দেখি নাই ফিরে (উপন্যাস) (cont. series 08)


নীপা চুপ করে রইলো। ওর ভাসা ভাসা চোখ কি যেন খুঁজছে। আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি। কোমরটা তোলা আমার নুনু খালি ওর পুশিটা ছুঁয়ে আছে। করবো।
একটু একটু করে ব্যাথা দিও না। একবার ব্যাথা দাও।
পুরোটা একেবারে।
নীপা মাথা দোলালো।
রক্তারক্তি হয়ে যাবে, তখন সামলাবে কে।
কেন তুমি।
সামলাবো কখন, সকাল হলেই কাকাকে নিয়ে ছুটতে হবে।
নীপা হাসলো।


আমি সোজা হয়ে ওর দুপায়ের মাঝখানে বসলাম, নীপা পা দুটো দুপাশে আরো ফাঁক করলো। নীপার পুশিটা হাঁ করে রয়েছে, আমি নুনুটা শক্ত করে ধরে ওর পুশির গর্তে রাখলাম, মুন্ডিটা সামান্য ঢোকালাম, নীপা কোন সাড়া শব্দ করলো না। আমি ওর দিকে তাকালাম, মিটি মিটি হাসছে।
তুমি পাকা খেলোয়াড় নও।
খেলার মাঠ পেলে তো পাকা খেলোয়াড় হবো।
আমি মুন্ডিটা ঢোকাচ্ছি বার করছি। নীপা হাসছে, সজোরে একটা চাপ দিলাম, আমার নুনু নীপার পুশিতে অনেকটা ঢুকে গেলো, নীপা মাগো বলে কঁকিয়ে উঠলো, সজোরে মাথা দোলাচ্ছে, আমি ওর শরীরের ওপর শুয়ে পরলাম , ওকে জাপ্টে ধরে আস্তে আস্তে চাপ বারালাম, নীপা ওক করে উঠলো। আমার হাত দুটো শক্ত করে ধরলো, আমি ওর ঠোঁটে ঠোঁট রাখলাম, নিমেষে নীপা আমার জিভটা ওর মুখে পুরে নিয়ে চুক চুক করে চুষছে, আমি কোমর দুলিয়ে পুরো নুনুটা ওর পুশির মধ্যে সেঁদিয়ে দিলাম। নীপা থিরি থিরি করে কেঁপে উঠলো। ওর চোখে চোখ রাখলাম, জল টল টল করছে।
বার করে নিই, তোমার কষ্ট হচ্ছে।
নীপা মুখে কোনো কথা বললো না। আমার ঠোঁটে একটা চুমু খেয়ে বললো, না থাক। নীপা চোখ বন্ধ করলো, আমি ওর শরীরের ওপর শুয়ে আছি। মনে হচ্ছে আমার নুনুর গা দিয়ে উষ্ণ কিছু চুঁইয়ে চুঁইয়ে পরছে। এরি মধ্যে নীপার হয়ে গেলো নাকি। ওকে ইশারায় বললাম, কি হলো। নীপার কোন সারা শব্দ নেই, আমি পুশির ওখানে হাত দিলাম, ভিঁজে ভিঁজে ঠেকছে, আঙুল লাগিয়ে চোখের সামনে আনতেই, ভয় পেয়ে গেলাম, রক্ত। ডগ ডগে লাল রংয়ের টাটাকা রক্ত আমি ভয় পেয়ে গেলাম, তাড়াহুড়ো করে ওর পুশি থেকে আমার নুনু টেনে বার করলাম, আমার নুনু লালা হয়ে গেছে, গেঞ্জিটা নিয়ে ওর পুশির মুখে চেপে ধরলাম, গেঞ্জিটা লাল হয়ে গেলো, নীপা স্থানুর মতো শুয়ে আছে। আমি ছুটে গিয়ে মিটসেফের ওপর থেকে জলের জকটা নিয়ে এলাম, সামান্য জল হাতে নিয়ে ওর মুখে চোখে ছিটে দিলাম, নীপা চোখ খুললো, হাসছে। আমার মুখ থেকে খালি একটা কথাই বেরোলো, রক্ত।
নীপা বুঝতে পেরেছে, আমি ভয় পেয়েগেছি, ও উঠে বসলো, গেঞ্জিটা আর একটু চেপে ধরলো, আমার দিকে তাকিয়ে মিটি মিটি হেসে বললো, বীরপুরুষ।
আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি।
দিলে তো আমার কুমারীত্ব ঘুঁচিয়ে।
আমি এই রকম সিচুয়েশনে আগে কখনো পরি নি। নীপা মাথা নীচু করে ওর পুশি মুছছে, আমি ওর পাশে বসলাম, গেঞ্জিটা লালা হয়ে গেছে, টাটাকা রক্তের রঙে লাল। আমি নীপার পাশে গিয়ে বসলাম, আমার নুনু নেতিয়ে নেতা হয়ে গেছে। নীপা গেঞ্জিটা পুশির ওপর রেখে আমাকে জাপ্টে ধরে ঠোঁটে চুমু খেলো।
এই টুকুতে ভয় পেয়ে গেলে, তুমি না আরো শক্ত কাজ সহজে করে ফেলো।
আমি ওর দিকে অবাক দৃষ্টিতে তাকালাম, নীপার কোন বিকার নেই।
নীপা , নীপা, ও নীপা ওঠ চারটে বেজে গেছে, রেডি হতে হবে না।
নীপা আমার দিকে তাকালো। ঠোঁটে আঙুল রাখলো, অর্থ চুপ ,কোন সাড়া শব্দ নয়।
অনি, অনি ও অনি ওঠ বাবা, ভোর হয়ে গেছে।
আমি নীপার দিকে তাকালাম। ও ইশারায় বললো জানলাটা খোল।
মাথার শিয়রের জানলাটা খুললাম পূব আকাশ ফর্সা হয়ে এসেছে, কাকীমা নিচে দাঁড়িয়ে আছে, অনি বাবা নীপাকে একবার ডাক, আমরা তৈরি হয়ে গেছি।
ঠিক আছে যাও ডেকে দিচ্ছি।
কাকীমা চলে গেলেন।
জানলা থেকে আমি ঘুরতেই নীপা আমার বুকের ওপর ঝাঁপিয়ে পরলো, গর্ধব কোথাকার, ওই সময় কেউ টানা হেঁচড়া করে বার করে, জীবনে প্রথম সুখ উপভোগ করছিলাম।>
আমি ওর দিকে তাকিয়ে ছিলাম। আমার নাকটা টিপে ধরে বললো, করতেই জানে না, খালি বলে করবো করবো। ভ্যাবলার মতো তাকিয়ে কি দেখছো, তোলা থাকলো, আগামী রাতে কাজটা শেষ করতে হবে।
আমি নীপার পুশির দিকে তাকালাম, গেঞ্জিটা খশে পরেছে, পুশির রং এখন লাল ডগে ডগে সূর্যের মতো।
সবাই ঠিক ঠাক সময়ে এসেছে,খালি দিবাকর আসেনি, আমরা সকলে বারান্দায় বসে চা খাচ্ছি নীপা চা দিয়ে গেছে, চিকনা বললো, হ্যাঁরে অনাদি দিবাকর কোথায়।
অনাদি বললো আমি কি জানি, কালকে সকলের সামনেই তো কথা হলো।
সে গো মারানি।
আমি চিকনার দিকে তাকলাম।
সরি , তুই বল অনি, আজকে ওর গাদন দেবার দরকার পরলো।
ওকি তোর কথা বুঝতে পারবে। সঞ্জীব বললো।
তাও তো ঠিক। ভানুর দিকে তাকিয়ে বললো, হ্যাঁরে গোরা এসেছে।
কাল রাত থেকে এখানে এসে বসে আছে। ভানু বললো।
আরও কয়েকট নতুন ছেলে এসেছে, আমি চিনতে পারলাম না, চিকনাকে বললাম ওরা কারা।
অনাদির কালেকসন।
আমি কথা বারালাম না। অনাদিকে বললাম বাড়িতে কারা থাকবে।
তোকে চিন্তা করতে হবে না।
ঠিক আছে।
গাড়িটা মোরাম রাস্তায় আছে, অনাদি বললো তিনটে বাইকে করে কাকীমা কাকাদের পাঠিয়ে দিই তারপর আমরা যাবো।
কয়েকজন হেঁটে চলে গেলো, আমি অনাদি , চিকনা, সঞ্জীব, বাসু বেঞ্চে বসে আছি, ওরা সবাইকে একে একে নিয়ে গেলো, নীপাকে বললাম, মোবাইলটা একটু দাও, নীপা মোবাইলটা দিয়ে গেলো, চিকনা বললো, কিরে তুই রেডি হলি না। নীপা বললো এখুনি হয়ে যাবে। নীপা ভেতরে চলে গেলো, আমি সঞ্জীবের দিকে তাকিয়ে বললাম, সিমটা খুলে এই সিমটা লাগা।
এ্যাকটিভেট হয়ে গেছে।
হ্যাঁ।
দেখছিস এই হচ্ছে সঞ্জীব।
বোকাচোদা। চিকনা বললো।
এদের কাছ থেকে কোন দিন ভাল কাজ করে ভাল কথা শুনবি না, খালি খিস্ত খিস্তি।
আমি হাসলাম।
হায় হায় কত মিসকল।
কার।
তোর।
দেখি দে।
দেখলাম অনেক মিশ কল তার মধ্যে বড়মা, মিত্রারও আছে। বুঝলাম ওরা বেরিয়ে পরেছে।
তোদের বাইক গুলো কে চালাবে।
কেনো।
ভাবছিলাম। ওই ছেলে গুলো যদি বাইক গুলো নিয়ে যেতো তাহলে আমরা একটা গাড়িতে সবাই যেতাম।
বাসু আমার মনের কথা পরতে পারলো, ও অনাদিকে বললো বাইকে করে ওদের চলে যেতে বল, ভানুকে কাকার গাড়িতে বসতে বল। নীপাকি ওই গাড়িতে যাবে।
না। আমাদের সঙ্গে যাবে। আমি বললাম।
ঠিক আছে। চিকনা তোর বাইকটা।
পোঁদপাকাটাকে দিস না, বিজনকে দে ।
বাসু বললো ঠিক আছে।
অনাদি বাসুর কথা মতো সব ব্যবস্থা করলো। নীপা আজ নতুন শালোয়ার পরেছে, বেশ সুন্দর দেখতে , চিকনের কাজের ওপর, বাসু যে এত সুন্দর শালোয়ার রাখতে পারে আমার জানা ছিল না। নীপাকে মানিয়েছেও বেশ, বাসন্তী কালারের ওপর বেদনা রংয়ের শুতো দিয়ে কাজ করা।
বাবাঃ , বহুত মাঞ্জা দিয়েছিস। চিকনা বললো।
নীপা চিকনার দিকে একবার তাকালো।
না দিদিভাই , অন্যায় হয়েছে , আর হবে না।
হ্যাঁরে সঞ্জু চিকাটা সবার পেছনে লাগে ……..
হারামী।
তোর বাবা ঘরামী।
ওঃ তোরা কি এখনো সেই ফাইভের ছেলের মতো।
কি করি বল অনি সারাদিন হাড়ভাঙা খাটুনি আর এই টুকু ।
নীপার দরজায় তালা দেওয়া শেষ হলো। চিকনার দিকে তাকিয়ে বললো, আমি রেডি, অনাদি বললো চল। আমি অনাদির দিকে তাকিয়ে বললাম, তোর লোক কোথায়।
ওঃ তোকে বলেছি না, ঠিক সময় চলে আসবে।
আমার পায়ে পায়ে মোরাম রাসতার কাছে চলে এলাম, অনাদি একটু আগে আগে হাঁটছে আমার পাশে নীপা, বাসু, পেছনে চিকনা সঞ্জীব। চিকনা সঞ্জীব খুনসুটি করেই চলেছে, বাসু আমার দিকে তাকিয়ে বললো, হরিহর আত্মা, একদিন দেখা না হলে দুজনে পাগল হয়ে যাবে, ওরা আমাদের অক্সিজেন।
হাসলাম।
গাড়ির সামনে থেকে একটু হই হই আওয়াজ পাচ্ছি, বাসু বললো স্যারের গলা, খেপেছে। পা চালিয়ে তাড়াতাড়ি গাড়ির কাছে এলাম।
ওই তো অনি এসেছে। অনাদি বললো।
এসেছে। কাকা আমার আসায় আশ্বস্ত হলেন।
কি হলো।
স্যার তখন থেকে খালি অনি অনি করছে। আমি কাকাকে বললাম কি হয়েছে।
না কিছু হয় নি। তুই আসলি না এরা কি এসব পারবে।
খুব পারবে, ওরাও তোমার ছাত্র।
ফ্যাল ফ্যাল করে কাকা আমার দিকে তাকালো।
ঠিক আছে তোমাকে ব্যস্ত হতে হবে না, আমি নীপাকে নিয়ে পেছনের গাড়িতে বসছি ভানু ,পাঁচু তোমার গাড়িতে বসছে।
ঠিক আছে।
গাড়ি ছারলো, আমি নীপা পেছনে, মাঝে বাসু, সঞ্জীব , অনাদি, সামনে চিকনা , পচা।
কিরে অনি তোর কি টেনসন হচ্ছে।
কেনো।
চুপচাপ।
না।
নীপা ফিক করে হাসলো।
কিরে নীপা হাসলি কেনো। চিকনা বললো।
বীরপুরুষ।
বুকটা ধক করে উঠলো। নীপা এখানে বে ফাঁস কিছু বলে ফেলবে না তো।
কে।
কে আবার।
কেন কি হয়েছে।
আমি নীপার দিকে তাকালাম, চোখ পাকাচ্ছে। কাল সারারাত বারান্দায় পায়চারি করেছে, আর সিগারেট খেয়েছে।
হ্যাঁ, টেনসন তো একটু থাকবেই। অনাদি বললো।
ফোনটা বেজে উঠলো। দেখলাম অমিতাভদার ফোন।
হ্যাঁ বলো, কোথায় তোমরা।
আমরা পৌঁছে গেছি।
তার মানে।
গারল কোথাকার একটা কান্ডজ্ঞান নেই। কটা বাজে দেখেছিস ঘরিতে।
ঘরি নেই।
সেই জন্য। ধর কথা বল। বড়মার গলা।
কাল সারারাত ঘুমোও নি নাকি।
খুব ভাল ঘুমিয়েছি।
তাহলে এত সকালে পৌঁছলে কি করে।
অনাদি , বাসু , নীপা আমার দিকে তাকিয়ে।
আমরা কাল রাতে এসেছি।
তার মানে।
হ্যাঁ। তুই আয় সব বলবো।
ঠিক আছে।
আচ্ছা পাগলদের নিয়ে আমি পরেছি।
কি হলো।
দাদারা কাল রাত থেকে এসে আছেন, বোঝ।
অনাদি আমার দিকে তাকালো, কাল রাতে। থাকলো কোথায়?
ওনার থাকার জায়গার অভাব ।
ঠিক বলেছিস।
আমি মানি পার্স থেক অনাদির হাতে চারটে পাঁচশো টাকার নোট দিয়ে বললাম, এটা রাখ, প্রয়োজনে চেয়ে নিবি, পৌনে সাতটা নাগাদ পৌঁছলাম। অনাদির চেলুয়া গুলো আমাদের বেশ কিছুক্ষণ আগেই পৌঁছে গেছে। অনাদি নেমে আগে চলে গেলো। রিসেপসনিস্ট কাউন্টারে গিয়ে বলতেই, ভদ্রমহিলা কাউন্টার ছেরে ছুটে ভেতরে চলে গেলেন।
নার্সিং হোমের ক্যামপাসটা বেশ বড়, কালকে তাড়াহুড়োর চোটে কিছু দেখা হয় নি। পেছনের দিকে স্টাফ কোয়ার্টার আছে। এই রকম অজ জায়গায় সাজানো গোছানো একটা আধুনিক নার্সিংহোম থাকতে পারে আগে কখনো ভাবি নি। তবে এই যা বম্বে রোডের একেবারে গায়ে। কমিউনিকেসন খুব সুন্দর, অনাদি কাল যেতে যেতে বলেছিল, এই নার্সিংহোমটা এখন এই এলাকার হাসপাতাল, নীপা আর চিকনা কাকাকে ধরে ধরে ভেতরে আনলো। সোফায় বসালো। অনাদি বললো ভদ্রমহিলা গেলেন কোথায় বলতো।
কিছুক্ষণ পরে দেখলাম, ভদ্রমহিলা একজন স্যুট টাই পরা ভদ্রলোকের সঙ্গে বেরিয়ে এলেন। ভদ্রলোক এসে আমার নাম ধরে খোঁজ করলেন। আমি এগিয়ে গেলাম, আমার হাত ধরে বেশ কিছুক্ষণ ঝাঁকিয়ে ইংরাজীতে আমাকে জানালেন, উনি এখানকার ম্যানেজার, নাম মিঃ রঙ্গনাথন। বুঝলাম উনি সাউথ ইন্ডিয়ান, বাংলার বও জানেন না। কিন্তু কালকে এই ভদ্রলোক ছিলেন কোথায়? উনি আমাকে জানালেন , উনি আমাকে বিলক্ষণ চেনেন, তবে নামে, আমার লেখার উনি ভীষণ ভক্ত, কিছু বললাম না, আমি লিখি বাংলায়, ও বেটা পরে কি করে ? সন্দেহ ঠেকলো, মুখে কোন বহিঃপ্রকাশ করলাম না। হেঁসে হেঁসে আমিও তার প্রতি উত্তর দিলাম ইংরাজীতে, আমার সঙ্গে কুশল বিনিময়ের পর, কিছুক্ষণ ওনার সঙ্গে কাকার ব্যাপার নিয়ে কথা বললাম, কাকার ব্যাপারটা উনি পঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে আমার কাছে জানলেন, মনে হল ওনাকে ঠিক সেটিসফায়েড করতে পারলাম না, বললাম আপনি কাকার সঙ্গে কথা বলতে পারেন, উনি মাথা দুলিয়ে বললেন, ওটাই ঠিক, যা কথা হচ্ছে সব ইংরাজীতে, নীপা আর বাসু আমার দুপাশে , তার পাশে অনাদি আর চিকনা। ওরা আমার দিকে বিস্ময়ের দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে আছে। আশেপাশে বড়মা, ছোটমা, মল্লিকদা, মিত্রা কাউকে দেখতে পেলাম না।
কাকার সামনে গিয়ে কাকাকে দেখলেন, ইংরাজীতে দুচারটে কথা জিজ্ঞাসা করলেন, আমি দোভাষীর কাজ করলাম। তারপর রিসেপসন কাউন্টারে গিয়ে রিসেপসনিস্ট ভদ্রমহিলাকে কি যেন বললেন, উনি একটা চেয়ার নিয়ে এলেন। কাকাকে চেয়ারে বসিয়ে ভেতরে নিয়ে যাওয়া হলো। আমার দিকে তাকিয়ে বললেন , ওনার কেবিন নম্বর এস-৬।
অনিকে বললাম, এরা টাকার কথা কিছু বললো নাতো, কালকে বলেছিলো, ব্যালেন্স টাকাটা ভর্তি হওয়ার আগে দিয়ে দিতে হবে, ব্যাপারটা ঠিক বোধগম্য হচ্ছে না। অনাদি আমার মুখের দিকে তাকিয়ে আছে।
কি হলো।
দাঁড়া হজম করতে বেশ কষ্ট হচ্ছে।
হাসলাম।
তুই শালা পেঁয়াজ।
কি করে বুঝলি।
খালি খোসা ছাড়িয়ে যেতে হবে, আসল মালটা অনেক ভেতরে।
নীপা হাঁ করে তাকিয়ে আছে। আমার একটা হাত চেপে ধরে আছে।
ছার ও সব কথা। কলকে এই ভদ্রলোক ছিলেন কোথায়।
সে তো আমিও বুঝতে পারছি না।
মনে হচ্ছে এর মধ্যে কোনও একটা খেলা চালু হয়েছে।
বাসু আমার দিকে তাকালো, তুই ভাল বুঝতে পারবি আমাদের থেকে।
চিকনার দিকে তাকিয়ে বললাম, ভ্যাবলার মতো তাকিয়ে আছিস কেনো, ছেলেগুলো এসেছে অদ্দূর থেকে ওদের কিছু খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা কর।
ওই দায়িত্বে পচা আছে, তোকে ভাবতে হবে না। আমি তোর কাছ ছারা হচ্ছি না।
সঞ্জীব কোথায়।
বাইরে আছে।
চল একবার গিয়ে কেবিনটা দেখে আসি।
পায়ে পায়ে ভেতরে গেলাম। করিডোরের সামনের ঘরটাই এস-৬ কেবিন। কালকে কেবিনের পয়সা আমার কাছ থেকে নেয়নি তো! যাক এখন এই নিয়ে ভাবতে চাইলাম না, কাকা বিছানার ওপর হেলান দিয়ে শুয়ে আছে, কোমর থেকে মাথা পর্যন্ত তোলা। কাকীমা বললেন, তোর কাকাকে ইঞ্জেকসন দিয়ে গেলো, বললো ৯.৩০ অপারেশন, কাকীমা আমার হাত দুটো মুঠো করে ধরলেন, ও অনি……কাকীমার চোখে জল।
কাঁদছ কেনো। সব ঠিক হয়ে যাবে। দেখবে কাকা এবার চশমা ছাড়াই দেখতে পাবে। এখানে কাঁদতে নেই, লোকে কি ভাববে।
অনাদি বললো, অনেক দিন আগে এই রুমটায় ঢুকেছিলাম, মানসদাকে দেখতে, এটা ভিআইপিদের রুম।
আমি ঘরের চারিদিকে একবার চোখ বোলালাম, ঘরের ডেকরেশন তাই বলে। কিন্তু অমিতাভদারা গেলেন কোথায়, বললেন কাল রাত থেকে এসে বসে আছেন। ঘরটা এসি, বেশ ঠান্ডা লাগছে, কাকা কেমন গুটি সুটি মেরে গেছেন, রুম সার্ভিস বেলটা বাজালাম, সঙ্গে সঙ্গে একজন নার্স এসে হাজির, ইংরাজীতেই তাকে বললাম, এসিটা একটু বন্ধ করে দিতে, মেয়েটি বললো, কমিয়ে দিচ্ছি স্যার বন্ধ করা যাবে না। ঠিক আছে। মেয়েটি এসির টেম্পারেচার বারিয়ে দিয়ে চলে গেলো।
পাঁচু ছুটতে ছুটতে ঘরে এলো, অনি অনি চল চল পঙ্খীরাজ গাড়ি করে কারা যেন এসেছে, তোকে খোঁজা খুঁজি করছে, বুঝলাম সাহেবরা এসেছেন, কাল চলে এসেছেন, তাহলে এতো দেরি, নীপা আমার হাতটা শক্ত করে ধরেছে, চিকনাকে দেখতে পেলাম না, অনাদি এবং বাসু সঙ্গে আছে।
কাকাকে বললাম, দাঁড়াও আমি আসছি।
কাকা বললেন যাও।
আমি ঘরের বাইরে এলাম, দেখলাম রঙ্গনাথন ওদের সঙ্গে করে নিয়ে আসছেন, সামনে মল্লিকদা, সবার পেছনে, মিত্রা। মিত্রার দিকে তাকিয়ে অবাক হয়ে গেলাম, কপালে ডগ ডগ করছে সিঁদুর, ঠোঁটে লাল লিপস্টিক, একটা সাদা চিকনের সালোয়ার পরেছে, মনে হচ্ছে কোন বুটিক থেকে আনানো, সচর আচর এগুলো চোখে পরে না, ওকে আজ সৌম্য শান্ত দেখাচ্ছে, ওর উগ্রতা আজ উধাও, সেজেছে, কিন্তু সেই সাজার মধ্যে মনহারিনী ব্যাপার আছে।
আয়া পরসি। মল্লিকদা বললেন।
নীচু হয়ে প্রণাম করলাম। আমার দেখা দেখি, সকলে প্রণাম করলো।
অনি , লাইফে প্রেথম প্রেণাম পেলাম তোর কাছ থেকে।
প্রেথম না প্রেথ্থম। বাঙাল ভাষাটাও সঠিক ভাবে বলতে পারো না।
সবাই হেসে উঠলো।
দিলি তো ।
আমি সবার সঙ্গে একে একে পরিচয় করিয়ে দিলাম, মিত্রা নীপাকে কাছে টেনে নিল, ছোটমার দিকে তাকিয়ে, নীপার গালে হাত দিয়ে বললো কি মিষ্টি দেখতে। বড়মা আমার গায়ে মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বললেন, কিরে এরি মধ্যে মুখটা কেমন যেন শুকিয়ে গেছে। আমি বললাম এই শুরু করলে আবার, এই জন্য আসতে বারন করেছিলাম, ঠিক আছে ঠিক আছে আর বলবো না। ছোটমা চোখে মুখে কথা বলছেন, নীপার দিকে তাকিয়ে ইশারা করে বললেন এখানে এসেও সখী জুটিয়ে নিয়েছো।
হাসলাম।
ভেতরে গেলাম, কাকা, কাকীমা, সুরমাসির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিলাম, ওরা সকলে সকলের কুশল বিনিময় করলো, মিত্রা সবার পায়ে হাত দিয়ে প্রণাম করলো। ওরা প্রণাম কেউ নিতে চায় নি, মিত্রাও ছাড়ে নি। শেষে অমিতাভদা বললেন, অনি যেমন আপনাদের ছেলে ও তেমনি আপনাদের একটা মেয়ে। ও যখন প্রণাম করতে চাইছে ওকে করতে দিন।
আমি বললাম এবার চলো, এখানে বেশি ভির করে লাভ নেই। নার্সিং হোমের অন্যান্য পেসেন্ট পার্টিরা আজ যেন কেমন অচ্ছুত, সবার কনসেনট্রেসন, যেন আমাদের দিকে । করিডোরেবেরিয়ে এলাম, মিঃ রঙ্গনাথন আমায় ছুটতে ছুটতে এসে বললেন, স্যার আপনার একটা ফোন আছে।
আমার!
হ্যাঁ, স্যার, মিঃ ব্যানার্জী করেছেন।
মিঃ ব্যানার্জী!
রঙ্গনাথনের সঙ্গে মিত্রার চোখাচুখি হলো। আমি লক্ষ্য করলাম।
ফোনটা এসে ধরলাম।
হ্যালো।
অনি
হ্যাঁ।
তুমি খুব রাগ করে আছো মনে হচ্ছে।
কেনো।
সরি আজ আমি তোমার পাশে থাকতে পারলাম না।
তাতে কি হয়েছে।
আরে না না….
আপনাকে কে খবর দিলো?
মিত্রা কাল আমায় সব বলেছে।
এই ফোন নম্বর পেলেন কোথায়?
হাসলেন, এটা আমার নার্সিং হোম।
তাই নাকি।
বাঃ বাঃ তাহলেতো….
হ্যাঁ, হ্যাঁ, আমি ওদের সমস্ত ব্যবস্থা করতে বলে দিয়েছি। তোমায় একটুও টেনসন করতে হবে না।
না না আমি টেনসন করছি না।
শোন আমি ওদের সব বলে দিয়েছি, কলকাতা থেকে মিঃ রঙ্গনাথনকে পাঠিয়েছি, উনি কাকাবাবুর অপারেশন করবেন। তোমার কাছে আমি অনেক ঋণী , এটুকু ঋণ আমায় শোধ করতে দাও। মিঃ ব্যানার্জীর গলাটা ভারী হয়ে এলো।
এ আপনি কি বলছেন।
না না , সাক্ষাতে সমস্ত কথা বলবো।
ঠিক আছে।
একেবারে রাগ করবে না।
আচ্ছা।
ফোন রাখলাম।
অনাদিকে বললাম, দাদাদের জন্য একটু খাবার ব্যবস্থা কর।
আনাদি আমার দিকে তাকালো। আমি কেবিনে গেলাম, কাকাকে নিয়ে যাবার তোড়জোড় চলছে, পোষাক পরানো হয়ে গেছে। কাকা আমাকে ডাকলেন, সোফায় সবাই লম্বা হয়ে বসে আছে। আমি কাকার কাছে গেলাম, কাকা আমার হাত দুটো চেপে ধরলেন, অনি এতোদিন শিক্ষকতা করেছি, তোদেরও পরিয়েছি, রক্তের সম্পর্ক সবচেয়ে বড় সম্পর্ক, আজ অনুভব করছি, তারথেকেও বড় সম্পর্ক আছে, তুই তা প্রমান করলি, কাকা আমাকে বুকে জরিয়ে ধরলেন, কাকাকে সান্তনা দেবার ভাষা আমার নেই, চারিদিকে চোখ ঘোরালাম, থম থমে পরিবেশ, কাকীমা, সুরমাসি, নীপা কাঁদছে, মিত্রার একটা হাত নীপার কাঁধে।
ট্রলি এসে গেছে, ওরা কাকাকে নিয়ে যাবে।
আমি বললাম, এবার তোমরা সবাই বাইরে গিয়ে বসো, ওরা ঘর থেকে সবাই বেরিয়ে গেলো, নার্সকে কাছে ডেকে আস্তে করে বললাম, কাকা ইংরাজী ভাল বোঝেন, কিন্তু ফ্লুএন্টলি বলতে পারেন না, আপনারা একটু সাহায্য করবেন। নার্স মাথা দোলালো।
ওরা কাকাকে নিয়ে অপারেশন থিয়েটারে চলে গেলো।
আমি কাকীমার দিকে তাকিয়ে বললাম, চলো কিছু খেয়ে নিই।
মিত্রা বললো, চলো ওপোরে একটা রুম ঠিক করা আছে, ওখানে গিয়ে বসি।
তোরা যা আমি একটু খাবার ব্যবস্থা করে আসি।
ও অনি , আমরা খাবার নিয়ে এসেছি। বড়মা বললেন।
বড়মার দিকে তাকালাম।
হ্যাঁরে, কাল রাতে করেছি।
তোমরা কি রাতে ঘুমোও টুমোও নি।
হ্যাঁ।
করলে কখন।
মিত্রা আর ছোট করেছে।
আমি মিত্রার দিকে তাকালাম, মিত্রা নীপার হাত ধরেছে শক্ত করে।
তুই বিশ্বাস কর…..।
ঠিক আছে আমি ওদের একটু খাবার ব্যবস্থা করে আসি।
আচ্ছা।
দাদা গেলেন কোথায়।
ঐ তো রিসেপসনে বসে আছে। মিত্রা বললো।
ওদের ডেকে নিয়ে যাও।
মল্লিকদা দাদা রিসেপসনে বসে আছেন। দাদা কার সঙ্গে ফোনে কথা বলছেন। আমি কাছে যেতে বললো, একটু ধর, হ্যাঁ বল।
কি খাবে।
একটু চা বিস্কুট।
বড়মা খাবার নিয়ে এসেছেন।
হ্যাঁ , হ্যাঁ কালকে ওরা কি সব করছিল। তুই খাবি না।
গ্রামের ছেলে গুলো এসেছে ওদের একটু দেখে আসি।
যা, তাহলে।
একটু মিষ্টি পাঠিয়ে দিই।
সুগার ফ্রি।
না । মনে হয় পাব না। তবু দেখছি।
আন। দাদা আবার ফোনে কথা বলতে শুরু করলেন।
আমারে জিজ্ঞাসা করলি না। মল্লিকদা বললেন।
তোমারটা আমি জানি।
মিত্রাকে বললাম, তোমরা ওপরে গিয়ে বোসো, আমি আসছি।
ঠিক আছে।
আমি বাইরে বেরিয়ে এলাম।
অনাদি সমস্ত ব্যবস্থা করেছে, বাইরে বেরিয়ে এসে দেখলাম, তিনটে গাড়ি, তার মধ্যে একটি গাড়ি আবার সরকারী তকমা মারা, মানে এখানে এসে ফোন টোন করা হয়ে গেছে। আমাকে দেখেই চিকনা এগিয়ে এলো, গুরু তোমার পায়ের ধুলো একটু দাও।
অন্যান্য যে ছেলে গুলো এসেছিল, ওরা মুখের দিকে তাকায়, ওরা সব শুনে ফেলেছে, আমি চিকনার দিকে তাকিয়ে বললাম, একটা সিগারেট খাওয়া না।
চিকনা ছুটে চলে গেলো। অনাদি কাছে এলো, বাসু আমার ছায়া সঙ্গী, পচা , সঞ্জয় আমার কাছ ঘেঁসে দাঁরিয়ে মিটি মিটি চোখে আমায় দেখছে। ভানু কোথায় রে ? আমি বললাম। অনাদি বললো আশে পাশে আছে কোথাও। চিকনা একটা প্যাকেট নিয়ে এসেছে।
এক প্যাকেট। সঞ্জয় বললো।
এই শুরু করলি। আমি বললাম।
আচ্ছা আচ্ছা পরে হবে।
হ্যাঁ ঠেকে গিয়ে।
ঠিক আছে।
একটা সিগারেট নিয়ে চিকনার হাতে প্যাকেটটা দিলাম। সঞ্জয় বললো, দে একটা।
না।
কেনো।
গুরুর প্রসাদ। এখন নয় ফেরার সময়। এখন বিড়ি খা।
অনাদিকে বললাম, তুই বাইরেটা সামাল দে, আমি ভেতরটা সামাল দিই। আর শোন দাদা আর মল্লিকদার জন্য কিছু সুগার ফ্রি মিষ্টির ব্যবস্থা কর।
অনাদি আমার দিকে তাকিয়ে বললো, সুগার ফ্রি, পাবো তো।
বাসু বললো, স্টেশনের ধারে মা লক্ষীতে পাবি।
ফান্ড আছে তো। অনাদি মাথা নাড়লো, শেষ হলে চেয়ে নিস।
আচ্ছা।
অনাদি চিকনাকে সঙ্গে নিতে চাইলো, চিকনা বললো আমি গুরুর পাশে আছি, তুই সঞ্জয়কে সঙ্গে নিয়ে যা।
ও বললো ঠিক আছে।
চিকনাকে বললাম, চ একটু চা খাই।
আমি চিকনা, পাঁচু, পচা, বাসু সবাই । চিকনা চায়ের কথা বললো, ভদ্রলোক বললেন, একটু অপেক্ষা করুন, বানিয়ে দিচ্ছি।
বাসু বলল, হ্যারে অনি ওই ভদ্র মহিলা ওই কাগজের মালিক।
হ্যাঁ।
আর অমিতাভদাকে দেখলি, উনি এডিটর।
সত্যি কথা বলতে কি, আমার বিশ্বস হচ্ছে না।
না হওয়ারি কথা। ওর মধ্যে একটা ব্যাপার আছে, দেখন দরি নেই।
একেবারে খাঁটি কথা বলেছিস। কোটি কোটি টাকার মালিক…..
কোটি টাকা নয়, ঠিক এই মুহূর্তে ওর এ্যাসেটের ভ্যালু হাজার কোটি টাকা।
কি বলছিস।
ঠিক বলছি।
কি সাধারণ।
অনাদি আর সঞ্জয় এলো। অনাদি বললো তোরা বাইরে দাঁরিয়ে কেনো?
এমনি।
চল ভেতরে চল।
কেবিনের ভেতরে এসে বসলাম।
অনাদি বললো, এটা।
দিয়ে আয়।
অনাদি সঞ্জয়ের দিকে তাকালো।
তুই যা গুরু। ওখানে সব…..
অনাদি বেরিয়ে গেলো।
হ্যাঁরে দুটো করে মিষ্টি বলনা, সকলে খাই। আমার মুখ থেকে কথা সরলো না, তার আগেই, চিকনা অর্ডার দিলো। দেখলাম, অনাদির সঙ্গে নীপা আর মিত্রা আসছে। আমি উঠে দাঁড়ালাম, বাসুও আমার দেখা দেখি উঠে দাঁড়ালো, অনাদি হাত দেখালো, বুঝলাম, বিশেষ কিছু নয়, ওরা ভেতরে এলো।
কি হলো।
মিত্রাদি বললো তোমার কাছে আসবে।
ও এসো।
আমার পাশ থেকে বাসু উঠে গেলো। মিত্রা আমার পাশে বসলো, আর একপাশে নীপা বসলো। টেবিলের অপরজিটে বাসু অনাদি সঞ্জয়, চিকনা একটা চেয়ার টেনে এনে বসলো।
আর একটা টেবিলে ওরা সবাই বসলো।
খেয়েছো।
নীপ বললো, ছোটমা জোড় করে লুচি আলুরদম খাইয়েছে।
মিত্রাদি।
মিত্রাদিও খেয়েছে।
কি মিষ্টি খাবি।
নিয়ে আয়। চিকনাকে ইশারা করতে ও বলে দিলো।
সকলের টেবিলে মিষ্টি আসলো। বাসু অনাদি মিত্রাকে একা পেয়ে অনেক কথা বলার চেষ্টা করলো, মিত্রা কিছু উত্তর দিলো, বাকিটা আমায় দেখিয়ে দিলো, মিত্রা নীপার দিকে তাকিয়ে বললো, নীপা আমার ব্যাগটা দাও তো। নীপা মিত্রার ব্যাগটা এগিয়ে দিলো, ব্যাগ খুলে নীপা, একটা মোবাইল বার করলো।
এই নে তোর মোবাইল।
আমি হাতে নিলাম। দেখলাম সঞ্জয়ের চোখ জুল জুল করছে।
এত দাম দিয়ে কিনলি কেন।
তুই মোবাইল আনতে বলেছিস, দামের কথা কিছু বলিস নি তো।
তা বলে।
মিত্রা মাথা নীচু করে মিষ্টি ভেঙে খাচ্ছে, পকেটে হাত দিয়ে দেখলাম আমার মোবাইল নেই, আমার চোখ মুখ দেখে চিকনা বললো, মোবাইল তো।
হ্যাঁ।
আমার পকেটে।
তোর পকেটে মানে।
তুই যখন কেবিনে গেলি তখন আমার হাতে দিলি, তারপর ফোন বেজে উঠলো, ধোরলাম, কে হিমাংশু না কে ফোন করেছিল। পরে ফোন করুন বলে কেটে দিয়েছি, তারপর দেখলাম অনবরতো ফোন আসছে, বন্ধ করে পকেটে রেখে দিয়েছি।
সঞ্জয় চেঁচিয়ে উঠলো গা…..বাসু ওর মুখটা চেপে ধরলো, সরি বলে সঞ্জয় হেসে ফেললো, অতর্কিত এই ঘটনায় মিত্রা, নীপা মাথা নীচু করে ফিক ফিক করে হাসছে।
তোলা থাকলো। চিকনা বললো। এ অপমান আমি সইবো না, মনে রাখিস।
হ্যাঁ হ্যাঁ।
আমি তাকালাম। ওরা থেম গেলো।
সঞ্জয়কে বললাম ওই মোবাইল থেকে কার্ডটা এই মোবাইলে ভরে দে। পকেট থেকে আর একটা সিম বার করে বললাম, এই সিমটা এতে ভরে দিয়ে নীপাকে দে। মিত্রার দিকে তাকিয়ে বললাম, চার্জ দিয়ে নিয়ে এসেছিস।
হ্যাঁ।
চা খাবি।
হ্যাঁ।
হাসলাম।
হাসছিস কেনো।
এমনি।
চিকনার দিকে তাকাতে, দুটো এক্সট্রা বলা হয়ে গেলো।
দাদা মল্লিকদা কি করছেন।
দাদা এখানের সকলকে ফোন করে ফেলেছেন। সব চলে এলো বলে। মিত্রা বললো।
মানে।
মানে আর কি , তুই জিজ্ঞাসা করবি।
আমি।
হ্যাঁ।
তুই সম্পাদক, আর আমি জিজ্ঞাসা করবো।
মিত্রা আস্তে করে আমার হাতে চিমটি কাটলো। থেমে গেলাম। কানের কাছে মুখটা নামিয়ে এনে বললো, নীপা আছে, তুই একটু বাইরে চল, কথা আছে। আমি ওর দিকে তাকালাম, মিত্রা আমার চোখের ইশারা বুঝতে পারলো।
চা খাওয়া হতে সঞ্জয়ের কাছ থেকে মোবাইলটা নিলাম।
সঞ্জয় গদ গদ হয়ে বললো, গুরু অনেকদিনের সখ ছিল একটু ঘাঁটবো, ঘাঁটা হয়ে গেলো।
কি।
ব্ল্যাক বেরি।
ও।
তুই এক কাজ কর , নীপাকে একটু এই মোবাইলের অপারেটিং সিস্টেমটা শিখিয়ে দে, আমি একটু বাইরে যাচ্ছি, নীপাকে ইশারায় বললাম তুমি একটু বোশো।
মিত্রাকে নিয়ে বাইরে এলাম। মিত্রার গাড়ির কাছে গেলাম। ইসমাইল ছিলো গাড়ির দরজা খুলে দিলো। আমি মিত্রা গাড়ির ভেতরে বসলাম। সবাই দেখছে, দেখুক , এখন আমার আর কিছু যায় আসে না।
ইসমাইল বললো কোথায় যাবেন।
কোথাও না। তুমি খেয়েছো।
হ্যাঁ স্যার। ওই বাবু খাইয়েছেন জোর করে।
আচ্ছা। তুমি একটু চা খেয়ে এসো।
আচ্ছা স্যার।
ইসমাইল চলে গেলো।
মিত্রার দিকে তাকিয়ে বললাম, তোকে আজ খুব মিষ্টি দেখতে লাগছে।
তাই। যাক তুই সুন্দর বলেছিস, আমার ভাগ্যটা ভালো।
শোন, হিমাংশু কাল রেজিষ্ট্রির ডেট ঠিক করেছে, আমি ওকে অনেক বার বারন করেছিলাম, ও শোনে নি, কি সব প্রবলেম আছে বললো, তুই ওর সঙ্গে কথা বলে নে, তোকে এই মুহূর্তে কলকাতা নিয় যেতে চাই না, কিন্তু আমার কিছু করার নেই, তুই বরং সই সাবুদ করে কাল চলে আয়।
হিমাংশুকে ফোন করলাম, প্রথমেই ও কাকার কথা জিজ্ঞাসা করলো, ওকে সব বললাম, ও একি কথা বললো। মিত্রাকে বললাম, দাদাকে সব কথা বলেছিস।
দাদা সব জানে।
মিঃ ব্যানার্জী।
ও বলেছে তুই যা করবি তাই হবে।
তোরা সব আমার ঘারে ঠেলে দিচ্ছিস কেনো, নিজেরা কিছু কর।
তুই বইতে পারিস তাই।
কথা বারালাম না। বললাম, ঠিক আছে। যাবো।
বাসু জানলায় টোকা দিলো, বললো ভেতরে ডাকছে, অপারেশন হয়ে গেছে।
গাড়ি থেকে বেরিয়ে নার্সিংহোমের ভেতরে এলাম।
এখনো কেবিনে দেয় নি। সবাই নিচে চলে এসেছে, মিঃ রঙ্গনাথন আমাকে ডাকলেন, বললেন, সব ঠিক আছে, আমি যা করার করে দিয়েছি। তবে কাকাকে চশমা নিতে হবে। দীর্ঘদিন ক্যাটারাক থাকার ফলে, চোখটা একটু কমজোরি হয়ে গেছে, ও নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। বাহাত্তর ঘন্টা পরে ওরা পাওয়ার এবং চশমা দেবে। আমি বললাম, ভয়ের কিছু নেই তো। উনি বললেন একেবারে নয়, তবে বয়স হয়েছে, এটাতো আপনাকে মানতে হবে, আমি ওনার কথায় সম্মতি দিলাম, আর একটা কথা এই কদিন স্নান করা চোখে-মুখে জল দেওয়া চলবে না, আর দুপুরের দিকে উনি ছেড়ে দেবেন কাকাকে ।
কেবিনে এলাম, কাকাকে স্বাভাবিক দেখলাম, ছোটমা কাকাকে বললেন এই যে অনি এসেছে।
আমি কাকার কাছে গেলাম, কাকার চোখ ব্যান্ডেজ করা আছে, কালো চশমা লাগানো। আমার গায়ে মাথায় হাত বোলালেন, হাতদুটো থর থর করে কাঁপছে, ঠোঁটটা নড়ে উঠলো, কোন কথা বলতে পারলেন না। নিজের খুব খারাপ লাগছিলো, কিন্তু শক্ত হোলাম, এই সময় ভেঙে পরলে চলবে না। আমার একপাশে নীপা আর একপাশে মিত্রা। কাকার মাথায় হাত বুলিয়ে দিলাম, বললাম, এরা তোমায় বিকেলে ছেরে দেবে বলেছে।
বাইরে বেরিয়ে এলাম। মল্লিকদা পাশে এসে দাঁরিয়েছেন, কি হে শক্তিমান, লুজ হয়্যা যাইতেছ মনে হইতাছে, হাসলাম, ব্যাশ বুইঝা ফেলাইছি, বড়মা আমার হাতদুটো ধরে বললেন, দেখিস সব ঠিক হয়ে যাবে। আমি বড়মার দিকে তাকালাম। আমার ভাগ্যটা সত্যি খুব ভালো, না হলে এদের মতো এতো বড়ো বড়ো লোকজন আমার পাশে থাকবে কেনো। চোখ দুটো জ্বালা জ্বালা করছে।
কেবিনের বাইরে বেরোলাম, মিত্রা এসে পাশে দাঁড়িয়েছে, অনিরা সব কেবিনের বাইরে দাঁড়িয়ে আছে, আমাকে দেখে এগিয়ে এলো, কেমন আছেন স্যার, এখন ঠিক আছে, পায়ে পায়ে করিডোর দিয়ে এগিয়ে এলাম, ওরা আমার পেছন পেছন এলো। নার্সিংহোমের বাইরে এসে দাঁড়ালাম। চিকনাকে বললাম একটা সিগারেট বার কর, চিকনা একটা সিগারেট দিলো, কোন কথা বললো না। আমি অনাদিদের সব বললাম, নীপা কখন এসে পাশে দাঁড়িয়েছে জানি না। অনাদি মিত্রার দিকে তাকিয়ে বললো, ম্যাডাম অনি কয়েকদিন পরে গেলে হোতো না।
মিত্রা মাথা নীচু করে দাঁরিয়ে আছে।
অনি আমাদের বল ভরসা, ও থাকলে কোন কাজ আমাদের কাছে কঠিন বলে মনে হয় না।
মিত্রা মাথা নীচু করে আছে, ওরা জানে না, মিত্রারও একি অবস্থা।
বাসু বললো, ও তো আজ গিয়ে কাল আবার ফিরে আসছে। আমরা…..
চিকনা আর সঞ্জয় বললো কয়েক ঘন্টার তো ব্যাপার আমরা পালা করে….
সেটা নিয়ে তো ভাবছি না। যদি কোন প্রবলেম হয়।
গোরার গাড়িটা রেখে দে। এখানে নিয়ে চলে আসবি।
মিত্রা বললো আমার গাড়িটা রেখে যাবো।
অনাদি বলে উঠলো পাগল নাকি, আপনার গাড়ি পাহারা দেওয়ার আবার লোক ঠিক করতে হবে। গাঁইয়া ভূত সব।
ভানু বললো ওটা নিয়ে তোকে ভাবতে হবে না।
নীপা বললো, অনাদিদা , দাদা যখন বলছেন যাক না, আমি তো আছি।
হ্যাঁ তোকেই তো সব করতে হবে, আমরা সব পাহারাদার।
স্যারকে বলেছিস।
বলিনি, বলবো।
দেখ, স্যার তোকে ছাড়া এই মুহূর্তে কারুর কথা পাত্তা দেবে না।
সব বুঝলাম , কিন্তু আমি না গেলে হবে না।
নীপা বললো, তুমি যাও অনিদা, আমি বলছি, সব সামলে নেবো, তুমি দেখবে, আর না হলে তোমার নাম করে ভয় দেখাবো, তাতেই কাজ হয়ে যাবে।
সবাই নীপার কথায় হো হো করে হসে ফেললো।
একটু বেলায় অনেকেই এসেছিলেন, অমিতাভদার সঙ্গে দেখা করতে, তারাও কাকাকে দেখে গেলেন। আমার সঙ্গেও পরিচয় হলো, কিন্তু আমি যে এখানকার ছেলে তারা এই প্রথম জানলেন।
ভেবেছিলাম কাকা আমাকে কিছু বলবেন, দেখলাম, কাকাই আমাকে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে যেতে বললেন, সুরমাসি, কাকীমা একটু কিন্তু কিন্তু করছিলেন, কাকা ধমকে উঠলেন, আমি তো ঠিক আছি, ওর কি কোন কাজ কর্ম নেই, খালি এখানে বসে থাকবে। কেউ আর কিছু বললো না।
বেড়োতে বেড়োতে বিকেল হয়ে গেলো, কাকাকে এবার কাউকে ধরতে হোলো না, কাক নিজে নিজেই গাড়িতে এসে বসলেন, মনের দিক থেকে কাকাকে অনেক বেশি ফিট মনে হলো। ওদের ছেড়ে দিয়ে আমরা বেরোলাম, আমি মিত্রার গাড়িতে উঠলাম, অমিতাভদারা, ওদের গাড়িতে।
কলকাতায় পৌঁছলাম সাতটা নাগাদ, দাদার বাড়িতে কিছুক্ষণ কাটিয়ে মিত্রার রিকোয়েস্টে ওদের বাড়িতে এলাম।
মিত্রার বাড়িতে এসে ফ্রেস হয়ে, দুজনে রাতার খাওয়া খেয়ে নিলাম, মিত্রা আসার সময় বিরিয়ানী কিনেছিল, আমি বারন করেছিলাম, বললো এখন গিয়ে আর করতে ভাল লাগবে না, বরং চল কিনে নিয়ে যাই খেয়ে নেবো, তাই করলাম, বিরিয়ানী, আর বাটার চিকেন, খাওয়ার পর দেখলাম শরীর আর বইছে না, মিত্রার ঘরে বসে নিউজ চ্যানেল দেখছিলাম, কটা বাজে ১১টা হবে, এরি মধ্যে বার কয়েক নীপাকে ফোন করে খবর নিয়েছি, কাকার সঙ্গেও কথা বলেছি, নীপার একটু অভিমান হয়েছে, কি আর করা যাবে। মিত্রা এলো আরো আধঘন্টা পরে, বুঝলি সারাদিন ছিলাম না, একেবারে সব লন্ডভন্ড করে রেখেছিলো, লোক দিয়ে কাজ করানো যে কি ঝকমারি তোকে কি বোলবো।
মিত্রার দিকে তাকালাম, সকালের মিত্রা আর এখনকার মিত্রার মধ্যে আকাশ পাতল পার্থক্য। ফিনফিনে একটা ব্ল্যাক কাপারের নাইট গাউন পরেছে, পরা না পরা দুই সমান। আমি ওর দিকে তাকালাম। ও আমার পাশে এসে বসলো।
কি দেখছিস।
বিবিসি, সিএনএন অল্টারনেট করে দেখছি। আমার বিছানা রেডি।
তোর ! কেনো।
কোথায় শোব?
এখানে, আপত্তি আছে।
ওর দিকে তাকালাম।
ও সব নিয়ে কিছু ভাবিস না।
মিত্রা আমার কাঁধে মাথা রাখলো।
তোর সোফাটা বেশ আরামদায়ক, তুই সোফার ওপাশে একটু হেলান দিয়ে বোসতো।
কেনো?
বোস না।
মিত্রা সরে গিয়ে হেলান দিয়ে বসলো, আমি ওর নরম কোলে মাথা দিয়ে শুলাম।
এই জন্য, বদমাশ।
মাথাটা একটু টেপ, ভীষণ যন্ত্রনা করছে।
পারবনা যা, আমি কি তোর বউ।
তোর সমস্ত দায়িত্ব আমাকে অর্পন করা হয়েছে।
মিত্রা একবার আমার দিকে তাকালো, পারবি আমার ভার বইতে।
দিয়েই দেখ না।
দিয়ে তো দিয়েছি, তুই নিচ্ছিস কোথায়।
নেবো নেবো, এত তাড়াহুড়ো করছিস কেনো।
আমার তো বেলা বয়ো যায়।
না না ধরে রাখার চেষ্টা কর।
একি ধরে রাখা যায়।
যাবে যাবে, সময়ে সব হয়। মিত্রা মাথায় বিলি কাটতে আরম্ভ করলো, আমার চোখ বুজে আসছে।
একটা কথা বলবো।
বল।
রাগ করবি না।
না।
সারাদিন খুব স্টেইন গেলো, একটু ড্রিংক করবি।
আমি ওর দিকে তাকালাম।
আমি তোকে রিকোয়েস্ট করবো। দেখবি উপকার পাবি।
আমি ওর চোখে চোখ রাখলাম।
আমি জানি তুই এসব পছন্দ করিস না। তবু তোকে বলছি। আর কোনদিন বলবো না।
ওর বলার মধ্যে এমন একটা জোর ছিল , আমি না বলতে পারলাম না।
ও হেসে ফললো। মুহূর্তের মধ্যে সব রেডি করে ফেললো।
বেশি দিস না।
না, মাত্র দুপেগ।
তুই জানিস, আমি এর বিন্দু বিসর্গ বুঝি না।
ঠিক আছে, অসুবিধে হলে বলবি।
মুহূর্তের মধ্যে ও সব রেডি করে ফেললো, জানিস বুবুন, তুই যে দিন শেষ এসেছিলি, সেইদিন থেকে আমি আর ছুঁই নি।
তাহলে আজ খাচ্ছিস কেনো?
ইচ্ছে করছে।
ঠিক আছে, আর নয়।
প্রমিস করছি যদি খাই কখনোএকমাত্র তোর সঙ্গেই খাবো একা কোনদিন খাব না।
ও গ্লাসে করে সাজিয়ে দিল, দুজনে গ্লাসে গ্লাস ঠেকিয়ে শিপ করলাম। কেমন যেন একটা লাগলো, ওষুধ ওষুধ গন্ধ, কিন্তু বেশ মিষ্টি মিষ্টি স্বাদ। মিত্রা আমার দিকে তাকিয়ে হাসছে, আমার এক পেগ শেষ হতে না হতেই, ওর দুপেগ খাওয়া হয়ে গেলো।
কিরে এতো তাড়া তাড়ি। আর খাবি না।
আর এক পেগ, প্লিজ।
মিত্রা সোফার অপজিট থেকে এসে আমার কাছ ঘেঁসে বসলো। পাখাটা একটু চালাই।
আস্তে করে।
মিত্রা ফিরে এলো, একটু টাল খেলো যেনো, আমি উঠতে যাচ্ছিলাম, ও হাত দেখিয়ে বসতে বললো। এমন ভাবে বসলো যেন আমার কোলে বসে পরবে, দুহাত দিয়ে আমার গলা জরিয়ে ধরলো।
জানিস বুবুন, আমার হাজবেন্ডটা একটা বাস্টার্ড।
চমকে উঠলাম। আমি ওর চোখে চোখ রাখলাম, মিত্রার চোখ অন্য কথা বলছে। আমার কোন সেনসেসন এখনো হয় নি।
ও আর একটা মেয়েকে নিয়ে থাকে, আমি ওর কেপ্ট।
থামবি।
মিত্রা হাসছে। ভাবছিস আমি মাতাল। না। ও তোর আমার ব্যাপারে সব জানে। কিন্তু কিচ্ছু করার নেই। সেই জন্য তোকে সে দিন অমনি ভাবে সব কথা বলেছে। তোর শেষ হয়ে গেছে। দাঁরা আর একটা পেগ তোকে দিই।
না।
প্লিজ তুই না করিস না। মাত্র একটা। তুই একটা আমি একটা। বেশ।
আমি হার মনলাম। মিত্রার এরিমধ্যে তিনটে পেগ খাওয়া হয়ে গেছে।
ও কি ভাবে, ওর দয়ায় আমি বেঁচে আছি, ওর যা কিছু প্রতিপত্তি দেখছিস সব আমার বাবর জন্য। ওকে বিয়ে করে তোকে ভোলার চেষ্টা করেছিলাম, কিন্তু পারি নি, তবু মানিয়ে চলার চেষ্টা করলাম, ছয় মাসের মধ্যে সব জানতে পারলাম, সেই সময় তোকে অনেক খোঁজার চেষ্টা করেছি, কিন্তু পাই নি। আমার বাবা মা খালি আমার কথা ভেব ভেবে মারা গেলেন, এক মাত্র মেয়ের এ কি হাল, তবু বাবার অনেক পয়সা ছিল তাই বেঁচে গেলাম, তারপর পরিবেশ পরিস্থিতি আমাকে তৈরি করে দিয়েছে, বাব তোকে খুব ভালবাসতেন, মারা যাবার আগে আমায় বলেছিলেন, অনি যদি তোর কাছে কোনদিন ফিরে আসে ওকে ফিরিয়ে দিস না। বাবা তোকে চিনেছিলেন, মা নয়। মিত্রা থামলো, গ্লাসটা মুখে তুলে নিল, এক নিঃশ্বাসে জলের মতো ঢক ঢক করে বেশ কিছুটা খেলো, তারপর গ্লাসটা টেবিলে নামিয়ে রেখে বললো,
এল আর ডিসগা…..
মিত্রা আমার কাঁধে মাথা রখলো। কাঁধটা ভিঁজে ভিঁজে ঠেকলো, মিত্রা কাঁদছে, ওর মাথাটা আমার কোলে রাখলাম, মাথায় হাত বুলিয়ে দিলাম।
আমার এখন দুচার পেগে কিছু হয় না বুঝলি বুবুন, আকন্ঠ খেলে তবে তৃপ্তি পাই।
আমার মাথাটা ঝিম ঝিম করছে। আমি ওকে ধরে ধরে বিছানায় নিয়ে গেলাম। বালিশটা ওর মাথায় দিয়ে শুইয়ে দিলাম। ওর পাশে বসলাম, মদ খাওয়ার কোন ফিলিংস আমার মধ্যে এই মুহূর্তে নেই। আমি মিত্রার পাশে আধ শোওয়া অবস্থায়, মিত্রা আমার আরো কাছে এগিয়ে এলো, বুকের কাছে মুখটা নিয়ে এসে বললো, একটু আদর করবি।
ওর চোখ ভাসা ভাসা, আমি ওর কপালে চুমু খেলাম, ও ঠোঁট দেখিয়ে ইশারা করছে।
থাক না আজ।
বিশ্বস কর বুবুন আমি মাতাল হই নি। তাকে দেখলেই খালি সেক্স করতে ইচ্ছে করে।
এটা ত্যাগ করতে হবে, মাথায় রাখবি আমিও একটা মানুষ।
জানি। মন মানে না।
মানাতে হবে। তোকে বিজনেস ম্যাগনেট হতে হবে।
ওর জন্য তুই আছিস।
আমি কতোক্ষণ।
তুই আমাকে ছেরে যাবি না।
কেনো।
আমি জানি, আমি যেমন তুইও ঠিক তেমনি।
কি রকম, আমাদের মনের মধ্যে একটা যাযাবর লুকিয়ে আছে।
সেটা তো ভাল।
ঠিক। তার খারাপ দিকও আছে।
ও গুলোকে শোধরাতে হবে।
তুই পাশে থাকলে হয়তো হয়ে যাবে।
সে তো আমি জানি।
ও আমার ডান হাতটা ধরে বুকে রাখলো, জানিস বিগত আট বছরে ওর সঙ্গে আট মাস ঘর করিনি। এই বাড়িটা এক সময় আমার মামার বাড়ি ছিল, মামাদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে রিপেয়ার করে নিয়েছি। বাবার খুব সখ ছিলো, এই রকম একটা বাড়িতে থাকবে।
ছিলেন।
হ্যাঁ, শেষের কয়েকটা দিন।
আর ওই বাড়ি।
জ্যাঠারা নিয়েছে।
নিয়েছে না , দিয়ে দিয়েছিস।
ওই হলো।
মিত্রা আমার মাথাটা টেনে নিয়ে ওর ঠোঁটে রাখলো, উষ্ণ ঠোঁটের ছোওয়ায় আমার গাছের পাতায় বাতাস লাগলো।
তোর ঠোঁটটা ভীষণ মিষ্টি মনে হয় সর্বক্ষণ তোর ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে শুয়ে থাকি।
তোর ঠোঁটটাও কম কিসে। একেবারে কমলালেবুর কোওয়ার মতো।
মিত্রা হাসলো, নারে ছেলেদের ঠোঁট এরকম হয় আমার জানা ছিল না।
জেনে নিলি তো।
এটা অনেকদিন আগে জানা উচিত ছিল, সেই কলেজ লাইফে।
সে দিন গুলোর কথা মনে পরলে হাসি পায়। একটা গ্রামের ছেলে, শহুরে আধুনিকার পাশে। (আমার হাত মিত্রার বুকের নাইট গাউন ধীরে ধীরে উন্মোচন করেছে, মিত্রা ঠোঁট দিয়ে আমার জিভ চুষছে, মাথাটা ঝিম ঝিম করছে, এই মুহূর্তে বেশ ভালো লাগছে, ) অনেক দিন ও সুযোগ দিয়েছে আমাকে কিন্তু আমি ওর দেহ স্পর্শ পর্যন্ত করিনি, মনের মধ্যে একটা দ্বৈত্বতা খেলা করতো সব সময়, না আমি গ্রাম থেকে এসেছি, আমায় কিছু করতে হবে। সবুজ মনে তখন অনেক সোনালি স্বপ্ন।
তুই পাঞ্জাবীটা খোল, আমি গাউনটা খুলে নিই, মিত্রা উঠে বসলো। এখন ওর মধ্যে কোন সঙ্কোচ নেই যেন আমরা স্বামী- স্ত্রী, পাখাটা বন্ধ করে দে, ঠান্ডা ঠান্ডা লাগছে, আমি উঠে গিয়ে পাখাটা বন্ধ করে দিলাম, একটা মিষ্টি গন্ধ চারদিকে ম ম করছে। বিছানায় উঠে এলাম, ওর পাশে শুলাম, মিত্রা আমার বুকে, একটা হাত আমার পাজামার ভেতর দিয়ে নুনুতে, এলো চুল চাদরের মতো দুপাশে ছড়িয়ে পরেছে। মিত্রার চোখ এই আধো অন্ধকার ঘরেও তারার মতো জল জল করছে।
তোর মাই দুটো খুব সুন্দর দারুন সেপ।
তোর এইটাও কম সুন্দর নয়, বলে আমার নুনুর জামা একবার টেনে খুলে আবার বন্ধ করলো।
আঃ।
লাগলো।
অতর্কিতে হানা দিলে একটু লাগবেই।
বদমাশ বলে আমার ঠোঁট চুষলো। মিত্রা চেয়ে আছে আমার দিকে, তোর শরীরটা ভীষণ লোভনীয়।
সব মেয়েরাই তাই বলে।
মিত্রা এক ঝটকায় উঠে বসলো, আর কারা কারা বলে, বল।
ওঃ সে কি মনে আছে, যাদের সান্নিধ্যে আসি তারাই বলে।
নাম কি বল, তাদের ফোন করে আমি বলে দেবো, আমার জিনিষে তারা যেন ভাগ না বসায়।
হাসলাম।
ভাগ বসালে কি হয়েছে। খোয়ে যাবে না কমে যাবে।
ওরে শয়তান, গাছেরও খাবে আবার তলারও কুরোবে।
গাছ আর তলা যদি দুই পাওয়া যায় খতি কি।
মিত্রা হঠাত গম্ভীর হয়ে গেলো, ঠিকই তো , আমার কি বা আছে , তোকে ধরে রাখবো। যা পাওয়া যায় তাই লাভ।
মিত্রাকে কাছে টেনে নিলাম, চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিলাম, ওর নরম বুকে হাত রাখলাম, নিপিলটা সামান্য শক্ত হয়েছে, মিত্রার বগলে পুশিতে একটাও চুল নেই।
তুই সেভ করিস নাকি।
হ্যাঁ সপ্তাহে একদিন, প্রিয়েডের কয়েকদিন বাদ দিলে।
তোদের প্রিয়েড কদিন হয়।
নেকু , জানেনা যেনো।
জানবো কি করে , আমার কি বউ আছে।
আমার গালটা টিপে দিয়ে আমার বুকের ওপর শুলো, আমার হাত ওর তানপুরোর মতো পাছায় দাপা দাপি করছে।
এমনিতে তিন দিন, এক্সটেন্ড করে চারদিন পাঁচ দিন পর্যন্ত।
নেক্সট ডেট কবে।
কামিং উইক।
বাঃ।
বাঃ কেনো ।
তার মানে এখন সেফ প্রিয়েড।
ওরে শয়তান ডুবে ডুবে জল খাওয়া।
ডুবে ডুবে কোথায় জল খেলাম, আমি তোর বিছানায় তোর শরীরের সঙ্গে লেপ্টে শুয়ে আছি।
মিত্রার পুরো শরীরটা আমার শরীরের ওপর , আমার বুকটা ওর বালিশ, আমার ঘাড়ের তলা দিয়ে দুহাতে আমাকে পেঁচিয়ে ধরে আছে, পুশিটা আমার নুনুর ডগায়, কোমর দুলিয়ে মিত্রা আস্তে আস্তে ঘষছে। আমার নুনু মিত্রার পুশির জলের ছোঁয়া পেলো।
তোরটায় একটু মুখ দেবো।
আমি ওর দিকে তাকিয়ে আছি।
হ্যাঁ বল না।
একটা সর্তে।
বল কি সর্ত।
তুই আমারটায় মুখ দিবি , আমি তোরটায় মুখ দেবো।
না, প্রথমে আমি দেবো, তারপর তুই দিবি।
না একসাথে।
তোর মুখ দেখতে পারবো না।
আমিওতো তোর মুখ দেখতে পারবো না।
যাঃ দেখতে না পেলে সেক্সের মজা নেই।
মজা পেতে হবে না।
আচ্ছা আচ্ছা, তুই যা বললি তাই হবে।
আমার মুখের দিকে তোর পাছুটা নিয়ে আয়।
কেমন লজ্জা লজ্জা লাগছে।
কেনো, এখুনিতো বলছিলি…..।
আচ্ছা আচ্ছা।
মিত্রা আমার বুকের দুপাশে, দুটো পা রেখে পাছুটা আমার মুখের সামনে নামিয়ে দিলো।
বুঝতে পারছি, ঘুরে পরেই মিত্রা আমার নুনু নিয়ে ঘাঁটা ঘাঁটি শুরু করেছে, একবার শক্ত করে ধরে ওপর নীচ করছে, কখনো চামড়াটা সরিয়ে দিয়ে মুন্ডিটায় আঙুল বোলাচ্ছে। আমি ওর নিরাভরণ পুশির দিকে জুল জুল করে তাকিয়ে আছি, মিত্রার পুশির দুপাশ বেশ ফোলা ফোলা, আমি বুড়ো আঙুলের সাহায্যে পুশির দুপাশটাকে সামান্য ফাঁক করে, ওর পুশির ওপরে ফুলের ফাঁপড়ির মতো অংশে, জিভ দিলাম, মিত্রার কোমরটা কেঁপে উঠলো, ভাতরে আঙুল দিয়ে একটু ওপর নীচ করলাম, এরি মধ্যে ভিঁজে গেছে, তারপর ওর পুশির ওপর আংশে জিভ দিলাম, এরি মধ্যে বেশ গরম , আমার নুনু মিত্রার মুখের মধ্যে খাবি খাচ্ছে, বুঝতে পাচ্ছি মিত্রা খুব এ্যাগ্রেসিভ ভাবে আমার নুনু চুষে চলেছে, আমিও মিত্রার পুশি চুষতে আরম্ভ করলাম, মাঝ মাঝে ওর পুশির গভীর গর্তে আমার মধ্যম আঙুলটা ঢুকিয়ে দিচ্ছি, মিত্রা মাঝে মাঝে কোমর দোলাচ্ছে, মিত্রার পুশি চুষতে চুষতে আমি ওর পুশির ওপরের অংশের মটোর দানায় নখের আঘাত করলাম, ও অঁ অঁ করে উঠলো, কিন্তু মুখ থেকে কিছুতেই আমার নুনু বার করলো না, মাথাটা বেশ ঝিম ঝিম করছে, এই ঝিম ঝিমানিটা যন্ত্রনাদায়ক নয়, বেশ ভাললাগার।
মিত্রা আমার নুনু থেকে মুখ তুলে বললো, এই ভাবে সারারাত কাটাবি নাকি, করবি না। দেখ তোরটা কি শক্ত হয়ে গেছে।
মিত্রা পাছুটা ঘুরিয়ে নিয়ে আমার নুনুর কাছে বসেছে। পুশিটাকে নুনুতে ছুঁইয়ে, ঘষা ঘষি করছে।
তুই কর, আমি শুয়ে থাকি।
মেয়েরা করলে মজা নেই তুই কর, আমি শুই।
তুই একটু কর না।
তোর নুনুটা ধর।
না তুই নিজেই সব ঠিক ঠাক করে নে।
উঃ তোকে নিয়ে আর পারা যাবে না।
হাসলাম।
মিত্রা পাছুটা একটু তুলে পুশির গর্তে আমার নুনুর মুন্ডিটাকে রাখলো তারপর আস্তে করে বসতে চাইলো, মুহূর্তে লাফিয়ে উঠলো।
কি হলো।
দুর লাঠির মতো শক্ত, আমার লাগছে।
চেষ্টা কর।
তুই এতো শক্ত করলি কেনো, আগের দিনের মতো ভেতরে গিয়ে শক্ত হতো।
আমি করলাম কই তুইতো চুষে চুষে……।
মিত্রা আবার চেষ্টা করলো, এবার আমার মুন্ডিটা সামান্য ভেতরে গেছে, ও আর একটু চাপ দিলো, আমি লক্ষ্য করছি, বড় কাতলা মাছ, একটা ছোট মাছকে আস্তে আস্তে হাঁকরে গিলে নিচ্ছে, ওর পুশির মটোর দানার মতো অংশটা, আরো ফুলে উঠেছে, আমি হাত বাড়িয়ে আঙুল দিলাম।
খুব মজা না।
হাসলাম।
মিত্রার পুশির মধ্যে আমার নুনু অদৃশ্য হয়ে গেলো, মিত্রা হাত বাড়িয়ে দিলো, আমি ওকে বুকে টেনে নিলাম।
কি রে লাগছে।
মিত্রার আমার বুকে মুখ ঘোষে ঘোষে জানাল না। আমি ওর মাথায় হাত রাখলাম, ওর এলো চুল আমার বুকে, মুখে ছরিয়ে পড়েছে, মিত্রার মাইএর বোঁটা দুটো বেশ শক্ত হয়ে গেছে, আমার বুকের নিচের অংশে ওর বুকের নিপিল দুটো পিনের মতো ফুটছে, ওর গভীর উষ্ণ নিঃশ্বাস আমার বুকে জ্বালা ধরাচ্ছে, মিত্রা ওর পুশির ঠোঁট দিয়ে আমার নুনুকে চাপ দিচ্ছে, যেন বাকি অংশটাও ভেতরে নিয়ে নিতে চাইছে।
কিরে ঘুমিয়ে পরলি।
না। তোর বুকের লাব ডুব শব্দ শুনছি।
কর।
না করতে ভাল লাগছে না। এই ভাবে থাকতে বেশ ভাল লাগছে।
ঘষা ঘষি না করলে বেরোবে না।
তুই কর।
নীচ থেকে করা যায়, তুই যে ভাবে জাপ্টে ধরে শুয়ে আছিস।
মিত্রা ঠোঁট বারিয়ে আমার ঠোঁটে ঠোঁট রাখলো, ওর শরীরটা পরকে পর বেশ গরম হয়ে যাচ্ছে, লোহা গরম হ্যায় মার দো হাতোরা। কথাটা মনে পরতেই, আমি নীচের থেকে কোমর দোলাতে আরম্ভ করলাম, মিত্রা ঠোঁট থেকে ঠোঁট সরিয়ে নিয়ে মৃদু হাসলো, ওর চোখ দুটো ফ্যাকাসে, সামান্য জল টল টল করছে।
কি হলো।
তোকে এতো দিন খুব মিস করেছি।
দূর। ওর মুখটা চেপে ধরে ওর দুচোখে জিভ বোলালাম। আমার কোমর থেমে গেছে।
কি রে থামলি কেনো, কর।
আমি ওর দিকে স্থর দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি, তারপর ওকে জাপ্টে ধরে একপাক ঘুরে গেলাম, ও আমার নীচে আমি ওর ওপরে, মিত্রা হাসছে, পা দুটো দু পাশে যতদূর সম্ভব ফাঁক করলো, আমারটা ওর কাদামাটিতে গেঁথে আছে, এখন তুলতে চাইলেও উঠবে না, আমি মৃদু কোমর দোলাচ্ছি, মিত্রা মাঝে মাঝে মাথাটা তুলে আমায় চুমু খাচ্ছে, আমি কোমর দোলানোর গতি বারালাম, মিত্রার উন্মুক্ত বুক কেঁপে কেঁপে উঠছে, ওর নিটোল বুকের বোঁটা দুটো বেশ ফুলে ফুলে উঠেছে, আমি মিত্রার বুক থেকে দুহাতে ভর দিয়ে উঠলাম, মিত্রা পা দুটো ভাঁজ করে আমার পাছার ওপর রেখে সাঁড়াসির মতো চেপে ধরলো, আমি করছি , নরম মাটি কর্ষণ করতে দারুন মজা লাগছে, মিত্রা আমার উরুর তলায় শুয়ে পরিপূর্ণতার স্বাদ খুজছে, মাঝে মাঝে ওর দুচোখ আবেশে বুঁজে আসছে, মিত্রা আমার হাত দুটোচেপে ধরলো, ওর পায়ের বেরি খসে পরলো, পা দুটো সামান্য ওপরে তুলে ধরলো, বুবুন একটু আস্তে, বেরিয়ে যাবে, তোর বেরোবে, আমিও আর রাখতে পারছিনা, আমারও প্রায় হয়ে যাবার অবস্থা। তোর বেরোবে, মিত্রা আবেশ ভরা চোখে প্রতিউত্তর দিলোহ্যাঁ, আমি গতিটা একটু বারালাম, মিত্রার দুইপা আরো ওপরে উঠলো, আমার হাত দুটো ভীষণ শক্ত করে ধরেছে, হঠাত মাথাটা তুলে আমার ঠোঁটে ঠোঁট রেখে ওর বুকে টেনে নিলো, থর থর করে কেঁপে উঠলো, আমিও ওর কাঁপুনিতে সারা দিয়ে কেঁপে উঠলাম, তখনো আমার কোমর হাল্কা ভাবে ওর পুশির ওপর যাওয়া আসা করছে, আমি ওর নিভৃত বুকে আশ্রয় নিলাম, একটু হাঁপিয়ে গেছি, আমার বুকের লাব ডুব শব্দ আমি নিজেই শুনতে পাচ্ছি, ওর মাইএর নিপিল দুটো শক্ত হয়ে আখরোট হয়ে গেছে, আমি জিভ দিয়ে ওর বুকের নিপল চুষছি, ও কেঁপে কেঁপে উঠছে।
কতোক্ষণ দুজনে নিস্তব্ধ হয়ে শুয়েছিলাম জানি না , খালি দুজনে দুজনের নিশ্বাস প্রশ্বাসের শব্দ শুনেছি, একে অপরের বুকের লাবডুব শব্দ শুনছি, মিত্রার নরম হাত আমার চুলে বিলি কাটছে, মাথার ঝিম ঝিমানি ভাবটা এখন সম্পূর্ণ অদৃশ্য, আমার নুনু এখন অনেকটা নরম হয়ে এসেছে।
কি রে এই ভাবে শুয়ে থাকবি।
আর একটু।
উঠবি না।
না।
কাল অনেক কাজ।
এই মুহূর্ত টুকু আর চেষ্টা করলেও পাবো না।
তোর ভালো লেগেছে।
তোর ঐটায় এতো রস আগে ভাবি নি।
কেনো।
আমার ভেতরটা একেবারে পুকুর হয়ে গেছে।
হাসলাম।
মিত্রার বুক থেকে মুখ তুললাম, ওর চোখ চক চক করছে, দুবার কোমর দুলিয়ে দিলাম, আঃ বলে মিত্রা একবার কোমর উঠিয়ে নামিয়ে দিলো।
ঘেমে গেছিস।
স্বাভাবিক, আমি কষ্ট করলাম, তুই এনজয় করলি।
শয়তান। মিত্রা আমার নাকটা টিপে দিলো। ওঠ।
কেনো।
ওই যে বললি কাল সকালে অনেক কাজ।
আমি উঠে পরলাম, মিত্রা উঠে বসে আমার নুনুতে একবার হাত দিলো, আমার দিকে তাকিয়ে একবার হাসলো,
তোর এইটাতে কতো আনন্দ।
তোরটাও বা কম কিসে।
তোরটা ছাড়া আমারটা নিষ্ফলা।
মিত্রা টাওয়েল দিয়ে আমারটা মুছিয়ে দিলো, নিজেরটাও মুছলো, তারপর মিত্রা নিজের পোষাক পরলো, আমিও নিজের পোষাক পরলাম, দুজনে দুজনকে জাপ্টে ধরে শুয়ে পরলাম।

সকালে মিত্রার ডাকে ঘুম ভাঙলো, সেই এক চিত্র, মিত্রা ঠাকুর ঘর থেকে বেরিয়েছে, সেই লালপাড় সারি, মাথায় একগাদা সিঁদুর, মা মা, ঘরের গৃহিণী ভাব। আমি উঠে বসে রেডি হয়ে পরলাম, তাড়াতাড়ি। দুজনে সেই লুচি বাটি চড়চড়ি খেয়ে বেরিয়ে পরলাম।
হিমাংশুর অফিসে এলাম সাড়ে দশটা নাগাদ, অমিতাভদা, মল্লিকদা , মিত্রা আমার হয়ে সাক্ষী দিলেন, ওখানে একঘন্টার কাজ ছিল। কাজ শেষে, হিমাংশুকে আলাদা করে ডেকে নিয়ে গিয়ে বললাম , আমাকে একটা আছোলা বাঁশ দিলি, বেশ চলছিলো, কিন্তু তুই থামিয়ে দিলি। হিমাংসু হেসে বললো, সব ভালো যার শেষ ভালো। তোকে মিত্রার সঙ্গে জুড়ে দিলাম, না হলে মিত্রার একার পক্ষে কনট্রোল করা সম্ভব হোত না।
ওর দিকে তাকালাম। ও আমার মিত্রার সম্বন্ধে কোন আঁচ করতে পেরেছে কিনা। ওর চোখ সেই কথা বলছে না।
এরপর আমার করনীয় কি আছে।
খাতা পত্র গুলো সাজিয়ে নিই। আর একজন যে ডিরেক্টর আছে, তাকে জানাতে হবে। এখন আমার অনেক কাজ।
তোর কাজ কবে শেষ হবে।
আগামী সপ্তাহে কমপ্লিট করে ফেলবো ভাবছি।
শেষ কর আমি তোর সঙ্গে বসবো, কতগুলো স্ট্রাটিজি নিয়ে।
ঠিক আছে। তুই কবে যাচ্ছিস।
তোর এখান থেকে বেরিয়ে বড়মার সঙ্গে একবার দেখা করবো, তারপর চলে যাবো।
ফিরবি কবে।
তুই অফিসের সম্বন্ধে সব জানিস তো।
হ্যাঁ, মিত্রা কিছু কিছু বলেছে, তুই ঠিক ডিসিসন নিচ্ছিস।
মিত্রা একা পরে গেছে।
বুঝতে পেরেছি। তুই ওদিকটা সামলা আমি এদিকটা সামলে দেবো।
এখন যারা আছে, সব বিষ মাল।
জানি, খালি ধান্দা বাজি। তবে ঘুঘুর বাসা পরিষ্কার করতে তোকে হিমসিম খেতে হবে।
জানি, তবে ওটা সামলাতে আমার বেশিক্ষণ সময় লাগবে না।
ঠিক আছে, তোর সময় নষ্ট করবো না। তুই যা এখন , কলকাতায় ফিরলে আমায় একবার নক করিস।
ঠিক আছে।

কিছু লিখুন অন্তত শেয়ার হলেও করুন!

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s