছিস। আমি তোকে কি বলেছি। বল।
ও আমার বুকের থেকে কিছুতেই মুখ তুলছে না।
তুই যা বলবি আমি তাই করবো।
আমি মিঃ ব্যানার্জীকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দিতে চাই। তুই পারমিশন দে।
পারবি। মিত্রা আমার বুক থেকে মুখ তুললো। সেদিন মিত্রার চেয়ে খুশি পৃথিবীতে আর কেউ হবে না।
বড়মা ছোটমা অবাক।

ও আমার মুখের দিকে তাকিয়ে আছে। আমার মুখাবয়ব থেকে ও কিছু খোঁজার চেষ্টা করছে। আমি ওর কাপালে হাত রাখলাম। চোখের কোলে জল শুকিয়ে গেছে। আমি বুড়ো আঙুল দিয়ে মুছিয়ে দিলাম। ও আমার গলা জড়িয়ে ধরলো। কাঁধে মাথা রাখলো।
সকালের সব গল্প বড়মাকে বলা হয়ে গেছে।
মিত্রা মাথা দোলালো।
আমার স্কুলের গল্প।
ও আবার চোখ তুললো। একটুখানি বলেছি। বড়মা বলেছে যাবে।
তুই নিয়ে যেতে পারবি।
হ্যাঁ।
খাবার টেস্ট করা হয়েগেছে।
না।
যা একটু নিয়ে আয় না। খাই।
অনাদি দিচ্ছে না।
ঠিক আছে বল আমি চাইছি।
দাঁড়া যাচ্ছি।
চোখে মুখে একটু জল দিয়ে নে।
না থাক।
মিত্রা ছুটে চলে গেলো। আমার বুকের মধ্যে থেকে একটা দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে এলো। শিঁড়িতে আওয়াজ হলো। আরে দিদিমনি আস্তে আস্তে। কোথায় পরে যাবে, লেগে যাবে। ইসলামভাই-এর গলা।
ছোটমা বড়মার দিকে তাকালাম। ওরা অবাক হয়ে আমার দিকে তাকিয়ে আছে।
কি বুঝলে।
একথা তুই জানলি কোথা থেকে।
ইসলামভাই ঘরে ঢুকলো। সরি অনি স্নান করছিলাম। দেরি হয়ে গেলো। ঘরের চারদিকে একবার চোখ বুলিয়ে নিলো। নিশ্চই কিছু একটা গম্ভীর আলোচনা হচ্ছে।
বসো। নিরঞ্জনদা কোথায় গেলো।
স্নান করছে এখুনি এসে পরবে।
ইসলামভাই আমার পাশে এসে বসলো।
সকাল থেকে মিত্রাকে বেশ ফুরফুরে লাগছিলো। এখন ওর চোখ দুটো ছলছল করছে মনে হলো।
হ্যাঁ। ওকে কয়েকটা কথা জিজ্ঞাসা করছিলাম।
নিশ্চই মিঃ ব্যানার্জীর কথা বলেছিস।
ছোটমা বড়মা আমার আর ইসলামভাই-এর দিকে তাকালো। ওরা বুঝতে পারলো ইসলামভাই কোন স্তরের লোক।
তোকে ওটা নিয়ে ভাবতে হবে না। তুই কি ভাবছিস ইসলামভাই এখানে এমনি এমনি বসে আছে। রতনকে বলেদিয়েছি। সব ব্যবস্থা করে রাখবে। তুই যা চাইবি তাই হবে। চব্বিশ ঘন্টা ওর পেছনে লোক রয়েছে। তোকে বলেছি না এবার ইসলামভাই-এর খেলা দেখ।
মুন্না মেয়টার এখুনি কান্না দেখলি না। কি রেগে গেলো। এই প্রথম ওর রাগ দেখলাম।
জানিস দিদি মিত্রা এমন একটা পাথর আঘাতে আঘাতে ও টুকরো টুকরো টুকরো হয়ে গেছে। আর অনি টুকরো টুকরো হয় নি। তাই ওকে আমরা সবাই শিব বলছি। নারায়ণ বলছি।
বড়মা ইসলামভাই-এর দিকে একদৃষ্টে তাকিয়ে আছে।
ওকে ওরা ছিবড়ে করে দিয়েছে। আমি তার কিছুটা দেখেছি। অনি দেখেনি, কানে শুনেছে। তাতেই অনির এই অবস্থা দেখলে কি করতো বুঝতে পারছিস।
ছোটমা মাথা নীচু করে বসে আছে।
তোকে দিদিকে সব কথা বলা যাবে না। বললে তোদেরও অবস্থা অনির মতো হবে।
আমি ইসলামভাই-এর দিকে তাকালাম।
তুই কি ভাবছিস বল।
এখনো কিছু ভাবি নি। কাল একবার কলকাতা যাবো।
আমার যাওয়ার ব্যবস্থা কর।
এখানকার কাজগুলো সেরে নিই। তোমাকে দরকার।
তোর তিনশো একর ব্যবস্থা হয়ে যাবে।
কথা হয়েছে।
হ্যাঁ নিরঞ্জনদার কাছে লোক এসেছে। খেয়েদেয়ে দেখতে যাওয়ার কথা।

ঠিক আছে চলো। তুমি এখন কতো নিয়ে এসেছো।
মনে হয় রতন কুড়িটা বান্ডিল ঢুকিয়ে দিয়েছে। লাগলে আরো পাঠিয়ে দেবে। তোকে ভাবতে হবে না।
না আমি সে নিয়ে ভাবছিনা হিমাংশুর সাথে বসতে হবে। ডিড গুলো বানাতে হবে। আমি বুধবার ফিরে আসবো।
মিত্রাকে সামলাবে কে। বড়মা বললো।
কিছু হবেনা দেখবে। ও সব সময় অতীতটা ভুলে থাকতে চায়।
বড়মা আমার দিকে তাকালো।
নিরঞ্জনদা এলো। একবার চোখ বুলিয়ে নিয়ে বললো।
খুব জোড় মিটিং চলছে মনে হচ্ছে।
নিচে গলা পেলাম মিত্রা তারস্বরে চেঁচাচ্ছে। তুই এটা ধর আমি ওটা ধরছি।
আমি বড়মার দিকে তাকালম। কিছু বুঝছো।
বড়মা আমার দিকে ফ্যাল ফ্যল করে তাকিয়ে আছে।
মিত্রা ঝড়ের মতো ঘরে ঢুকলো।
এমা আরো দুজন এসে গেছে। বাইরের দিকে তাকিয়ে, তোকে বললাম।
কে বাইরে। আমি বললাম।
কাঞ্চন। কিছুতেই আসবে না। জোড় করে নিয়ে এলাম।
বড়মা মিত্রার দিকে অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। এই কিছুক্ষণ আগের মিত্রার সঙ্গে এই মিত্রার আকাশ পাতাল পার্থক্য।
বুঝলি বুবুন ইসলামভাই-এর ইনস্ট্রাকসনে যা বানিয়েছে না এরা দারুন।
ও ইসলামভাই-এর কাছে এগিয়ে এসে বললো।
তোলো তোলো।
বড়মাকে একটা প্লেট দিলো, আর ছোটোমাকে একটা প্লেট দিলো।
আমার দিকে ফিরে বললো। তুই স্নান করিস নি। পাবি না। তোরটা নিরঞ্জনদাকে দিলাম।
আমি বড়মার কাছ থেকে নেবো।
না। সরি। আমি বড়মার কাছ থেকে একটা নেবো ছোটমার কাছ থেকে একটা নেবো।
তাহলে আমি ইসলামভাই-এর কাছ থেকে একটা নিই।
আমি একটা মুরগীর ঠ্যাং ইসলামভাই-এর পাত থেকে তুলে নিলাম। মিত্রার দিকে তাকিয়ে বললাম, যাবি নাকি ? পুকুরে সাঁতার কাটবো।
এখন। ঠিক আছে তুই যা আমি যাচ্ছি।
আমি বড়মার দিকে তাকালাম। বড়মা হাসছে।
আমি ঘরের বাইরে বেরিয়ে এলাম। আসার সময় মিত্রাকে বললাম টাওয়েলটা নিয়ে আসিস। মিত্রা তখন একটা ঠ্যাং মুখে তুলেছে। আমি ওর দিকে তাকিয়ে হেসেফেললাম।

বাথরুম থেকে বেরিয়ে দেখলাম মিত্রা ঘাটের ধারে দাঁড়িয়ে আছে। ওর কাঁধে টাওয়েলটা। গাছের দিকে মাথা তুলে তাকিয়ে আছে। আমি পা টিপে টিপে ওর পেছনে এসে দাঁড়ালাম। ওর মতো মাথা তুলে তাকালাম। দেখলাম একটা টিয়াপাখি আর একটা টিয়াপাখির ঠোঁটে ঠোঁট রেখে টানাটানি করছে। মাঝে মাঝে একটা ট্যাঁও ট্যাঁও করে উঠছে। মিত্রা একদৃষ্টে ওইদিকে তাকিয়ে আছে। আমিও ওর পেছনে। পাখিদুটো হঠাৎ উড়ে গেলো। মিত্রা আপন মনে বলে উঠলো। যাঃ। ঘুরতে গিয়ে আমার গায়ে আছাড় খেয়ে পরলো। আমাকে জাপ্টে ধরলো। ফিক করে হেসে বুকে মুখ রাখলো।
দিলি তো ছুঁয়ে।
কেনো।
আমি পটি করে এসেছি। চল স্নান করবি আমার সঙ্গে।
এখন।
হ্যাঁ।
চল কি মজা হবে।
ও ছুটে চলে গেলো। নীপাকে ডেকে জামাকাপর আনতে বললো। আমি ততক্ষণে জলে নেমে গেছি। নীপা জামাকাপর দিয়ে গেলো। বাঁকা চোখে আমার দিকে তাকিয়ে বললো। যতো দুষ্টু বুদ্ধি, দাঁড়াও বড়মাকে ডাকছি। নীপা চলে গেলো। মিত্রা নেমে এলো।
কাপরটা কোমরে ভালো করে বেঁধেনে না হলে পায়ে জড়িয়ে যাবে।
তুই বেঁধে দিয়ে যা। আমি উঠে এসে ভালোকরে পেঁচিয়ে বেঁধে দিলাম।
দুজনে নেমে গেলাম জলে। সাঁতার কাটছি।
জানিস বুবুন এখানকার জলটা বেশ ভারি। আমাদের ক্লাবের সুইমিং পুলের জলটা হাল্কা।
ওটা পিউরিফায়েড ওয়াটার। এটা বাঁশবাগানের পাতা পরা জল।
অনেকদিন পর সাঁতার কাটছি। নীপাটা কিছুতেই জলে নামতে দেয় না।
তোকে ভয় পায়।
যাঃ। চল ওপারে যাই।
দম আছে।
তুই আছিস তো। এক্সপার্ট।
হাসলাম।
হাসিসনা।
ওপারে কিন্তু দাঁড়ানো যাবে না। প্রচুর পাঁক।
ঠিক আছে।
দুজনে ওপারে সাঁতরে চলে গেলাম। ফিরে তাকাতেই দেখি, ছোটমা বড়মা নীপা ইসলামভাই দাঁড়িয়ে আছে।
ওরে ফিরে আয় ঠান্ডা লাগবে।
মিত্রা বড়মার দিকে তাকিয়ে হাত নারলো।
কিরে ফিরে যেতে পারবি। না পিঠে উঠবি।
চল যতটা যাওয়া যায়। তারপর তোর পিঠে উঠে যাবো।
আমার সাঁতরাতে আরম্ভ করলাম। মাঝ পথে এসে সত্যি মিত্রা হাঁপিয়ে গেলো।
বুবুনরে এখানে কি গভীর টানতে পারছি না।
আমার গলাটা জড়িয়ে ধরে ভেসে থাক।
দুজনে পারে উঠলাম। বড়মা হাসছে।
তুই সাঁতার কাটতে জানিস। মিত্রার দিকে তাকিয়ে বললো।
বুবুন ছিলো তাই নামলাম। নীপাটা নামতে দেয় না।
ঠিক আছে কালকে তুই নামিস। আমি থাকবো।
আমি মিত্রার কোমরের দিকে তাকালাম। চকচক করছে কোমরাটা। আমি হাত দিতেই ও সরে দাঁড়ালো।
দাঁড়া দাঁড়া একটা জিনিস দেখাচ্ছি।
নীপা দৌড়ে নিচে নেমে এসেছে ও বুঝতে পেরেছে।
তুমি নেবে না আমি নেবো।
মিত্রা বুঝতে পারেনি। ও চেঁচিয়ে উঠলো কি বলবিতো।
দেখনা।
নীপা মিত্রার কোমরে জড়ানো কাপরটা থেকে একটা চারাপোনা বার করলো।
মাছ। মিত্রার চোখ চকচক করে উঠলো।
তুই সাঁতার কাটলি আবার কোঁচরে করে মাছও ধরে আনলি।
এবার নীপা মিত্রা দুজনে লেগে পরলো। আমি স্নান সেরে উঠে এলাম। বড়মার দিকে তাকিয়ে ইশারাকরে বললাম। দুজনকে বলেছো ব্যাপারটা।
বড়মা ইশারায় জানালো হ্যাঁ।
ছোটমা মুচকি হাসছে।
হেসোনা হেসোনা, মেঘ গর্জন করে আবার বর্ষায়।
বুবুন এই দেখ।
মিত্রা মাছটা ধরে রয়েছে। মাছটা ওর হাতের মধ্যে ছটফট করছে।

ছেড়েদে।
উঁ। ভেজে খাবো।
ওর দিকে তাকিয়ে হাসলাম।

আজকে অনেকে এসেছে। বাঁশবাগানে জোর খাওয়া চলছে। চিকনারা অনেককে বসিয়ে দিয়েছে। আমি ওখানে একবার গেলাম। চিকনা এগিয়ে এলো।
গুরু সব ঠিক আছে।
এতো বিরাট আয়োজন।
মুন্নাভাই বলেছে টাকার জন্য কার্পণ্য করবে না। যা লাগবে নিয়ে এসো। সবাইকে পেট পুরে খাওয়াও।
মেনু কে ঠিক করেছে।
মুন্নাভাই দুটো আইটেম বলেছে। বাকি অনাদি বাসু। তোর জিলিপি আছে, ভাজা হচ্ছে। পইড়্যা ঘরের বুড়ো এসেছে।
যাই একবার দেখে আসি।
আমি রান্নাঘরে এলাম। এবাড়ির রান্নাঘরটা মনে হয় অনেক দিন পর ব্যাবহার হলো। বাসু অনাদি পইড়্যাঘরের বুড়োকে ইনস্ট্রাকসন দিচ্ছে সাইজ কত বড়ো হবে।
আমি যেতে হেসে ফেললো।
তোর এতোক্ষণে সময় হলো।
আমার জন্য কি কিছু আটকে আছে।
অনাদি হেসে ফেললো।
সিগারেট খাবি।
খিদে লেগেছে খেয়ে নিই।
একটা কাজ করবি অনাদি।
বল।
আমি পইড়্যা ঘরের বুড়োর কাছে গিয়ে বসলাম।
কাকা।
বল।
তোমার তাবার মতো সাইজের পাঁচটা জিলিপি ভাজতে পারবে।
তুই বললে ভেজে দেবো।
তুমি ভাজো।
অনাদি আমার দিকে তাকিয়ে আছে। বাসু হাসছে।
বুঝেছি তুই কি করবি।
পাঁচটা কেনো গোটা দশেক ভেজে নিই।
আবার মাখতে হবে।
দূর ও নিয়ে তোকে ভাবতে হবে না।
সঞ্জুকে দেখতে পাচ্ছিনা।
ও জেনারেটরটা একবার দেখতে গেছে।
এতো মেলা লোক দেখছি। পরিবেশন করবে কে। গামছাটা কোমরে বাঁধি।
তুই আর জালাস না বড়মা আস্ত রাখবে না।
হাসলাম।
মিত্রাকে একবার ডাক কি করে জিলিপি ভাজা হয় দেখে যাক।
না। এসে ঝামেলা করবে।
বুবুন তুই এখানে!
বাসু হাসছে। অনাদি মুখ ভ্যাটকালো। চিকনা মিত্রার পেছনে দাঁড়িয়ে হাসছে।
একটা দে।
অনাদি এই ডিপার্টমেন্টের দায়িত্বে। ওকে বল।
ও দেবে না। সকাল থেকে আমার ওপর গরম।
মিত্রার কথা বলার ঢঙে অনাদি হেসে ফললো।
কাকা দুটো দাওতো। দিই। নাহলে মাথার পোকা বার করে দেবে।
মিত্রা হাসছে।
হেবি মাঞ্জা লাগিয়েছিস।
ছোটমার কাপর। আমি ভাঙলাম।
জিলিপি কামরেই বললো। মাত্র দুটো।
বেশি খেলে খেতে পারবি না।
ঠিক আছে। হিসেব করে খেতে হবে।
বাসু হাসছে। অনাদি ঠোঁটের ফাঁক দিয়ে হাসছে।
তাড়াতারি সার। বিকেলে নিরঞ্জনদা প্রোগ্রাম করেছে।
কোথায়রে।
চল দেখবি।
উনামাস্টার তোকে একবার ডাকছে। চিকনা এসে বললো।

অনাদি বললো কোথায়।
ও বাড়িতে। তিন মাস্টার বসেছে।
কে কে।
উনা পোকা মনা।
আরি ব্যাস। চল চল স্যারকে একবার পেন্নাম ঠুকে আসি।
বাসু অনাদি আমি মিত্রা চিকনা এ বাড়িতে এলাম। বারান্দায় সবাইকে সারি বদ্ধভাবে বসে থাকতে দেখলাম। বড়মা জমিয়ে গল্প করছে। আমায় দেখেই বললো আয়। তোর উনামাস্টারের সঙ্গে গল্প করছি। তোর গুণের কথা বলছে।
আমি মাথা নীচু করলাম। সবাইকে একধারসে পেন্নাম ঠুকতে আরম্ভ করলাম। আমার পেছনে লাইনদিয়ে ওরা সবাই।
উনামাস্টার পোকামাস্টার আমার মিত্রার মাথায় ঠোঁট ছোঁয়ালেন। মিত্রা এতদিন গল্প শুনেছে। দেখে নি। ও অবাক হয়ে দেখছিলো। তারপর উনামাস্টারের দিকে তাকিয়ে বললো। তুমি ওকে মারতে কেনো।
দালান শুদ্ধ সব লোক ওর কথা বলার ঢঙে হো হো করে হেসে ফেললো।
উনামাস্টার মিত্রাকে কাছে ডেকে নিয়ে ওর গায়ে মাথায় হাত বুলিয়ে দিলেন। বৃদ্ধের হাত থর থর করে কাঁপছে।
ওকে যদি না মারতাম মা তুমি পেতে কেমন করে। ও যে বয়ে যেতো।
মিত্রা মাথা নীচু করে দাঁড়িয়ে।
তোমায় কথা দিচ্ছি ওকে আর কোনদিন মারবো না।
মিত্রা ফিক করে হেসে ফেললো।
তুমি মারবে কি করে ও এখন বড় হয়ে গেছে।
ঠিক বলেছো। এবার আমার হয়ে তুমি ওকে মারবে।
দেখেছিস বুবুন স্যার অর্ডার দিয়েছে। মনে রাখিস।
বড়মা নিরঞ্জনদা ইসলামভাই ছোটমা সবাই হাসছে।
যাও বেলা হলো খেয়ে নাও।
তোমরা খাবে না।
আমরা এ বাড়িতে তোমরা ও বাড়িতে।
আমি স্যারের কাছ গেলাম। আস্তে করে বললাম আপনি খেয়ে নিন কিছু কথা আছে।
আমি সন্ধ্যা পর্যন্ত আছি। এক ফাঁকে বলিস।
সবাই হৈ হৈ করে খেতে বসলাম। আজ মিত্রা আমার পাশে বড়মা আর এক পাশে তারপাশে ছোটমা। সবাই সারিবদ্ধভাবে বসেছি। কাঞ্চন লতা চিকনা পরিবেশন করছে ওরা আগে খেয়ে নিয়েছে। সঙ্গে নীপার তিন-চারজন বন্ধু আছে। বুঝলাম সবার আজ লক্ষ্য মিত্রা। সবাই টেরিয়ে টেরিয়ে মিত্রাকে দেখছে। ওকে আজ দেখতেও বেশ সুন্দর লাগছে।

প্রথমে ফ্রাইড রাইস পরলো তারপর মাছের চপ তারপর মাংস চলে এলো। এইবার মিত্রার খেলা শুরু হয়ে গেলো।
কিরে তুই কম কম নিচ্ছিস।
ওর দিকে তাকালাম। মুচকি হাসলাম।
বড়মা, কিছু ফন্দি এঁটেছে না।
তুইতো ছিলি ওর সঙ্গে সারাক্ষণ, তোকে কিছু বলে নি।
আমাকে বলে!
তাহলে।
আমিও কম কম নিই।
ঠকে যাবি। আমি বললাম।
ঠকলে ঠকবো। তুই কম খাবি আমিও কম খাবো।
রাতে পাবি না।
হুঁ চিকনাকে বলবো রেখে দিতে, বাকিটা রাতে খাবো।
রাতে অন্য মেনু।
ইসলামভাই হাসছে।
নারে। অনি মিথ্যে বলছে। তুই খা। বিরিয়ানিটা কেমন হয়েছে বল ?
দারুণ। অনি নেয়নি দেখেছো। খালি ছুঁয়েছে।
ও খানেওয়ালা লোক নয়। তুই খেতে পারিস। তোর জন্যই বানালাম।
শেষে দই মিষ্টি এলো। ওদের সবাইকে মিষ্টি দই দিলো। আমাকে চিকনা একটা টক দই-এর হাঁড়ি বসিয়ে দিয়ে গেলো।
তাই বলি তুই কম কম খাচ্ছিস কেনো। আমাকে পেট পুরে খাইয়ে দিয়ে তুই এখন দই-এর হাঁড়িতে চুমুক দিবি। তোকে খেতে দেবো না। ওটা রাতের জন্য থাকবে। সবাই খাবো।
ঠিক আছে চিকনা। দই খাবো না। জিলিপিটা নিয়ে আয়।
চিকনা জিলিপি নিয়ে এলো। কড়ার সাইজের এক একটা জিলিপি। বড়মা দেখে চোখ কপালে তুলেছে। নিরঞ্জনদা ইসলামভাই হাসছে।
ও বড়মা তুমি কিছু বলতে পারছো না সব একদিনে খাইয়ে দিলে হবে কি করে।
বড়মা হাসবে না কাঁদবে এমন ভাবে মুখ করে রয়েছে। নিরঞ্জনকে বল।
ও নিরঞ্জনদা তুমি কিছু বলতে পারছো না।
নিরঞ্জনদা পাতের দিকে মুখ করে ফিক ফিক করে হাসছে।
দশটা জিলিপি আছে। নিরঞ্জনদার একটা বড়মা ছোটমার একটা করে মুন্নাভাই ভজুর একটা করে। বাকি সব তোর।
বড়মা বললো আমি পুররো খেতে পারব না।
ছোটমা একি কথা বললো।

ছোটমা বড়মার ভাগ আমার। বল এবার দই না জিলিপি।
দুটোই খাবো। চেঁচিয়ে উঠলো। চিকনা জিলিপিগুল রেখেদাও রাতে খাবো। ছোটমার হাফ আমার বড়মার হাফ তোর।
রাখা যাবে না। একটু নেচে নে।
সবাই হো হো করে হেসে ফেললো।
তুমি কিছু বলতে পারছো না। বড়মার দিকে তাকিয়ে চেঁচিয়ে উঠলো।
বড়মা আমার কান ধরে বললো তুই এতো বদমাশ কেনো। ওর পেছনে না লাগলে তোর ভাত হজম হয় না।
সবাই হাসছে।
মনে রাখিস তোলা রইলো। এর শোধ আমি নেবো।
সে তুই নিস আগে দই-এর হাঁড়িটা দে।
চুমুক দিয়ে খেতে হবে।
খাবো।
বাধ্য হয়ে চিকনাকে বললাম যা গ্লাস নিয়ে আয়। চিকনা দে ছুট। মিত্রা হাসছে, কিরকম দিলুম বল।
আমি একটু হেলে কানের কাছে মুখ নিয়ে গিয়ে বললাম দেওয়াচ্ছি দাঁড়া।
বড়মা শুনতে পেয়েগেছে। মুচকি মুচকি হাসছে।
ছোটমা আমারা কান ধরে সোজা করলো।
বড়মা চেঁচিয়ে উঠলো ও ছোট ছার আমি একবার ধরেছি।
চিকনা গ্লাস নিয়ে এলো। আমি ওকে বললাম। সবাইকে দে। বাকিটা মিত্রাকে দে ও খাবে।
ওমনি তোর রাগ হয়ে গেলো। যা খাবো না।
তোকে নিয়ে বড় বিপদ তুই খানা। যতটা পারবি খা তারপর আমি খাবো।
তুই খা তোরপর আমি খাবো।
পাবিনা।
দেখছো বড়মা কেমন করে।
ছোটমা হাসছে মিত্রা আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আমি দই-এর হাঁড়ি তুলে চুমুক দিলাম। মিত্রার দিকে তাকাচ্ছি। ও আমাকে একদৃষ্টে দেখছে। ওর তাকানোতে হাসি পেয়ে গেলো। আমি কোনপ্রকারে ঢোক গিলে হাঁড়ি নামিয়ে রেখে। হেসেফেললাম।
তুই ড্যাব ড্যাব করে তাকিয়ে থেকে কি দেখছিলি।
তুই আর একবার খা।
না তুই খা।
আমি ওই ভাবে পারবো না।
ডাব খাস না।
ওতো স্ট্রদিয়ে খাই।
এখানে স্ট্র পাবি কোথায়।
দে চুমুক দিই।
মিত্রা হাঁড়ি মুখে তুললো। বেশি খেতে পারলো না। নামিয়ে রেখে বললো। মুখটা কেমন করলো। পেট আঁই ঢাই করছে। তুই খা।
জিলিপি।
রাতে খাবো।
মিষ্টি।
রাতে খাবো।
কিরে শরীর গন্ডগোল করছে নাকি।
না।
উঠে পর।
আমি ওকে ধরে তুললাম। ছোটমা বড়মার মুখ শুকিয়ে গেছে। বুঝেছে কিছু সমস্যা হচ্ছে। আমি ওকে নিয়ে বাড়ির ভেতরে গেলাম। মুখ ধুইয়ে ওপরের খাটে শোয়ালাম।
নে পেটের কাপরটা ঢিলে করে দে।
ও কাপরটা ঢিলে করে দিলো।
ভেতরে কিছু পরা আছে।
ও ফিক করে হেসে মাথা দোলালো।
তোকে এখানে কে দেখবে রে। খোল।
মিত্রা খুলে দিলো। আমি আলনায় আমার পাঞ্জাবীর তলায় রাখলাম। টান টান হয়ে শো। সায়ার দড়িটা ঢিলে কর।
এবার বল বুকের ব্লাউজটা ঢিলে করতে।
এখুনি ওরা এসে হাজির হবে।
আমার কিছু হয় নি।
তখন মুখ ভেটকাচ্ছিলি কেনো।
বমি পাচ্ছিল।
লোভী।
তুই ওরকম বলিসনা।

তুই ওকে লোভী বলছিস কেনো।
ছোটমা ঘরের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে আছে। ভেতরে এলো। পেছন পেছন সবাই। ঘর ভরে গেলো। বড়মা গিয়ে মিত্রার মাথার শিয়রে বসলো। ওর মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে।
কি হয়েছিলোরে হঠাৎ।
গা গোলাচ্ছিলো।
আমি ছোটমার দিকে তাকালাম।
কার্মোজাইম।
হ্যাঁ নিয়ে এসেছো।
নীপা ছুট লাগালো।
সকাল থেকে খালি খেয়ে যাচ্ছে।
তুই রাগ করছিস কেনো। না খেলে মানুষ বাঁচে।
বড়মা আর ঠিক থাকতে পারলো না। ফিক করে হেসে ফেললো।
নিরঞ্জনদা ইসলামভাই হাসছে।
রাতে খাওয়া বন্ধ।
ও বড়মা ওকে বলনা।
ঠিক আছে একটু শো। এখন বমিবাবটা কমেছে।
দইটা খেতে গেলি কেনো।
তুই খেলি কেনো।
আমার পেট আর তোর পেট।
কুত্তার পেটে ঘি সয়না বল।
এদিকে তো টনটনে জ্ঞান আছে।
সবাই আমাদের তরজা গানে হাসছে।
তুই চুপ কর। ছোটমা বললো।
আমি কাল সকালে কলকাতা যাব। এখানে ঠিক করে থাকবি। আমায় যদি কাজ ফেলে আসতে হয়। দেখবি মজা।
আর খাবই না।
সবাই মুখ টিপে হাসছে।
নিরঞ্জনদা বললো যাওয়ার ব্যাপারটা তাহলে কি করবি।
চলো যাবো। ও থাকবে। শরীর খারাপ। পরে পরে ঘুমবে।
মিত্রা তড়াক করে উঠে বসলো।
না না আমি ঠিক হেয় গেছি যেতে পারবো।
আমি ওর দিকে কট কট করে তাকালাম।
আমি তোর সঙ্গে যাবো না। বড়মার সঙ্গে যাবো।
বড়মা মুখ টিপে হাসছে।
নীপা ওষুধ নিয়ে এলো মিত্রা খেলো। আবার শুয়ে পরলো। ঘন্টা খানেক বাদে আমরা দুটো গাড়ি করে সবাই রওনা হলাম। আমাদের সঙ্গে এক্সট্র বলতে বাসু চিকনা অনাদি সঞ্জু গেলো। আমি এর মধ্যে সঞ্জুর ব্যাপারটা নিয়ে উনা মাস্টারের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলেছি। উনি আমাকে না বলেন নি। বলেছেন তোর মাসীমার সঙ্গে কথা বলে তোকে জানাবো। কাকা বরং বলেছেন অনি যখন আছে তুমি নিশ্চিন্ত হতে পারো। ও বেগড়বাই করবে না। খবরটা চিকনার কান হয়ে সঞ্জুর কাছে পৌঁছে গেছে। অনাদি বাসু দুজনেই খুশি। জায়গাটা দেখলাম। সবাই খুশী জায়গাটা দেখে। আমি নিরঞ্জনদাকে বললাম। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ব্যবস্থা করো। আমি দাদাকে বুধবার নিয়ে আসছি। এখানে তিনদিন রাখবো। তুমি কাল চলে যাও বুধবার একবারে রেজিস্ট্রি অফিসের সামনে আসবে। ওখান থেকে বাড়ি।

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s